সুপারি চাষ করে লাখ টাকা আয় করুন | সুপারি চাষ পদ্ধতি | Betel nut grown and sold for 1 lakh, nice ideas now

আমরা সবাই জানি যেকোন কৃষি ব্যবসায় অনেক লাভ আমাদের দিতে পারে। আপনি যদি সুপারি চাষ করেন তাহলে আপনি প্রতি মাসে এই সুপারি গাছ থেকে ভালো টাকা উপার্জন করতে পারবেন। যেহেতু সুপারি বিভিন্ন খাদ্যদ্রব্যে ব্যবহার হয় আবার নেশাজাতক দব্যে ও সুপারির ব্যবহার প্রচুর পরিমাণে হওয়ার কারণে বাজারে সুপারির চাহিদা সর্বদা অনেক বেশি থাকে। তাই পতিত জমিতে সুপারি গাছ লাগিয়ে আপনি সুপারি চাষ করে নিজ সংসার চালাতে পারেন। আজ সুপারি চারা বসানো থেকে শুরু করে সুপারি বিক্রি নিয়ে সমস্ত তথ্য হাজির করা হয়েছে আজকের এই প্রতিবেদনে। আপনি যদি সুপারি চাষ করতে চান তাহলে আপনার জন্য যাবতীয় তথ্য রয়েছে এখানে তাই ভালো করে আপনি পড়লে খুব সহজেই সুপারি চাষ করতে পারবেন।

সুপারি চাষ কেন করবেন? (Why do betel nut farming?)

পানির দোকান থেকে শুরু করে মুদিখানা দোকান পর্যন্ত সুপারির চাহিদা সব সময় অনেক বেশি থাকে। এমন অনেক মানুষ রয়েছে যাদের পরিবারের প্রধান জীবিকা সুপারি বিক্রি। তাহলে বোঝাই যায় সুপারি চাষ করলে আপনি কত উপার্জন করতে পারবেন। সাধারণত সুপারি যারা বেশি পরিচর্যা না করেই ফলন পাওয়া যায় আবার সুপারি গাছ লাগিয়ে ব্যবসা করতে হলে বিনিয়োগ ও অনেক কম লাগে। ভারত বাংলাদেশের বহু পরিবার তাদের পতিত জমিতে সুপারি চারা লাগিয়ে ব্যবসা করছেন। আবার আধুনিক মানের পরিশ্রমী চাষীরা সুপারি চাষের পাশাপাশি আরও অন্যান্য আনুষাঙ্গিক চাষাবাদ করে ভালো টাকা উপার্জন করেন। কারণ সুপারি চাষের সাথে সাথে আপনি সবজি চাষ, কলা চাষ, গোলমরিচ চাষ, আদা চাষ এইরকম আরো বহু ধরনের চাষাবাদ করতে পারেন।

Betel nut cultivation method
সুপারি চাষ পদ্ধতি

কেমন জমিতে সুপারি চাষ করা সম্ভব? (How is it possible to cultivate betel nut in the land?)

সুপারি গাছের প্রধান সমস্যা হচ্ছে এই গাছ অতিরিক্ত জলে বাঁচতে পারে না। তাই সুপারি চারা লাগানোর আগে যে মাটিতে বসাবেন সেই মাটিতে যেন বেশি জল না জমে তা লক্ষ্য রাখতে হবে। সব থেকে ভালো হয় সুপারি গাছ উঁচু জায়গা বা উঁচু পারে। আপনার বাড়ি যদি গ্রামে হয়ে থাকে এবং আপনার যদি ব্যবহার অযোগ্য ফাঁকা জায়গা পড়ে থাকে তাহলেই আপনি সেই জায়গায় সুপারি গাছ বসিয়ে ব্যবসা করতে পারেন। গ্রামের অনেক মানুষ আছেন যাদের চাষাবাদ জমি ছাড়াও সাধারণ ডাঙ্গা পড়ে রয়েছে। এই ডাঙ্গাতে সুপারি গাছ বসিয়ে খুব সহজেই ব্যবসা করে প্রতি মাসে ভালো টাকা উপার্জন করা সম্ভব।

চাষাবাদ যুক্ত জলা জায়গাতে সুপারি গাছ বসালে বর্ষাকাল এবং চাষের সময় অন্য জমিতে যাওয়ার জোয়ারের জলে সুপারি গাছ মরে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকে। তাই চাষাবাদ পণ্য জমিতে সুপারি গাছ বসিয়ে ব্যবসা করতে চাইলে আপনাকে আগে সেই জমিটা ডাঙ্গাতে রূপান্তরিত করতে হবে। আপনি চাইলে যে জায়গায় বর্ষার জল বাদে অন্য সময় জল পৌঁছই না বা শুষ্ক জমি দেখে সেখানে আপনি সুপারি গাছ বসাতে পারেন। তাই সুপারি গাছ বসানোর জন্য আদর্শ জায়গা হিসাবে উচুঁ জমি লাগবে।

অবশ্যই পড়ুন- ঘাসের ব্যবসা করে প্রতিমাসে 1 লক্ষ টাকা

সুপারি চারা তৈরি করার পদ্ধতি (Method of preparing betel nut seedlings)

আপনি যদি সুপারি চাষ করতে চান তাহলে অবশ্যই আপনাকে সুপারি যারা তৈরি করা জানতে হবে। যদিও বর্তমানে সুপারি চাষের ক্ষেত্রে অনেক চাষী চারা কিনে এনে বসান। তবে আপনি যদি সুপারি চারা তৈরি করতে সক্ষম হন তাহলে আপনি সুপারি বিক্রির পাশাপাশি সুপারি চারাও বিক্রি করে ভালো টাকা উপার্জন করতে পারবেন। সুপারি চারা তৈরি করার পদ্ধতি গুলি হল-

  • জমির মাটি ভালো করে কুপিয়ে নিতে হবে।
  • কোপানো মাটিতে জৈব সার বা ভার্মি কম্পোস্ট সাথে অল্প রাসায়নিক সার ছড়িয়ে কিছুদিন রেখে দিতে হবে।
  • গাছ থেকে পাড়া বড় সুপারি গুলিকে বস্তায় বেঁধে এক সপ্তাহ রেখে দিতে হবে।
  • বস্তায় বাধা সুপারি গুলি এক সপ্তা থাকার পর নরম হয়ে যাবে এবং মাটিতে বসানোর জন্য প্রস্তুত হয়ে যাবে।
  • কোপানো জমিতে সরু সরু লম্বা লাইন তৈরি করে এক আঙুল ছাড়া ছাড়া সুপারি দিয়ে অল্প মাটি চাপা দিয়ে দিতে হবে।
  • সুপারি মাটিতে বসানো হয়ে গেলে সেই মাটির ওপর সুপারি পাতা বা নারকেল পাতা দিয়ে ঢেকে রাখতে হবে।
  • সুপারি যেমন বেশি রোদ এবং অতিরিক্ত জল পেলে নতুন গাছ জন্মাবে না, তেমন সুপারির পক্ষেও ক্ষতিকর।
  • যে এলাকায় আপনি সুপারি চাষ করতে চাইছেন সেই এলাকায় মাটি অনুযায়ী সপ্তাহে একবার কিংবা দুবার অল্প জল ছড়া দিতে হবে সুপারি বসানো মাটিতে।
  • 20 দিন থেকে 35 দিনের মধ্য সুপারি থেকে ছোট্ট চারা বেরিয়ে আসবে।
  • মাটি থেকে এই ছোট ছাড়া তোলার জন্য কমপক্ষে আপনাকে 7 মাস থেকে 8 মাস অপেক্ষা করতে হবে।

মনে রাখবেন সুপারি যারা বসানোর পূর্বে কুপানো মাটিতে জৈব সার অবশ্যই ব্যবহার করতে হবে। আবার সুপারি বসানোর পর তা যে কোন বড় পাতা দিয়ে ঢেকে রাখতে হবে এবং সরাসরি সূর্যের রোদ ও বৃষ্টির হাত থেকে রক্ষা করতে হবে। আর সুপারি গাছ জন্মানোর পর মাটিতে বসানোর জন্য এবং বিক্রি করার জন্য সেই সুপারি চারা 7 থেকে 8 মাসের হওয়া অবশ্যই প্রয়োজনীয়। সাধারণত একটি সুপারি যারা জমিতে বসানোর জন্য কমপক্ষে এক ফুট উচ্চতা বিশিষ্ট হওয়ার প্রয়োজন পড়ে। আর এই এক ফুট থেকে দেড় ফুট উচ্চতা একটি গাছের হয় সাত আট মাস পর থেকে।

সুপারি চারা কোথায় কিনতে পাওয়া যায়? (Where to buy betel nut seedlings?)

আপনি যদি গ্রামে বাস করে থাকেন তাহলে খুব সহজেই আপনি সুপারিশ ছাড়া পেয়ে যাবেন আপনার গ্রামেরই কোন না কোন চাষীর কাছ থেকে বা আপনার আশপাশের কোন গ্রামের চাষীর কাছ থেকে। আর আপনি যদি শহরাঞ্চলে বাস করে থাকেন তাহলে সুপারি ছাড়া কিনতে হলে আপনাকে যেতে হবে যে কোন নার্সারি বাগানে। সাধারণত নার্সারি বাগানিরা সুপারি চারা তৈরি করে বিভিন্ন প্যাকেটে। বর্তমানে পশ্চিমবঙ্গের প্রতিটা নার্সারি বাগানে সুপারি চারা বিক্রি হয় এবং এই সুপারি চারা ছোট বড় বিভিন্ন সাইজ অনুযায়ী আলাদা দামে পাওয়া যায়।

অর্থাৎ আপনি যদি একটি সুপারি চারা এক ফুটের কিনতে চান তাহলে যে টাকা আপনাকে খরচ করতে হবে আবার তিন ফুটের সুপারি চারা কিনতে হলে তার থেকে একটু বেশি টাকা খরচ করতে হবে। তাই সুপারি ছাড়া কেনার জন্য সবথেকে আদর্শ জায়গা হল যে কোন নার্সারি বাগান এরিয়া। তবে গ্রামের যে সকল চাষী সুপারি চারা শুধুমাত্র প্রস্তুত করেন বিক্রি করার জন্য, আপনি খোঁজ খবর নিয়ে সেই সকল চাষীর কাছ থেকে সুপারি চারা কিনে আপনার জায়গায় সুপারি চাষ করতে পারেন।

আরো পড়ুন- ১০টি কম খরচে গ্রামের ব্যবসা

সুপারি গাছ বসানোর পদ্ধতি (Method of planting betel nut tree)

সুপারি গাছ বসানোর একটি বিজ্ঞানসম্মত নিয়ম রয়েছে, আর আপনি যদি এই বিজ্ঞানসম্মত নিয়মে সুপারি গাছ বসাতে পারেন তাহলে খুব বেশি পরিমাণে সুপারি পাবেন। সাধারণত একটি সুপারি গাছকে 3 বার মাটি বদল করা হয় তার বৃদ্ধি বাড়ানোর জন্য এবং বেশি ফলন পাওয়ার জন্য। প্রথমবার একটি সুপারি গাছ মাটিতে চারা হিসেবে তৈরি হওয়ার পর তাকে তুলে নিয়ে একটি জায়গায় বসানো হয়। এক বছর পর সেই সুপারি গাছটা আবার তুলে নিয়ে মাটি বদল করে অন্য মাটিতে যেখানে সুপারি চাষ করবেন সেখানে বসাতে হবে। প্রথমে সুপারি গাছ যখন চারা হিসেবে মাটি থেকে তুলবেন তখন তা যেকোনো ধরনের শুকনো জমিতে বসাতে পারেন।

তবে আপনি যখন সুপারি চাষ করবেন মূল জমিতে তখন আপনাকে অবশ্যই একটি লাইন ধরে গাছ বসাতে হবে এবং প্রতিটি গাছ যাতে সঠিক উর্বরতা পাই বা খাদ্য পায় তার ব্যবস্থাও আপনাকে করতে হবে। এই কারণে সুপারি গাছ বসানোর আগে যে লাইনে আপনি গর্ত খুলবেন, সেই গর্ত খোঁড়ার পর তাতে জৈব সার এবং অল্প রাসায়নিক সার দিয়ে চার থেকে পাঁচ দিন রেখে দিতে হবে খোলা অবস্থায়। সুপারি গাছ 2 ফুট থেকে 2 ফুট ছাড়া ছাড়া বসাতে হবে।এরপর সুপারি গাছ মাটি থেকে তুলে নিয়ে এসে বসাতে হবে। সুপারি গাছ বসানোর সময় লক্ষ্য করবেন গাছের যে প্রান্ত হালকা সবুজ হয়ে থাকবে, সেই প্রান্তটি ঘুরিয়ে মাটির দিকে বসাতে হবে।

সুপারি গাছের গায়ে এই হালকা সবুজ কালার দেখে বোঝা যায় সুপারি গাছটা কোন দিকে বসানো ছিল এবং সূর্য রশ্মি সরাসরি গাছের কোন প্রান্তে বেশি পড়েছে। ফলে সূর্যরশ্মি যে প্রান্তে বেশি পড়েছে তার উল্টোদিকে করে আপনাকে বসাতে হবে একটি সুপারি গাছ।গাছ বসানো হয়ে গেলে সেই গাছ যাতে সরাসরি সূর্যরশ্মি থেকে দূরে থাকে এবং অতিরিক্ত বৃষ্টির হাত থেকে রক্ষা পায় তার জন্য আপনাকে সুপারি পাতা বা নারকেল পাতা দিয়ে গাছটি ঢেকে রাখতে হবে। কারণ সুপারি গাছ অতিরিক্ত রোদের কারণে পাতা শুকিয়ে যাবার সম্ভাবনা থাকে এবং তা বেশিদিন বাঁচতে পারে না। গাছ বসানো হয়ে গেলে পরিমাণ মতো অল্প জল দিয়ে দিতে পারেন এবং গাছ বসানোর সময় গাছের গোড়ার মাটি ভালো করে শক্ত করে বসাতে হবে।


বর্তমানে কিছু চাষী সুপারি চাষের পাশাপাশি আরো অন্যান্য চাষাবাদ করছে সেই ডাঙ্গাতে। তাই সুপারি গাছ বসানোর পর মাঝখান থেকে আপনি কলাগাছ বসাতে পারেন এতে সুপারি গাছ রোদ ও জল থেকে রক্ষা পাবে এবং কলা চাষ করেও আপনি উপার্জন করতে পারবেন। আবার অনেকে সুপারি গাছ বসানোর পর তার পাশে গোলমরিচ গাছে বসিয়ে গোলমরিচ চাষ করছেন এবং বেশি উপার্জন করছেন। এই গোলমরিচ চাষ সম্পর্কে জানতে হলে আপনি দেখুন এই লিংকে-

আপনি চাইলে কলা চাষ করতে পারেন, সুপারি চাষের পাশাপাশি আবার গোলমরিচ চাষ করতে পারেন এই খামারেই, আবার আপনি চাইলে বিভিন্ন ধরনের সময়কালীন সবজিও চাষ করতে পারেন এই একই জমিতে। আপনি কিভাবে আপনার ব্যবসা কে বড় করবেন এবং বেশি টাকা উপার্জন করবেন তা আপনাকেই খুঁজে নিতে হবে।

সুপারি গাছের পরিচর্যা কিভাবে করবেন? (How to take care of betel nut tree?)

সুপারি গাছ বসানোর সময় যে পরিচর্যা করতে হবে তা আপনি জেনেছেন ওপরের লেখাগুলি পড়ে, এবার আসা যাক সুপারি গাছ বসানোর পরবর্তী সময় তার পরিচর্যা কিভাবে করবেন। সাধারণত সুপারি গাছ একবার মাটিতে ভালোভাবে শিকড় চেলে দিয়ে বড় হয়ে যাবার পর তাকে আলাদা করে খুব বেশি পরিচর্যা করার প্রয়োজন পড়ে না। তবুও সুপারি গাছ বসানোর পরবর্তী সময়ে মাটিতে যদি ঘাস পাতা ও গুল্ম জাতীয় গাছ অতিরিক্ত জন্মে যায় তাহলে তা ৎক্ষণাৎ পরিষ্কার করার বন্দোবস্ত করতে হবে। এই কারণে যে জমিতে সুপারি চাষ করবেন সেই জমি প্রতি মাসে একবার কিংবা দুই মাস ছাড়া একবার করে ঘাস পাতা ও গুল্ম জাতীয় গাছ পরিষ্কার করার ব্যবস্থা করতে হবে।

যেহেতু সুপারি গাছের পরিচর্যা খুব বেশি করতে হয় না আবার অল্প পরিচর্যা তেই বেশি ফলন পাওয়া যায়। তাই জন্য সুপারি চাষের প্রবণতা বর্তমান সময়ের কিছু সংখ্যক চাষীর মধ্যে আলোড়ন তৈরি করেছে। সুপারি গাছের রোগ সাধারণত দুই এক রকমের হয়ে থাকে। যেমন সুপারি পাতার তলায় সাদা সাদা ছোপ ও মাছির উপদ্রব হয় পাতা খারাপ হয়ে যায়। এইরকম পরিস্থিতি হলে আপনাকে কীটনাশক ব্যবহার করে পাতায় স্প্রে করতে হবে। আবার সুপারি গাছের কান্ডে অনেক সময় এক ধরনের প্রকার উপদ্রব হয় যার কারণে কাণ্ড ক্ষতিগ্রস্ত হয়। এই ধরনের প্রকার হাত থেকে সুপারি গাছকে বাঁচানোর জন্য বিষ প্রয়োগ করতে হবে।

অবশ্যই পড়ুন- মুরগির খামার ব্যবসা

সুপারি চাষের সময়কাল (Betel nut cultivation period)

সাধারণত সুপারি চাষ করার উপযুক্ত সময় বর্ষাকালের পরবর্তী সময় থেকে। সুপারি গাছ বসানো এবং নতুন সুপারি চারা তৈরি করার জন্য উপযুক্ত সময়কাল হিসেবে আপনি আগস্ট মাসের শেষের দিক থেকে অক্টোবর মাসের শুরু দিক পর্যন্ত এই কাজ করতে পারেন। আর সুপারি গাছ বড় হয়ে যাবার পর আশ্বিন মাস থেকে মাঘ মাসের সময় বেশি ফলন পাওয়া যায়। সুপারি গাছের সময়কাল হিসেবে বলা যেতে পারে-

  1. ছোট সুপারি চারা– 1 বছর পর মাটি থেকে তোলা হয়।
  2. মাঝারি সুপারি গাছ– 1 থেকে 4 বছর বয়স পর্যন্ত বড় হয়ে ওঠে।
  3. বড় সুপারি গাছ– 4 বছরের পর থেকে ফলন দেওয়া শুরু করে 40 থেকে 60 বছর বয়স পর্যন্ত।

একটা সুপারি গাছ 40 থেকে 60 বছর পর্যন্ত ফলন দিলেও বেশি ফলন হয় 5 বছর থেকে 15 বছরের মধ্যে। তবে গ্রাম বাংলার সুপারি গাছগুলি 30 থেকে 40 বছরের পরই ঝড়ে ভেঙে যায় অথবা মানুষ প্রয়োজনে কেটে নেয়।

Betel nut business
সুপারি ব্যবসা

সুপারি চাষ করতে কত টাকা খরচ হয়? (How much money does it cost to grow betel nuts?)

আপনি যদি এক বিঘা জায়গায় সুপারি চাষ করেন তাহলে আপনার খরচ হবে 10 থেকে 15 হাজার টাকা। এই টাকায় আপনি সুপারি চারা তৈরি করা এবং মাটি কুপিয়ে সুপারি গাছ বসানোর জন্য প্রয়োজনীয় শ্রমিকের মজুরি মিলিয়ে খরচ হবে। আর আপনি যদি আরও অল্প জমিতে সুপারি যারা বসান তাহলে আপনার খরচ অনেকটাই কমে যাবে। ঠিক তেমনি আপনি যদি নিজে উদ্যোগে একাই কোন কর্মচারী না নিয়ে একটি জায়গায় নিজে থেকেই সুপারি চাষ করেন সে ক্ষেত্রে খরচের পরিমাণ কমে যাবে তবে কীটনাশক সহ সুপারি জানার জন্য যে টাকা খরচ হবে তা আপনাকে খরচ করতে হবে।

সুপারি ব্যবসায় লাভ কত? (How much profit in betel nut business?)

আপনি যদি সুপারি চাষ করে সুপারি ব্যবসা শুরু করেন তাহলে আপনি এই ব্যবসা থেকে ভালো টাকা উপার্জন করতে পারবেন। যেহেতু সুপারি চাষ অল্প টাকা বিনিয়োগ করে অল্প পরিশ্রমে সম্ভব হয় তাই গ্রামের অনেক চাষী তা করছেন। তবে সুপারি ফলন হবার পর তা বিক্রি করার জন্য বিভিন্ন প্রকার ব্যবসায়ী চাষীদের বাড়ি এসে সুপারি কিনে নিয়ে যায়। এক্ষেত্রে আপনি চাইলে এই ধরনের সুপারি ব্যবসায়ীকে সুপারি বিক্রি করতে পারেন। আবার নিজে উদ্যোগে একজন ছেলেকে কাজে লাগিয়ে প্রতিটি গাছ থেকে সুপারি পেড়ে সরাসরি সুপারির গোডাউনে বিক্রি করতে পারে।

সাধারণত যে সকল সুপারি ব্যবসায়ী বাড়িতে এসে সুপারি কিনে নিয়ে যায়, তারা একটা সুপারি 1 টাকা দাম দিয়ে কেনে। একটা গাছ থেকে 600 থেকে 800 সুপারি পাওয়া গেলে 600 টাকা একটা গাছ থেকেই ইনকাম করা সম্ভব। আর আপনার যদি এক বিঘা জমিতে 400 গাছ থাকে তাহলে 2 লাখ টাকার বেশি দামে সুপারি বিক্রি করে লাভ করতে পারবেন। একবার সুপারি চাষ করে প্রতি বছর দু লাখ টাকা করে আয় করতে পারলে আপনার সংসারের এক্সটা ইনকাম বেড়ে যাবে

জিজ্ঞাসিত প্রশ্ন ও FAQ

কত ধরনের সুপারি গাছ হয়?

উত্তর: ভারত ও বাংলাদেশের সাধারণত 3-4 ধরনের সুপারি চাষ করা হয়।

সুপারি গাছের প্রকারভেদ কি কি?

উত্তর: মোহিত নগর, মঙ্গলা, সুমমঙ্গলা প্রভৃতি প্রজাতির সুপারি গাছ পাওয়া যায়।

সুপারি চাষ কি গ্রামেই সম্ভব?

উত্তর: সুপারি চাষ গ্রামেতেই সম্ভব, তবে শহরাঞ্চলে ফাঁকা জায়গা পড়ে থাকলে সুপারিশ চাষ করা যেতে পারে।

সুপারির বর্তমান বাজার রেট কত?

উত্তর: ছোট সুপারি 1 টাকা এবং বড় সুপারি 1.5 টাকা করে বিক্রি হয়।

এক বিঘা জমিতে সুপারি চাষ করলে লাভ কত?

উত্তর: 1 লাখ টাকা থেকে 2 লাখ টাকা লাভ হতে পারে এক বিঘা জমিতে সুপারি চাষ করলে।

নতুন নতুন ব্যবসার আইডিয়া দেখুন-

বাড়ির বউদের জন্য সেরা ১০টি ব্যবসার আইডিয়া

 ই-কমার্স ব্যবসা শুরু করুন

Leave a Comment