[1] মোবাইল সিকিউরিটি ব্যবসা | মোবাইল সুরক্ষার ডিলারশিপ ব্যবসা, amazing ideas

মোবাইল সিকিউরিটি ব্যবসা শুনে হয়তো অনেকেই অবাক হচ্ছেন, কিন্তু না। আপনিও মোবাইল সুরক্ষার ডিলারশিপ ব্যবসা শুরু করতে পারেন আপনার এলাকাতে।
এই ব্যবসা আপনার এলাকাতে আপনি হবেন প্রথম ব্যবসায়ী যে শুরু করছেন। আসলে এই নতুন ধরনের ব্যবসা যা আপনাকে প্রতি মাসে 8 লক্ষ থেকে 10 লক্ষ টাকা উপার্জন করে দেবে খুব সহজেই। কিন্তু কিভাবে আপনি এই টাকা উপার্জন করবেন এবং এই ব্যবসাটি কি ধরনের ব্যবসা তার যাবতীয় তথ্য চলুন দেখে নেয়া যাক।

Table of Contents

মোবাইল সিকিউরিটি ব্যবসাটি কি ?

আমরা সবাই মোবাইল ফোন ব্যবহার করে থাকি। কিন্তু আমরা কেউই চাইনা আমাদের এই গুরুত্বপূর্ণ জিনিস টি কোন ভাবে হারিয়ে যাক বা কোনোভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হোক। তাই বর্তমানে বিভিন্ন কোম্পানি বিভিন্ন সিকিউরিটি সিস্টেম তৈরি করেছে মোবাইল ফোন রক্ষা করার জন্য।
এইরকম কোম্পানির আপনি যদি ডিলারশিপ নেন তাহলে আপনি একটি রাজ্য বা জেলার সম্পূর্ণ ডিলারশিপ পেয়ে যাবেন। এবং আপনি খুব সহজেই প্রতিটা মোবাইল ব্যবহারকারী কে এই সিকিউরিটি সিস্টেম বিক্রি করে লাভবান হতে পারবেন।

মোবাইল সিকিউরিটি ডিলারশিপ কোন কোম্পানির কাছ থেকে পাওয়া যায়?

মোবাইল সিকিউরিটি ডিলারশিপ অনেক কোম্পানি বিক্রি করে থাকলেও খুব অল্প খরচে আপনি পেতে পারেন ‘ATMT HUB‘ কোম্পানির কাছ থেকে

মোবাইল সিকিউরিটি ব্যবসা

কত টাকা খরচ মোবাইল সুরক্ষা ডিলারশিপ নিতে?

ডিলারশিপ নিতে আপনার খরচ হবে 1.5 লক্ষ টাকা। এই টাকা নিয়ে আপনি ডিলারশিপ নিলে তার সাথে সাথে সমস্ত সিকিউরিটি প্রোডাক্ট পেয়ে যাবেন। এবং তার সাথে সাথে একজন সেলসম্যান কোম্পানি আপনাকে দেবে।

মোবাইল সিকিউরিটি কিভাবে কাজ করে?

প্রথমে atmthub.com ওয়েবসাইটটি গুগলে খুলতে হবে । তারপর ওখান থেকে অ্যাপ্লিকেশনটি ডাউনলোড করতে হবে ফোনের মধ্যে। ডাউনলোড করা হয়ে গেলে অ্যাপ্লিকেশনটি খুলতে হবে। খোলার পরে যে সকল পারমিশন গুলি চাইবে সেগুলি অন করে একটি কোড চাইবে আর সেই কোডটি আপনি বিক্রি করছেন কাস্টমারকে। এই কোডটি যখন অ্যাপটির মধ্য দিয়ে অন করবেন তখনই অ্যাপ্লিকেশনটি স্টার্ট হয়ে যাবে।

অ্যাপ্লিকেশনটি স্টার্ট হয়ে গেলে যে সকল সুবিধা ফোনের উপভোক্তা পাবেন সেগুলি হল-

মোবাইল ফোনে জল ঢুকে গেলে কিভাবে ঠিক করতে হয়?

যদি কোন কারণে কোনরকম ভাবে মোবাইল ফোনে জল ঢুকে যায় বা মোবাইল ফোন জলে পড়ে যায় তাহলে আপনাকে মোবাইল ফোনটি তুলে নিয়ে ‘ATMT water protection’ অন করে দিতে হবে।
যখনই আপনি অন করে দেবেন তখনই মোবাইল ফোন ভাইব্রেট হতে থাকবে এবং মোবাইল ফোনে ফ্ল্যাশ টি জ্বলতে থাকবে।
এর ফলে কি হবে মোবাইল ফোনের ভেতরে থাকা সমস্ত জলটি বাইরে বেরিয়ে যাবে এবং মোবাইল ফোনের ফ্লাশ অন থাকার কারণে মাদারবোর্ডে জল প্রবেশ করতে পারবে না এবং মাদারবোর্ড গরম থাকবে।
আপনার মোবাইল ফোনটি অনেকাংশ সুরক্ষিত থাকবে ভেতরে জল ঢুকে গেলেও

মোবাইল ফোন চুরি হয়ে গেলে কিভাবে খুজে পাবেন?

আপনার মোবাইল ফোনে যদি ATMT অ্যাপ ইনস্টল করা থাকে তাহলে আপনার মোবাইল ফোনটা চুরির হাত থেকে বাঁচবে।
যে চোর আপনার মোবাইল ফোনটি চুরি করেছে সে যখন আপনার ফোনটি অফ করতে চাইবে তখনই তার ছবি ফোনের সামনের ক্যামেরা দিয়ে উঠে যাবে এবং অ্যাপটির মধ্যে যে সিকিউরিটি আপনার বাড়ির ফ্যামিলি মেম্বার দের ফোন নাম্বার দেওয়া আছে তাদের ফোনে এসএমএসের মাধ্যমে সেই ছবি এবং লোকেশন সঙ্গে সঙ্গে পৌঁছে যাবে।
এর ফলে আপনার চুরি হওয়া ফোনে চোরের ছবি এবং চোরের লোকেশন এর সমস্ত তথ্য আপনার কাছে এসে পৌঁছানোর মাধ্যমে আপনি থানায় যোগাযোগ করে আপনার ফোনটি উদ্ধার করতে পারবেন এবং চোরকে ধরিয়ে দিতে পারবেন।

মোবাইল সুরক্ষার ডিলারশিপ ব্যবসা

ফোনে নতুন সিম লাগালে কিভাবে হারানো ফোনটি পাওয়া যাবে?

চুরির পরে ফোনের সিম খুলে নতুন সিম লাগালে আপনার ফোনে যে অ্যাপটি ইনস্টল রয়েছে তার মাধ্যমে যে নতুন সিম কার্ডটি লাগাচ্ছে আপনার ফোনের সেই সিম কার্ডের ফোন নাম্বারটি এবং যে লাগাচ্ছে তার ছবিটি ফন্ট ক্যামেরার দ্বারা উঠে আপনার সেট করা যে দুটি নাম্বার রয়েছে সেই নাম্বারে এসএমএস চলে যাবে। এবং যে ওই ফোনে যেই সিম লাগাকে না কেন, সেই সিমটা বন্ধ হয়ে যাবে অটোমেটিক ভাবে। এবং আপনার ফোনে কোন ভাবেই অন্য কোন সিম কাজ করবেনা।

বাড়ির মধ্যে ফোন হারিয়ে গেলে কিভাবে খুজে পাওয়া যাবে?

যদি কোন ভাবে আপনার ফোনটি আপনার বাড়ির মধ্যেই কোথাও হারিয়ে যায় বা আপনি কোথায় রেখেছেন সেটা যদি খুঁজে না পান এবং ফোন যদি সাইলেন্ট থাকে তাহলে আপনি কি করবেন।
খুব সহজ উপায় আপনাকে যেকোনো কারোর মোবাইল থেকে আপনার ফোনে একটি এসএমএস করতে হবে এসএমএসটি হবে ‘ATMTALT’। এ টি এম টি এ এল টি এই এসএমএসটি আপনি যখনই সেন্ড করবেন তখনই আপনার ফোনে সাইরেন বাজা শুরু হয়ে যাবে। এবং আপনি বাড়ির যেখানেই ফোন রেখে দিন না কেন সেখানে এই আওয়াজ শুনতে পেয়ে আপনি কি আপনার ফোনটি সংগ্রহ করতে পারবেন।

স্টেশন বা কোন অচেনা জায়গায় আপনার ফোনটি চার্জে বসিয়েছেন। কিন্তু কেউ আপনার ফোন চার্জ থেকে খুলে দিয়েছে তখনই আপনার ফোনে জোরে সাইরেন বাজা শুরু হয়ে যাবে। এবং যে আপনার ফোনটি চার্জ থেকে খুলে দিয়েছে সে ভয় পেয়ে আবার আপনার ফোনটি চার্জে লাগিয়ে দেবে।

‘ট্রেনে উঠতে গিয়ে ফোন চুরি’ কিভাবে রক্ষা পাবেন?

আপনার ফোনটি যখন পকেটের ভিতরে থাকে তখন সেটি নিরাপদে থাকে। কিন্তু যখনই আপনি ট্রেনে বা বাসে উঠতে যাচ্ছেন বা আছেন ঠিক তখনই আপনার ফোনটি চোর পকেট থেকে বের করে নেয় এবং ফোনটি চুরি হয়ে যায়।
এখানে আপনার ফোনে ATMT অ্যাপ্লিকেশনটি থাকলে আপনার ফোনটিতে মোশন সেফটি এক্টিভেট করা থাকে।
ফলে আপনার ফোনটি কেউ যখনই পকেট থেকে বের করতে যাবে তখনি আপনার ফোনের সাইরেন বাজায়ে শুরু হয়ে যাবে এবং আপনার ফোনটি প্রটেক্টেদ থাকবে এই অ্যাপ্লিকেশন দ্বারা।
জোরে সাইরেনের আওয়াজ শুনে চলো যেমন ভয় পেয়ে যাবে তেমন আপনি হাতেনাতে চোরকে ধরতে পারবেন আপনার ফোনটি পকেট থেকে বের করে নেওয়ার আগেই।

আপনার মোবাইল লক করতে ভুলে গেছেন কেউ ফোন ঘাঁটছে কি করবেন?

আপনার ফোনটি আপনি লক করতে ভুলে গেছেন এবং সেই মুহূর্তে ঘরের মধ্যে অনেকেই রয়েছে যারা হয়তো আপনার ফোনটি ঘাটছে এবং আপনার ফোনে অনেক গুরুত্বপূর্ণ জিনিস রয়েছে যা আপনি চান না কেউ দেখুক। তখন আপনি যেখানেই থাকুন না কেন আপনার কাছাকাছি যে আছে তার ফোন থেকে ATMT LOCK এই লিখে এসএমএস করবেন আপনার ফোনে এবং আপনার ফোনটি সাথে সাথেই লক হয়ে যাবে।
ফলে কেউ আপনার ফোন কাটলেও আপনার ফোনে আপনার ইচ্ছা এবং সম্মতি ছাড়া কেউ লক খুলতে পারবে না এবং ঘাটতে ও পারবোনা।

আপনার ফোন চুরি হবার পর ফোনের সফটওয়্যার ওড়াতে চেষ্টা করলে আপনার ফোনটি সেখান থেকেও রক্ষা পাবে।
আপনার ফোনটি চুরি করার পর চোর যখন আপনার ফোনের সফটওয়্যার ওড়াতে চেষ্টা করবে তখন সে যে ল্যাপটপ বা কম্পিউটার এর মাধ্যমে যখন আপনার ফোনটি কানেক্ট করবে ঠিক সাথেসাথেই আপনার ফোনের ফ্রন্ট ক্যামেরায় চোরের ছবি এবং লোকেশন চলে আসবে আপনার ফোনে সেভ করা যে দুটি নাম্বার রয়েছে সেই নাম্বারে এসএমএস এর মাধ্যমে। ফলে আপনি খুব সহজেই চোরের লোকেশন এবং চোরের ছবি পেয়ে যাবেন যার দ্বারা আপনি চাইলে চোরটিকে ধরতে পারেন এবং আপনার ফোনটি সংগ্রহ করতে পারেন।

এন্ড্রয়েড মোবাইল সিকিউরিটি কিভাবে কাজ করে?

এন্ড্রয়েড মোবাইল সিকিউরিটি এমন একটি জিনিস যা ফোন হারিয়ে যাওয়া বা ফোন কেউ না বলে ব্যবহার করা থেকে রক্ষা পেতে সাহায্য করে।
বিভিন্ন কোম্পানির বিভিন্ন এপ্লিকেশন প্লে স্টোরে রেখেছে ঠিকই কিন্তু কোনটাই সঠিক ভাবে কাজ করে না।
এর জন্য আলাদা এপ্লিকেশন ইন্সটল করতে হয় যা টাকা দিয়ে কিনতে হয়।
আর প্রতিটা মানুষই চাই তার ফোনকে সুরক্ষিত রাখতে তার জন্য কিছু টাকা খরচা করতে সবাই রাজি থাকে।

মোবাইল সিকিউরিটি কোড ভুলে গেছেন কিভাবে খুলবেন ফোনটি?

আপনি যদি আপনার মোবাইলে লক করে ভুলে গিয়ে থাকেন তার সিকিউরিটি কোডটি তাহলে আপনাকে সাহায্য করবে এই অ্যাপ্লিকেশনটি।
এ টি এম টি অ্যাপ্লিকেশনে আপনার ফোনে থাকলে আপনি চাইলে এই অ্যাপ্লিকেশনে আপনার ফেস আনলক সিস্টেম অন করে রাখতে পারেন। যার দ্বারা আপনি যদি আপনার ফোনের সিকিউরিটি কোড ভুলে গিয়ে থাকেন তাহলে আপনার শেষ সিকিউরিটি দ্বারা আপনার ফোনটি আনলক করতে পারবেন এবং পাসওয়ার্ড রিসেট করতে পারবেন।

মোবাইল সিকিউরিটি কোড কি ধরনের হয়?

বিভিন্ন কোম্পানির বিভিন্ন ধরনের সিকিউরিটি কোড ব্যবহার করে থাকে।
তবে এটি এম টি অ্যাপ্লিকেশনটি এদের সিকিউরিটি কোডটি একটি সিল্ডঃ প্যাকেটের ভেতরে ক্রেতাকে বিক্রয় করে থাকে।
ক্রেতা যখন এই প্যাকেজটি কিনবে তার ভেতরে সিকিউরিটি কোড এর একটি কাগজ আছে যার মধ্য সিকিউরিটি কোডটি লেখা থাকে।
এবং ক্রেতা যখন এপ্লিকেশন ইন্সটল করে তার মধ্যে কোনটি দেবে তখনই অ্যাপ্লিকেশনটি কাজ করবে তার আগে অ্যাপ্লিকেশনটি কাজ করবেনা।
এবং অ্যাপ্লিকেশন টি কাজ করার শুরু হয়ে গেলেই মোবাইলের যাবতীয় সমস্যা থেকে রক্ষা পাবে মোবাইল ব্যবহারকারী।

মোবাইল সিকিউরিটি ব্যবসা কিভাবে করবেন?

আপনি যখন কোম্পানি থেকে ডিলারশিপ নেবেন তখন কম্পানি আপনাকে আপনার পছন্দমত একটি সেলসম্যান ঠিক করতে বলবে। সেই সেলসম্যানকে মাইনে কম্পানি নিজে দেবে। প্রতিটি সেলসম্যানকে কোম্পানি 10000 টাকা করে প্রতিমাসে মাইনে দেবে।
এবং সেই সেলসম্যানকে সিকিউরিটি কোড কিভাবে বিক্রি করতে হবে তার যাবতীয় ট্রেনিং কম্পানি থেকেই তাকে শিখিয়ে দেবে আপনি শুধু ডিলারশিপ নিয়ে চুপ করে ঘরে বসে থাকলেও আপনার এই ব্যবসাটি খুব সুন্দর ভাবে চলতেই থাকবে।

মোবাইল সিকিউরিটি কিভাবে বিক্রি করা যায়?

কোম্পানির ডিলারশিপ দেয় সাধারণত একটি জেলায় একজন করে।
এবং প্রতিটি জেলা তে প্রচুর মোবাইল দোকান রয়েছে। প্রতিটা দোকানদারকে আপনাকে প্রতিদিন যদি একটি করে সিকিউরিটি কোড বিক্রি করতে পারেন এবং দোকানদাররা যে সকল মানুষ মোবাইল কিনতে আসবে তাদের দোকানে, তাদেরকে যদি প্রতিদিন একটা করে ও বিক্রি করে তাহলেও আপনার ব্যবসা খুব সুন্দর ভাবে চলতে থাকবে।
আপনি হয়তো ভাবছেন মাত্র একটা করে যদি দোকানদারকে বিক্রি করেন তাহলে আপনার কি করে ব্যবসায় লাভ হবে তাহলে চলুন দেখে নেয়া যাক

কোড
সিকিউরিটি কোড

মোবাইল সিকিউরিটি ব্যবসায় লাভ কত?(mobile security basai lav koto)

কোম্পানি আপনাকে প্রতিটি সিকিউরিটি কোড বিক্রি করছে 130 টাকা দামে। প্রতিটি সিকিউরিটি কোড এমআরপি থাকছে 500 টাকা।
আপনি যদি একশ টাকা ছাড় দিয়ে 400 টাকায় প্রতিটা দোকানদারকে একটা করে সিকিউরিটি কোড বিক্রি করেন তাহলে আপনার প্রতিটি সিকিউরিটি কোড বিক্রি করলে লাভ হবে 370 টাকা। একটা সিকিউরিটি করে 370 টাকা হলে প্রতিদিন 10 টা করে বিক্রি করতে পারলে আপনার লাভ থাকছে 3700 টাকা। এইদিকে আপনার সিকিউরিটি কোড জেস সেলসম্যান বিক্রি করছে তার মাইনেও আপনাকে দিতে হচ্ছে না সেটা কম্পানি দিয়ে দেবে।

মানে প্রতিদিন 10 টা বিক্রি করতে পারলেই 3700 টাকা আপনার লাভ। কিন্তু এই ডিলারশিপ ব্যবসায় আপনি ডিলারশিপ নিলে প্রতিদিন 10 নয় প্রতিদিন 100 টাকা বিক্রি করতে পারেন একটা জেলার মধ্য। কারন একটা জেলাতে কয়েকশো মোবাইল দোকান থাকে। এবং প্রতিদিন কয়েক হাজার মোবাইল বিক্রি করে সেই দোকানদাররা। ফলে প্রতিটি দোকানদার যদি প্রতিদিন একটি করে বিক্রি করে তাহলে প্রতিদিন আপনার একশোর উপরে বিক্রি হবে। আর প্রতিদিন 100 টা করে বিক্রি করতে পারলে আপনি প্রতিদিন 37 হাজার টাকা করে লাভ রাখতে পারবেন শুধুমাত্র ঘরে বসে।
এতটা লাভজনক ব্যবসা এই ব্যবসাটি।
তাহলে আর দেরি না করে এখনি আপনি এই ব্যবসা শুরু করুন।

আরো নতুন নতুন লাভজনক ব্যবসার আইডিয়া দেখুন-

নন ওভেন টিস্যু ব্যাগ তৈরি

ফলের জুসের ব্যবসা