পনির তৈরির ব্যবসা | Do the business of making cheese in a successful way 1

পনির তৈরির ব্যবসা বর্তমানে ভারত এবং বাংলাদেশে খুব ব্যাপকহারে লক্ষ্য করা যাচ্ছে। তাকে ভারতে পনিরের চাহিদা সবচেয়ে বেশি পরিমাণে থাকে। কারণ ভারতে এক তৃতীয়াংশ মানুষ ভেজ খাবার খেতে বেশি পছন্দ করেন। তবে ভারত ছাড়াও পাকিস্তান, বাংলাদেশ, আফগানিস্তান, শ্রীলঙ্কা এই সমস্ত দেশেও পনিরের ব্যাপক চাহিদা রয়েছে। তাই জন্য আপনি যদি পনির তৈরির ব্যবসা শুরু করেন অবশ্যই আপনি সফল হবেন। আর এই পোস্টে পনির তৈরির ব্যবসা সম্পর্কিত সকল তথ্য সুন্দর করে দেওয়া হল।

Cheese making business
পনির তৈরির ব্যবসা

Table of Contents

পনির তৈরির ব্যবসা শুরু করতে কত টাকা লাগে? (How much does it cost to start a cheese making business?)

আপনি যদি খুব ছোট করে পনির তৈরির ব্যবসা শুরু করেন তাহলে আপনার আনুমানিক খরচ হতে পারে 1 লক্ষ থেকে 2 লক্ষ টাকার মতো। অর্থাৎ ছোট করে পনির তৈরির ব্যবসায় বিনিয়োগ করতে হবে 1 থেকে 2 লক্ষ টাকা। এই বিনিয়োগের মধ্যে আপনি প্রয়োজনীয় সকল কাঁচামাল, পরিবহন, কর্মচারীর বেতন, বিদ্যুৎ, জ্বালানি ইত্যাদি সকল খরচা মিলিয়ে খরচ হবে। এছাড়া আপনি যদি পনির তৈরির ব্যবসা বড় করে শুরু করতে চান তাহলে আপনার অবশ্যই 3 থেকে 5 লক্ষ টাকা খরচ হবে।

তবে বর্তমানের বড় বড় পনির তৈরির ব্যবসায়ীদের প্রতিমাসের বিনিয়োগের অর্থই পাঁচ থেকে দশ লক্ষের বেশি হয়ে থাকে। তবে আপনি যদি আপনার শহরে বড় করে পনির তৈরির ব্যবসা শুরু করেন তাহলে আপনার 5 থেকে 6 লক্ষ টাকা খরচ হতে পারে। এই বিনিয়োগ টা আপনার করতে হবে কারণ প্রয়োজনীয় জায়গা সহ কাঁচামাল সমস্ত কিছুর পেছনে।

পনির তৈরির ব্যবসা করতে কি কি কাঁচামাল লাগে? (What are the raw materials required to make cheese business?)

পনির তৈরি ব্যবসা করতে হলে আপনাকে প্রয়োজনীয় কাঁচামাল হিসেবে খুব কমই জিনিসের প্রয়োজন হয়। তবে কাঁচামাল হিসেবে ব্যবহৃত দুটি জিনিস হল-

  • দুধ (Milk)
  • সোডিয়াম হাইপোক্লোরাইড বা সাইট্রিক অ্যাসিড (Citric acid)

পনির তৈরির ব্যবসার কাঁচামাল কোথায় কিনতে পাওয়া যায়?

পনির তৈরির ব্যবসা করতে গেলে প্রয়োজনীয় কাঁচামাল হিসেবে দুধ আপনি যেকোন গরুর খাটাল থেকে পেয়ে যাবেন। অথবা আপনি গ্রাম থেকে সংগ্রহ করতে পারেন দুধ। কারণ গ্রামে দুধের দাম অনেক কম হয়ে থাকে। এছাড়া সাইট্রিক এসিডের জন্য আপনি যেকোন কেমিক্যাল মেডিসিনের দোকানে যোগাযোগ করতে পারেন। তা আপনি যেকোনো বড় শহর এই পেয়ে যাবেন।

পনির তৈরির মেশিন কি কি লাগে? (What does a cheese making machine cost?)

পনির তৈরির ব্যবসা করতে হলে পনিরের ভালো মান এবং উৎস ফলন বাড়ানোর জন্য অবশ্যই আপনাকে পনির মেশিনের সাহায্যে তৈরি করতে হবে। কারণ বাড়ীতে তৈরি করা পনিরের গুণগত মান ভালো হলেও বেশি করে উৎপাদন করা সম্ভব হয় না, তাই বেশি উৎপাদন বৃদ্ধির জন্য অবশ্যই আপনাকে পনির তৈরির মেশিন কিনতে হবে। আর পনির তৈরির জন্য যেসকল মিশন গুলি ব্যবহার করা হয়ে থাকে সেগুলি হল-

  • দুধ সংরক্ষণের জন্য বড় অ্যালমনিয়ামের পাত্র
  • কুলার মেশিন
  • স্টিলের বড় বড় ট্রাংক
  • দুধ গরম করার জন্য বয়লার
  • ডিপ ফ্রিজার
  • ওয়েট মেশিন (ওজন পরিমাপক যন্ত্র)
  • ভ্যাকিউম প্যাকিং মেশিন
  • লেভেলিং মেশিন

অবশ্যই পড়ুন- অটোমোবাইল পার্টস এর ব্যবসা

পনির তৈরির মেশিন কোথায় কিনতে পাওয়া যায়?

পনির তৈরি করার জন্য সমস্ত মেশিন কেনার জন্য আপনি আপনার শহরের যেকোনো বড় মেশিন ম্যানুফ্যাকচারার কোম্পানির সাথে যোগাযোগ করতে পারেন। এছাড়াও আপনি চাইলে পশ্চিমবঙ্গের বড়বাজার হোলসেল মার্কেট থেকে খুব সহজলভ্য দামে সকল প্রকার মেশিন এবং জিনিসপত্র কিনতে পারেন। এছাড়াও অনলাইনে আপনি ইন্ডিয়ামার্ট ওয়েবসাইট থেকে সরাসরি খুব কম দামে অনলাইনে জিনিসপত্র কিনতে পারেন। এছাড়া বাংলাদেশ অথবা ভারতের বড় বড় মেশিন ম্যানুফ্যাকচারার কোম্পানির যোগাযোগ নাম্বার সহ ফোন নাম্বার নিচে দেওয়া হল-

● Think India Industries, 1/1, Duke Road, Ashoka Engineering, Howrah– 711102 Contact: +917044704427

● Startup Industries Abantika Apartment, Jhowtala Road, Baguiati, Near Jyangara Shanti Kali Mandir, Kolkata– 700059

●Business Bangla Corporation, Shop no.- 182, 197, Sundarban Square Super Market, 4th Floor, Gulistan, 163, Nawabpur Road, Dhaka- 1000 Bangladesh Contact: +8801879976968, +8801865125940

Cheese making machine
পনির তৈরির মেশিন

পনির তৈরির ব্যবসা করতে কত বড় জায়গা প্রয়োজন?

পনির তৈরির ব্যবসা করার জন্য অবশ্যই ব্যবসার শুরুতে যদি আপনি বাড়ি থেকে শুরু করেন তাহলে আপনার বাড়ির রান্নাঘর থেকেই পনির তৈরির ব্যবসার কাজ শুরু করতে পারেন। তবে সাধারণত পনির তৈরির ব্যবসার জন্য প্রয়োজনীয় যে জায়গার প্রয়োজন হয় তা 1000 বর্গফুটের মধ্য হলে ভালো হয়। এছাড়া আপনি যদি আরো বড় করে এই ব্যবসা শুরু করতে চান তাহলে অবশ্যই আপনার আরো কিছু বেশি জায়গার প্রয়োজন পড়বে। এছাড়াও আপনাকে পনির তৈরি করার জন্য প্রসেসিং এরিয়া, স্টোরিজ রুম, প্যাকিং রুম এবং তৈরি হওয়া প্রডাক্ট রাখার জন্য আলাদা করে স্টোর রুম তৈরি করতে হবে।

পনির তৈরির পদ্ধতি (Cheese making method)

পনির তৈরির ব্যবসা শুরু করতে হলে অবশ্যই আপনাকে পনির তৈরি করার সকল পদ্ধতি জানতে হবে। বর্তমানে আমরা সবাই জানি পনির তৈরি করার জন্য শুধুমাত্র ছানার প্রয়োজন হয় কিন্তু এটা শুধুমাত্র বাড়িতে অল্প করে পনির তৈরি করার জন্য ব্যবহৃত করা যেতে পারে। তবে পনির তৈরির ব্যবসা করতে হলে আপনাকে ব্যবসায়িক মডেলের পনির তৈরি করতে হবে।

  • পনির তৈরি করার জন্য সর্ব প্রথমে দুধ সংগ্রহ করতে হবে।
  • তারপর দুধকে ভালো করে বরং করতে হবে বয়লার মেশিনে।
  • দুধ যখন ফুটতে থাকবে তখন দুধের মধ্যে সাইট্রিক এসিড অল্প পরিমাণে যুক্ত করতে হবে।
  • দুধের সাইট্রিক অ্যাসিড যুক্ত করার কারণে দুধ ফুটে ছানা বা পনির তৈরি হয়ে যাবে।
  • এরপর দুধ থেকে ছানা কে আলাদা করার জন্য ভালো সুতির কাপড় ব্যবহার করতে হবে।
  • ছানা থেকে সম্পূর্ণ জল বার করার পর ছানাটি যেকোনো বড় ডাইস এর মধ্যে রেখে প্রেসার দিয়ে শক্ত করতে হবে।
  • মনে রাখবেন দুধ থেকে ছানা তৈরি হওয়ার পর সেই ছানাটি পনির তৈরি করার জন্য কমপক্ষে 12 ঘণ্টা যেন প্রেসারের মধ্যে থাকে।
  • 12 ঘন্টা পর আপনি ছানাটিকে প্যাকিং করে ভেজে তুলে রাখুন।
  • এরপরই ছানাটি তৈরি হয়ে যাবে পনিরে।

পনিরের প্যাকেজিং কিভাবে করা হয়?

পনির তৈরির ব্যবসা বা চিজ তৈরির ব্যবসা করতে হলে অবশ্যই আপনাকে তৈরি হয়ে যাওয়া পনিরকে খুব ভালো করে প্যাকেজিং করতে হবে। প্যাকেজিং করার জন্য ট্রান্সপারেন্ট পাতলা প্লাস্টিকের ব্যবহার করতে পারেন। প্লাস্টিক দিয়ে কোন একটি ভালো করে রেপিং বা মুরে ভেতরের হাওয়া নিষ্কাশন করে দিতে হবে। পনির তৈরি করার পরেই প্যাকেজিং করে ফ্রিজে রাখতে হবে। আর মনে রাখবেন পনির অবশ্যই ডিপ ফ্রিজে রাখা উচিত। বাজারে বিক্রি করার জন্য পনিরের ওপর আপনার কোম্পানির লেবেল লাগিয়ে দিতে পারেন।

আরো পড়ুন- কাগজের খাম তৈরির ব্যবসা

চিজ তৈরির ব্যবসার বাজার কেমন? (What is the market for cheese making business?)

পনির তৈরির ব্যবসা বা চিজ তৈরির ব্যবসা একই জিনিস তবে এর বাজার অনেক বড় আকারের বর্তমানে লক্ষ্য করা যায়। দক্ষিণ ভারতের সবচেয়ে বড় বাজার রয়েছে কারণ দক্ষিণ ভারতের 90% মানুষ নিরামিষ খাবার খেতে বেশি পছন্দ করেন। এছাড়াও পনিরের ডিমান্ড রয়েছে সারা ভারতের প্রতিটি রাজ্যের প্রতিটি বড় বড় শহরে। তাই জন্য পনির বর্তমানে পাড়ার মুদিখানা দোকান থেকে বড় সুপার মার্কেট এর সমস্ত জায়গাতেই বিক্রি হয়ে থাকে।

এছাড়াও বাংলাদেশের বহু রেস্টুরেন্ট এবং বহু পরিবারের পনিরের ব্যবহার ব্যাপকভাবে লক্ষ্য করা যায়। তাই ভারত কিংবা বাংলাদেশ যেখানে আপনি থাকুন না কেন পনির তৈরির ব্যবসা করে আপনি সফল উদ্যোক্তা হতে পারবেন। তবে ভারতে বড় বড় ব্র্যান্ড যেমন আমুল এবং নিজ গেলে তারা দেশের 65% পনির বিক্রি করে থাকে। তবুও দিনে দিনে ছোট ছোট ব্যবসায়ীরাও তাদের ব্যবসা কে বড় করার জন্য পনিরের ব্যবসা করে উন্নতি করছেন।

পনির তৈরির ব্যবসা করতে কি কি লাইসেন্স লাগে? (What kind of license is required to make cheese business?)

যেকোনো ছোট ব্যবসা হোক কিংবা বড় ব্যবসা প্রতিটা ব্যবসার ব্যবসায়ীকেই তার ব্যবসার জন্য বিভিন্ন প্রকার লাইসেন্স নিতে হয়। তাই জন্য আপনাকেও পনির তৈরির ব্যবসা শুরু করতে হলে বেশ কয়েক ধরনের লাইসেন্স নিতে হবে। আর সেইসব লাইসেন্স গুলি হল-

  • ট্রেড লাইসেন্স-প্রতিটা ব্যবসার ব্যবসায়ীকেই তার ব্যবসাকে সরকারের কাছে নথিভূক্ত করার জন্য ট্রেড লাইসেন্স নিতে হয়।
  • FSSAI লাইসেন্স– আপনি যেহেতু খাবারের বা খাদ্যের আইটেম তৈরি করছেন তাই জন্য অবশ্যই আপনাকে FSSAI লাইসেন্স নিতে হবে।
  • GST লাইসেন্স-ব্যবসায়ী যখন আপনার প্রতি মাসে দু লক্ষ থেকে তিন লক্ষ টাকা মাসিক ইনকাম হবে তখন অবশ্যই আপনাকে GST নাম্বার নিতে হবে।
  • এছাড়াও বর্তমানে PFA আইন অনুযায়ী যেকোনো অন্যের আদ্রতা 70% এর বেশি হওয়া উচিত নয় এবং চর্বির পরিমাণ 50% কমই হতে হবে। তাই আপনার প্রোডাক্টের মধ্যেও যেন এই সকল গুনাগুন বর্তমান থাকে তাই দেখতে হবে।

এই সকল প্রকার লাইসেন্স আপনি আপনার নিকটবর্তী পঞ্চায়েত অফিস অথবা কর্পোরেশন থেকে পেয়ে যাবেন। আবার আপনি চাইলে বর্তমানের প্রতিটা দেশের অনলাইনের মাধ্যমে এপ্লাই করে সকল প্রকার লাইসেন্স পাওয়া যাচ্ছে। তাই আপনিও অনলাইনে এপ্লাই করে সকল লাইসেন্স নিতে পারেন। আর প্রতিটা লাইসেন্সের জন্য আপনাকে খরচ করতে হবে দুই থেকে তিন হাজার টাকার মতো।

অবশ্যই পড়ুন- ব্যবসা শুরু করে 10 লাখ টাকা আয় করুন

পনিরের মার্কেটিং কিভাবে করতে হয়?

পনির তৈরির ব্যবসা করতে হলে অবশ্যই আপনার ব্যবসায়ী তৈরি হওয়া পনির গুলি বাজারে বিক্রি করার ব্যবস্থা করতে হবে। এর জন্য আপনি বিভিন্ন পদ্ধতি ব্যবহার করতে পারেন। যেমন বর্তমানে অনেক আধুনিক পদ্ধতিতে ব্যবসা করার জন্য প্রতিটা বড় বড় ব্যবসায়ী তার ব্যবসা কে উচ্চ পর্যায়ে নিয়ে যেতে পারছে। তাই জন্য আপনাকেও পনির তৈরির ব্যবসাতে আধুনিক অনেক পদ্ধতি ব্যবহার করতে হবে পনির বিক্রি করার জন্য।

  • গ্রাম কিংবা শহরের প্রতিটা মুদিখানা দোকানে আপনি পনির বিক্রি করতে পারেন।
  • বড় বড় শপিং মলে পনির বিক্রি করতে পারেন।
  • বিভিন্ন এলাকাতে একাধিক ডিস্ট্রিবিউটার তৈরি করে তাদের মধ্যে পনির বিক্রি করতে পারেন।
  • আপনার কোম্পানিতে একাধিক সেলসম্যান নিযুক্ত করে তাদের মাধ্যমে এলাকায় এলাকায় পনির বিক্রি করতে পারেন।
  • অনলাইনে নিজস্ব ওয়েবসাইট তৈরি করে তার মধ্য দিয়ে পনির বিক্রি করা হয়ে থাকে।
  • বর্তমানের বহুপ্রচলিত ই-কমার্স ওয়েবসাইট গুলি যেমন অ্যামাজন, ফ্লিপকার্ট, ইন্ডিয়ামার্ট এ ধরনের ওয়েবসাইটে একটি করে বিজনেস অ্যাকাউন্ট খুলে পনির বিক্রি করতে পারেন।
  • এলাকার প্রতিটা রেস্টুরেন্টে পণ্যের বিক্রি করা হয়ে থাকে।
  • বিভিন্ন ক্যাটারার দের সাথে যোগাযোগ রেখে তাদের মাধ্যমে বিভিন্ন প্রোগ্রামে বা অনুষ্ঠানে পনির বিক্রি করতে পারেন।
Cheese business
পনির ব্যবসা

পনির তৈরীর ব্যবসায় লাভ কত? (What is the profit of cheese making business?)

পনির তৈরির ব্যবসা বর্তমানে যেমন ব্যাপক পরিমাণে মুনাফা কামিয়ে দিচ্ছে প্রতিটা ব্যবসায়ীকে তেমনি এই ব্যবসাতে লাভের পরিমাণ হয় অনেক বেশি। আপনি যদি পনির তৈরির ব্যবসা শুরু করেন তাহলে পাইকারি দামে পণ্য বিক্রি করেও আপনি প্রতিদিন কমপক্ষে 3 থেকে 4 হাজার টাকা ইনকাম করতে পারবেন। একজন ছোট পনির ব্যবসায়ীর প্রতিদিনের ইনকাম 2-3 হাজার টাকা হয়ে থাকে। আর একজন বড় মাপের পনির ব্যবসায়ীক প্রতিদিনের ইনকাম 25 থেকে 30 হাজার টাকা হয়ে থাকে। আপনাকে লাভ নির্ধারণ করতে হবে আপনি আপনার ব্যবসা কিভাবে করছেন এবং কি পদ্ধতিতে বিক্রি করছেন তার ওপরে। তবে একজন ছোট পনির ব্যবসায়ীর মাসিক ইনকাম 50 থেকে 60 হাজার টাকা হয়ে থাকে। বড় পনির ব্যবসায়ীর মাসিক ইনকাম 10 থেকে 15 লক্ষ টাকা হতে পারে।

পনির ব্যবসা কি কি সমস্যা আসতে পারে?

পনির তৈরির ব্যবসা করতে গেলে অনেক সমস্যার সম্মুখীন শুরুতে হতে পারে। যেমন বর্তমানের বড় বড় ব্যবসায়ীরা আপনার কে প্রতিহত করার জন্য বিভিন্ন রকম চেষ্টা করতে পারে। এছাড়া বাজারে বিক্রি হওয়া পনিরের কোয়ালিটির থেকে আপনার তৈরি পনিরের কোয়ালিটি যেন সর্বদা ভালো থাকে তার দিকে লক্ষ্য রাখতে হবে। তৈরি হওয়া পণ্যের প্রতি দিন যাতে ভালোভাবে বাজারে বিক্রি করা যায় তার সমস্ত ব্যবস্থা আপনাকে করতে হবে। এছাড়াও ব্যবসার শুরুতে বাজারে বিক্রি হওয়া পনিরের থেকে আপনি যদি কম দামে পণ্য বিক্রি করতে পারেন তাহলে আপনার ব্যবসা খুব দ্রুত বৃদ্ধি পাবে এবং লাভের পরিমাণ টাও বেড়ে যাবে বেশি পনির বিক্রি করে।

জিজ্ঞাসিত প্রশ্ন

পনির তৈরির ব্যবসায় লাভ কত হয়?

উত্তর: প্রতিদিন পনির বিক্রি করে কম করে 2 থেকে 3 হাজার টাকা লাভ করতে পারে। প্রতিমাসে 50 থেকে 60 হাজার টাকা লাভ থাকে।

কত ধরনের পনির হয়ে থাকে?

উত্তর: 1800 ধরনের পনির বর্তমানে বাজারে বিক্রি হয়ে থাকে।

পনির কি জাতীয় খাদ্য?

উত্তর: পনির দুগ্ধজাত খাদ্য।

পনির এর জন্ম কোথায়?

উত্তর: 10 হাজার বছর আগে ইউরোপ ও মধ্য এশিয়ার এক প্রান্তে পনিরের উৎপত্তি হয়েছে বলে অনেক প্রত্নতাত্ত্বিক মনে করেন।

পনির কি দিয়ে তৈরি হয়?

উত্তর: পনির দুধ দিয়ে তৈরি করা হয়।

পনির তৈরির ব্যবসা করতে কত টাকা লাগে?

উত্তর: অনেক তৈরির ব্যবসা ছোট করে শুরু করতে 1 লক্ষ টাকা থেকে 2 লক্ষ টাকা লাগে

নতুন নতুন ব্যবসার আইডিয়া দেখুন-

অল্প পুজিতে ওষুধের ব্যবসার আইডিয়া

চালের পাইকারি ব্যবসা