মহিলাদের জন্য ঘরে বসে ব্যবসা করার সেরা ১৩ টি আইডিয়া | Top 13 Ideas for Women Doing Business at Home | WOW New Business Idea – Kiran Jana

মহিলাদের জন্য ঘরে বসে ব্যবসা করার সেরা ১২ টি আইডিয়াতে আমরা দেখব সেইসব ব্যবসার আইডিয়া যা নারীরা ঘরে বসেই করতে পারেন ।বর্তমান সময়ে আমরা যদি লক্ষ্য রাখি নারী-পুরুষ সবাই সমান ভাবে কাজ করছে। নারীরা আর পুরুষদের থেকে পিছিয়ে নেই। কিছু কিছু জায়গায় আবার নারীরা পুরুষদের থেকে এগিয়ে গেছে অনেক কাজের ভিত্তিতে। এখন আমরা অনেক প্রগতিশীল সমাজের দিকে এগিয়ে যাচ্ছি যেখানে নারীরা সব দিক থেকে পুরুষদের কাজে সমানভাবে তাল দিচ্ছেন। একটা সময় ছিল যখন নারীদের আলাদা করে রাখা হতো, নারীদের উপরে উঠতে দেওয়া হতো না। তবে বর্তমান সময়ে এটা আর দেখা যায় না।

আমরা যদি লক্ষ্য করি অনেক কাজে নারীরা পুরুষদের পিছিয়ে নিজেরাই এগিয়ে গেছেন কারণ বর্তমান সমাজে নারীরা অনেক বুদ্ধিমান এবং অনেক শিক্ষিত এবং ক্যারিয়ারের প্রতি তারা অনেক মনোযোগী। তবে একথা সত্য যে নারীরা সমস্ত রকম স্বাধীনতা পেলেও তবুও তথাকথিত পুরুষশাসিত সমাজে নারীরা স্বাচ্ছন্দে স্বাধীনভাবে চাকরিতে comfortable নয়। সেই কারণে এখনও অনেক মহিলা আছেন যারা ঘরেতে থাকেন এবং সংসারের হাল ধরার অনেকভাবে চেষ্টা করেন।

বর্তমান সময়ে নারীরাও ব্যবসার কাজে পুরুষদের পিছিয়ে দিয়ে এগিয়ে চলেছেন। আমরা যদি লক্ষ্য করি অনেক ব্যবসায় নারীরা করতে জানে এবং নারীরা সেইসব ব্যবসাতে পুরুষদের পিছিয়ে দিয়ে সফল Business Women হয়ে উঠেছেন।
ভারত ও বাংলাদেশের এখনো 80% মহিলারা নিজেদের বাড়ি এবং সংসার সামলাতে ব্যস্ত থাকেন। সেই সব মহিলারা নিজেদের স্বপ্ন জলাঞ্জলি দিয়ে শুধুমাত্র সংসার চালানোর জন্য এবং সংসার ঠিক রাখার জন্য দিনরাত সংসার হেঁটে চলেছেন। তবুও সেই সব মহিলারা এখনও স্বপ্ন দেখেন নিজেদের সংসারে কিছুটা হালকা নোর জন্য হাল ধরার জন্য। নারীরা চাই নিজের পায়ে ভালোভাবে দাঁড়ানো, নিজে কিছু করা, এবং সমাজে প্রতিষ্ঠিত হওয়ার স্বপ্নকে বাহবা দিয়ে আজকের আমাদের এই পোস্ট।

Women Doing Business at Home
মহিলাদের জন্য ঘরে বসে ব্যবসা

1: ফটোগ্রাফি ব্যবসা (Photography business)

মহিলাদের জন্য ঘরে বসে ব্যবসা করার আইডিয়ার মধ্যে ফটোগ্রাফির ব্যবসা অন্যতম।
আপনি কি ফটো তুলতে ভালোবাসেন? তাহলে আপনি আপনার ভালোবাসাটাই ব্যবসায় রূপান্তরিত করতে পারেন। অনেক মহিলা আছেন যাদের ফটো তোলার অভ্যাস এবং ফটো তোলার প্রতি ভালোবাসা বহুদিন থেকে রয়েছে। এখন সেই ফটো তোলা তাই সুন্দর ভাবে একটি ব্যবসার রূপ দেওয়া যায় সেটাই আমি বলব। আপনার চেয়ে স্মার্টফোন রয়েছে বা আপনার কাছে যদি কোন ডিএসএলআর ক্যামেরা থাকে তাহলে আপনি এই ফটো তোলার ব্যবসা বা ফটোগ্রাফির ব্যবসা শুরু করতে পারেন। নতুন করে কোন ডিএসএলআর ক্যামেরা কেনার দরকার নেই আপনার স্মার্টফোনে যথেষ্ট ফটোগ্রাফির ব্যবসা করার জন্য।

প্রথমে আপনি একটা ইনস্টাগ্রম পেজ এবং ফেসবুক পেজ তৈরি করুন। তারপর আপনি যে কোন অনুষ্ঠানে বা প্রকৃতির যে কোন জিনিসের ছবি তুলে সেই ছবিগুলো প্রতিদিন নিয়মিত ভাবে সোশ্যাল মিডিয়ায় পেজগুলোতে পোস্ট করতে থাকুন এতে আপনার ফটোগ্রাফি দেখে আপনার অনেক ফলোয়ার তৈরি হয়ে যাবে। এই ফলোয়ারদের মধ্যে অনেক মানুষ ই থাকবে প্রফেশনাল ফটোগ্রাফার। আপনার সেই প্রফেশনাল ফটোগ্রাফার দের সঙ্গে যোগাযোগ হবে এবং তারাই আপনাকে অনেক অর্ডার দেবেন এবং সেইসব অর্ডার ফুলফিল করলে আপনি ফটোগ্রাফি করে অনেক টাকা ইনকাম করতে পারেন শুধুমাত্র ঘরে বসে।

এছাড়া যেসব মহিলারা প্রকৃতির ফটো তুলতে বেশি ভালবাসেন, তাদের জন্য একটাই কথা বলব আপনারা নিয়মিত প্রকৃতির বিভিন্ন জিনিসের ছবি তুলে গুগোল এ সার্চ করলে বিভিন্ন ফটোগ্রাফি সাইট পেয়ে যাবেন, সেই সব সাইটে আপনি যদি আপনার তোলা ছবিগুলো আপলোড করতে থাকেন সেইখান থেকে আপনার অনেক ছবি বিক্রি হয়ে যাবে এবং অনলাইনের মাধ্যমে আপনার ঘরে বসে টাকা আপনার একাউন্টে চলে আসবে।

2: ব্লগিং এর ব্যবসা (Blogging business)

মহিলাদের জন্য ঘরে বসে ব্যবসা করার আইডিয়া গুলির মধ্যে সবচেয়ে অন্যতম হলো ব্লগিং এর ব্যবসা। আমরা হয়তো অনেকেই জানিনা ব্লগিং কি? ব্লগিং হল ইন্টারনেটের ওয়েবসাইটে বিভিন্ন বিষয়বস্তুর ওপর প্রতিবেদন রচনা করা।
ব্লগিং বর্তমানে মহিলাদের জন্য ঘরে বসে ব্যবসা করার চমৎকার আইডিয়া। ব্লগে এই কারণে উপযুক্ত মহিলাদের জন্য কারণ মহিলারা ঘরের কাজ করার পরে অনেক ফাঁকা সময় পেয়ে থাকেন সেই থাকার সময়ে যদি লেখালেখি করেন তাহলে ব্লগিং করে তিনি অনেক টাকা ইনকাম করতে পারেন।

ব্লগিং করার জন্য আপনাকে যে কয়েকটা বিষয়বস্তু মনে রাখতে হবে সেটা হচ্ছে আপনার কোন বিষয়ে বেশি জ্ঞান এবং অভিজ্ঞতা রয়েছে, আপনি কোন জিনিসটা করতে বেশি ভালোবাসেন বা ভালো পারেন। কারণ যে বিষয়ের ওপর আপনি লিখবেন সেই বিষয়টা এই বিষয় গুলির মধ্যে যেন পড়ে। ব্লগিং করার জন্য আপনার শুধু একটা ওয়েবসাইট লাগবে সেই ওয়েবসাইটটা তৈরি হয়ে যাবার পর সেই ওয়েবসাইট এর ভেতরে আপনি আপনার মনের মত যে কোন একটি বিষয় নিয়ে লেখালেখি করতে পারেন।

3: কনটেন্ট রাইটার (Content Writer)

লেখালেখির প্রতি আগ্রহ যদি আপনার থাকে কনটেন্ট রাইটার আপনি হতে পারেন। কনটেন্ট রাইটার একটি মহিলাদের জন্য ঘরে বসে ব্যবসা করার চমৎকার আইডিয়া হয়ে দেখা যাচ্ছে।

কনটেন্ট রাইটার কি?

কনটেন্ট রাইটার বলতে যারা বিভিন্ন ব্লগে লেখালেখি করে থাকেন তাদের বলা হয়। আপনি যদি নিজস্ব ব্লগ না তৈরী করতে চান আপনি অন্য কারোর ব্লগে লিখতে পারেন এবং তার জন্য টাকা পেতে পারেন। এর জন্য শুধুমাত্র যে বিষয়ে বাজে জিনিস কে নিয়ে ব্লগটা রয়েছে তার জন্য আপনাকে একটু রিচার্জ করে লেখালেখি করতে হবে এবং এক একটা প্রতিবেদন অনুযায়ী আপনি 2-3 হাজার টাকা কামাতে পারেন।

হলে আপনার যদি লেখালেখির ইচ্ছা থাকে এবং লেখালেখির শখ থাকে তাহলে আপনি কনটেন্ট রাইটার হতে পারেন। কনটেন্ট রাইটার হবার জন্য ইন্টারনেটে বিভিন্ন ওয়েবসাইটের সঙ্গে আপনি যোগাযোগ করতে পারেন অথবা গুগলের সার্চ করতে পারেন কনটেন্ট রাইটার দের অনেক ভ্যাকান্সি এবং অনেক যোগাযোগ নাম্বার আপনি পেয়ে যাবেন। তারপর সেই সব ওয়েবসাইটে আপনি লেখালেখি করে ইনকাম করতে পারেন।

দেখুন নতুন ব্যবসা- মশলা তৈরির ব্যবসা

4: ফ্যাশান ডিজাইনের ব্যবসা (Fashion design business)

মহিলাদের জন্য ঘরে বসে ব্যবসা করার অন্যতম ব্যবসা হলো ফ্যাশন ডিজাইনের ব্যবসা। কারণ কাপড় ও গহনার ওপর মহিলাদের আবেগ ভালোবাসা চিরটা সময় একইভাবে রয়ে গেছে এবং হয়তো থেকে যাবে। বিভিন্ন গহনা এবং ড্রেসের প্রতি মহিলাদের যে ভালোবাসা এবং আবেগ, সেটা সর্বদা সমস্ত দেশেই আছে। তাই মহিলারা যদি তাদের সেই ভালোবাসা আবেগটা কে নিয়ে ব্যবসায়ী রূপান্তরিত করতে পারে তাহলে একজন মহিলা সফল ব্যবসায়ী হতে পারবেন।
আপনি যদি আপনার কাপড় এবং ড্রেস গুলিকে নিজেই ডিজাইন করতে এবং ডিজাইনিং ড্রেস পরতে পছন্দ করেন তাহলে লেগে পড়ুন ফ্যাশন ডিজাইনিং ব্যবসাতে।

ফ্যাশন ডিজাইনিং ব্যবসা করার জন্য অনেক টাকার প্রয়োজন পড়ে না অল্প পুজি নিয়ে এই ব্যবসা শুরু করা যায়।
ফ্যাশন ডিজাইন ব্যবসার জন্য আপনি আপনার বাড়ি অথবা আপনার বেডরুমের মধ্যেই এই ব্যবসা শুরু করতে পারেন। আপনি প্রথমে ইনস্টাগ্রাম এবং facebook-এ পেজ বানিয়ে ফেলুন তারপর সেই সব পেজে আপনার ডিজাইন করা পোশাক গুলির ছবি পোস্ট করতে থাকুন অথবা সেই ডিজাইন পোশাক গুলি আপনি পড়ে ছবি পোস্ট করতে থাকুন। দেখবেন এই অনলাইন থেকেই আপনার কত কাস্টমার এবং ফলোয়ার তৈরি হয়ে গেছে। হলে ঘরে বসে এত সুন্দর ব্যবসা আপনি খুব কমন পাবেন। তারপর আপনার যখন একটা নাম এবং পরিধি তৈরি হয়ে যাবে তখন আপনি আপনার নিজের একটি ব্র্যান্ড খুলে ফেলতে পারবেন। আর দেরি না করে শুরু করে ফেলুন ফ্যাশন ডিজাইন ব্যবসা।

Fashion design business
ফ্যাশান ডিজাইনের ব্যবসা

5: ফিটনেস প্রশিক্ষকের ব্যবসা (Fitness Instructor Business)

প্রত্যেকটা মানুষই নিজেকে সুস্থ রাখতে চায়। বর্তমান সময়ে সুস্থ এবং সচেতন থাকার জন্য নিয়মিত ব্যায়াম ও শরীরচর্চা করার দরকার। তাই আপনি যদি ফিটনেস সচেতন হয়ে থাকেন এবং আপনি যদি কোনো এক সময়ে ব্যায়াম শিখে থাকেন আপনি নিজে ব্যায়ামের শিক্ষক বা ফিটনেস ট্রেইনার হতে পারেন। আপনার কি কোন জাগায় যাবার দরকার পড়বে না আপনি চাইলে আপনার বাড়িতে এসে মানুষজন তাদের শরীরচর্চা করে যাবে। হলে এটি মহিলাদের জন্য ঘরে বসে ব্যবসার দুর্দান্ত একটা আইডিয়া।

এই ব্যবসা করার জন্য আপনাকে কোন কেজি খরচ করতে হয় না। এর জন্য শুধুমাত্র আপনি আপনার ফেসবুকে আপনি যখন ব্যায়াম করবেন বা শরীরচর্চা করবেন তার কিছু ভিডিও বা ছবি পোস্ট করতে থাকুন নিয়মিত ভাবে। দেখবেন ফেসবুক থেকেই অনেক আগ্রহী মানুষজন আপনার সঙ্গে যোগাযোগ করবে এবং আপনার কাছ থেকে ব্যায়াম শিখতে চাইবে। হলে আর দেরি না করে এখনই শুরু করে ফেলুন আপনার শখের সেই ফিটনেস শিক্ষকতা ব্যবসা।

6: গৃহশিক্ষক (private tutor)

আপনি যদি নিজে পড়তে ও পড়াতে ভালোবাসেন তাহলে আপনি গৃহ শিক্ষক হতে পারেন। ফলে মহিলাদের জন্য ঘরে বসে ব্যবসা গুলির মধ্যে অন্যতম গৃহশিক্ষকের ব্যবসা।
আপনার এলাকার বা আপনার প্রতিবেশীদের বাচ্চাদের আপনি পড়াতে পারেন এতে আপনার সময় কেটে যাবে এবং তার সাথে সাথে কিছু টাকা উপার্জন করতে পারবেন আপনি। এছাড়া আপনি যদি চান তাহলে মাধ্যমিক উচ্চ মাধ্যমিক লেভেলের ছাত্রছাত্রীকে আপনি পড়াতে পারেন। বর্তমান সময়ে গৃহশিক্ষক গৃহশিক্ষকতা চাহিদা দিন দিন বেড়েই চলেছে। তাই আপনি চাইলে গৃহ শিক্ষিকার কাজ করে আপনার হাত খরচের টাকা সহ সংসার চালানোর অনেক অর্থ উপার্জন করতে পারেন।

আরো পড়ুন- মোমবাতি তৈরির ব্যবসা

7: ই-কমার্স প্ল্যাটফর্ম গুলিতে পণ্য বিক্রয় করার ব্যবসা (Business selling products on e-commerce platforms)

বর্তমান সময়ে ই-কমার্স ব্যবসা দিন দিন বেড়েই চলেছে। একটা সময় ছিল মানুষজন বাজারে গিয়ে দোকান থেকে দেখে কেনাকাটা করত। কিন্তু এখনকার দিনে সবাই অনলাইনের মাধ্যমেই জিনিসপত্র দেখে নিয়ে অনলাইনের মাধ্যমে কেনাকাটা করে থাকেন। ফলে বর্তমান সময়ের আধুনিক প্রযুক্তির যুগে আপনি ব্যবসা করতে চাইলে আপনি ই-কমার্স ব্যবসা করতে পারেন।

বিভিন্ন নামিদামি ই-কমার্স ওয়েবসাইট রয়েছে সেই সব সাইটে আপনি বিভিন্ন প্রোডাক্ট বিক্রি করতে পারেন । এছাড়া মহিলাদের বিভিন্ন সাজসজ্জার সরঞ্জাম আপনি অল্প দামে পাইকারি মার্কেট থেকে কিনে আপনার হোয়াটসঅ্যাপ স্ট্যাটাসে অথবা ফেসবুক স্ট্যাটাসে রেগুলার আপডেট দিতে থাকেন দেখবেন আপনার ই চেনা পরিচিত মানুষজন আপনার কাছ থেকে সেই সব প্রোডাক্ট গুলি কিনবে।

এছাড়া বর্তমানে অনেক ই-কমার্স ইন্টারনেট প্ল্যাটফর্ম রয়েছে ফ্লিপকার্ট ও অ্যামাজন, এই ধরনের ই-কমার্স ওয়েবসাইট গুলি তে আপনি আপনার প্রোডাক্ট গুলি বিক্রি করতে পারেন। আপনি নিজে কোন জিনিস যদি তৈরি করেন সেই তৈরি জিনিস গুলো এইসব প্ল্যাটফর্মের খুব সহজেই বিক্রি হয়ে যাবে। এর জন্য শুধুমাত্র আপনার স্মার্টফোনটি দরকার যা দিয়ে আপনি ছবি তুলে পোস্ট করবেন।

8: রান্নাবান্না বা কুকিং এর ব্যবসা (Cooking business)

আপনি যদি রান্না করতে ভালোবাসেন তাহলে আপনি শুরু করতে পারেন কুকিং এর ব্যবসা। আপনার মনে হয় তো খটকা লাগছে কারন এমন খুব কম মহিলা আছে যারা রান্নাতে আগ্রহ রাখেনা। হলে যেহেতু সব মহিলারাই রান্নাবান্না করে তাহলে আপনি কিভাবে এই ব্যবসা করতে পারবেন। প্রতিটা পরিবারের মহিলারাই রান্না করে পরিবারের মানুষজনদের খাওয়াতে খুব পছন্দ করেন এবং তারা খুব সুন্দর স্বাস্থ্যকর ও সুস্বাদু খাবার তৈরি করে থাকেন।

তবে বর্তমান সময়ে ইউটিউব ইনস্টাগ্রাম ফেসবুকের যুগে আপনি যদি একটা করে অ্যাকাউন্ট খুলে যে রান্নাটা করছেন সেই রান্নার ভিডিও প্রতিদিন নতুন নতুন রান্নার ভিডিও আপলোড করতে থাকেন তাহলে দেখবেন এখান থেকে অনেক দর্শক হয়ে গেছে আর দর্শক হয়ে যাবার কারণে আপনি ইউটিউব, ফেসবুক থেকে অনেক টাকা ইনকাম করতে পারছেন শুধুমাত্র একটা করে ভিডিও আপলোড করেই।

এছাড়া আপনি যদি নতুন নতুন রান্নার রেসিপি জানেন বা তৈরি করেন তাহলে সেই রেসিপিগুলো আপনি ইউটিউব, ফেসবুকে ভিডিওর মাধ্যমে আপলোড করতে পারেন তাহলে এখান থেকেও অনেক বেশি ভিউয়ার হয়ে গেলে আপনি ইনকাম করতে পারবেন।
আবার কিছু মানুষজন বিভিন্ন কাজের ক্ষেত্রে রান্না করাটা তাদের সম্ভব হয়না, তারাও আপনার ভিডিও দেখে বা আপনার পোষ্টগুলো দেখে আপনাকে খাবার অর্ডার করতে পারে। আপনি তাদের টিফিন ডেলিভারির মাধ্যমেও একটা মোটা টাকা ইনকাম করতে পারেন।

9: কাপড়ের ব্যবসা (Clothing business)

মহিলাদের ঘরে বসে ব্যবসার অন্যতম একটি ব্যবসা হলো কাপড়ের ব্যবসা। মহিলাদের প্রত্যেকেরই কাপড়ের প্রতি বা পোশাকের প্রতি দুর্বলতা থেকেই যায়। অর্থাৎ প্রয়োজনের থেকে বেশি পোশাক মহিলারা পড়তে এবং কিনতে পছন্দ করেন। যেকোনো নতুন পোশাক বাজারে আসলে তারা চাই প্রথমে সেই পোশাকটা সংগ্রহ করতে।

হলে আপনি বাড়িতে পোশাকের ব্যবসা বা কাপড়ের ব্যবসা শুরু করতে পারেন। পাইকারি মার্কেট থেকে অথবা সরাসরি কোম্পানি থেকে আপনি অল্প রেটে বিভিন্ন ডিজাইনের মহিলাদের পোশাক ও বাচ্চাদের পোশাক কিনে ঘরে আনতে পারেন। তারপর সেইসব পোশাকগুলোর ছবি আপনি আপনার ফেসবুক ইনস্টাগ্রাম পেজ এ ছাড়তে পারেন এখান থেকে অনেক কাস্টমার আপনার কাছ থেকে পোশাক কিনবে।
এছাড়া আপনি আপনার বাড়ির পাশে একটা ফ্লেক্স ছাপিয়ে বিজ্ঞাপন দিতে পারেন যে আপনি কাপড় জামার ব্যবসা শুরু করেছেন দেখবেন আপনার আশপাশের প্রতিবেশীরা আপনার কাছ থেকে পোশাক কিনছে। হলে আপনি ঘরে বসে জামা কাপড়ের ব্যবসা শুরু করতে পারছেন।

10: বাগান এবং নার্সারির ব্যবসা (Garden & Nursery Business)

আপনি যদি গাছপালা পছন্দ করেন বা বাগান তৈরি করতে পছন্দ করেন তাহলে আপনি বাগান নিয়ে নার্সারির ব্যবসা শুরু করতে পারেন। বাগান এবং নার্সারির ব্যবসা মহিলাদের জন্য ঘরে বসে ব্যবসার চমৎকার আইডিয়া একটি। কারণ বাগান এবং নার্সারির জন্য বিনিয়োগ করতে হয় খুব কম টাকা। আর প্রত্যেকটা বাড়িতেই প্রতিটা মহিলাই ফুল গাছপালা ভালবাসেন, তাই আপনি যদি আপনার বাড়িতে বড় নার্সারি থেকে বিভিন্ন ফুল গাছ বানিয়ে নিয়ে ব্যবসা করতে চান তাহলে আপনি ব্যবসা করতে পারেন।

বর্তমান সময়ে প্রতিটা বাড়িতেই সবাই কিছু না কিছু ছোট গাছপালা রাখতে পছন্দ করে ফলে আপনি আপনার প্রতিবেশীদের বাড়িতে গাছপালা ডেলিভারি করে ব্যবসা শুরু করতে পারেন অথবা আপনি সুন্দর বাগান, ছাদ বাগান তৈরি করতে পারেন। প্রতিবেশীরাই আপনাকে নিয়ে গিয়ে তাদের বাড়িতে বা তাদের ছাদে ছাদ বাগান তৈরি করতে দেবে আপনাকে এবং তার জন্য আপনাকে মোটা টাকাও দেবে। আপনি চারা বীজের সাথে সাথে বিভিন্ন গাছের জন্য দরকারি সারও রাখতে পারেন আপনার বাড়িতে। বাগান এবং নার্সারি ব্যবসা ছোট করে শুরু করার জন্য আপনার 2000 থেকে 5000 টাকার প্রয়োজন হয়। হলে আপনি আর দেরি না করে এখনই শুরু করে ফেলুন বাগান এবং নার্সারির ব্যবসা।

দেখুন নতুন ব্যবসা- বিনা পুঁজিতে মাসে আয় করুন 1 লক্ষ টাকা

11: বিউটি পার্লারের ব্যবসা (Beauty Parlor Business)

মহিলাদের জন্য ঘরে বসে ব্যবসা করার সবচেয়ে সুন্দরতম ব্যবসা হলো বিউটি পার্লারের ব্যবসা। কারন প্রতিটা মহিলাই একটু সুন্দর থাকতে পছন্দ করেন। তাই আপনি যদি কিছু করবেন বলে ভাবছেন তাহলে আপনি এখনি একটা বিউটি পার্লার থেকে কোর্স করে নিন। বিউটি পার্লারের পোস্ট করে আপনি একজন মেকআপ আর্টিস্ট হতে পারেন। আপনার আশপাশের যেসব মহিলারা কোথাও যাবে বলে ভাবছে, অথবা তাদের বিয়ের অনুষ্ঠান বা যেকোনো অনুষ্ঠানে তাদের মেকআপ করুন আপনার বাড়ি থেকেই।

বাঙালি হোক বা অবাঙালি সমস্ত মহিলারাই পার্টি করার আগে বা কোথাও যাওয়ার আগে মেকআপ করে তাই আপনি মেকআপ আর্টিস্ট হলে বা আপনার যদি বাড়িতেই একটি বিউটি পার্লার থাকে তাহলে তারা আপনার বাড়িতে এসেই মেকআপ করে যাবে।

আপনি বিভিন্ন কোম্পানির বিভিন্ন রকমের প্রোডাক্ট রাখতে পারেন মহিলাদের জন্য তারা আপনার কাছ থেকে সেই সব প্রোডাক্টগুলো কিনতে পারবে যখন আপনার বিউটি পার্লারে তারা মেকআপ করতে আসবে। হলে মেকআপের সাথে সাথে আপনার সেই সব প্রোডাক্টগুলো বিক্রি হয়ে যাবে ফলে একই সাথে আপনি দু রকম ভাবে ইনকাম করতে পারবেন। শুধু মনে রাখবেন মহিলাদের জন্য দরকারি সমস্ত ধরনের প্রডাক্টিভ আপনার বিউটি পার্লারে যেন থাকে তাহলে একই সাথে দুটো বিজনেস করা যাবে।

বিউটি পার্লারের ব্যবসায় ফিউচার স্কোপ অনেক আছে তাই আপনার বাড়িতেই অথবা আপনার নিকটবর্তী বাজারে কোন একটি ঘর ভাড়া নিয়ে বিউটি পার্লার খুলতে পারেন। এছাড়া আপনি চাইলে অন্যদের বিউটি পার্লারের কোটস করাতে পারেন অর্থাৎ মেকআপ শেখাতে পারেন আপনি নিজে একজন মেকআপ আর্টিস্ট হিসেবে। এইভাবে একটা ব্যবসা থেকে অনেক রকম ভাবে ইনকাম করা যায়। বিউটি পার্লারের ব্যবসায় লস একদমই নেই অনেক বেশি লাভ করতে পারেন শুধুমাত্র লাভ বা ইনকাম করার উপায় গুলো যদি আপনি সঠিকভাবে প্রয়োগ করেন তবে।

Beauty Parlor Business
বিউটি পার্লারের ব্যবসা

12: নাচ ও গানের স্কুল এর ব্যবসা (Business of Dance and Music School)

বর্তমান সময়ে প্রত্যেকটা বাড়িতেই প্রত্যেকটা শিশুকেই তার পরিবারের মানুষজন চাই নাচ বাগান শেখাতে।আপনি যদি ছোটবেলায় নাচ গান শিখে থাকেন তাহলে আপনিও এইসব শিশুদের নাচ গানের শিক্ষক হতে পারেন। আপনি বিভিন্ন গান নাচ টিভিতে দেখে নিজেই তুলে নিতে পারেন তাহলেও আপনি একজন টিচার হতে পারেন। বর্তমান সময়ে প্রতিটা ফ্যামিলির শিশুরা পড়াশোনার পাশাপাশি নাচ-গান, গিটার, তবলা, ড্রয়িং ইত্যাদি শিখছে। আপনি যদি এইসব জিনিস গুলোর মধ্যে কোন কিছুতে দুঃখ হয়ে থাকে তাহলে আপনি আপনার বাড়িতে অথবা পাড়ার যেকোনো একটা বাড়ির মধ্যে এই সমস্ত জিনিস বাচ্চাদের শেখাতে পারেন।

প্রথমের দিকে হয়তো আপনি সেইভাবে ছাত্র-ছাত্রী নাও পেতে পারেন। তবে আপনার পরিচিতি যত বাড়তে থাকবে তত আপনার ছাত্র-ছাত্রীর সংখ্যাও বাড়তে থাকবে। আর এই ব্যবসার সবচেয়ে বড় সুবিধা হলো এতে কোনো অর্থ বিনিয়োগ করতে হয় না শুধুমাত্র কোন বিষয়ের ওপর দক্ষতা থাকলেই হয়। আর এই ব্যবসায় লাভের পরিমাণ অনেক সে জায়গায় খরচ বলতে শুধু আপনার সময় দেওয়া। নাচ গান শেখানোর ব্যবসা সব মহিলাদের জন্য ঘরে বসে ব্যবসা করার সুন্দর একটি আইডিয়া। তাই আর দেরি না করে আপনি যে বিষয়ে দক্ষ সেই বিষয়েই শিশুদের শিক্ষক হয়ে উঠুন।

13: ভার্চুয়াল একাউন্টেন্ট (Virtual Accountant)

যে সমস্ত মহিলারা স্কুল এবং কলেজ লাইফে কমার্স নিয়ে পড়াশোনা করেছেন। কিন্তু বিয়ের পরে আপনি সেইভাবে কোন রকম কাজ করতে পারছেন না, তাহলে ভার্চুয়াল একাউন্টেন্টের ব্যবসা মহিলাদের জন্য ঘরে বসে ব্যবসার অন্যতম আইডিয়া। এছাড়াও বলা যায় যেসব মহিলারা জমাখরচের অংক খুব ভালো বোঝেন তাদের জন্য আদর্শ রোজগারের পথ হল ভার্চুয়াল একাউন্টেন্টের ব্যবসা। বর্তমান সময়ে আপনি ফ্রিল্যান্সার ভার্চুয়াল একাউন্টেন্ট হিসাবে কাজ করতে পারেন বিভিন্ন কোম্পানির সাথে।

কাজ করতে করতে আপনার নির্দিষ্ট গ্রাহক তৈরি হয়ে যাবে। তারপর সেই নির্দিষ্ট গ্রাহকদের আরফিন নিয়মিত কাজ করে দেবার দরুন নিয়মিতভাবে আপনি আয় করতে পারবেন। আর এই কাজ করার জন্য আপনার কোন রকম অর্থ বিনিয়োগ দরকার পড়বে না। ফ্রিল্যান্সিং এর সাহায্যে আপনি একসাথে অনেক কোম্পানির সাথে কাজ করতে পারবেন এবং সেই সব কোম্পানির পরিচিত হয়ে উঠতে পারবেন ফলে আপনার এই ব্যবসার শ্রীবৃদ্ধি খুব দ্রুত ঘটতে থাকবে।

ভারত ও বাংলাদেশের যেসব নারী উদ্যোক্তারা স্বাধীনভাবে নিজেদের একটা ব্যবসা তৈরি করতে চাই, সংসারের বেড়াজাল থেকে বেরিয়ে স্বাধীনভাবে কাজ করতে চাই, এবং স্বাধীন ভাবে বেঁচে থাকার স্বপ্ন দেখে প্রতিটা নারীর কাছে আমাদের এই ব্যবসার আইডিয়া গুলি নিবেদন করলাম। আর বেশি কিছু না ভেবে আপনারা আপনাদের স্বপ্নকে বাস্তবায়িত করার জন্য আপনি যেটা চান সেটাই করুন এবং যে কোন একটা ব্যবসা করে আপনার স্বপ্নের উড়ান দিন।

যদি কোন সমস্যা হয় তাহলে আমাদের কমেন্ট করে জানাবেন। যত দ্রুত সম্ভব আমরা আপনাদের সমস্যার সমাধান করার চেষ্টা করব। আমাদের এই পোষ্টে যদি কোন ভূল-ত্রূটি থেকে থাকে তাহলে জানাতে ভুলবেন না।

নতুন নতুন ব্যবসার আইডিয়া দেখুন-

আইসক্রিম কোন ব্যবসা

ব্যবসা শুরু করার সহজ 12 টি উপায়

Leave a Comment