রুম ওয়ালপেপার ব্যবসার সম্পূর্ণ গাইড | The complete guide to the room wallpaper business, 1 great babsa

বর্তমান সময়ে মানুষ অনেক সৌন্দর্য সচেতন তা হয়েছে। তাই রুম ওয়ালপেপার লাগিয়ে তাদের ঘরের দেওয়াল কে আরও সুন্দরময় করে তুলছে। আপনি যদি রুম ওয়ালপেপার ব্যবসা শুরু করেন তাহলে অবশ্যই এই ব্যবসা আপনি প্রচুর মুনাফা কামাতে পারবেন। কারণ বর্তমান সময়ে তো এর চাহিদা রয়েছেই আবার ভবিষ্যতেও এর চাহিদা সবথেকে বেশি থাকবে। রুম ওয়ালপেপার ব্যবসায় যেমন বিনিয়োগ অনেক কম করতে হয়, তেমন এই ব্যবসা অনেক কম পরিশ্রমের, আবার এই ব্যবসা থেকে অনেক টাকা উপার্জন করা যায়।

বর্তমানে মানুষ রং না করে দেওয়ালে বিভিন্ন ডিজাইনের ওয়ালপেপার লাগাচ্ছে। এই ওয়ালপেপারগুলি দেখতে যেমন সুন্দর হয় তেমন দেওয়াল কি ও অনেক সুন্দর করে তোলে। রংয়ের থেকে আবার দামেও অনেক কম হয়। তাই আপনার জন্য রুম ওয়ালপেপার ব্যবসা সম্বন্ধিত যাবতীয় তথ্য নিয়ে আজকের এই পোস্টে আলোচনা করা হলো।

Table of Contents

রুম ওয়ালপেপার ব্যবসা করতে কত টাকা বিনিয়োগ করতে হয়?

রুম ওয়ালপেপার ব্যবসা শুরু করতে আপনাকে ন্যূনতম 10 হাজার টাকা থেকে 20 হাজার টাকা বিনিয়োগ করতে হবে। আপনি যদি একটি রুম ওয়ালপেপার এর দোকান তৈরি করেন সেক্ষেত্রে এই বিনিয়োগের পরিমাণ একটু বেড়ে যাবে অর্থাৎ দোকান ভাড়া এবং প্রয়োজনীয় রুম ওয়ালপেপার কেনার ক্ষেত্রে আরো বেশ কিছু টাকা বিনিয়োগ করতে হবে। আর আপনি যদি রুম ওয়াল পেপার ব্যবসা শুধুমাত্র কন্টাক্ট হয়ে বা মিস্ত্রি হয়ে করতে চান তাহলে এই ব্যবসাতে আপনার তেমনভাবে কোন বিনিয়োগের প্রয়োজন পড়বে না।

আপনি কিভাবে ব্যবসা করবেন বা কি ধরনের ব্যবসা করবেন তার ওপরে নির্ভর করবে আপনার এই ব্যবসার বিনিয়োগ। আপনি যদি নিজের রুম ওয়ালপেপার তৈরীর কোম্পানি তৈরি করেন তাহলে অবশ্যই আপনাকে 2 লক্ষ টাকা থেকে পাঁচ লক্ষ টাকা বিনিয়োগ করতে হবে।

Room wallpaper
রুম ওয়ালপেপার

রুম ওয়ালপেপার এর প্রকারভেদ

আপনি যখন একটি রুম ওয়ালপেপার ব্যবসা করবেন তখন অবশ্যই জানতে হবে রুম ওয়ালপেপার কত ধরনের হয় এবং এই ওয়ালপেপার কি দিয়ে তৈরি করা হয়। সাধারণত রুম ওয়াল পেপার বর্তমানে বেশ কয়েক রকমের হয়ে থাকে। যেমন-

  • ভিনাইল ওয়ালপেপার
  • কাগজের ওয়ালপেপার
  • ফেব্রিক ওয়ালপেপার
  • প্লাস্টিক ঘাস ওয়ালপেপার
  • বাঁশের ওয়াল পেপার

কাগজের ওয়ালপেপার

কাগজের ওয়ালপেপার একদম সাধারন কাগজের হয়ে থাকে। এই কাগজ গুলির ওপর সুন্দর ডিজাইনের নকশা করা থাকে। দেওয়ালে আঠা দিয়ে কাগজ গুলি একের পর এক আটকানো হয় এইভাবে রুম ওয়ালপেপার এর কাজ হয়।

অবশ্যই পড়ুন- ফেলে দেওয়া জামা কাপড় থেকে 1 লক্ষ টাকা আয়

ভিনাইল ওয়ালপেপার

ভিনাইল ওয়ালপেপার প্লাস্টিক ফিনাইলের তৈরি যার নিচে আঠা আগে থেকেই দেওয়া থাকে শুধুমাত্র কাগজটি ছাড়িয়ে দেওয়ালে লাগানোর জন্য প্রস্তুত করা হয়ে থাকে। এই ফিনাইল ওয়ালপেপার তৈরির জন্য আপনি যেকোন ফ্লিক্স বা ভিনাইল কোম্পানির কাছ থেকে তৈরি করতে পারবেন। ভিনাইনের ওপর যেকোনো ডিজাইন আপনার মনের মত তা দিয়ে ওয়ালপেপারটি তৈরি করুন।

ফেব্রিক ওয়ালপেপার

ফেব্রিক ওয়ালপেপার যাতে ফেব্রিক এর কাজ করা থাকে এবং এটি দেখতে অনেক সুন্দর হয়। অনেকে ফেব্রিক ওয়ালপেপার কে টেক্সটাইল ওয়ালপেপার ও বলে থাকে। ফেব্রিক ওয়ালপেপার শ্বাস-প্রশ্বাসযোগ্য ও দাগ প্রতিরোধী হয়ে থাকে। ফেবরি ওয়ালপেপার দেওয়ালে লাগালে দেওয়ালের বিলাস বকুল চেহারা বেরিয়ে আসে এবং এটি একটু খরচা দায়ক।

প্লাস্টিক ঘাস ওয়ালপেপার

অনেক প্রকৃতিপ্রেমী তাদের দেওয়ালে সুন্দর প্রাকৃতিক পরিবেশ তৈরি করার জন্য প্লাস্টিক ঘাস ওয়ালপেপার ব্যবহার করে। প্লাস্টিক ঘাস ওয়ালপেপার দেওয়ালে লাগানোর জন্য আগে আঠা দেওয়ালে লাগাতে হয় তারপর ওয়াল পেপার লাগাতে হয়। প্লাস্টিক ঘাস ওয়ালপেপার বিভিন্ন ধরনের ঘাসের মতো হয়ে থাকে এবং এটি দেখতে অনেক সুন্দর হয়।

রুম ওয়ালপেপার দোকান তৈরি করুন

যেকোনো বাজার এলাকাতে আপনি একটি রুম ওয়ালপেপার দোকান তৈরি করতে পারেন তাহলে আপনার ব্যবসা অনেক ভালো চলবে। বর্তমানে যেহেতু রুম ওয়ালপেপার এর প্রচুর চাহিদা রয়েছে, তাই আপনি যদি রুম ওয়ালপেপার এর ব্যবসা দোকান দিয়ে শুরু করেন তাহলে এই ব্যবসা থেকে আপনি ভাল টাকা উপার্জন করতে পারবেন। সাধারণত বর্তমানে রুম ওয়াল পেপার আপনার এলাকার তেমন কোন দোকানেই রাখে না তার জন্য যেতে হয় বড় কোন বাজার এলাকাবা শহরে। কলকাতার বড়বাজার কিংবা ধর্মতলায় একাধিক রুম ওয়ালপেপার এর দোকান রয়েছে।

আপনি যদি খেয়াল করেন দেখবেন আপনার এলাকাতে যে দোকানগুলি রয়েছে তাতে কোনোটাতেই রুম ওয়ালপেপার বিক্রি হয় না। তাই রুম ওয়ালপেপার ব্যবসা করার জন্য আপনার কাছে এটা একটা সুবর্ণ সুযোগ, যে আপনি আপনার এলাকাতেই একটি রুম ওয়ালপেপার এর দোকান দিয়ে।

ওয়ালপেপার লাগানোর ট্রেনিং নিন

রুম ওয়ালপেপার ব্যবসা আপনি একজন মিস্ত্রি হিসেবে শুরু করতে পারেন। অর্থাৎ বিভিন্ন বাড়ির ওয়ালপেপার দেওয়ালে লাগানোর জন্য যে মিস্ত্রির প্রয়োজন পড়ে, তার জন্য আপনি ট্রেনিং নিয়ে এই কাজ করতে পারেন। ওয়ালপেপার লাগানোর ট্রেনিং যদিও কোন প্রশিক্ষণ কেন্দ্র থেকে আপনাকে নিতে হবে না এ ট্রেনিং আপনি নিতে পারেন যে বড় কোন মিস্ত্রির কাছ থেকে। অর্থাৎ যে সকল মিস্ত্রিরা এখন রুম ওয়ালপেপার এর কাজ করে তাদের সঙ্গে আপনি এক সপ্তা থাকলেই খুব সহজেই শিখে যাবেন বাড়িতে ওয়ালপেপার কি করে লাগাতে হয়। এই ওয়ালপেপার মিস্ত্রি আপনি হয়ে যাবার পর আপনি নিজেই একাধিক কর্মচারীকে ট্রেনিং নিয়ে প্রস্তুত করতে পারেন আপনার ব্যবসার জন্য।

ব্যবসার নাম রাখুন

আপনি যখন রুম ওয়ালপেপার ব্যবসা করবেন তখন অবশ্যই আপনাকে আপনার ব্যবসার জন্য একটি নাম রাখতে হবে। যেকোনো ব্যবসার ক্ষেত্রে সেই ব্যবসার নাম ভীষণ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে ব্যবসা বড় করার পেছনে। তাই আপনার রুম ওয়ালপেপার ব্যবসার একটি নাম অবশ্যই নির্বাচন করতে হবে ব্যবসা শুরুর আগেই। এই নামের ফ্লেক্স বিভিন্ন এলাকায় টাইমে বিজ্ঞাপনও করতে পারেন।

বেডরুমের ওয়ালপেপার ডিজাইন কেমন হবে? (How about bedroom wallpaper design?)

রুম ওয়ালপেপার ব্যবসা করতে গেলে আপনাকে অবশ্যই জানতে হবে একটি বেডরুমের ওয়ালপেপার ডিজাইন কেমন হয়। প্রথমে আপনি গ্রাহকের মনের মত ডিজাইন এর ওয়ালপেপার কিনে বেডরুমে লাগাতে পারেন। আবার আপনি নিজে থেকে পরামর্শ দিয়ে গ্রাহককে সুন্দর বেডরুমের ওয়ালপেপার পছন্দ করতে সাহায্য করতে পারেন। একটি বেডরুমের ওয়ালপেপারের নকশা সাধারণত হালকা রং ও সুক্ষ ডিজাইনের ফলে বেশি ভালো লাগে। বেডরুমে থাকা মানুষের শান্তির জন্য এমন কিছু কালার আপনাকে বাঁচতে হবে যা হালকা নরম রঙের হবে এবং বেশি জটিল নকশা যে ওয়ালপেপার এ না থাকবে।

আপনি চাইলে ছোট ছোট ক্যাডলক ডিজাইনের ওয়ালপেপার বেডরুমে লাগাতে পারেন আবার বিভিন্ন ফুলের ডিজাইন করা ওয়ালপেপার ও বেডরুমে লাগানো যায়। বেডরুম দেখতে কেমন সুন্দর তার ওপরে নির্ভর করবে আবার ওয়াল পেপার ডিজাইন টি। তাই আপনি আগে যে ঘরের বেডরুম সাজাবেন সেই ঘরের মালিক কে পরামর্শ নিয়ে তার পছন্দের কোনো ডিজাইন ওয়াল পেপার লাগাতে পারেন। বিভিন্ন পিকচার ডিজাইনের ফেব্রিক ওয়ালপেপার গুলি বেডরুমের দেওয়ালে লাগানো খুবই ভালো হয়। কারণ এই ধরনের ওয়ালপেপার দেখতে যেমন সুন্দর তেমন বেডরুমের দেওয়াল গুলিকে আরও সুন্দর করে তোলে।

বসার ঘরের ওয়াল পেপার কেমন হওয়া উচিত? (What should be the living room wall paper?)

রুম ওয়ালপেপার ব্যবসা করতে গেলে আপনাকে এটা বুঝতে হবে বসার রুমের ওয়াল পেপার কেমন হলে বসার রুমকে বেশি সুন্দর লাগবে। সাধারণ পরিবারের বসার রুমকে আকর্ষণীয় করে তোলার জন্য এমন কিছু আকর্ষণীয় কালার যুক্ত ডিজাইন এর ওয়ালপেপার ব্যবহার করতে পারেন যাতে বসার রূম গুলির দেয়াল বেশি সুন্দর হয়। বসার রুমের ওয়ালপেপার এর কালার অবশ্যই উজ্জ্বল এবং সুন্দর ডিজাইনের হওয়া খুবই প্রয়োজন। এই ওয়ালপেপার পছন্দের জন্য আপনি হালকা রঙের ওয়ালপেপার বা নীল কালারের উজ্জ্বল ওয়ালপেপার ব্যবহার করতে পারেন। আবার অনেক বাড়ির মালিক বর্ষার রুমের ওয়াল পেপারের কালার হালকা সবুজ কিংবা হালকা পিংক ও ব্যবহার করে থাকেন।

বর্ষার রুমের তিনটি দেওয়ালে তিন ধরনের ওয়ালপেপার আপনি ব্যবহার করতে পারেন কিংবা দুই ধরনের ওয়ালপেপার ব্যবহার করতে পারেন। যে দেওয়ালটিতে টিভি থাকবে সেই দেওয়ালটির ওয়ালপেপার একটু ডার্ক হলে টিভি দেখার মজা একটু বেশিই ভালো হয়। বিভিন্ন প্যাটার্ন ডিজাইন এর ওয়ালপেপার আপনি ব্যবহার করতে পারেন বসার রুমের জন্য। বসার রুমের ভেতর যদি পর্যাপ্ত আলো থাকে তাহলে সেই দেয়াল গুলিতে আপনি হালকা হলুদ ওয়ালপেপার ব্যবহার করতে পারেন। অনেক সময় ম্যাথ ওয়ালপেপার ও দেওয়ালের সৌন্দর্যকে খুব ভালো ফুটিয়ে তোলে, তাই আপনাকে আগে পর্যবেক্ষণ করতে হবে কোন দেয়ালে কি ধরনের ওয়ালপেপার দিলে বেশি সুন্দর লাগবে। তারপর গ্রাহককে জানিয়ে সেই ওয়ালপেপার দেওয়ালে লাগিয়ে আরো দেওয়াল কে উজ্জ্বল ও সৌন্দর্যপূর্ণ করে তুলুন।

আরো পড়ুন- গিফ্ট শপের ব্যবসা করুন 10 হাজার টাকায়

রুম ওয়ালপেপার নির্বাচনের টিপস (Tips for selecting room wallpaper)

রুম ওয়ালপেপার বিভিন্ন ধরনের হয়ে থাকে এবং বিভিন্ন দেয়ালের জন্য রুম ওয়ালপেপার আলাদা আলাদা ভাবে পছন্দ করতে হবে। আপনি যখন রুম ওয়ালপেপার ব্যবসা করবেন তখন অবশ্যই আপনাকে রুম ওয়ালপেপার নির্বাচন করার ক্ষমতা রাখতে হবে। তাই আপনাকে জানতে হবে এই জিনিসগুলি-

  • রুম ওয়ালপেপার এর রং এবং ডিজাইন কোন দেওয়ালে কেমন লাগবে তা বুঝে নির্বাচন করা।
  • কি রং এবং কি ধরনের প্যাটার্ন কোন দেওয়ালে দিলে বেশি সুন্দর লাগবে তা বুঝে রুম ওয়ালপেপার নির্বাচন করা।
  • লাক্সারি রুম গুলির জন্য ফেব্রিক ওয়ালপেপার পছন্দ করুন।
  • বাংলো বাড়ি গুলির জন্য কাঠগড়ো বা বাঁশের তৈরি মেট ওয়ালপেপার ব্যবহার করুন।
  • সূর্যালোক পূর্ণ দেওয়াল গুলির জন্য হালকা রঙের ওয়ালপেপার পছন্দ করুন।
  • অন্ধকার পণ্য দেওয়াল গুলির জন্য চকচকে বেশি উজ্জ্বল রঙের ওয়ালপেপার লাগান।
  • যে দেওয়ালে বেশি রোদ পরে, সেই দেওয়ালে ডিপ রঙের ওয়ালপেপার ব্যবহার করতে পারেন।
  • সবুজ রঙ নীল রঙের ওয়ালপেপার গুলি বিভিন্ন প্যাটার্ন যুক্ত হলে বেশি দেখতে সুন্দর হয় তাই যে কোন ঘরের জন্য এই ধরনের ওয়ালপেপার লাগাতে পারেন।
  • বাচ্চাদের গড়ের জন্য সুন্দর ডিজাইনের ছোট বড় ফুল ও প্রকৃতি কিংবা কার্টুন জাতীয় ওয়ালপেপার লাগাতে পারেন।
  • মেয়েদের রুমের জন্য পিংক কালারের বিভিন্ন ডিজাইনের ওয়ালপেপার লাগাতে পারেন এবং হালকা নীল কালারের ওয়ালপেপার লাগাতে পারেন।
  • রুম কে ফাইভ স্টার লুট দিতে মেটাল ওয়ালপেপার লাগাতে পারেন। আর প্রিমিয়াম ওয়ালপেপার ও রুমকে অনেক সুন্দর ফাইভস্টার রূপ দিতে পারে তাই এই ধরনের ওয়ালপেপার ও পছন্দ করতে পারেন।

রুম ওয়ালপেপার পাইকারি বাজার কোথায়?

আপনি যখন রুম ওয়ালপেপার ব্যবসা করবেন তখন অবশ্যই রুম ওয়ালপেপার কেনার জন্য পাইকারি বাজারে যেতে হবে। বর্তমানে রুম ওয়াল পেপার কেনার জন্য পাইকারি বাজারে না গেলেও ঘরে বসেই আপনি পেয়ে যেতে পারেন। অর্থাৎ বিভিন্ন রুম ওয়ালপেপার তৈরীর কোম্পানির সাথে আপনি যোগাযোগ করতে পারেন অনলাইনে এবং অর্ডারও দিতে পারেন অনলাইনে। এই রুম ওয়ালপেপার কোম্পানির যোগাযোগ পেতে আপনি গুগলে সার্চ করতে পারেন এবং পেয়ে যাবেন একাধিক কোম্পানির ঠিকানা।

তবে আপনি যদি নিজে দেখে রুম ওয়াল পেপার কিনতে চান পাইকারি দামে তাহলে অবশ্যই আপনাকে যেতে হবে ধর্মতলার নিউমার্কেটে। কলকাতার এই ধর্মতলার নিউ মার্কেট এ প্রচুর ধরনের রুম ওয়ালপেপার পাওয়া যায় এবং খুবই কম দামে বিক্রি হয়। বাংলাদেশে থাকলে অবশ্যই আপনাকে আসতে হবে ঢাকার চকবাজারে। চকবাজারে রুম ওয়ালপেপারের একাধিক দোকান রয়েছে এই দোকানগুলি থেকে আপনি চাইলে খুচরো এবং পাইকারি দামে একাধিক ধরনের রুম ওয়ালপেপার পেয়ে যাবেন।

অবশ্যই পড়ুন- অল্প পুজিতে ক্যাটারিং ব্যবসা

রুম ওয়ালপেপার ব্যবসা করতে কি কি লাইসেন্সের প্রয়োজন?

আপনি যদি একজন রুম ওয়ালপেপার এর মিস্ত্রি হন তাহলে ওয়ালপেপার ব্যবসা করার জন্য আপনার কোন লাইসেন্সের প্রয়োজন পড়বে না। আবার আপনি যদি গ্রামাঞ্চলের দিকে ছোট আকারের রুম ওয়ালপেপার ব্যবসা শুরু করেন সেক্ষেত্রেও আপনার আলাদা করে কোন লাইসেন্সের প্রয়োজন পড়বে না। যেদিন আপনার ব্যবসা অনেক বড় হবে এবং আপনি ব্যবসা থেকে অনেক উপার্জন করবেন তখন আপনার ব্যবসার জন্য লাইসেন্সের প্রয়োজন পড়বে। তবে আপনি যদি শহরাঞ্চলে রুম ওয়ালপেপার ব্যবসা শুরু করেন তাহলে অবশ্যই আপনার ব্যবসা শুরুর পরেই লাইসেন্স নিতে হবে। এই ব্যবসা করার জন্য বেশি লাইসেন্সের প্রয়োজন হয় না তাই আপনি খুব অল্প কয়েকটি লাইসেন্স নিয়ে ব্যবসার কাজ ভালোভাবে করতে পারবেন। রুম ওয়ালপেপার ব্যবসার জন্য প্রয়োজনীয় লাইসেন্স গুলি হল-

  • ট্রেড লাইসেন্স
  • জি এস টি নাম্বার
  • ব্যাংক একাউন্ট
  • নাগরিকত্বের প্রমাণপত্র
Room wallpaper
রুম ওয়ালপেপার

রুম ওয়ালপেপার ব্যবসার মার্কেটিং কিভাবে করবেন?

আপনি যখন রুম ওয়ালপেপার ব্যবসা শুরু করবেন তখন আপনাকে একাধিক নিয়মে মার্কেটিং করতে হবে অর্থাৎ পুরাতন নিয়মের সাথে সাথে আধুনিক নিয়মে মার্কেটিং করতে হবে। আপনি যদি ভালোভাবে মার্কেটিং করতে পারেন তাহলে আপনার ব্যবসার উন্নতি দ্রুততার সাথে হবে এবং আপনি ব্যবসা থেকে প্রচুর উপার্জন করতে পারবেন। তাই যে পদ্ধতিগুলি অবলম্বন করে আপনার ব্যবসার উন্নতি করতে পারেন তা হল-

  • নিজস্ব ওয়েবসাইট তৈরি করুন এবং সেই ওয়েবসাইটে এবং ওয়ালপেপার সম্বন্ধিত বিভিন্ন পোস্ট করুন ও ছবি আপলোড করুন। ধীরে ধীরে আপনার ওয়েবসাইট যত পরিচিত লাভ করবে এবং যত জনপ্রিয়তা লাভ করবে তত আপনার ব্যবসাও উন্নতি করবে।
  • ফেসবুক ও ইনস্টাগ্রামে পেজ তৈরি করুন এবং প্রতিদিন নিত্যনতুন রুম ওয়ালপেপার এর পোস্ট করুন। বিভিন্ন ছবি ও লেখা পোস্ট করার মধ্য দিয়ে এই পেজগুলিতে খুব দ্রুততার সাথে ফলোয়ার বাড়বে এবং ফলোয়ার বাড়ার সাথে আপনার ব্যবসার বিজ্ঞাপন হবে আর আপনি এই সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্ম গুলি থেকে অনেক অর্ডার পাবেন।
  • ফেসবুক গুগল ইউটিউবে অল্প টাকা খরচ করে বিজ্ঞাপন দিতে পারেন নির্দিষ্ট এলাকার মধ্যে, অর্থাৎ আপনি যে জায়গায় দোকান তৈরি করছেন বা যে এলাকা বিশেষ ব্যবসা করতে চাইছেন সেই এলাকার মধ্যে অল্প টাকা খরচ করেই বিজ্ঞাপন দিতে পারেন। এই অনলাইন দুনিয়ার সবচেয়ে জনপ্রিয় ফেসবুক গুগল ইউটিউব এর মধ্য দিয়ে।
  • যে এলাকায় আপনি দোকান তৈরি করছেন সেই এলাকার আশেপাশে আপনি ছোট-বড় পোস্টার ছাপিয়ে পোস্টারিং করেও আপনার ব্যবসার বিজ্ঞাপন দিতে পারেন এবং প্রচার করতে পারেন।
  • বিভিন্ন মার্বেলের দোকান বা বিল্ডার্সের দোকানের সাথে যোগাযোগ করে তাদের মারফত কাস্টমারকে বিজ্ঞাপন দিতে পারেন বা প্রচার করতে পারেন।
  • একাধিক প্রমোটারের সাথে যোগাযোগ রেখে বিভিন্ন ফ্ল্যাট তৈরি হওয়ার পর তার অর্ডার পাওয়ার জন্য আপনি বিজ্ঞাপন দিতে পারেন।

রুম ওয়ালপেপার এর দাম কত? (How much does room wallpaper cost?)

আপনি যখন রুম ওয়ালপেপার ব্যবসা করবেন তখন গ্রাহককে রুম ওয়ালপেপার এর দাম বলতে হবে। কারণ গ্রাহক কেনার আগে জিনিসের দাম জেনে তারপরেই কিনতে চাইবে। বিভিন্ন কোম্পানি অনুযায়ী ও ওয়ালপেপারের কোয়ালিটির ওপর নির্ভর করে দামের একটি লিস্ট তৈরি হয়। আপনি যদি নিজের দোকান দিয়ে ব্যবসা করেন সে ক্ষেত্রে আপনার কাছে চার্ট থাকবে আগে থেকেই কিন্তু যদি আপনি একজন মিস্ত্রি হন তাহলে আপনার কাছে ওয়ালপেপার দামের চার্ট থাকে না, তাই আপনাকে আগে থেকেই ওয়ালপেপার গুলির দাম জেনে রাখতে হয় কাস্টমারকে বলার জন্য।


ভারতে বিক্রি হওয়া ওয়ালপেপার গুলির প্রতি রোলের দাম 1হাজার টাকা থেকে শুরু করে 20 হাজার টাকা পর্যন্ত হতে পারে। বিভিন্ন কোম্পানির বিভিন্ন কোয়ালিটির ওয়ালপেপার এর দাম এই ভাবেই তৈরি হয়। সাধারণত প্রতি বর্গফুট ওয়ালপেপার এর দাম 8 টাকা থেকে 15 টাকা হয়ে থাকে। আর একটি ওয়ালপেপার রোলের আয়তন থাকে 32.97 × 1.73 ফুট

সেরা ১০ টি ভারতের রুম ওয়ালপেপার কোম্পানি (Top 10 Room Wallpaper Companies in India)

  1. মার্শালস
  2. ডি ডেকর
  3. নিলায়া (এশিয়ান পেইন্টস)
  4. ইন্ডিয়া সার্কাস
  5. Paper in
  6. লাইফ ইন কালার্স
  7. সরিতা হান্ডা এলিমেন্টো
  8. হান্ডেড ইয়েলো
  9. নেরোল্যাক্স
  10. বার্জার

রুম ওয়ালপেপার ব্যবসায় লাভ কত?

আপনি যদি ছোট করে রুম ওয়ালপেপার ব্যবসা করেন সে ক্ষেত্রে আপনার প্রবেশ করার ফুট রুম ওয়ালপেপার বিক্রি করে লাভ থাকতে পারে 4 থেকে 5 টাকা। একজন ছোট রুম ওয়ালপেপার ব্যবসায়ী প্রতিমাসে 30 হাজার টাকা থেকে 80 হাজার টাকার মতো লাভ করতে পারেন তার ব্যবসা থেকে। আর একজন বড় পাইকারি এবং ওয়ালপেপার ব্যবসায়ী প্রতি মাসে কয়েক লক্ষ টাকা লাভ করতে পারে তার ব্যবসা থেকে। ওয়ালপেপার মিস্ত্রি হলে আপনি প্রতি স্কয়ার ফুটের 2 থেকে 3 টাকা লাভ করতে পারেন যখন কাস্টমারের বাড়ির দেওয়ালে লাগাবেন তখন। অর্থাৎ এবং ওয়ালপেপার মিস্ত্রি প্রতি ওয়ালপেপার দেওয়ালে লাগানোর জন্য এক স্কয়ার ফিটের জন্য 2 থেকে 3 টাকা চার্জ করে

জিজ্ঞাসিত প্রশ্ন ও FAQ

ওয়ালপেপার এর আয়তন কত?

উত্তর: 32.97×1.73 ফুট

রুম ওয়ালপেপার দোকান করতে কত বড় জায়গা প্রয়োজন?

উত্তর: 10/10 ফুট জায়গার ঘর হলেই রুম ওয়ালপেপার দোকান তৈরি করতে পারবেন।

দেয়ালের ওয়াল পেপার এর দাম কত?

উত্তর: দেয়ালের ওয়াল পেপার এর দাম 1 হাজার টাকা থেকে শুরু করে 20 হাজার টাকার মধ্যে হয়ে থাকে।

ওয়ালপেপার ব্যবসা শুরু করতে কত টাকা লাগে?

উত্তর: 10 হাজার টাকা থেকে 1 লক্ষ টাকা প্রয়োজন ওয়ালপেপার ব্যবসা শুরু করতে।

ওয়ালপেপার ব্যবসায় লাভ কত?

উত্তর: 30 হাজার থেকে 80 হাজার টাকা প্রতি মাসে আয় করতে পারেন।

নতুন নতুন ব্যবসার আইডিয়া দেখুন-

বইয়ের দোকান ব্যবসা

চা দোকানের ব্যবসা শুরু করুন

Leave a Comment