রাবার ব্যান্ড তৈরির ব্যবসা প্রতি ঘন্টায় 1 হাজার টাকা লাভ | Rubber band manufacturing business right now

বর্তমানে প্রায় প্রতিটি দোকান থেকে পরিবারে রাবার ব্যান্ড বা গাডারের ব্যবহার এত বেশি পরিমাণে হয় যে এই ব্যবসা দিনে দিনে ফুলেঁপে উঠছে। বর্তমান সময়ে উত্তর ভারতে রাবার ব্যান্ড তৈরির ব্যবসা অনেক অনেক বেশি থাকার কারণে আমাদের পশ্চিমের রাজ্যগুলিতে রাবার ব্র্যান্ডের দাম একটু বেশি হয়ে থাকে। আপনি আপনার এলাকায় একটি রাবার ব্যান্ড বা গাডার তৈরির কোম্পানি খুলে নিজে উদ্যোগে শুরু করতে পারেন গাডার তৈরির ব্যবসা। তাই আজকে এই পোস্টে আপনাদের এই ব্যবসা করার জন্য যাবতীয় তথ্য নিয়ে হাজির করা হয়েছে। আপনারা যদি এই পোস্টটি ভাল করে মনোযোগ সহকারে পড়েন তাহলেই আপনি খুব সহজেই শুরু করতে পারবেন রাবার ব্যান্ড তৈরির ব্যবসা।

Table of Contents

রাবার ব্যান্ড তৈরির ব্যবসা কিভাবে শুরু করা যায়? (How to start rubber brand manufacturing business?)

আপনি চাইলে বাজার থেকে পাইকারি দরে কিনে আনতে পারেন রাবার ব্যান্ড টিউব তারপর তার কেটে গাডার বানাতে পারেন। তবে আপনি নিজে উদ্যোগে বিভিন্ন কেমিক্যাল মিশিয়ে রাবার ব্যান্ড টিউব তৈরি করতে পারেন এবং সেই টিউব পাইকারি মার্কেটে বিক্রি করতে পারেন আবার টিউব কেটে গাডার বিক্রি করতে পারেন। গাডার তৈরীর ব্যবসা করার জন্য আপনাকে প্রয়োজন অনুযায়ী জায়গা ইলেকট্রিক এবং কিছু দক্ষ কর্মচারী প্রয়োজন পড়বে। আপনি অল্প কিছু ট্রেনিং নিয়ে এই ব্যবসা করতে পারেন এর জন্য আলাদা করে বেশি পড়াশোনা শিখে উচ্চশিক্ষিত হওয়ার প্রয়োজন নেই।

অবশ্যই পড়ুন- বাড়ির বউদের জন্য সেরা ১০টি ব্যবসা

গাডার তৈরির কাঁচামাল কি কি?

গাডার তৈরির ব্যবসা করতে গেলে এর প্রধান কাঁচামাল হিসেবে আপনাকে রাবার ব্যান্ড টিউব কিনতে হবে। এছাড়াও কিছুটেল কম পাউডার এবং অল্প কিছু কেমিক্যাল কিনে এই ব্যবসা ছোট করে আপনি শুরু করতে পারেন। তবে আপনি যদি নিজেও উদ্যোগে রাবার ব্যান্ড টিউব বানাতে চান তাহলে আপনাকে বেশ কিছু কেমিক্যাল কাঁচামাল হিসেবে কিনতে হবে। তাই সম্পূর্ণ কাঁচামালের তালিকা হিসেবে বলা যেতে পারে-

  • রাবার কালার কেমিক্যাল পাউডার
  • লেটেস্ট
  • ক্যালসিয়াম ক্লোরাইড
  • লবণ

এই কাঁচামাল গুলি রাবার ব্যান্ড টিউব তৈরি করার জন্য কাজে লাগে আর আপনি যদি টিউব কিনে আনতে চান তাহলে প্রধান কাঁচামাল হিসেবে
রাবার ব্র্যান্ড টিউব কিনলেই হবে।

Rubber band making machine
রাবার ব্যান্ড তৈরির মেশিন

রাবার ব্যান্ড তৈরীর কাঁচামাল কোথায় কিনতে পাওয়া যায়? (Where to buy raw materials for making rubber bands?)

রাবার ব্যান্ড তৈরির ব্যবসা করতে গেলে যে রাবার ব্যান্ড টিউব কিনবেন তা আপনি যে কোন মার্কেটে পাবেন না। তাই এই ধরনের রাবার টিউব কেনার জন্য আপনাকে অবশ্যই বড় কোন পাইকারি বাজার বা সরাসরি ম্যানুফ্যাকচারার এর কাছ থেকে কিনতে হবে। যেহেতু বর্তমান সময়ে উত্তর ভারতে রাবার ব্যান্ড তৈরির কাজ হয়ে থাকে তাই এই সকল জায়গা থেকে আপনি প্রয়োজন অনুযায়ী রাবার ব্যান্ড টিউব কিনতে পারেন। আবার আপনি চাইলে বড়বাজার পাইকারি মার্কেট থেকে সমস্ত ধরনের রাবার ব্যান্ড টিউব কিনে নিয়ে এসে ব্যবসা করতে পারেন। বাংলাদেশের ঢাকার চকবাজার থেকে আপনি বিভিন্ন ধরনের রাবার ব্যান্ড টিউব কিনতে পারেন। আপনাদের সুবিধার জন্য বেশ কিছু যোগাযোগ নাম্বার নিচে দেওয়া হল যেখান থেকে আপনি যোগাযোগ করে রাবার ব্যান্ড কিনতে পারবেন।

গাডার তৈরির ব্যবসায় কি মেশিন লাগে? (What machines are needed in the business of making gadar?)

গাডার তৈরির ব্যবসা করার জন্য আপনাকে অবশ্যই রাবার কাটিং মেশিন কিনতে হবে। বর্তমান সময়ে বিভিন্ন দামে গার্ডার কাটিং মেশিন বা রাবার ব্যান্ড কাটিং মেশিন পাওয়া যায় মার্কেটে। আর আপনার এই ব্যবসাতে মেশিন কেনা অবশ্যই জরুরি, কারণ মেশিন ছাড়া নির্দিষ্ট মাপে এবং নির্দিষ্ট পরিমাণের গার্ডার বানাতে আপনার অসুবিধা হবে।

আরো পড়ুন- আচার তৈরির ব্যবসা

রাবার ব্যান্ড তৈরির মেশিনের দাম কত? (What is the cost of rubber band making machine?)

রাবার ব্যান্ড তৈরীর ব্যবসা করতে গেলে অবশ্যই আপনাকে প্রয়োজন অনুযায়ী মেশিন কিনতে হবে আর এই মেশিনের দাম বিভিন্ন মেশিন ম্যানুফ্যাকচারার কোম্পানি ভিন্ন ভিন্ন ভাবে রাখে। বর্তমানে ভারতে বেশ কয়েকটি মেশিন ম্যানুফ্যাকচারার কোম্পানি এই ধরনের মেশিন তৈরি করে। বাংলাদেশ তবে কোন মেশিন ম্যানুফ্যাকচারার কোম্পানি রাবার ব্যান্ড মেকিং মেশিন তৈরি করে না। তাই বাংলাদেশ থেকে মেশিন কিনতে হলে ইন্ডিয়ামার্ট ওয়েবসাইট থেকে কিনতে হবে অথবা ভারত থেকে অর্ডার করতে হবে।

রাবার ব্যান্ড মেকিং মেশিনের দাম 50 হাজার টাকা থেকে 70 হাজার টাকার মধ্যে পাওয়া যায়।

রাবার ব্যান্ড তৈরির মেশিন কোথায় কিনতে পাওয়া যায়?

যেহেতু রাবার ব্যান্ড তৈরীর মেশিন পশ্চিমবঙ্গের কোন মেশিন ম্যানুফ্যাকচারার কোম্পানি বানায় না। তাই এই মেশিন কেনার জন্য ভারতের অন্য রাজ্য থেকে অর্ডার করতে হয়। তবে বর্তমানে বড় বাজারের কিছু মেশিন বিক্রেতা এই ধরনের মেশিন বিক্রি করে সাথে কাঁচামালও বিক্রি করে। তাই আপনারা চাইলে এই সকল মেশিন বিক্রেতার কাছ থেকে মেশিন কিনে নিয়ে আপনি সহজেই ব্যবসা করতে পারেন। আপনাদের সুবিধার্থে এই ধরনের মেশিন ম্যানুফ্যাকচারার কোম্পানি এবং বিক্রেতাদের ফোন নাম্বার নিচে দেওয়া হল।
বাংলাদেশ থেকে যারা গাডার তৈরি ব্যবসা করতে চান তারাও এই ধরনের মেশিন কিনতে এই যোগাযোগ নাম্বার গুলিতে ফোন করতে পারেন, এবং বাংলাদেশে যেখানে এই ধরনের গাডার তৈরীর মেশিন পাওয়া যায় তারও যোগাযোগ নাম্বার দেওয়া হল।

  • 09157576722
  • S.kindustries bhilwararajsthan- 9929157142,7665294126
  • Address – 1031, Gaye wali Gali, Pan Mandi, sadar bazar, delhi – 110006 Contect – 8800424401
  • SP Traders, 22, Sukeas Lane, Radha Bazar Post Office, Near Tea Board, Kolkata- 700001 Contact: +919152106966
  • S.K Industries, pur road, iti ke samne, jila udyog kendra, sbi bank wali gali me, rcm office ke paas, Satynarayan Engineering ke andar S.K Industries Bhilwara Rajasthan, pin code 311001 Mob :9024659579 9024644192
  • Sadrul Brothers, 51, BRB Basu Road, Canning Street, Kolkata- 700001 Contact: +919831570413, +919163765654

কিভাবে গাডার তৈরি হয়?

রাবার ব্যান্ড তৈরির ব্যবসা করতে হলে আপনাকে জানতে হবে রাবার ব্যান্ড তৈরির পদ্ধতি সম্পর্কে। বর্তমান সময়ে ছোট ব্যবসায়ীরা রাবার ব্র্যান্ড টিউব কিনে এনে তা মেশিন দিয়ে কেটে রাবার ব্যান্ড বা গাডার তৈরি করেন। তবে আপনি যখন এই ব্যবসা করবেন তখন আপনাকে সম্পূর্ণ পদ্ধতি জানতে হবে।

  • রাবার কালার কেমিক্যাল নিয়ে এক লিটার জল মিশিয়ে ভালো করে মিক্সিং করতে হবে।
  • মিশ্রণটি তৈরি হয়ে গেলে লেটেক্সে মিশ্রণটি ঢেলে দিয়ে ভালো করে মিশাতে হবে।
  • রাবার ব্রান্ড টিউবের ডাইস্টি লবণাক্ত জলে ডুবিয়ে নিয়ে কিছুক্ষণের জন্য জল ছাড়া অবস্থায় রেখে দিতে হবে।
  • এরপর রাবার ব্র্যান্ড ডাইস লেটেক্সের মধ্য ভালো করে ডুবিয়ে নিয়ে একদিনের জন্য শুকনো করতে হবে।
  • শুকনো হয়ে গেলে মাথার দিকে একটুখানি কেটে জল ঢুকিয়ে টিউবগুলি বাইরে বের করতে হবে।
  • তারপর সমস্ত টিউব ভালো করে জলে ডুবিয়ে রাখতে হবে এক থেকে পাঁচ ঘন্টার মত।
  • এরপর প্রতিটি টিউব রাবার ব্যান্ড মেকিং মেশিনে সেট করে কেটে রাবার ব্যান্ড তৈরি করা হয়।
  • এইভাবে তৈরি হওয়া গাডার গুলি নির্দিষ্ট ওজন মত মেপে নিয়ে প্যাকেজিং করতে হবে বাজারে বিক্রি করার জন্য।

গাডার তৈরির ব্যবসা করতে কত বড় জায়গার প্রয়োজন?

গাডার তৈরির ব্যবসা করতে হলে অবশ্যই আপনাকে একটু বড় জায়গা নিয়ে ব্যবসা হবে। কারণ শুধুমাত্র আপনি যদি গাডার কাটিং করেন তাহলে বেশি জায়গার প্রয়োজন পড়বে না, তবে সম্পূর্ণ পদ্ধতিতে রাবার ব্যান্ড তৈরি করতে হলে আপনাকে একটু বড় জায়গার নিয়ে ব্যবসা করতে হবে। বলা যেতে পারে শুধুমাত্র মেশিন কিনে ব্যবসা করতে হলে 10/10 ঘর হলেই চলবে। তবে সম্পূর্ণ পদ্ধতিতে রাবার ব্যান্ড তৈরি করতে হলে কম করে 300 স্কয়ার ফিট জায়গার দরকার পড়বে।

রাবার ব্যান্ড তৈরির ব্যবসা করতে কি কি লাইসেন্স লাগে? (Do you need a license to make rubber bands?)

রাবার ব্যান্ড তৈরির ব্যবসা করার জন্য আপনাকে বেশ কয়েকটি লাইসেন্স নিতে হবে। যেহেতু রাবার ব্যান্ড কেমিক্যাল দিয়ে প্রস্তুত তাই আপনাকে আগে থেকে কেমিক্যাল এর জন্য লাইসেন্স নিতে হবে সরকারের কাছ থেকে। তাই সব মিলিয়ে বলা যেতে পারে প্রতিটা ব্যবসার ব্যবসায়ীকে যেমন তার ব্যবসা করার জন্য লাইসেন্স নিতে হয়, তেমন আপনাকেও আপনার ব্যবসা করার জন্য লাইসেন্স নিতে হবে। যে সকল লাইসেন্স গুলি নিয়ে আপনি আপনার ব্যবসা শুরু করতে পারবেন তা হল-

  • ট্রেড লাইসেন্স
  • MSME রেজিস্ট্রেশন
  • আধার উদ্যোগ লাইসেন্স
  • ট্রেডমার্ক
  • জি এস টি নাম্বার

এই সমস্ত লাইসেন্স গুলি আপনি পেয়ে যাবেন খুব সহজেই অনলাইনে আবেদন করে। তবে আপনি যদি চান বিভিন্ন দপ্তর থেকেও লাইসেন্স নিতে পারেন। বর্তমানে এই সকল লাইসেন্সের জন্য আপনার খরচ হবে তিন থেকে চার হাজার টাকার মতো। আপনার এলাকার লাইসেন্স সম্পর্কে খোঁজখবর নেয়ার জন্য এলাকার পঞ্চায়েত অফিস অথবা বিডিও অফিসের সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারেন।

অবশ্যই পড়ুন- ফেলে দেওয়া জামা কাপড় থেকে 1 লক্ষ টাকা আয়

Rubber band tube
রাবার ব্যান্ড টিউব

রাবার ব্যান্ডের মার্কেটিং কিভাবে করা হয়?

রাবার ব্যান্ড তৈরির ব্যবসা করতে হলে আপনাকে ভালো করে মার্কেটিং করতে হবে। কারণ আপনিও জানেন বাজারে কোন না কোন কোম্পানি আগে থেকেই রাবার ব্যান্ড বিক্রি করছে। তাই সেই কোম্পানির থেকে নিজস্ব মার্কেট তৈরি করা এবং রাবার ব্যান্ড প্রতিদিন বিক্রি করার জন্য আপনাকে বিশেষ পদ্ধতি অবলম্বন করতে হবে। তাই যে পদ্ধতিতে ব্যবসা করলে আপনার কোম্পানির তৈরি হওয়া গাডার প্রতিদিন বিক্রি করতে পারবেন তা হল-

  • আপনার এলাকার প্রায় প্রতিটি ছোট বড় দোকানে রিটেল মার্কেটিং করে তৈরি হওয়া গাডার বিক্রি করতে পারেন।
  • আপনার এলাকার বড় পাইকারি দোকান এবং হার্ডওয়ারসের দোকানে পাইকারি দরে আপনি রাবার ব্যান্ড বিক্রি করতে পারেন।
  • কলকাতার বড়বাজার বা ঢাকার চকবাজারের মত বড় পাইকারি মার্কেট গুলিতে রাবার ব্যান্ড তৈরি করে বিক্রি করতে পারেন প্যাকেজিং এর মধ্য দিয়ে।
  • ইন্ডিয়া মার্ট এর মতো ই-কমার্স ওয়েবসাইটগুলিতে আপনি নিজস্ব বিজনেস অ্যাকাউন্ট তৈরি করে হোলসেল রেটে বিক্রি করতে পারেন তৈরি হওয়া রাবার ব্যান্ডগুলি।
  • ফেসবুক, গুগল, ইউটিউবে ছোটখাটো এডভার্টাইজমেন্ট করে আপনার ব্যবসা দ্রুততার সাথে অনলাইনে প্রসার ঘটাতে পারেন।
  • যেহেতু গাডার প্রায় প্রতিটি দোকানের দরকার, তাই আপনার এলাকাতে একাধিক ডিস্ট্রিবিউটর তৈরি করে আপনি বিক্রি বাড়াতে পারেন।

রাবার ব্যান্ড তৈরির ব্যবসা করতে কত টাকা লাগে?

বর্তমান সময়ে আপনি যদি রাবার ব্যান্ড তৈরির ব্যবসা করতে চান এবং সম্পূর্ণ পদ্ধতিতে ব্যবসা করতে চান তাহলে অবশ্যই আপনাকে 1 লক্ষ টাকার মতো খরচ করতে হবে। আর আপনি যদি ছোট আকারের এই ব্যবসা করতে চান অর্থাৎ রাবার ব্যান্ড টিউব কিনে নিয়ে এসে কাটিং করতে চান এবং তা মার্কেটে বিক্রি করেন তাহলে এই ব্যবসাতে আপনি 70 হাজার টাকা থেকে 80 হাজার টাকা বিনিয়োগ করতে পারেন। তবে ব্যবসাটি যখন করবেন তখন ভালো করেই করুন তাই 1 লক্ষ টাকা পুঁজি হাতে নিয়ে তারপর ব্যবসায় নামুন।

গাডার তৈরির ব্যবসায় লাভ কত? (How much is the profit in the business of making Gadar?)

গার্ডার তৈরির ব্যবসা করতে যেমন আপনাকে 1 লক্ষ টাকা পুঁজিবি নিয়োগ করতে হচ্ছে তেমনি এই ব্যবসা থেকে আপনি প্রতি ঘন্টায় 1 হাজার টাকা আয় করতে পারেন। বোঝার সুবিধার জন্য বলা যেতে পারে প্রতিটি মেশিন 1 ঘন্টায় 20 কেজি করে রাবার ব্যান্ড তৈরি করতে পারে। আর প্রতি কেজি রাবার ব্যান্ড বিক্রি করে আপনি লাভ করতে পারেন 50 টাকা। অর্থাৎ প্রতি ঘন্টায় আপনি 1 হাজার টাকা আয় করতে পারছেন। আপনি যদি গাডার তৈরীর ব্যবসা শুরু করেন তাহলে অবশ্যই এই ব্যবসা থেকে প্রতি মাসে কমপক্ষে 50 হাজার টাকা থেকে 1 লক্ষ টাকা ইনকাম করতে পারবেন।

জিজ্ঞাসিত প্রশ্ন ও FAQ

কত ধরনের রাবার ব্যান্ড তৈরি করা হয়?

উত্তর: দুই ধরনের রাবার ব্যান্ড বেশি করে বিক্রি হয়।
DC টাইপ রাবার ব্যান্ড,
নাইলন রাবার ব্যান্ড।

গাডার তৈরির ব্যবসা করতে কত টাকা লাগে?

উত্তর: 70 হাজার টাকার মেশিন সহ আরো 30 হাজার টাকার কাঁচামাল কিনলে কমপক্ষে 1 লক্ষ টাকার বিনিয়োগ লাগবে গাডার তৈরি করার ব্যবসায়।

ইলাস্টিক ব্যান্ড তৈরি করতে কি ধরনের মেটেরিয়াল লাগে?

উত্তর: ইলাস্টিক ব্যান্ড বা ইলাস্টিক রাবার ব্যান্ড তৈরি করতে রাবার ব্যান্ড টিউবের প্রয়োজন পড়ে।

রাবার ব্যান্ড কি কি নামে পরিচিত?

উত্তর: চুল বাধার গাডার, রাবার ব্যান্ড, গাডার, ইলাস্টিক ব্যান্ড, হেয়ার ব্যান্ড।

গাডার তৈরির ব্যবসা কোথায় করা যায়?

উত্তর: গ্রাম কিংবা শহর যে কোন জায়গায় আপনি গাডার তৈরির ব্যবসা করতে পারেন।

রাবার ব্যান্ড তৈরির ব্যবসায় লাভ কত?

উত্তর: প্রতি ঘন্টায় 1 হাজার টাকা করে লাভ এবং প্রতি মাসে কমপক্ষে 1 লক্ষ টাকা লাভ রাবার ব্যান্ড তৈরির ব্যবসায়।

রাবার ব্যান্ড টিউবের দাম কত?

উত্তর: DC টিউব প্রতি কেজিতে 150 টাকা দামে কেনা হয় এবং রাবার ব্যান্ড তৈরি করার পর 200 টাকা থেকে 250 টাকা পাইকারিরাটে বিক্রি করা যায়।

চুল বাঁধার রঙিন ব্র্যান্ড তৈরির মেশিনের দাম কত?

উত্তর: 50 হাজার টাকা থেকে 70 হাজার টাকা চুল বাধার রঙিন ব্র্যান্ড তৈরির মেশিনের দাম

নতুন নতুন ব্যবসার আইডিয়া দেখুন-

কাঁচের চুড়ির ব্যবসা

ব্যবসা করে প্রতিদিন 3000 টাকা আয়

Leave a Comment