গবাদি পশুর খাদ্য তৈরি করে মাসে 6 লাখ টাকা আয় করুন | Cattle feed business right now

আমাদের দেশে গবাদি পশুর চাষ এত বেশি পরিমাণে হয় যে এদের সুষম খাদ্য দেবার জন্য প্রায় প্রতিটা খামারি বাজার থেকে অনেক দামী দামী খাবার কিনে আনে। আপনি যদি আপনার এলাকায় গবাদি পশুর খাদ্য বানান এবং তা প্রতিটি দোকানে বা খামারিদের বিক্রি করেন তাহলে এই ব্যবসা থেকে অনেক টাকা উপার্জন করতে পারেন। আপনি যদি একটু খোঁজ করেন তাহলে বুঝতে পারবেন গবাদি পশুর খাদ্য তৈরির ব্যবসা আপনার এলাকাতে কোন ব্যবসায়ী করে না। সাধারণত গবাদিপশুর খাদ্য প্রস্তুতকারী বড় কোম্পানি সম্পূর্ণ মার্কেটটা দখল করে রেখেছে, এবং যথাযত মানের সুষম খাদ্য তারা প্রদান করেনা, বরং তাদের ব্র্যান্ড নামের ভিত্তিতেই তাদের প্রোডাক্ট বিক্রি হয়ে যায়।

তাই আপনি আপনার এলাকাতেই অল্প পুঁজি দিয়ে শুরু করতে পারেন ক্যাটল ফুড ব্যাবসা (Cattle feed Business)। তাই আপনাদের সুবিধার্থে ক্যাটল ফুড ব্যবসার সম্পর্কিত যাবতীয় তথ্য নিয়ে আজকের এই সম্পূর্ণ পোস্টটি তৈরি করা হলো। আপনারা চাইলে এই পোস্ট পড়ে নিজে উদ্যোগে শুরু করতে পারেন আপনার এলাকাতে গবাদিপশুর খাদ্য তৈরির ব্যবসা।

Table of Contents

ক্যাটল ফুড ব্যাবসা কিভাবে শুরু করা যায়? (How to start Cattle feed business?)

ক্যাটল ফুড ব্যবসা বা গবাদি পশুর খাদ্য তৈরির ব্যবসা অনেক ইউনিক একটি ব্যবসা। কারণ এই ব্যবসা আপনার এলাকাতে তেমন কোনো ব্যবসায়ী করে না তাই মার্কেটে আপনি খুব সহজেই প্রোডাক্ট তৈরি করে বিক্রি করতে পারবেন।Cattle feed তৈরি করার পর বাজারে বিক্রি করার জন্য আপনাকে খুব বেশি চিন্তা করতে হবে না। একজন মার্কেটিং এর জন্য কর্মচারী নিয়োগ করে খুব সহজেই আপনি বাজারের প্রতিটি গবাদি পশুর খাদ্যের দোকানে বিক্রি করে ভালো টাকা উপার্জন করতে পারবেন। আবার আপনি চাইলে সরাসরি গবাদি পশুর খামারে বিক্রি করতে পারেন এই ক্যাটল ফুড। তবুও ব্যবসা শুরুর আগে আপনাকে একটু মার্কেট রিসার্চ করে নিয়ে দেখতে হবে আপনার এলাকার বাজার চাহিদা কেমন আছে তা সম্বন্ধে।

আপনি যদি আগে থেকেই জেনে থাকেন আপনার এলাকাতে অনেক গরুর খামার বা মুরগির খামার কিংবা ছাগলের খামার রয়েছে তাহলে আপনি খুব সহজেই এই ব্যবসা থেকে ভালো টাকা উপার্জন করতে পারবেন। আর মার্কেট রিসার্চ করে যদি দেখেন আপনার এলাকাতে খুব বেশি খামার নেই সেক্ষেত্রে ব্যবসা করতে গেলে আপনাকে প্রোডাক্ট তৈরি করে অন্য রাজ্যে অথবা অনলাইনের মাধ্যমে বিক্রির ব্যবস্থা করতে হবে। তবে বাংলার প্রায় প্রতিটা খামারে পর্যাপ্ত পরিমাণে গবাদি পশু থাকার কারণে তাদের খাদ্যের যোগান দেওয়া অনেকটাই চাপের। এই কারণে আপনি আপনার এলাকাতেই শুরু করতে পারেন গবাদি পশুর খাদ্য তৈরীর ব্যবসা।

অবশ্যই পড়ুন- গরুর খামারের ব্যবসা

গবাদি পশুর খাদ্য তৈরি করতে কি কি কাঁচামাল লাগে? (What raw materials are needed to do Cattle feed business?)

ক্যাটল ফুড ব্যাবসা করতে গেলে আপনাকে জানতে হবে গবাদি পশুর খাদ্য তৈরীর সুষম জিনিসগুলি সম্পর্কে। আপনি যদি নিজে একজন গবাদি পশুর খামারি হয়ে থাকেন তাহলে আপনি আগে থেকেই জানেন গবাদি পশুর কি ধরনের খাদ্য খেলে তাদের স্বাস্থ্য ভালো থাকে। আর না জেনে থাকলে আপনাকে আগে থেকে জানতে হবে একটি গবাদি পশুকে কি ধরনের খাদ্য বেশি করে খাওয়ানো উচিত। ক্যাটল ফুড ব্যাবসা করতে গেলে যে সকল র মেটিরিয়াল আগে থেকে আপনাকে জোগাড় করতে হবে তা হল-

  • গম
  • ভুট্টা
  • ধানের খোসা
  • সোয়া খোসা
  • সরিষার খোল
  • ছোলা
  • তুলার দানা
  • মিনারেল মিক্সচার
  • মিঠা সোডা
  • LSP
  • বাইপাস ফ্যাট
  • লবণ
Cattle feed
গবাদি পশুর খাদ্য

ক্যাটল ফুড তৈরীর কাঁচামাল কোথায় কিনতে পাওয়া যায়? (Where to buy raw materials for making Cattle feed?)

ক্যাটল ফুড ব্যাবসা করতে গেলে আপনাকে আগে থেকেই প্রয়োজনীয় সমস্ত কাঁচামাল বস্তা ভরে কিনে আনতে হবে অনেকটা বেশি পরিমাণে। কারণ একটি মেশিন থেকে প্রতিদিন যে প্রোডাকশন হবে তা অনুযায়ী কাঁচামাল কিনতে গেলে অবশ্যই আপনাকে প্রতিটি কাঁচামাল বস্তা ভরে অনেক বেশি পরিমাণে কিনতে হবে। তবে আপনি যদি একজন সাধারণ খামারি হয়ে থাকেন এবং নিজস্ব গবাদি পশুগুলির জন্য ক্যাটল ফুড তৈরি করতে চান তাহলে আপনি অল্প পরিমানে কিনে নিয়ে কাজ চালাতে পারেন। সাধারণত এই Cattle feed কাঁচামাল গুলি কেনার জন্য আপনাকে যেতে হবে আপনার এলাকার বড় পাইকারি বাজারে।

কলকাতার বড়বাজার অথবা যেখানে ভুট্টা গম চাষ হয় সেখানের খামারিদের কাছ থেকে সরাসরি কুইন্টাল কুইন্টাল কাঁচামাল কিনে নিয়ে আসতে পারেন। তবে ব্যবসাতে বিনিয়োগ যদি কম থাকে তাহলে আপনি কলকাতার বড়বাজার থেকে নির্দিষ্ট পরিমাণ মতো সকল প্রকার কাঁচামাল কিনে নিয়ে এসে ব্যবসা করতে পারেন। বাংলাদেশে যারা থাকেন তারা ঢাকার চকবাজার থেকে খুব সহজেই সকল প্রকার কাঁচামাল বস্তা বস্তা কিনতে পারেন। যেহেতু আপনি ক্যাটল ফুড ব্যাবসা উঠছেন তাই আপনাকে অবশ্যই একটু বেশি পরিমাণে সমস্ত ধরনের কাঁচামাল কিনতে হবে।

গবাদি পশুর খাদ্য তৈরি করতে কি কি মেশিন লাগে? (What machines are needed to make Cattle feed?)

গবাদিপশুর খাদ্য তৈরীর ব্যবসা আপনি যদি করেন তাহলে অবশ্যই আপনাকে একটা অথবা একাধিক মেশিন কিনে ব্যবসার কাজ করতে হবে। আপনার কাছে যদি খুব অল্প পরিমাণ পুঁজি থাকে তাহলে আপনি ছোট মেশিন কিনে ব্যবসা করতে পারেন তবে সেই ছোট মেশিনের সম্পূর্ণ রূপে সুষম ক্যাটল ফুড তৈরি করা যায় না। সুষম গবাদি পশুর খাবার তৈরি করতে গেলে আপনাকে কমপক্ষে তিনটি মেশিন কিনতে হবে। একটা মেশিন খাবারটি গুঁড়ো পড়বে আরেকটি মেশিন খাবার কে মিক্সিং করবে এবং সর্বশেষ মেশিন গবাদি পশুর খাবার তৈরি করবে। আর আপনার কাছে পুঁজি কম থাকলে আপনি ছোট সর্বশেষ মেশিনটি দিয়েই গবাদি পশুর খাদ্য বানাতে পারেন। সাধারণত ক্যাটল ফুড ব্যাবসা উঠতে গেলে যে সকল মেশিনের প্রয়োজন হয় তা হল-

  1. গ্রাইন্ডার মেশিন (grinder machine)
  2. মিক্সার মেশিন (Mixer machine)
  3. ক্যাটল ফিড মেশিন (Cattle feed machine)

গবাদি পশুর খাদ্য তৈরীর মেশিন কোথায় কিনতে পাওয়া যায়? (Where to buy Cattle feed making machine?)

ক্যাটল ফুড ব্যাবসা করতে গেলে আপনাকে আগেই মেশিন কিনতে হবে। আর এই মেশিন বর্তমানে প্রায় সমস্ত বড় শহরের মেশিনারি গুলিতে বিক্রি হয়ে থাকে। তাই আপনি যে এলাকাতেই থাকুন না কেন সেই এলাকার বড় মেশিনারি কোম্পানি বা দোকানে যোগাযোগ করুন এবং সেখান থেকেই মেশিন কিনুন। তবে যদি আপনি চান সরাসরি মেশিন মানুফ্যাকচারার কোম্পানির কাছ থেকে মেশিন কিনবেন তাহলে অবশ্যই আপনাকে আসতে হবে কলকাতার বড় মেশিন ম্যানুফ্যাকচারার কোম্পানির কাছে অথবা ঢাকার ম্যানুফ্যাকচারার এবং হোলসেলার মেশিন নির্মাতা কোম্পানির কাছে।

আপনাদের সুবিধার্থে এমন কিছু মেশিন ম্যানুফ্যাকচারার কোম্পানির যোগাযোগ নাম্বার এবং ঠিকানা নিচে দেওয়া হল যাদের সাথে আপনি সরাসরি কথা বলে ক্যাটল ফুড ব্যাবসা শুরু করতে পারবেন এবং মেশিন কিনে নিয়ে আপনার এলাকাতে যেতে পারবেন। এইসব মেশিন ম্যানুফ্যাকচারার কোম্পানিগুলি আপনাকে Cattle feed বানানোর ট্রেনিং দিয়ে দেবে এবং আপনার ব্যবসা করার জন্য অনেকটা সাহায্য করবে।

ক্যাটল ফুড মেশিনের দাম কত? (How much does a Cattle feed machine cost?)

ক্যাটল ফুড ব্যবসা করতে গেলে আপনাকে যেমন ক্যাটল ফুট মেশিন কিনতে হবে তেমন এই মেশিন যাতে অল্প দামে কেনা যায় তার জন্য সঠিক জায়গায় যেতে হবে। গবাদি পশুর খাবার তৈরি করার মেশিন বিভিন্ন কোম্পানি বিভিন্ন দামে বিক্রি করলেও বর্তমান বাজারে একটা মেশিন 40 হাজার টাকা থেকে 70 হাজার টাকার মধ্যে পাওয়া যায়। তবে আপনি যদি ক্যাটল ফুড ব্যবসা বড় করে করতে চান এবং প্রতিমাসে 5-7 লাখ টাকা আয় করতে চান তাহলে অবশ্যই আপনাকে সম্পূর্ণ মেশিন কিনে ব্যবসা করতে হবে। সম্পূর্ণ মেশিনের দাম একটু বেশি হলেও প্রোডাকশন ক্ষমতা অন্যান্য মেশিন গুলির থেকে অনেক বেশি পরিমাণে হয় এবং একটি গরুর সুষম খাদ্য তৈরি করার জন্য সম্পূর্ণ মেশিন কেনা অত্যন্ত জরুরি। ক্যাটল ফুড ব্যবসা করার প্রয়োজনীয় মেশিন গুলির দাম হল-

  • গ্রাইন্ডার মেশিন – 1 লাখ থেকে 2 লাখ টাকা দাম।
  • মিক্সার মেশিন– 80 হাজার টাকা থেকে 1.5 লাখ টাকা দাম।
  • ক্যাটল ফিড মেশিন– 50 হাজার টাকা থেকে 1.5 লাখ টাকা দাম।

আপনি চাইলে শুধুমাত্র ক্যাটল ফিট মেশিন কিনে ব্যবসা করতে পারেন। এই একটা মেশিন দিয়ে আপনি সব ধরনের পশু ও মাছের খাবার তৈরি করতে পারবেন। বর্তমানে প্রায় সমস্ত ব্যবসায়ী গরু, ছাগল, হাঁস-মুরগি এবং মাছের বিভিন্ন ধরনের খাবার তৈরি করেন এই একটা মেশিন দিয়ে।

কিভাবে গবাদি পশুর খাবার বানানো হয়? (How is cattle feed made?)

ক্যাটল ফুড ব্যবসা করতে গেলে জানতে হবে গবাদি পশুর খাবার বানাতে কি ফর্মুলা ব্যবহার করা হয় এবং কোন পদ্ধতিতে সুষম পুষ্টিকর খাবার তৈরি করা হয়। বিভিন্ন ধরনের খাবারের জন্য আলাদা আলাদা ফর্মুলা ব্যবহার করা হলেও সাধারণ একটি ফর্মুলা এখানে দেওয়া হল। আপনি যখন নিজ উদ্যোগে এই ব্যবসা শুরু করবেন তখন যেখান থেকে মেশিন কিনবেন সেখানেই তারা আরও অনেক ফর্মুলা দিয়ে দেবে। গরুর বেশি দুধ পাওয়ার জন্য এক ধরনের খাদ্য তৈরি করা হয়, আবার স্বাস্থ্যকর গরুর বাচ্চা জন্মানোর জন্য আলাদা খাদ্য, মুরগীর বেশি ডিম পাওয়ার জন্য আলাদা খাদ্য হয়, আবার সাধারণ খাদ্য তৈরি করা হয়। এইরকম বিভিন্ন ধরনের কাজের জন্য বিভিন্ন ধরনের খাদ্য তৈরি করা হয় এবং তার নির্দিষ্ট ফর্মুলা রয়েছে। গরুর খাবারের জন্য পুষ্টিকর খাদ্য তৈরি করার সাধারণ ফর্মুলাটি হল-

  • গম অথবা ভুট্টা 35%
  • ধানের খোসা 10%
  • সয়াবিন্স খোসা 15%
  • সরিষার খোল 10%
  • ছোলা 20%
  • তুলার দানা 5%
  • LSP 1%
  • মিনারেল মিক্সচার 1%
  • মিঠা সোডা ½%
  • লবণ 1%
  • বাইপাস ফ্যাট 1½%

গবাদি পশুর খাদ্য তৈরি

  1. প্রথমে ভুট্টা জাতীয় শক্ত জিনিসগুলি গ্রাইন্ডার মেশিনে গুঁড়ো করে নিতে হয়।
  2. সমস্ত জিনিস গুঁড়ো হয়ে গেলে মিক্সার মেশিনে ভালো করে মিক্সারটি রেডি করতে হয়। এই মিক্সারটি রেডি করার সময় পরিমাণ মতো নুন, মিঠা সোডা এই ধরনের জিনিস গুলি মিশিয়ে দিয়ে মিশ্রণটি তৈরি করতে হবে।
  3. মিক্সার মেশিনে সম্পূর্ণ মিশ্রণটি তৈরি হয়ে গেলে ক্যাটল ফিড মেশিনে ঢেলে মেশিন চালিয়ে দিলে খুব দ্রুততার সাথে প্রোডাক্ট তৈরি হয়ে যাবে।
  4. সমস্ত প্রোডাক্টগুলি 25 কেজির বস্তা এবং 50 কেজির বস্তায় ভরে বাজারে বিক্রি করার জন্য প্রস্তুত করতে হবে।

আরো পড়ুন- মিষ্টির ব্যবসা শুরু করুন

ক্যাটল ফুড ব্যবসা পড়তে কত বড় জায়গার প্রয়োজন? (How much space is needed to study Cattle feed business?)

ক্যাটল ফুড ব্যবসা করার জন্য আপনাকে প্রয়োজনীয় মেশিনারি ছাড়াও কাঁচামাল রাখার জন্য পর্যাপ্ত পরিমাণের গোডাউন এবং তৈরি হওয়া প্রোডাক্ট রাখার জন্য বড় জায়গার প্রয়োজন পড়বে। তাই Cattle feed ব্যবসা করতে এবং একটি কারখানা তৈরি করতে কমপক্ষে 200 স্কয়ার ফিট থেকে 400 স্কয়ার ফিট জায়গার প্রয়োজন রয়েছে। বড় জায়গা হলে বড় আকারের গোডাউন তৈরি করা যাবে। আর ছোট জায়গা হলে আলাদা কোন একটি জায়গায় বা ঘরে গোডাউন বানাতে হবে। তাই আপনি যখন এই ব্যবসা শুরু করবেন তখন একটু বড় জায়গাতে আগে থেকে একটি গোডাউন তৈরি করে বা কারখানা তৈরি করে সেখানেই গোডাউন এবং ব্যবসার কাজ একসাথে করতে পারেন।

ক্যাটল ফিড মেশিন কি ধরনের ইলেকট্রিক চলে?

ক্যাটল ফুড ব্যবসায় যে ক্যাটল ফিড মেশিন ব্যবহার করবেন তা চালানোর জন্য থ্রি ফেজের ইলেকট্রিকের প্রয়োজন পড়ে। এছাড়া যেহেতু আপনি ব্যবসা করবেন এবং বড় মেশিন চালাবেন তাই আপনাকে অবশ্যই কমার্শিয়াল ইলেকট্রিক এর জন্য আবেদন করতে হবে ইলেকট্রিক দপ্তরে। কমার্শিয়াল ইলেকট্রিক লাইন আসার পরেই আপনি মেশিন চালাতে পারবেন 220 ভোল্টে। সাধারণত একটি মেশিন 8 ঘন্টা চললে 16 থেকে 25 ইউনিট বিদ্যুৎ খরচ হয়। ছোট ক্যাটল ফিট মেশিন কিনে আপনি চাইলে আপনার বাড়ির ইলেকট্রিক এই অর্থাৎ টু-টোয়েন্টি ভোল্টের টু ফেজে চালাতে পারেন। তবে মটরের ক্ষমতা যেন 3hp অথবা 5hp মধ্যে থাকে।

গবাদিপশুর খাদ্য তৈরীর ব্যবসা করতে কি কি লাইসেন্স লাগে?

Cattle feed business বা গবাদি পশুর খাদ্য তৈরীর ব্যবসা করতে গেলে আপনাকে বাণিজ্যিক কিছু কারণবশত একাধিক লাইসেন্স নিতে হবে। যেহেতু আপনি এই ব্যবসা করে মার্কেটে প্রোডাক্ট বিক্রি করবেন তাই আপনাকে আপনার ব্যবসার জন্য যে সকল লাইসেন্সগুলি নিতে হবে তা হল-

  • ট্রেড লাইসেন্স
  • MSME development লাইসেন্স
  • জি এস টি নাম্বার
  • কমার্শিয়াল ইলেকট্রিক
  • কারেন্ট ব্যাংক অ্যাকাউন্ট
  • নাগরিকত্বের প্রমাণপত্র
cattle feed machine
ক্যাটল ফিড মেশিন

কিভাবে ক্যাটল ফুডের মার্কেটিং করবেন? (How to market Cattle feed?)

ক্যাটল ফুড ব্যবসা করতে গেলে আপনাকে সঠিকভাবে মার্কেটিং করতে হবে। কারণ আপনি একটু মার্কেট রিসার্চ করলে দেখতে পাবেন বর্তমানে প্রায় বড় বড় কোম্পানিগুলি এই ধরনের খাবারের মার্কেটটা দখল করে রেখেছে অনেক আগে থেকেই। আর এই বড় বড় নামিদামি কোম্পানির মার্কেটিং স্ট্যাটাজি বুঝে আপনাকেও সঠিক পদ্ধতিতে আধুনিক নিয়মে মার্কেটিং করতে হবে, এবং আপনার কোম্পানিতে তৈরি হওয়া প্রোডাক্ট বিক্রি করতে হবে। Cattle feed business ব্যবসার সাথে যে সকল ব্যবসায়ীরা এখন জড়িয়ে আছেন তারা সকলেই নিজস্ব মার্কেট ধরার জন্য অনেক কঠোর পরিশ্রম এবং সঠিক মার্কেটিং স্ট্যাটেজির কারণেই তাদের ব্যবসার উন্নতি করতে পেরেছেন। তাই আপনি আপনার ব্যবসা বড় করার জন্য এবং আপনার কোম্পানিতে তৈরি হওয়ার প্রতিদিনের প্রোডাক্ট প্রত্যেকদিন বিক্রি করার জন্য যে পদ্ধতিতে মার্কেটিং করতে পারেন তা হল-

  • যে এলাকায় আপনি ব্যবসা করছেন সেই এলাকার আশেপাশের সমস্ত গবাদি পশুর খামারগুলিতে তৈরি করা প্রোডাক্ট বিক্রি করতে পারেন।
  • বিক্রি করার আগে প্রতিটা প্রোডাক্টের অল্প 1 কেজি স্যাম্পেল প্যাকেট তৈরি করে প্রতিটি খামারিকে দিয়ে টেস্টিং এর জন্য বলতে পারেন এবং প্রোডাক্ট কোয়ালিটি কেমন হয়েছে তার রিভিউ করতে পারেন।
  • আপনার এলাকার যে সকল দোকানে গবাদি পশুর খাবার বিক্রি হয় সেই সব দোকানে আপনার কোম্পানির তৈরি হওয়া Cattle feed প্রোডাক্ট বিক্রি করতে পারেন।
  • আপনার এলাকায় যে সকল মাছের চাষী রয়েছেন তাদেরকে মাছের খাবার বিক্রি করতে পারেন।
  • অনলাইনে ইলিয়ামার্ট ওয়েবসাইটে তৈরি হওয়া প্রোডাক্ট বিক্রি করতে পারেন।
  • আপনার এলাকার কাছাকাছি বড় পাইকারি বাজার গুলিতে হোলসেল দামে প্রোডাক্ট বিক্রি করতে পারেন।
  • কলকাতার বড়বাজার বা ঢাকার চকবাজার এই ধরনের বড় পাইকারি বাজারে পাইকারি দামে প্রোডাক্ট বিক্রি করা যেতে পারে।
  • একজন মার্কেটিং সেলসের কর্মচারী নিযুক্ত করে তার মারফত এলাকায় এলাকায় মার্কেটিং করে ব্যবসার বিক্রি বাড়াতে পারেন।
  • বিভিন্ন এলাকায় ডিস্ট্রিবিউটার তৈরি করে তাদের মারফত আপনার কোম্পানির তৈরি হওয়া Cattle feed বিক্রি করতে পারেন।
  • Google facebook ও ইউটিউবে অল্প টাকা খরচ করে আপনার কোম্পানির প্রোডাক্টের বিজ্ঞাপন দিতে পারেন।
  • ছোট-বড় পোস্টার ছাপিয়ে বিভিন্ন এলাকায় ইলেকট্রিক পোস্টে লাগিয়ে আপনার কোম্পানির প্রোডাক্ট এর বিজ্ঞাপন দিতে পারেন।
  • ফ্লেক্স ও ব্যানার ছাপিয়ে বিভিন্ন এলাকায় বা জনবহুল মোড় গ্রামাঞ্চল সমস্ত জায়গাতে বিজ্ঞাপন দিতে পারেন। যেখানে আপনি জানেন আপনার তৈরি হওয়া প্রোডাক্ট এর কাস্টমার রয়েছে, সেই এলাকাতে।
  • নিজস্ব ওয়েবসাইট তৈরি করে সেই ওয়েবসাইটে ই-কমার্স ব্যবসার মাধ্যমে আপনার কোম্পানির তৈরি হওয়া ক্যাটল ফুড বিক্রি করতে পারেন।

অবশ্যই পড়ুন- দুধের ব্যবসা করে 50 হাজার টাকা আয়

গবাদি পশুর খাদ্য তৈরির ব্যবসায় বিনিয়োগ কত লাগে? (How much does it take to invest in Cattle feed business?)

ক্যাটল ফুড ব্যবসা বা গবাদি পশুর খাদ্য তৈরির ব্যবসা করতে গেলে বিনিয়োগটি একটু বেশি করে করলে ভালোভাবে ব্যবসাটি করা যায়। আর আপনার কাছে যদি পুঁজি কম থাকে তাহলে আপনি ছোট একটা মেশিন কিনে অল্প পুঁজি বিনিয়োগ করে ব্যবসা করতে পারেন। তবে বেশি বিনিয়োগ করলে সমস্ত ধরনের মেশিন এবং প্রয়োজনীয় কাঁচামাল অনেক সস্তায় কিনতে পাওয়া যায়। তাই বলা যেতে পারে ক্যাটল ফুড ব্যবসা করতে গেলে কমপক্ষে 6 লক্ষ টাকা থেকে 10 লক্ষ টাকা বিনিয়োগ করলে সম্পূর্ণরূপে বড় করে ব্যবসা করা যায়।

তবে আপনার কাছে যদি পুঁজি কম থাকে তাহলে আপনি চাইলে 50 হাজার টাকা থেকে 80 হাজার টাকা বিনিয়োগ করে এই ব্যবসা ছোট আকারে শুরু করতে পারেন। তবে মনে রাখবেন ছোট আকারে শুরু করলে যে সকল কাঁচামাল মেশিনে দেবেন তা সম্পূর্ণরূপে সুষম খাদ্য তৈরি করতে সক্ষম হবে না। আর সুষম খাদ্য গবাদি পশুর জন্য তৈরি করতে হলে অবশ্যই আপনাকে কমপক্ষে তিনটি মেশিন কিনে ব্যবসা করতে হবে।

ক্যাটল ফুড ব্যবসায় লাভ কত? (How much profit in cattle feed business?)

ক্যাটল ফুড ব্যবসা যেমন একটু বেশি পুঁজি বিনিয়োগ করে শুরু করতে হয় তেমন এই ব্যবসা থেকে লাভ হয় অনেক বেশি পরিমাণে। সাধারণত আপনি যদি 10 লক্ষ টাকা বিনিয়োগ সম্পূর্ণরূপে Cattle feed business করেন তাহলে প্রতি মাসে আপনি 5 থেকে 6 লাখ টাকা আয় করতে পারবেন। বোঝার সুবিধার জন্য বলা যেতে পারে 3HP মোটরে প্রতি ঘন্টায় 100 থেকে 150 কেজি প্রোডাক্ট বানানো গেলে 8 ঘন্টায় অর্থাৎ একদিনে আপনি 800 কেজির মত প্রোডাক্ট তৈরি করতে পারেন। প্রতি কেজি প্রোডাক্ট তৈরি করতে আপনার খরচ হবে 20 টাকা থেকে 25 টাকা। সাধারণ পাইকারি মার্কেটে আপনি বিক্রি করতে পারেন 32 টাকা থেকে 40 টাকা প্রতি কেজি দামি।

প্রতিদিনের তৈরি হওয়া 800 কেজি ক্যাটল ফুড এর মধ্য যদি আপনি 500 কেজি বিক্রি করতে পারেন তাহলেই আপনার লাভ থাকবে 5 হাজার টাকা। অর্থাৎ আপনি ক্যাটল ফুড ব্যবসা থেকে প্রতিদিন কমপক্ষে 5 হাজার টাকা আয় করতে পারেন। বর্তমানে একজন ছোট গবাদি পশুর খাদ্য তৈরীর বিক্রেতা প্রতি মাসে 15 থেকে 20 লক্ষ টাকার টান ওভার করেন তার ব্যবসায়। ব্যবসার শুরুতে আপনি মার্কেট ধরুন এবং শুরুতেই আপনি এত লাভ করতে না পারলেও প্রতিদিন 2000 টাকা অবশ্যই আয় করতে পারবেন। তাই নিজের ওপর ভরসা রাখুন, মার্কেটিং চালিয়ে যান এবং প্রোডাক্টের কোয়ালিটি সব সময় উন্নত মানের রাখার চেষ্টা করুন। দেখবেন 1 থেকে 2 বছরের মধ্যে আপনি নিজে ইনকাম করতে পারছেন প্রতিদিন 5 থেকে 7 হাজার টাকা।

জিজ্ঞাসিত প্রশ্ন ও FAQ

5HP মোটরে ঘন্টায় কত কেজি প্রোডাকশন পাওয়া যায়?

উত্তর: 150 কেজি থেকে 200 কেজি প্রতি ঘন্টায় প্রোডাকশন হয় 5HP পাওয়ার এর মোটরে।

ক্যাটল ফুড তৈরীর ব্যবসা করতে কত টাকা লাগে?

উত্তর: বড় আকারের তৈরি করতে 6 থেকে 7 লক্ষ টাকা লাগবে ছোট আকারের 1 লক্ষ টাকার মধ্যে হয়ে যাবে।

গবাদি পশুর খামারেরিরা নিজেরা কি প্রোডাক্ট তৈরি করতে পারেন?

উত্তর: হ্যাঁ, একজন খামারি নিজে চাইলে প্রোডাক্ট তৈরি করে তাদের গবাদি পশুকে খাওয়াতে পারেন।

মহিলারা কি এই ব্যবসা করতে পারেন?

উত্তর: মহিলারা চাইলেও এই ব্যবসা করে উপার্জন করতে পারেন।

গবাদি পশুর খাদ্য তৈরীর ব্যবসা করতে কত বড় জায়গা লাগে?

উত্তর: 200 স্কয়ার ফিট থেকে 300 স্কয়ার ফিট জায়গার কমপক্ষে প্রয়োজন পড়ে এই ব্যবসা করতে।

গবাদি পশুর খাদ্য তৈরির ব্যবসায় লাভ কত?

উত্তর: প্রতিদিন 5 হাজার টাকা থেকে প্রতিমাসে 1.5 থেকে 2 লক্ষ টাকা আয় করা সম্ভব গবাদিপশুর খাদ্য তৈরীর ব্যবসা করে

নতুন নতুন ব্যবসার আইডিয়া দেখুন-

ঘি তৈরির ব্যবসা

পনির তৈরির ব্যবসা

Leave a Comment