বোতল ক্লিনিং ব্রাশ তৈরির ব্যবসা | Bottle cleaning brush making business,No 1 Best Ideas

বোতল ক্লিনিং ব্রাশ তৈরির ব্যবসা এমন একটি ব্যবসা যা খুবই অল্প পুঁজি দিয়ে শুরু করা যায়। অর্থাৎ মাত্র কয়েক হাজার টাকা খরচ করে এই ব্যবসা শুরু করে আপনি প্রতিমাসে 40000 টাকা কম করে ইনকাম করতে পারবেন।

Table of Contents

বোতল ক্লিনিং ব্রাশ তৈরির ব্যবসা শুরু করতে কত টাকা খরচ হয়?(How Much Money Does a Bottle Cleaning Brush Make?)

বোতল ক্লিনিং ব্রাশ তৈরির ব্যবসা শুরু করতে আপনার খরচ হবে মাত্র 12-13 হাজার টাকা। শুনে হয়তো অবাক হতে পারেন আপনি কিন্তু এটাই সত্যি যে বোতল ক্লিনিং ব্রাশ তৈরির ব্যবসার খুবই অল্প পুঁজি দিয়ে শুরু করা যায়। আসলে এই ব্যবসায় ব্যবহৃত মেশিন এবং কাঁচামালের দাম খুবই কম হয়ে থাকে এবং এই ব্যবসায় কোন ইলেকট্রিসিটির দরকার পড়ে না, তাই এই ব্যবসা খুব অল্প পুঁজি দিয়ে শুরু করা যায়।

বোতল ক্লিনিং ব্রাশ তৈরির কাঁচামাল কি কি লাগে?(What are the raw materials for making a bottle cleaning brush?)

বোতল ক্লিনিং ব্রাশ তৈরি করার জন্য যে সকল কাঁচামাল লাগে তা মূলত-প্লাস্টিক নাইলন তার, লোহার সরু জি আই তার। এই দুটি জিনিস হলেই আপনি বোতল ক্লিনিং ব্রাশ তৈরির ব্যবসা শুরু করতে পারবেন।

বোতল ক্লিনিং ব্রাশ তৈরির ব্যবসা
বোতল ক্লিনিং ব্রাশ তৈরির ব্যবসা

ক্লিনিং ব্রাশ তৈরির কাঁচামাল কোথায় কিনতে পাওয়া যায়?(Where can I buy the raw material for making cleaning brush?)

ক্লিনিং ব্রাশ তৈরীর কাঁচামাল কলকাতার বড় বাজার হোলসেল মার্কেট থেকে আপনারা কিনতে পারেন। এছাড়া বাংলাদেশের চকবাজার পাইকারি মার্কেট থেকে বোতল ক্লিনিং ব্রাশ তৈরীর কাঁচামাল কেনা যায়।
বর্তমানে অনলাইন অ্যামাজন ফ্লিপকার্ট অথবা ইন্ডিয়ামার্ট ওয়েবসাইট থেকে সমস্ত রকমের কাঁচামাল সুলভমূল্যে আপনারা পেয়ে থাকবেন, তাই অনলাইনে থেকেও আপনারা কিনতে পারেন।

বোতল কেনিং ব্রাশ তৈরির মেশিন কোথায় পাওয়া যায়?(Where can I get a bottle canning brush making machine?)

বোতল ক্লিনিং ব্রাশ তৈরির মেশিন কলকাতা বড়বাজার হোলসেল মার্কেট এ কিনতে পাবেন। এছাড়া যে সকল মেশিন ম্যানুফ্যাকচারিং কোম্পানি রয়েছে প্রত্যেকেই এই ধরনের ছোট মেশিন তৈরি করে থাকে, তাদের কাছ থেকে আপনারা কিনতে পারবেন। সবচেয়ে সহজলভ্য উপায় হলো অনলাইনে অ্যামাজন অথবা ইন্ডিয়ামার্ট ওয়েবসাইট থেকে বোতল ক্লিনিং ব্রাশ তৈরীর মেশিন কেনা যায়। তাই আপনারা চাইলে সরাসরি ইন্ডিয়ামার্ট ওয়েবসাইট থেকে বোতল ক্লিনিং ব্রাশ তৈরির মেশিন কিনে নেবেন।

এই ঠিকানায় যোগাযোগ করলে মেশিন ও র-মেটেরিয়ালস পেয়ে যাবেন. Breson Projects Pune Near Gurudwara chowk, Bhovande Nagar, opp Anannya Trading company Walhekar wadi, 10 min from Akurdi (east) station, Pimpri-Chinchwad, Maharashtra 411035 MOBILE – 07700007030 077208 77174

বোতল কেনিং ব্রাশ তৈরির মেশিন
Bottle cleaning brush making business machine

বোতল ক্লিনিং ব্রাশ তৈরির মেশিনের দাম কত? (What is the price of bottle cleaning brush making machine?)

বোতল ক্লিনিং ব্রাশ তৈরির মেশিনের দাম খুব কম হয়ে থাকে। ক্লিনিং ব্রাশ তৈরীর মেশিন বর্তমান সময়ে 8 হাজার থেকে 10 হাজার টাকার মধ্যে পাওয়া যায়। অনলাইনে দেখলেও আপনারা দেখতে পাবেন যে মেশিন গুলির দাম 8000 থেকে 10000 টাকার মধ্যে থাকছে।

বোতল ক্লিনিং ব্রাশ তৈরির ব্যবসা করতে কত বড় জায়গার প্রয়োজন হয়?(How much space does it take to run a bottle cleaning brush business?)

বোতল ক্লিনিং ব্রাশ তৈরির ব্যবসা শুরু করতে আপনার ঘরের একটা ছোট টেবিল হলেই এই ব্যবসা শুরু করতে পারেন। অর্থাৎ বুঝতেই পারছেন যে বোতল ক্লিনিং ব্রাশ তৈরির ব্যবসা শুরু করার জন্য খুব বেশি বড় জায়গার কোনো প্রয়োজন পড়ছে না, আপনার ঘর যতই ছোট হয়ে থাকুক না কেন সেখানেই আপনি এই ব্যবসা শুরু করতে পারেন।

দেখুন নতুন ব্যবসা- পারফিউম তৈরির ব্যবসা

মেয়ে এবং বউদের জন্য নতুন ব্যবসার আইডিয়া (New Business Ideas for Girls and Wives)

বোতল ক্লিনিং ব্রাশ তৈরির ব্যবসা এবং সাইকেলের চাকার স্পোক ক্লিনিং ব্রাশ তৈরির ব্যবসা বাড়ির প্রতিটা মেয়ে, বউ এবং বয়স্ক যে কোনো মানুষই করতে পারে শুধুমাত্র একটা ছোট মেশিন কিনে। আসলে এই ব্যবসা করার জন্য খুব বেশি পরিশ্রমের দরকার পড়ে না এবং খুব বেশি অভিজ্ঞতার দরকার পড়ে না। কাজের ফাঁকে সময় বার করে যে কেউ এই ব্যবসা দু ঘন্টা তিন ঘন্টা করে অনেক টাকা ইনকাম করতে পারে।

বোতল ক্লিনিং ব্রাশ কিভাবে তৈরি হয়? (How to make a bottle cleaning brush)

লোহার সরু তার সমান মাপের কেটে, ভাঁজ করে নিয়ে মেশিনের দুপ্রান্তে লাগিয়ে দিতে হবে। তারপর প্লাস্টিক নাইলন তার গুলিকে ছোট ছোট করে কেটে নিতে হবে কাঁচি দিয়ে। তারপর সেই প্লাস্টিকের তারগুলো লোহার এর ভেতরে সমানভাবে সুন্দর করে লাগিয়ে হাত দিয়ে মেশিনটা ঘোরালেই আস্তে আস্তে লোহার তারটা পাকাতে শুরু করবে এবং ক্লিনিং ব্রাশ তৈরি হয়ে যাবে।
ঠিক এই ভাবেই সাইকেলের স্পোক ক্লিনিং ব্রাশ তৈরি করা যাবে। বোতল ক্লিনিং ব্রাশ তৈরি করার জন্য তারের অর্ধেকটা প্লাস্টিক তার লাগাতে হবে। আর সাইকেলের স্পোক ক্লিনিং ব্রাশ তৈরি করার জন্য লোহার তারের পুরোটাই প্লাস্টিক নাইলন তার লাগাতে হবে।

How to make a bottle cleaning brush
ক্লিনিং ব্রাশ কিভাবে তৈরি হয়

বোতল পরিষ্কারের ব্রাশ তৈরির ব্যবসা করার জন্য কি কি লাইসেন্স দরকার?

বোতল ক্লিনিং ব্রাশ তৈরির ব্যবসা করার জন্য শুধুমাত্র একটা ট্রেড লাইসেন্স হলেই আপনি এই ব্যবসা শুরু করতে পারবেন।
পরবর্তীকালে যদি ব্যবসার লাভের পরিমাণ মাসে দু লক্ষ থেকে তিন লক্ষ টাকা হয়ে যায় তখন তার জন্য আপনাকে একটি জিএসটি লাইসেন্স নিতে হবে। জিএসটি লাইসেন্সটা পরে নিলেও কোন অসুবিধা নেই।
আর এই ব্যবসা যদি আপনি ছোট করে শুরু করেন তাহলে তার জন্য ব্যবসার শুরুতে কোন লাইসেন্স এর প্রয়োজন পড়ে না।
ট্রেড লাইসেন্স নেবার জন্য আপনি আপনার নিকটবর্তী পঞ্চায়েত অফিস কিংবা বিডিও অফিস অথবা কর্পোরেশন অফিস থেকে পেয়ে যাবেন। বর্তমান সময়ে অনলাইনে এপ্লাই করে ও ট্রেড লাইসেন্স আপনি নিতে পারেন।

বোতল ক্লিনিং ব্রাশ এর প্যাকেজিং কিভাবে করা হয়?(How is the packaging of bottle cleaning brush done?)

বোতল ক্লিনিং ব্রাশ তৈরি হয়ে যাবার পর ছোট ছোট প্লাস্টিক আপনাকে কিনতে হবে, সেই প্লাস্টিক গুলির ভেতরে একটা একটা বোতল ক্লিনিং ব্রাশ ঢুকিয়ে সে প্লাস্টিক সিল করে দিতে হবে এবং সেগুলি বাজারে বিক্রি করার জন্য প্রস্তুত হয়ে যাবে।
আপনি চাইলে আপনার কোম্পানির নাম সহ সুন্দর সুন্দর ছবি লাগিয়ে প্লাস্টিক গুলি আলাদা করে ছাপিয়ে নিতে পারেন। তবে ব্যবসার শুরুতে অত টাকা ইনভেস্ট না করে বাজার থেকে পাওয়া শুধুমাত্র ট্রান্সপারেন্ট প্লাস্টিক গুলি ব্যবহার করুন।

বোতল ক্লিনিং ব্রাশের মার্কেটিং কিভাবে করা হয়?(How to market a bottle cleaning brush?)

বোতল ক্লিনিং ব্রাশ তৈরি হয়ে যাবার পর আপনি আপনার নিকটবর্তী যেসকল বাজার এবং হোলসেলার রয়েছে সেখানে তাদের সাথে যোগাযোগ করতে পারেন। এছাড়া আপনি নিজে থেকে আপনার লোকাল বাজারের দোকানগুলিতে ক্লিনিং ব্রাশ হোলসেল দামে বিক্রি করতে পারেন। আবার বড় বড় যে হোলসেল মার্কেট রয়েছে সেই মার্কেটে গিয়ে সেখানে দোকানে আপনি ক্লিনিং ব্রাশ হোলসেল দামে সেই মার্কেটগুলোতে বিক্রি করে আসতে পারেন। এছাড়া আরো একটি পদ্ধতি হল অনলাইন সেলিং পদ্ধতি।

দেখুন নতুন ব্যবসা- 10 হাজার টাকা লাগিয়ে মাসে 50 হাজার টাকা ইনকাম করুন
বর্তমান সময়ে প্রতিটা ব্যবসায়ী তাদের ব্যবসা কে অনলাইনে নিয়ে গেছে। তাই আপনাকে ও আপনার ব্যবসাকে অনলাইনে নিয়ে যাবার জন্য বর্তমান সময়ে প্রচলিত এবং বহু ব্যবহৃত ই-কমার্স ওয়েবসাইট গুলিতে একটি করে অ্যাকাউন্ট খুলে আপনি ব্যবসা করতে পারেন। অর্থাৎ অ্যামাজন ফ্লিপকার্ট এবং ইন্ডিয়ামার্ট এই ধরনের যতগুলি ই-কমার্স ওয়েবসাইট রয়েছে সেইসব ওয়েবসাইটে একটি করে বিজনেস সেলিং একাউন্ট খুলে আপনার কোম্পানির তৈরি প্রোডাক্ট গুলি এইসব ওয়েবসাইটে দিয়ে রাখতে পারেন এবং অনলাইন থেকেও বহু কাস্টমার সরাসরি আপনার কাছ থেকে বোতল ক্লিনিং ব্রাশ কিনে নিয়ে যাবে। আর অনলাইনে বিক্রি করলে আপনি অনেক বেশি লাভবান হবেন পাইকারি মার্কেট এর থেকে।

How to market a bottle cleaning brush
বোতল ক্লিনিং ব্রাশের মার্কেটিং

বোতল ক্লিনিং ব্রাশ তৈরির ব্যবসায় লাভ কত?(What are the benefits of making a bottle cleaning brush?)

একটা মেশিন থেকে এক ঘন্টা কাজ করে 100 থেকে 200 পিস বোতল ক্লিনিং ব্রাশ তৈরি করা যায়। একটা বোতল ক্লিনিং ব্রাশ তৈরি করতে খরচ হয় 2 থেকে 3 টাকা। হোলসেল মার্কেটে বিক্রি করতে পারেন কম করে 10 টাকা থেকে 15 টাকা দামে। আর বাজারে সেটা কিনতে পাওয়া যায় 25 থেকে 30 টাকা দামের মধ্যে। অর্থাৎ একটা ব্রাশ তৈরি করার পর আপনার লাভ কম করে থাকবে 7 টাকা থেকে 13 টাকার মধ্যে। আপনি যদি সারাদিন 8 ঘণ্টা কাজ করেন তাহলে 800 ক্লিনিং ব্রাশ তৈরি করতে পারেন। অর্থাৎ প্রতিদিন আপনার লাভ থাকবে কম করে 5.5 হাজার টাকা। আপনি যদি ঠিকঠাক ব্যবসা করতে পারেন তাহলে প্রতি মাসে 150000 টাকা ইনকাম করতে পারেন এই ব্যবসা থেকে।

বোতল ক্লিনিং ব্রাশ তৈরির ব্যবসা করতে গেলে কি কি সমস্যার সম্মুখীন হতে হবে?

বোতল ক্লিনিং ব্রাশ তৈরি ব্যবসা করতে গেলে আপনাদের বেশ কিছু সমস্যার সম্মুখীন হতে পারে। যেমন আপনারা যদি আপনাদের প্রোডাক্টের কোয়ালিটি ঠিকঠাক রাখতে না পারেন তাহলে মার্কেটে আপনারা দাঁড়াতে পারবেন না।
ব্যবসার শুরুতে লাভ কম রেখে মার্কেটিং এর উপরে বেশি করে জোর দিতে হবে।
প্রতিদিন 800 ক্লিনিং ব্রাশ তৈরি করার পর সেই 800 ক্লিনিং ব্রাশ বাজারে বিক্রি করার দিকে বেশি করে নজর দিতে হবে। আসলে সবাই তৈরী করতে পারে কিন্তু বাজারে বেশি বিক্রি করতে পারে না, তাই বিক্রি যদি আপনি না করতে পারেন তাহলে বেশি লাভ করতে পারবেন না।


তাই ব্যবসা শুরু করার আগে আপনাকে মার্কেটে গিয়ে যাচাই করতে হবে কোন দোকান আপনার প্রোডাক্ট গুলি কিনবে এবং কোন জায়গাতে আপনার এই সব প্রোডাক্ট এর চাহিদা বেশি, জানার পরে আপনি সেই অনুযায়ী তৈরি করবেন এবং সেই অনুযায়ী বিক্রি করবেন তাহলে আপনার কোন লস হবে না।
নিজের ওপরে ভরসা রাখুন, মনের উপরে সাহস রাখুন, আর ব্যবসা করে যান

নতুন নতুন ব্যবসার আইডিয়া দেখুন-

ফলের জুসের ব্যবসা

লিকুইড হ্যান্ড ওয়াশ তৈরি ব্যবসা

Leave a Comment