বাতাসা তৈরির ব্যবসা করে প্রতিদিন 3 হাজার টাকা আয় করুন | batasa making business, New business idea, wow

ভারতে ঠাকুরের প্রসাদ হিসাবে বাতাসা খুবই জনপ্রিয়। এমন কোন রাজ্য নেই যেখানে আপনি বাতাসা পাবেন না। যেহেতু বাতাসার বাজার এত বড় তাই আপনি যদি শুরু করেন বাতাসা তৈরির ব্যবসা (batasa making business) তাহলে আপনি এই ব্যবসা থেকে প্রতিদিন 3 থেকে 4 হাজার টাকা আয় করতে পারবেন। খুবই সহজ নিয়মে এবং খুব সহজ পদ্ধতিতে বাতাসা তৈরি করা যায়। আপনি আপনার বাড়িতেই বাতাস তৈরি করে মার্কেটে বিক্রি করতে পারবেন। আপনি যদি বেশি প্রোডাকশন চান তাহলে মেশিন কিনে প্রতিদিন 500 কেজির বেশি বাতাসা তৈরি করে মার্কেটে বিক্রি করতে পারেন। চলুন দেখে নেয়া যাক কি পদ্ধতিতে ব্যবসা করলে আপনি বাতাসা তৈরির ব্যবসা থেকে প্রচুর টাকা উপার্জন করতে পারবেন এবং এই ব্যবসা করার সম্পূর্ণ তথ্যগুলি।

Table of Contents

বাতাসা তৈরির ব্যবসা কিভাবে শুরু করা যায়? (How to start a batasa making business?)

বাতাসা তৈরির ব্যবসা করতে গেলে অবশ্যই আপনাকে আগে থেকে মার্কেটে রিসার্চ করতে হবে। দেখতে হবে আপনি যে এলাকায় ব্যবসা করতে চাইছেন সেই এলাকাতে বাতাসার চাহিদা কেমন রয়েছে। কোন মার্কেটে বিক্রি করতে পারবেন বাতাসা এবং কি দামে বর্তমানে বাতাসা বিক্রি হচ্ছে এবং আপনি কত দামে বিক্রি করতে পারলে লাভবান হতে পারবেন ও সকল মার্কেট টা ধরতে পারবেন। এইভাবে সম্পূর্ণ মার্কেট রিসার্চ করে তবেই আপনাকে বাতাসা তৈরির ব্যবসা শুরু করতে হবে।

যেহেতু এই ব্যবসা অনেক অল্প পুঁজি দিয়ে শুরু করা যায় তাই আপনি চাইলে খুব ছোট করেই ব্যবসা শুরু করতে পারেন এবং অল্প অল্প প্রোডাকশন করে মার্কেটে বিক্রি করতে পারেন বাতাসা। ছোট করে ব্যবসা শুরু করলে আপনি নিজে বুঝতে পারবেন বাজারে বাতাসার চাহিদা কেমন রয়েছে এবং ধীরে ধীরে মার্কেট টাও ধরতে পারবেন। একবার সম্পূর্ণ মার্কেট ধরা হয়ে গেলে আপনি প্রোডাকশন বাড়ানোর জন্য বাতাসা তৈরির মেশিন কিনে এই ব্যবসা আরও বড় করে করতে পারেন।

batasa making business
বাতাসা তৈরির ব্যবসা

বাতাসা তৈরির ব্যবসা করতে কি কি কাঁচামাল লাগে? (What raw materials are needed to make Batasa?)

বাতাসা তৈরি ব্যবসা করতে গেলে জানতে হবে বাতাসা তৈরি করার জন্য কি কি কাঁচামাল লাগে এবং সেই কাঁচামাল গুলি সহজলভ্য দামে কিনে ব্যবসা করতে হবে। সাধারণত বাতাসা চিনি এবং গুড় দিয়ে তৈরি করা হয় তাই এর কাঁচামাল হিসেবে যেগুলি ব্যবহার করা হয়ে থাকে তা হল-

  1. চিনি
  2. ব্রেকিং সোডা
  3. গুড়
  4. ফুড কালার
  5. জল
  6. চিনি গরম করার পাত্র বা লোহার কড়াই

বাতাসা তৈরীর কাঁচামাল কোথায় কিনতে পাওয়া যায়?

বাতাসা তৈরি করার কাঁচামাল অল্প দামে কেনার জন্য আপনাকে যে কোন পাইকারি দোকানে যেতে হবে। আপনার এলাকার ছোট বড় যেকোনো মুদিখানা দোকানেই এই সমস্ত ধরনের কাঁচামাল পাওয়া গেলেও পাইকারি দোকান থেকে কিনে নিয়ে ব্যবসা করলে বেশি লাভবান হতে পারবেন। যেহেতু আপনি বাতাসা তৈরি করার ব্যবসা করছেন তাই যদি সরাসরি বড়বাজার পাইকারি মার্কেট থেকে হোলসেল রেটে বস্তা বস্তা চিনি কিনে নিয়ে এসে ব্যবসা শুরু করেন সেক্ষেত্রে অনেক কম খরচে কাঁচামাল কেনা হয়ে যাবে।

বাংলাদেশে থেকে থাকলে আপনি চকবাজার পাইকারি মার্কেট থেকে সমস্ত প্রকার কাঁচামাল কিনতে পারেন। যেহেতু আপনি ব্যবসা করছেন তাই লোকাল পাইকারি মার্কেটের পরিবর্তে বড় পাইকারি মার্কেট থেকে কাঁচামাল কিনলে দামে অনেক কম পাওয়া যায়। তবে আপনার যদি পুঁজি কম থাকে তাহলে আপনি আপনার এলাকার যে কোন বড় পাইকারি দোকান থেকে বস্তা ভরে চিনিসহ কাঁচামাল কিনে নিয়ে এসে ব্যবসা করতে পারেন।

অবশ্যই পড়ুন- ঘর রং করার ব্যবসা এখন 0 পুঁজি বিনিয়োগে

বাতাসা মেশিন কোথায় কিনতে পাওয়া যায়?

আপনি যদি আগে থেকেই বাতাসা তৈরীর ব্যবসা করেন এবং নিজস্ব বড় একটি মার্কেট তৈরি করে ফেলে থাকেন তাহলে আপনি অল্প টাকা বিনিয়োগ করে একটি মেশিন কিনে বাতাসা তৈরি করতে পারেন। বাতাসা তৈরীর ব্যবসা যদি অনেক বড় করে শুরু করতে চান এবং প্রতিদিন ৩-৪ হাজার টাকা আয় করতে চান তাহলে অবশ্যই আপনাকে একটা বাতাসা তৈরির মেশিন কিনতে হবে। বর্তমানে প্রায় সমস্ত ধরনের মেশিন গুলি অটোমেটিক পদ্ধতিতে বাতাসা তৈরি করতে সক্ষম।

তবে ভারতের মধ্য শুধুমাত্র পশ্চিমবঙ্গেই আপনি এই বাতাসা তৈরীর মেশিন কিনতে পাবেন। যেহেতু পশ্চিমবঙ্গে বাতাসার চাহিদা অন্যান্য রাজ্যের থেকে বেশি থাকে তাই জন্য বাতাসা তৈরীর ব্যবসা ও বেশি জনপ্রিয়তা লাভ করে এই পশ্চিমবঙ্গে। বাতাসা তৈরীর মেশিন কেনার জন্য যোগাযোগ নাম্বার নিচে দেওয়া হল আপনারা ফোন করে কথা বলে নিয়ে আসতে পারেন। যদি বাংলাদেশ থেকে কেউ বাতাসা তৈরীর মেশিন কিনতে চান তাহলে এই যোগাযোগ নাম্বারে ফোন করে আপনারা অর্ডার করলে মেশিন বাংলাদেশে পাঠানোর ব্যবস্থা কোম্পানি গুলি করবে।

  • Maa Kali automobile work shop- 8918766113 / 7872526552
  • ADDRITA ENGINEERING WORKS-  8617324862/9733357618

বাতাসা তৈরির মেশিনের দাম কত? (What is the cost of batasa making machine?)

বাতাসা তৈরীর ছোট মেশিন যদি আপনি চেনেন তাহলে 50 টাকা থেকে 1 লাখ টাকা খরচ করতে হবে। বিভিন্ন কোম্পানি অনুযায়ী মেশিনের দাম আলাদা আলাদা হতে পারে। আর আপনি যদি অটোমেটিক পদ্ধতিতে বাতাসা তৈরীর মেশিন কিনতে চান তাহলে আপনাকে একটি মেশিনের জন্য 1 লাখ 70 হাজার টাকা খরচ করতে হবে। অটোমেটিক বাতাসা তৈরীর মেশিনগুলি প্রতি ঘন্টায় 60 কেজির বেশি বাতাসা তৈরি করতে পারে। ছোট মেশিন গুলি প্রতি ঘন্টায় 25 থেকে 30 কেজি বাতাসা তৈরি করতে পারে।

তবে বাতাসা তৈরির ব্যবসা যদি আপনি বড় আকারের করতে চান তাহলে অবশ্যই অটোমেটিক মেশিন কিনে ব্যবসা করতে পারেন। আর আপনার কাছে যদি পুঁজি কম থাকে তাহলে পুরনো পদ্ধতিতে বাতাসা হাতে বানিয়ে ব্যবসা করতে পারেন। মেশিন কেনার সময় যদি আপনি সম্পূর্ণ টাকা না দিতে পারেন এবং বাতাসা তৈরির মেশিন ফাইন্যান্স নিতে চান তাহলেও সমস্ত ব্যবস্থা কোম্পানি করে দেবে।

বাতাসা তৈরি করতে কত বড় জায়গা লাগে? (How much space does it take to make batasa?)

বাতাসা তৈরির ব্যবসা করতে গেলে আপনাকে কমপক্ষে 10/10 এর একটি ঘর নিয়ে কাজ শুরু করতে হবে। তবে আপনি যদি অটোমেটিক মেশিন কিনে বাতাসা তৈরি করতে চান তাহলে অবশ্যই আপনাকে 10/12 ফুটের ঘর প্রয়োজন পড়বে কারণ মেশিনের আয়তন 6 থেকে 7 ফুট হয়ে থাকে। আপনি যদি ঘরেতে হাতে তৈরি বাতাসা বানান সেই ক্ষেত্রে খুব বেশি জায়গার প্রয়োজন পড়ে না, তবুও এই ব্যবসা করার জন্য কমপক্ষে 10 ফুটের ঘরের প্রয়োজন পড়ে। ব্যবসার শুরুর দিকে আপনি চাইলে ছোট জায়গাতে ব্যবসা করতে পারেন, কিন্তু এই ব্যবসা খুব দ্রুততার সাথে বড় হতে থাকে। তাই তখন যাতে কোন সমস্যার মধ্যে না পড়তে হয় তাই ব্যবসা শুরুর আগে থেকেই একটু বড় জায়গা নিয়ে ব্যবসার কাজ শুরু করুন।

আরো পড়ুন- ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট ব্যবসা

কিভাবে বাতাসা তৈরি করা হয়?, বাতাসা তৈরির পদ্ধতি (How to make batasa)

বাতাসা তৈরির ব্যবসা করতে হলে অবশ্যই আপনাকে জানতে হবে বাতাসা তৈরির পদ্ধতি সম্পর্কে। আপনি যদি অটোমেটিক মেশিন কিনে বাতাসা তৈরি করেন সেক্ষেত্রে খুব বেশি কষ্ট আপনাকে করতে হবে না। তবে আপনি যদি নিজে হাতে বাতাসা বানাতে চান যেমনভাবে আগে বাতাসা বানানো হত তাহলে অবশ্যই আপনাকে একটি শিখতে হবে। আপনার কাছে যদি বেশি পুঁজি না থাকে তাহলে আপনি অল্প পুঁজি বিনিয়োগ করে একজন কর্মচারীকে দিয়ে বাতাসা বানিয়ে ব্যবসা করতে পারেন। যে পদ্ধতিতে বাতাসা বানানো হয় তা হল-

  • 1 কেজি চিনির সাথে 300 গ্রাম জল, 10 গ্রাম বেকিং সোডা, পরিমাণ মতো ফুড কালার দিয়ে ভালো করে গরম করতে হবে।
  • গরম হয়ে গেলে চিনির যে মিশ্রিত তরলটি তৈরি হবে তা পাত্রে ঢেলে নিতে হবে।
  • মেশিনে করতে চাইলে এটি মেশিনের মধ্য ঢেলে দিলেই এবং মেশিন চালিয়ে দিলেই বাতাসা তৈরি হয়ে যাবে।
  • হাতে তৈরি করতে হলে পাত্রের মধ্যে থেকে অল্প অল্প মিশ্রিত চিনির তরলটি একটি প্লাস্টিক এর ওপর বা চটের বস্তার ওপর ফোঁটা ফোটা ফেলতে থাকুন এবং এই পদ্ধতিতে বাতাসা তৈরি করতে থাকুন।
  • বাতাসা তৈরি হয়ে গেলে পরিমাণ মতো ওজন করে নিয়ে প্যাকেট ভর্তি করে বাজারে বিক্রির জন্য প্রস্তুত করতে পারেন।

বাতাসা ব্যবসা করতে কি কি লাইসেন্স এর প্রয়োজন?

যেকোনো ব্যবসার মতো বাতাসা তৈরির ব্যবসা করতে গেলে আপনাকে লাইসেন্স নিতে হবে। তবে আপনি যদি ছোট আকারের এই ব্যবসা করেন সেক্ষেত্রে বিনা লাইসেন্সেই বেশ কিছুদিন ব্যবসা করতে পারবেন। আপনার ব্যবসা যখন বড় হয়ে উঠবে এবং আপনি আপনার এলাকার মার্কেট ছাড়িয়ে শহরের বড় বড় মার্কেটে বাতাসা বিক্রি করতে যাবেন তখন আপনার লাইসেন্সের প্রয়োজন পড়বে। সাধারণত অল্প কিছু লাইসেন্স নিলেই আপনি এই ব্যবসা করতে পারেন। আপনি যদি বাতাসা প্যাকেটে ভর্তি করে অনলাইন মার্কেটে বিক্রি করতে চান তাহলে আপনাকে ফুড দপ্তরের লাইসেন্স নিতে হবে। সাধারণত এই ব্যবসা করার জন্য যে সকল লাইসেন্সের প্রয়োজন পড়ে তা হল-

  • ট্রেড লাইসেন্স
  • FSSAI লাইসেন্স
  • MSME লাইসেন্স
  • GST নাম্বার
  • কমার্শিয়াল ইলেকট্রিক (মেশিনে করলে)

এই সমস্ত লাইসেন্স আপনি পেতে পারেন আপনার এলাকার যে কোন পঞ্চায়েত অফিস, বিডিও অফিস কিংবা কর্পোরেশন অফিস থেকে। আবার এই লাইসেন্স গুলি বর্তমানে অনলাইনে আবেদন করেও পাওয়া যায় তাই ব্যবসা শুরুর পরে পরেই আপনি এই সমস্ত লাইসেন্স গুলির জন্য অনলাইনে আবেদন করতে পারেন। সকল প্রকার লাইসেন্সের জন্য আপনার সর্বমোট খরচ হবে তিন থেকে চার হাজার টাকার মত।

batasa making machine
বাতাসা তৈরীর মেশিনে

বাতাসা তৈরির ব্যবসায় মার্কেটিং কিভাবে করা হয়? (How is marketing done in the Batasa making business?)

বাতাসা তৈরির ব্যবসা করার পর আপনি যদি ভালো করে মার্কেটিং করতে পারেন তাহলে খুব সহজেই প্রতিদিন 400-500 কেজি বাতাসা বিক্রি করা খুবই সহজ হয়ে যাবে। যেহেতু আগে থেকেই মার্কেটে বাতাসা তৈরীর বিভিন্ন ব্যবসায়ী দ্বারা বাতাসা বিক্রি হচ্ছে তাই একটু ভালো করেই মার্কেটিং করার প্রয়োজন রয়েছে এই ব্যবসায়। তাই যে পদ্ধতিতে মার্কেটিং করলে আপনি খুব দ্রুত আপনার ব্যবসা বড় করতে পারবেন এবং বেশি বেশি বাতাসা মার্কেটে বিক্রি করতে পারবেন তা হল-

  • আপনার এলাকার প্রতিটি মুদিখানা দোকান থেকে শুরু করে দশকর্মা দোকানে প্রয়োজন অনুযায়ী বাতাসা বিক্রি করার চেষ্টা করুন।
  • মন্দির রয়েছে মন্দির সংলগ্ন এলাকার দোকানগুলিতে বাতাসা অল্প দামে বিক্রি করার চেষ্টা করুন।
  • আপনার এলাকার প্রতিটি দোকানে বিক্রির পাশাপাশি শহরের হোলসেল দোকানগুলিতে বাতাসা বিক্রি করার চেষ্টা করুন।
  • কলকাতার একাধিক মন্দিরে কমিটির সাথে কথা বলে বাতাসা বিক্রি করার চেষ্টা করুন।
  • বাতাসার বৃত্তি বাড়ানোর জন্য আপনি যে এলাকা নিয়ে ব্যবসা করছেন সেই এলাকার মধ্য বিজ্ঞাপন দিতে পারেন।
  • ছোট-বড় পোস্টার তৈরি করে এলাকার দেওয়ালে দেওয়ালে বা ইলেকট্রিক পোস্টে পোস্টার মেরে বিজ্ঞাপন দেওয়া যায়।
  • ব্যানার বা ফ্লেক্স তৈরি করে আপনার কোম্পানির বিজ্ঞাপন দিন এবং বাতাসা যে অল্প দামে পাওয়া যায় আপনার কাছে তা মেনশন করুন।
  • ইন্ডিয়ামার্ট আমাজন ফ্লিপকার্ট এই ধরনের ই-কমার্স ওয়েবসাইটগুলিতে বিজনেস অ্যাকাউন্ট খুলে বাতাসা বিক্রি করতে পারেন।
  • আপনার এলাকার বিভিন্ন পত্রপত্রিকায় বিজ্ঞাপন দিয়ে আপনার বিক্রি বাড়াতে পারেন।
  • নিজস্ব ওয়েবসাইট তৈরি করে সেই ওয়েবসাইটের মধ্যে বাতাসা বিক্রি বা বাতাসার সংক্রান্ত বিভিন্ন পোস্ট তৈরি করে ই-কমার্স ওয়েবসাইটে পরিণত করে ব্যবসা করতে পারেন।
  • এলাকায় এলাকায় ডিস্ট্রিবিউটার তৈরি করে সেই ডিস্ট্রিবিউটরের মধ্য দিয়ে বাতাসার বিক্রি বাড়াতে পারেন।
  • ফেসবুক গুগল ইউটিউবে অল্প টাকা খরচ করে বিজ্ঞাপন দিতে পারেন। বর্তমানে প্রায় সকল প্রকার কোম্পানি এই ধরনের সোশ্যাল মিডিয়া গুলিতে অল্প খরচায় বিজ্ঞাপন দিয়ে খুব সহজেই মানুষের কাছে পৌঁছে যাচ্ছে।

অবশ্যই পড়ুন-  রিয়েল এস্টেট ব্যবসার সফল হওয়ার চাবিকাঠি

বাতাসা তৈরির ব্যবসা করতে কত টাকা লাগে? (How much money does it take to start a batasa making business?)

বাতাসে তৈরির ব্যবসা খুবই অল্প কিছু বিনিয়োগে শুরু করা যায় তাই এই ব্যবসা করার জন্য খুব বেশি ভাবার প্রয়োজন পড়ে না। আপনি যদি অনেকদিন থেকে কোনো একটি ব্যবসা করবেন বলে ভাবছেন কিন্তু কি করবেন ভেবে উঠতে পারছেন না তাহলে আপনি অল্প পুঁজি বিনিয়োগ করে এই ব্যবসা করতে পারেন। 15 থেকে 20 হাজার টাকা বিনিয়োগ এই বাতাসা তৈরির ব্যবসা করা যায়। তবে অল্প কিছু বিনিয়োগ করে ব্যবসা করতে হলে বাতাসা বানানোর জন্য একজন কারিগর নিয়োগ করতে হবে অথবা আপনি নিজেই বাতাসা বানিয়ে দোকানে বিক্রি করতে পারেন।

আর আপনার কাছে যদি একটু বেশি পরিমাণে পুঁজি থাকে এবং আপনি বাতাসা তৈরির ব্যবসায় একটু বেশি পুঁজি বিনিয়োগ করে শুরু করতে চান, তাহলে অটোমেটিক মেশিন কিনে এই ব্যবসা করতে পারেন। অটোমেটিক মেশিন কিনে বাতাসা ব্যবসা করতে গেলে কমপক্ষে 1 লাখ টাকা থেকে 2 লাখ টাকা বিনিয়োগ করতে হবে। বাতাসা তৈরীর ব্যবসা বর্তমানে খুবই জনপ্রিয় একটি ব্যবসা। তাই এই ব্যবসাতে যেমন পুঁজি আপনি বিনিয়োগ করবেন তেমন প্রোডাকশন হবে, আর যত প্রোডাকশন হবে তত বেশি পরিমাণে লাভ হবে।

বাতাসা তৈরির ব্যবসায় লাভ কত? (How much is the profit in the batasa making business?)

অল্প পুঁজি দিয়ে বাতাসা বানানো হলেও এই ব্যবসায় লাভ হয় অনেক বেশি পরিমাণে। সাধারণত প্রতি কেজি বাতাসা বিক্রি করে আপনি লাভ করতে পারেন কমপক্ষে 10 টাকা। বাতাসা তৈরির মেশিন 1 ঘন্টায় 60 কেজি বাতাসা তৈরি করলে, সারা দিনে 600 কেজি বাতাসা বানানো যায়। একদিনে আপনি যদি 300-400 কেজি বাতাসা বিক্রি করতে পারেন তাহলেই 3-4 হাজার টাকা প্রতিদিনের আয় থাকবে।

আপনি যদি একটি মেশিন কিনে বাতাসা তৈরীর কাজ করেন তাহলে প্রতি মাসে আপনি 2-3 লাখ টাকা ইনকাম খুব সহজেই করতে পারেন। বর্তমানে একজন ছোট ব্যবসায়ী ও প্রতিমাসে 40 হাজার থেকে 50000 টাকা বাতাসা বিক্রি করে আয় করতে পারেন। তাই বাতাসা তৈরীর ব্যবসা এতটা জনপ্রিয় একটি ব্যবসা, কারণ এই ব্যবসায় লস হওয়ার সম্ভাবনা খুবই কম থাকে। তৈরি হওয়া বাতাসা মার্কেটে অবশ্যই বিক্রি করা যায়।

জিজ্ঞাসিত প্রশ্ন ও FAQ

বাতাসা তৈরীর কারখানা করতে কত বড় জায়গার প্রয়োজন?

উত্তর: 10/12 স্কয়ার ফিট ঘর হলে বাতাসা তৈরীর কারখানা খুব সহজেই করা যায়।

গ্রামে থেকে কি বাতাসার ব্যবসা করা যায়?

উত্তর: হ্যাঁ, গ্রামে থেকে বাতাসার ব্যবসা করা যায়।

বাতাসা তৈরির মেশিন কি ধরনের ইলেকট্রিক চলে?

উত্তর: বাড়ির টু-টোয়েন্টি ভোল্টে 3 ফেজের ইলেকট্রিকে এই মেশিন চলে।

কোন সময় বাতাসা বেশি বিক্রি হয়?

উত্তর: যেকোনো পূজার আগে এবং পূজার সময় বাতাসার বিক্রি বেশি পরিমাণে হয়।

বাতাসা তৈরীর ব্যবসা করতে কত টাকা লাগে?

উত্তর: 15 হাজার টাকা থেকে 20 হাজার টাকা এই ব্যবসা করতে লাগে। মেশিন কিনে ব্যবসা করতে হলে 2 থেকে 3 লাখ টাকার প্রয়োজন।

বাতাসা তৈরির ব্যবসায় লাভ কত?

উত্তর: প্রতিদিন 3 হাজার টাকা থেকে 4 হাজার টাকা কমপক্ষে আয় হতে পারে বাতাসা তৈরির ব্যবসা করে

নতুন নতুন ব্যবসার আইডিয়া দেখুন-

পানের ব্যবসা করুন

গাড়ি ধোয়ার ব্যবসা করুন বিনা পুঁজিতে

Leave a Comment