সেলুন ব্যবসা আধুনিক পদ্ধতিতে শুরু করুন | Become a successful businessman by doing salon business 1

প্রতিটা মানুষকে এই ছোট থেকে বড় সব সময় চুল কাটার জন্য সেলুনে যেতে হয়। তাই জন্য দিনে দিনে সেলুন ব্যবসা এতটা জনপ্রিয়তা লাভ করছে। কিন্তু আবার এটাও দেখা যাচ্ছে যে একটা এলাকায় একাধিক সেলুন দোকান গড়ে ওঠার কারণে সেলুন ব্যবসা অনেকাংশে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। তাই আপনি যদি আধুনিক পদ্ধতিতে সেলুন ব্যবসা করবেন বলে ভাবেন তাহলে অবশ্যই আপনি সফলতা পাবেন। আপনার আশেপাশে যতই একাধিক সেলুন দোকান থাকুক না কেন আপনি যদি আধুনিক পদ্ধতিতে সেলুন ব্যবসা শুরু করেন তাহলে আপনার সফলতা অন্য বাকি সেলুন ব্যবসায়ীদের থেকে বেশি হবে। এছাড়াও আপনার কাছে যদি একটু বেশি পুজি থেকে থাকে তাহলে আপনি সাইট ব্যবসা হিসেবে সেলুন ব্যবসা করতে পারেন।


বর্তমানে মানুষ ত্বকের যত্ন এবং নিজেকে সুন্দর করে আকর্ষণীয় করে তোলার জন্য সর্বদাই সেলুন ও পার্লারে গিয়ে থাকে। তাই আপনার সেলুন ব্যবসা অবশ্যই দ্রুততার সাথে জনপ্রিয়তা লাভ করবে আধুনিক পদ্ধতিতে করলে। এছাড়া বর্তমানে কাজের বাজার ও চাকরির বাজার এতটাই কমে গেছে যে মানুষের কাছে নতুন কাজের চাহিদা বাড়ছে। তাই আগে একটা সেলুন দোকান থাকলেও বর্তমানে একটা এলাকায় একাধিক সেলুন দোকান দেখতে পাওয়া যায়। একাধিক সেলুন দোকান হওয়ার কারণে আবার কাস্টমারও কমে যায় প্রতিটা দোকানে তাই সেলুন ব্যবসায়ীরা বেশি পরিমাণে লাভবান হতে পারেন না। কাস্টমার ধরে রাখার জন্য যে সকল আধুনিক পদ্ধতি অবলম্বন করে সেলুন ব্যবসা করতে হবে এবং ব্যবসায় বেশি টাকা ইনকাম করা যাবে তার সকল তথ্য দেওয়া হল।

সেলুন ব্যবসা শুরু করতে কত টাকা লাগে?

সেলুন ব্যবসা শুরু করার জন্য বেশি টাকার দরকার পড়ে না, তবে আপনি যদি আধুনিক পদ্ধতিতে বিভিন্ন আধুনিক সরঞ্জাম কিনে ব্যবসা করতে যান তাহলে অবশ্যই আপনাকে বেশ কিছু পুঁজি খরচ করতে হবে। সাধারণত ছোট করে সেলুন ব্যবসা শুরু করার জন্য আপনাকে কমপক্ষে 5 হাজার টাকা বিনিয়োগ করতে হবে। আর আপনি যদি বড় করে সেলুন ব্যবসা শুরু করেন এবং আধুনিক সরঞ্জাম কিনে শুরু করেন তাহলে অবশ্যই আপনাকে 20 থেকে 30 হাজার টাকা বিনিয়োগ করতে হবে। এছাড়াও আরো আধুনিক পদ্ধতিতে এবং সেলুন পার্লার তৈরি করে ব্যবসা করতে গেলে আপনাকে 1 থেকে 2 লক্ষ টাকা বিনিয়োগ করতে হবে।

salon shop
সেলুন দোকান

সেলুন ব্যবসায় কি কি যন্ত্রপাতি ও প্রসাধনী লাগে?

আমরা ছোটবেলা থেকে সেলুনে চুল কাটতে গিয়ে লক্ষ্য করেছি অনেক যন্ত্রপাতি এবং প্রসাধানি। কিন্তু আপনি যখন আধুনিক পদ্ধতিতে সেলুন ব্যবসা শুরু করবেন তখন অবশ্যই আপনাকে সেই সব আধুনিক যন্ত্রপাতি এবং মেশিন কিনতে হবে। সাধারণত সেলুন ব্যবসা করতে গেলে যে সকল যন্ত্রপাতি ও প্রসাধনই লাগে সেগুলি হল-

  • বড় আয়না
  • চিরুনি
  • কাঁচি (বিভিন্ন ধরনের)
  • ক্ষুর
  • ব্লেড
  • ট্রিমার (বিভিন্ন ধরনের)
  • হেয়ার ড্রায়ার
  • হেয়ার স্ট্রেচার
  • শ্যাম্পু
  • সেভিং ক্রিম
  • লোশন
  • হেয়ার কালার
  • ফিটকিরি
  • তোয়ালে
  • টিস্যু পেপার
  • কাস্টমারের বাসার চেয়ার
  • আরো বেশ কিছু আধুনিক যন্ত্রপাতি ও সামগ্রী

সেলুন ব্যবসায় প্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতি কোথায় কিনতে পাওয়া যায়?

সাধারণত সেলুন ব্যবসা শুরু করতে হলে আপনাকে যেসব যন্ত্রপাতি কিনতে হবে তা আপনি কিনতে পারেন আপনার এলাকার বড় কোন পাইকারি বাজার থেকে। যেমন কলকাতার বড় বাজারে খুবই কম দামে আপনি সব রকমের জিনিসপত্র অল্প দামে কিনতে পারবেন। আবার বাংলাদেশের চকবাজার পাইকারি মার্কেট থেকে আপনি সকল সামগ্রী অল্প দামে কিনতে পারবেন। এছাড়াও বর্তমান সময়ে আপনি অনলাইনে প্রতিটা জিনিস অর্ডার দিতে পারেন অল্প দামে। অনলাইনে flipkart, amazon এর মতো যে সকল ওয়েবসাইট রয়েছে তারা বিভিন্ন কোম্পানির বিভিন্ন ধরনের প্রোডাক্ট বিক্রি করে বিভিন্ন দামে। আর আপনি চাইলে অনলাইনে এইসব প্রোডাক্ট এর মধ্য থেকে আপনার পছন্দমত প্রোডাক্ট বেছে নিয়ে কিনতে পারেন অল্প দাম দিয়ে।

সেলুন দোকান তৈরি করতে কত বড় জায়গার প্রয়োজন?

আপনি যদি সেলুন দোকান ছোট করে তৈরি করতে চান তাহলে অবশ্যই 6/10 ফুটের একটা ঘরের প্রয়োজন পড়বে। বড় করে সেলুন পার্লার তৈরি করে ব্যবসা করতে হলে আপনার 10/10 ফুটের দুটো রুম কিংবা আরো বড় 10/20 ফুটের একটা ঘরের প্রয়োজন পড়বে।

সেলুন ব্যবসা কোথায় শুরু করা যায়?

সাধারণত সেলুন ব্যবসা করার জন্য আপনাকে এমন একটি স্থান নির্বাচন করতে হবে যেখানে মানুষের সমাগম বেশি হয় বা জনবহুল জনপ্রিয় বাজার এলাকাতে। এছাড়া দোকান তৈরি করার জন্য অবশ্যই আপনাকে রাস্তার ধারে সেলুন দোকান বানাতে হবে। জনবহুল জনপ্রিয় এলাকাতে যদি আপনার সেলুন দোকান হয়ে থাকে তাহলে সেলুন ব্যবসা অনেক ভালো ভাবে আপনি করতে পারবেন।

অবশ্যই পড়ুন – টিফিন পরিষেবার ব্যবসা শুরু করুন অল্প পুজিতে

সেলুন দোকানে বেশি গ্রাহক কিভাবে পাওয়া যায়?

বর্তমান সময়ে সেলুন ব্যবসাতে গ্রাহক সংগ্রহ করাটা এক বড় চ্যালেঞ্জের মধ্য পড়েছে। কারণ আগেকার সময়ে একটা এলাকাতে একটা কিংবা দুটো সেলুন দোকান থাকতো। কিন্তু বর্তমান সময়ে জনসংখ্যা বৃদ্ধির সাথে সাথে চাকরি ও কাজের বাজার খুবই খারাপ হওয়ার কারণে বেশিরভাগ মানুষই তাদের পেশা হিসেবে সেলুন ব্যবসা কে প্রাধান্য দিচ্ছে। তাই জন্য দিনে দিনে সেলুন দোকানের সংখ্যাও বেড়ে চলেছে আর সেলুন দোকান বাড়ার কারণে প্রতিটা সেলুন ব্যবসায়ী কাস্টমার অনেক কমে গেছে।

পরিসংখ্যানে দেখা গেছে প্রতিবছর প্রতিটা ব্যবসায়ীর রেগুলার কাস্টমার 10 থেকে 30 শতাংশ কমে যাচ্ছে। তাই নতুন কাস্টমার ধরাটা আপনার সেলুন ব্যবসার বৃদ্ধি করার পেছনে এক বড় ভূমিকা পালন করতে পারে। আর নতুন কাস্টমার ধরতে গেলে অবশ্যই আপনাকে বেশ কিছু আধুনিক পদ্ধতি এবং নিত্যনতুন পরিষেবা দিতে হবে। যদিও বর্তমান সময়ে একটা সেলুন দোকান খুললেই প্রতি মাসে কিছু রেগুলার কাস্টমার আপনার জোগাড় হয়ে যাবে। তবে এই অল্প রেগুলার কাস্টমারে আপনি সারাটা জীবন ব্যবসা চালিয়ে যেতে পারবেন না, কারণ কাস্টমার প্রতি বছরই কমতে থাকবে। ফলে আপনাকে কাস্টমার ধরে রাখার জন্য এবং আরো নতুন কাস্টমার আনার জন্য আধুনিক পদ্ধতিতে সেলুন ব্যবসা অবশ্যই করতে হবে।


তাই আপনি সেলুন ব্যবসা শুরু করার আগে আপনার এলাকার কোন সেলুন ব্যবসায়ীর কাছ থেকে পরামর্শ নিতে পারেন কিংবা তাদের ব্যবসা কেমন চলছে তা জানতে পারেন। এইভাবে যদি আপনি অল্প মার্কেট রিসার্চ করেন তাহলেই বুঝতে পারবেন প্রতিটা সেলুন ব্যবসায়ী কি পদ্ধতিতে ব্যবসা করছে এবং তাদের প্রতি মাসের আয় ব্যয়ের হিসাব। এই সকল জিনিসগুলি আপনি বোঝার পরের যদি আপনি নিজে থেকে সেলুন ব্যবসায়ী নামেন তাহলে অবশ্যই আপনি তাদের থেকে অল্প হলেও সফল হতে পারেন। আমরা যখন কোন সেলুন দোকানে চুল কাটি তখন সেই সেলুন দোকানের সাথে আমাদের একটা কানেকশন তৈরি হয়ে যায়।

আবার কোন কারণবশত আমাদের যদি অন্য কোন সেলুন দোকানে চুল কাটতে হয়ে থাকে তখন আমরা কম্পেয়ার করি, আগের সেলুন দোকানের সাথে এই সেলুন দোকানের। তখন আমাদের যে সেলুনটি বেশি পছন্দের মনে হয় সেখানে আবার আমরা চুল কাটা শুরু করি, এই ভাবেই প্রতিটা সেলুন দোকানে কাস্টমার কমতে থাকে। তবে আপনি যদি আধুনিক পদ্ধতিতে সেলুন ব্যবসা করতে চান তাহলে অবশ্যই আপনাকে যে জিনিসগুলি মাথায় রাখতে হবে এবং ভালোভাবে মনে রেখে আপনার ব্যবসা করতে হবে সেগুলি হল-

আরো পড়ুন- সরিষার তেলের ডিলারশিপ ব্যবসা

সেলুনের সুন্দর পরিবেশ সৃষ্টি:

সেলুন ব্যবসা করতে গেলে সর্বদা আপনাকে খেয়াল রাখতে হবে যেন আপনার সেলুন দোকানের ডেকোরেশন এবং আপনার স্টাফেদের মনোভাব সুন্দর হয়ে থাকে। গ্রাহক যখন সেলুন দোকানে আসবে তখন যদি আপনার কর্মচারীদের ব্যবহার তাকে সন্তুষ্ট না করে তাহলে সে অন্য দোকানে যাওয়ার চেষ্টা করবে। তাই সর্বদা আপনি এবং আপনার কর্মচারীদের ব্যবহার গ্রাহকের প্রতি সুন্দর হতে হবে। এছাড়াও সেলুনকে পরিপাটি করে সাজানোর জন্য আকর্ষণীয় ডেকোরেশন এবং সুন্দর পরিষেবার ব্যবস্থা আপনাকে রাখতে হবে।

বর্তমানের আধুনিক পদ্ধতিতে যে সকল সেলুন ব্যবসায়ী ব্যবসা করছেন তারা সবাই তাদের সেলুন দোকানে গ্রাহকের মন পছন্দের সকল প্রকার সেবা প্রদানের ব্যবস্থা করে থাকে। এর সাথে সাথে যে সকল কর্মচারী কাজ করেন তাদের সবাইকে দক্ষতার সাথে কাজ করতে হবে। বড়দের সাথে সাথে বাচ্চাদের চুল কাটার জন্য প্রয়োজনীয় দক্ষতা সম্পন্ন কর্মচারী রাখতে হবে। এছাড়া বাচ্চারা যাতে সেলুন দোকানে এসে চুল কাটতে কাটতে কান্নাকাটি না করে তার জন্য বিশেষ কিছু খেলনারও ব্যবস্থা রাখতে হবে। এছাড়া প্রতিটা কাস্টমার এসে যাতে দাঁড়িয়ে থাকতে না হয় তার জন্য বসার সুন্দর ব্যবস্থা রাখতে হবে।

আপনার সেলুন দোকানে যখন কোন কাস্টমার আসবে তখন যদি আপনি অন্য কোন কাস্টমারকে সেবায় ব্যস্ত থাকেন তখন বাকি কাস্টমারদের বসার জন্য এবং তাদের যাতে কোনরকম অসুবিধা না হয় তার জন্য ওয়েটিং রুমের ব্যবস্থা করতে পারেন। সব সময় মনে রাখবেন কাস্টমারের আপ্যায়ন এবং কাস্টমারের মন মতন পরিষেবা দিতে পারলেই তবেই আপনার দোকানের উন্নতি ঘটবে। কাস্টমাররা যখন বসে থাকবে তাদের যাতে কোনরকম বিরক্তি না হয় তার জন্য আপনি বিভিন্ন ধরনের খবরের কাগজ ও বিউটি টিপস যুক্ত ম্যাগাজিন রাখতে পারেন।

এছাড়াও আপনি টিভিতে বিভিন্ন গান ও খেলার চ্যানেল রাখতে পারেন যাতে তারা ওয়েটিং করার সময় টিভি দেখে সময়টা কাটিয়ে দিতে পারে। বিশেষ বিশেষ বয়সের কাস্টমারদের আলাদা আলাদা ধরনের সেবা প্রদানের ব্যবস্থা আপনার সেলুন দোকানে রাখতে পারেন। এতে সকল প্রকার বয়সের গ্রাহকরাই অনেক বেশি স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করবে।

salon business
সেলুন ব্যবসা

সেলুন দোকানের মার্কেটিং কিভাবে করবেন?

বর্তমান সময়ে প্রতিটা ব্যবসাতে প্রতিটা ব্যবসায়ীকেই মার্কেটিং এর উপরে যথেষ্ট বেশি পরিমাণে জোর দিতে হয়। কারণ বর্তমান সময়ে এতটাই বেশি পরিমাণে কম্পিটিশন বেড়ে গেছে যে যদি মার্কেটিং ভালোভাবে না করা হয় তাহলে ব্যবসায়ী উন্নতি করা সম্ভব হবে না। আর মার্কেটিং ভালোভাবে সুন্দর করে করার জন্য অবশ্যই আপনাকে বেশ কিছু আধুনিক পদ্ধতি বেছে নিতে হবে। আপনিও লক্ষ্য করেছেন সেলুন ব্যবসায় বর্তমানে কতটা বেশি পরিমাণে কম্পিটিশন চলে এসেছে। তাই আপনি যদি আপনার সেলুন দোকানের সঠিক মার্কেটিং না করতে পারেন তাহলে আপনার ব্যবসা করার ক্ষেত্রে অনেক সমস্যা হতে পারে।

এই আধুনিক সময়ে সবচেয়ে যুগোপযোগী ডিজিটাল মার্কেটিং কে আপনি আপনার ব্যবসার জন্য বেছে নিতে পারেন। কারণ বর্তমান সময়ে সব মানুষের হাতেই মোবাইল ফোন এসে গেছে তাই মোবাইল ফোনে ডিজিটাল মার্কেটিং করে আপনি আপনার ব্যবসার উন্নতি ঘটাতে পারেন। এছাড়াও আপনি বিভিন্ন লোকাল পত্রিকা ও ম্যাগাজিন বিজ্ঞাপন দিয়ে আপনার এলাকার মানুষের কাছে আপনার সেলুন দোকানের বিজ্ঞাপন দিতে পারেন। তবে অনলাইনে মার্কেটিং করতে গেলে অবশ্যই আপনাকে ফেসবুক ইনস্টাগ্রামে একটা করে পেজ বানাতে হবে। প্রতিদিন প্রতিটা পেজে নিত্যনতুন পোস্ট এবং চুল কাটার বিভিন্ন ভিডিও সেলুনের বিভিন্ন সেবা প্রদানের ভিডিও আপলোড করতে পারেন। এই ভিডিও দেখে প্রচুর পরিমাণে কাস্টমার সংখ্যা আপনার দোকানে বেড়ে যাবে দ্রুততার সাথে।

এছাড়াও আপনি চাইলে আপনি যে এলাকাতে সেলুন দোকান তৈরি করছেন সেই এলাকায় আশেপাশে বিভিন্ন জায়গাতে পোস্টারিং করতে পারেন। পোস্টারিং করলে প্রতিটা এলাকার তে আপনার দোকানের প্রচার খুব সুন্দরভাবে হতে পারে। আবার আপনি চাইলে বিভিন্ন ফ্লেক্স ছাপিয়ে জাঁকজমকপূর্ণ মোড় এবং কিছু জনপ্রিয় মোর গুলিতে ফ্লেক্স টাঙিয়ে প্রচার করতে পারেন।

আবার আপনার সেলুন দোকানের নামে ওয়েবসাইট তৈরি করে ওয়েবসাইটের মধ্য দিয়ে আপনি বিভিন্ন ভিডিও ও পোস্ট আপলোড করতে পারেন তাতেও আপনার দোকানের প্রচার হতে পারে। আবার আপনি ইউটিউব চ্যানেল খুলে শট ভিডিওর সাথে সাথে বড় ভিডিও আপলোড করতে পারেন যাতে মানুষ দেখে এবং দ্রুততার সাথে আপনার প্রচার হয় এই লক্ষ্যে এগোতে পারেন। মনে রাখবেন আপনি যে এলাকাতে সেলুন দোকানের ব্যবসা করছেন সেই এলাকাতে অবশ্যই আপনাকে বেশি পরিমাণে মার্কেটিং করতে হবে এবং প্রতিটা মানুষে মানুষে যাতে আপনার দোকানের প্রচার মুখে মুখে ঘুরতে পারে তার ব্যবস্থা আপনাকে করতে হবে।

অবশ্যই পড়ুন- বাড়িতে আদা চাষের ব্যবসা করে 1 লক্ষ টাকা আয়

সেলুন দোকানে নিত্যনতুন অফার চালু করুন:

বর্তমান সময়ে সেলুন ব্যবসাতে কাস্টমার সংখ্যা বাড়াতে গেলে অবশ্যই আপনাকে কাস্টমারের জন্য নিত্যনতুন অফার রাখতে হবে। প্রতিটা কাস্টমার নিত্য নতুন অফার দিয়ে যেমন খুশি হবে তেমনি আপনার সেলুন দোকানে আসার আগ্রহ তাদের বেড়ে যাবে। গ্রাহককে বড় সেবার পাশাপাশি ছোট ছোট সেবার অফার প্রদান করতে পারেন যেমন:

  • চুল কাটার পরে মাথা মেসেজ করা
  • বিভিন্ন বড় বড় উৎসবে গ্রাহককে ছাড় দেওয়া
  • ঈদ দুর্গাপূজো এইরকম অনুষ্ঠানে বড়দের চুল কাটলে বাচ্চাদের ছার
  • বডি ম্যাসাজের ছাড়
  • পুরনো গ্রাহক যদি নতুন গ্রাহক নিয়ে আসে তাহলে তাকে অল্প ছাড় দেওয়া

এছাড়াও গ্রাহকের যাতে টাকা প্রদানের কোন সমস্যা না ভাই তার জন্য আপনি ডিজিটাল লেনদেনের ব্যবস্থা করতে পারেন। পুরনো গ্রাহক যদি নতুন গ্রাহক রেফার করে তাহলে তাদের বিশেষ ছারের ব্যবস্থা আপনি করতে পারেন । এছাড়াও আপনি গ্রাহকদের রিভিউ দেওয়ার ব্যবস্থা করতে পারেন এতে আপনার সোশ্যাল মিডিয়া সাইড গুলিতে ফলোয়ারসের সাথে সাথে রেটিং অনেকগুণ বেড়ে যাবে। এইভাবে যদি আপনি নিত্য নতুন অফার দিতে থাকেন এবং প্রতিটা অফার যদি আপনার সোশ্যাল মিডিয়া পেজগুলিতে আপডেট দিতে থাকেন দেখবেন সেলুন দোকানে ভিড় উপচে পড়ছে।

সবসময় মনে রাখবেন সেলুন ব্যবসা মানুষকে যে পরিমাণ সার্ভিস দিয়ে থাকে তা প্রতিটা মানুষের কাছে স্মরণীয় ওই কৃতজ্ঞতার। তাই আপনি প্রতিটা কাস্টমারকে যে পরিমাণ খুশি করতে পারবেন কাস্টমার সেই ভাবেই আপনার দোকানে আসবে এবং আপনার ব্যবসার উন্নতি তাতেই হবে। এই সকল বিষয়গুলি আপনি যদি ভেবে নিয়ে ব্যবসা শুরু করেন তাহলে আপনার ব্যবসা বাকি অন্য ব্যবসায়ীদের থেকে অনেক ভালো হবে এবং লাভও অনেক বেশি হবে।

সেলুন ব্যবসায় লাভ কত?

সাধারণত বর্তমান সময়ে একজনের ছোট সেলুন ব্যবসায়ী প্রতি মাসে 10 থেকে 15 হাজার টাকা ইনকাম করেন। তবে আবার আধুনিক পদ্ধতিতে সকল সেলুন ব্যবসায়ী ব্যবসা করছেন তারা সকলেই প্রতিমাসে 50 থেকে 1 লক্ষ টাকাও ইনকাম করতে পারেন। আপনিও যদি আধুনিক পদ্ধতিতে ব্যবসা করতে পারেন তাহলে আপনার ব্যবসাতে লাভের পরিমাণ আরো বাড়তে পারে। সাধারণত ব্যবসায়ী লাভের পরিমাণ নির্ভর করে কোন এলাকাতে ব্যবসা করছেন এবং কি পদ্ধতিতে ব্যবসা করছেন তার উপরে

নতুন নতুন ব্যবসার আইডিয়া দেখুন-

স্পোর্টস স্টোর ব্যবসা

আইসক্রিম তৈরির ব্যবসা

Leave a Comment