ড্রাইভিং স্কুল ব্যবসা করে মাসে 1 লাখ টাকা আয় করুন | Become a successful businessman by running a diving school business

মানুষের জনসংখ্যা বাড়ার সাথে সাথে মটর গাড়ি চালানোর ও কেনার দিনে দিনে বেড়ে যাচ্ছে। তাই আপনি যদি ড্রাইভিং স্কুল ব্যবসা শুরু করেন আপনি প্রতি মাসে ভালো টাকা উপার্জন করতে পারবেন। আমাদের মনে অনেক প্রশ্ন থেকে ড্রাইভিং স্কুল ব্যবসা নিয়ে যা সমস্ত পরিষ্কার করার জন্য আজকের আমাদের এই পোস্ট। আপনি যদি সমগ্র পোষ্ট ভালো করে মনোযোগ সহকারে পড়েন তাহলে আপনিও শুরু করতে পারবেন ড্রাইভিং স্কুল ব্যবসা।

Table of Contents

ড্রাইভিং স্কুল ব্যবসা শুরু করতে কত টাকা লাগে? (How much does it cost to start a driving school business?)

বর্তমানে ড্রাইভিং স্কুল ব্যবসা করতে গেলে আপনাকে বিভিন্ন ধরনের একাধিক গাড়ি কিনতে হবে । সাধারণত এইসব গাড়ি আপনি ভাড়া নিয়ে ব্যবসা করতে পারবেন না তাতে আপনার লাভের অংক অনেক কমে যাবে। তাই জন্য ড্রাইভিং স্কুল ব্যবসা শুরু করতে আপনার খরচ হতে পারে আনুমানিক 5 থেকে 15 লক্ষ টাকা। ব্যবসার শুরুতে আপনি 3-4 লাখ টাকা দিয়ে সেকেন্ড হ্যান্ড গাড়ি একাধিক কিনতে পারেন। ব্যবসার শুরুতেই একটা গাড়ি কিনে আপনি ড্রাইভিং স্কুল ব্যবসা শুরু করতে পারেন তবে ব্যবসা ভালোভাবে পড়তে গেলে আপনাকে একাধিক গাড়ি কিনে ব্যবসাটি বড় করে করতে হবে। তাই একটা সেকেন্ড হ্যান্ড গাড়ি কিনতে আপনার 4-5 লক্ষ টাকা খরচ হতে পারে এবং সমগ্র ব্যবসাটির প্রচার করতে আরো কয়েক হাজার টাকার প্রয়োজন পড়বে।

ড্রাইভিং স্কুল কি? (What is a driving school?)

যদিও বর্তমানে আমরা সবাই ড্রাইভিং স্কুল সম্পর্কে পরিচিত তবুও অনেকে জানে না ড্রইং স্কুল কাকে বলে। বোঝার সুবিধার্থে বলা যেতে পারে এক কথায় যেখানে আমরা ড্রাইভিং শিখতে পারি তাহাই হল ড্রাইভিং স্কুল। বিভিন্ন মানুষের পেশাদারী পদ্ধতিতে সম্পূর্ণ ট্রাফিক আইন মেনে গাড়ি চালানো শেখার ইনস্টিটিউশন কে বলা হয় ড্রাইভিং স্কুল। এই ড্রাইভিং স্কুলের প্রতিটি মানুষকে ড্রাইভিং এর সাথে সাথে সমস্ত ট্রাফিক আইন সম্পর্কে সচেতন করা হয় এবং বিভিন্ন তথ্য দিয়ে ড্রাইভিং শেখানো হয়ে থাকে। যেকোনো বয়সের যেকোনো মানুষ ড্রাইভিং স্কুলে ড্রাইভিং শেখার জন্য ভর্তি হতে পারেন এর জন্য নির্দিষ্ট পরিমাণের টাকা প্রদানের মধ্য দিয়ে ড্রাইভিং শেখা যায়।

Driving school business

কিভাবে ড্রাইভিং স্কুলের ব্যবসা শুরু করবেন?

যেহেতু বর্তমান সময়ে শহরাঞ্চলের বা গ্রামাঞ্চলের শিক্ষিত প্রায় প্রতিটা পরিবারে গাড়ি কেনার প্রবণতা বেড়ে গেছে। তাই সঠিক পদ্ধতিতে গাড়ি চালানো শেখার জন্য প্রত্যেকেই ড্রাইভিং স্কুলের উপর নির্ভরশীল। আবার অনেক মানুষ স্বনির্ভর হওয়ার সাথে সাথে অন্যান্য কাজের পাশাপাশি ডাইভিং শিখে রাখার কথাও ভাবছে। তাই ধীরে ধীরে ড্রাইভিং স্কুল ব্যবসা এতটা জনপ্রিয়তা লাভ করছে। আপনি লক্ষ্য করলে দেখতে পাবেন প্রতিটা রাজ্যের সকল বড় বড় শহরে এবং সহরাঞ্চলে একাধিক ড্রাইভিং স্কুল ব্যবসা গড়ে উঠছে।

তাই এই ক্রমবর্ধমান শিল্প উন্নয়নের যুগে আপনিও যদি ড্রাইভিং স্কুল ব্যবসা শুরু করেন তাহলে অবশ্যই আপনার ব্যবসা বাকি অন্য বড় ব্যবসায়ীদের মতনই ভালোভাবে চলবে এবং আপনি স্বনির্ভর হবেন ও একাধিক জনকে স্বনির্ভর করে তুলবেন। যদিও এই ব্যবসা শুরু করতে একটু বেশি পুঁজি বিনিয়োগ করতে হয় তবে খুব সহজেই তাড়াতাড়ি এই ব্যবসা থেকে আপনি লাভবান হতে পারবেন। আর সবচেয়ে বড় কথা এই ব্যবসা ঝুঁকিমুক্ত হওয়ার জন্য বিভিন্ন মানুষ ড্রাইভিং স্কুল ব্যবসার প্রতি আগ্রহী হচ্ছেন।

ড্রাইভিং স্কুল ব্যবসা শুধু আপনার নিজের অর্থাভাব ঘোচাবে না তার পাশাপাশি অনেক মানুষের কর্মসংস্থানের সুযোগ করে দেবে। অনেক মানুষ রয়েছেন যাদের পরিবারে আগে থেকেই গাড়ি ছিল তারা পরিবারের লোকেদের দ্বারাই ড্রাইভিং শিখে ড্রাইভিং লাইসেন্সের জন্য ভালো করে ড্রাইভিং শেখার তাগিদে ড্রাইভিং স্কুলে আসে। তাই আপনি যখন ড্রাইভিং স্কুল ব্যবসা শুরু করবেন তখন অবশ্যই আপনাকে এমন একটি উপযুক্ত জায়গা নির্বাচন করতে হবে যেখানে মানুষের ড্রাইভিং শেখার চাহিদার প্রবণতা রয়েছে।

আপনার কাছে ব্যবসার শুরুতে যদি অল্প পুঁজি থাকে তাহলে আপনি ব্যবসার কাজ শুরু করতে পারেন বিভিন্ন জায়গা থেকে গাড়ি ভাড়া নিয়ে। বর্তমানে এমন কিছু নতুন ড্রাইভিং স্কুল ব্যবসায়ী রয়েছেন যারা ব্যবসার শুরুতে গাড়ি ভাড়া নিয়ে তাদের ব্যবসার কাজ শুরু করেছিলেন। ড্রাইভিং স্কুল ব্যবসা করতে গেলে অবশ্যই আপনাকে অভিজ্ঞ ড্রাইভার দিয়ে ট্রেনিং দেওয়াতে হবে প্রতিটা শিক্ষার্থীকে।

অবশ্যই পড়ুন- বাড়ির বউদের জন্য সেরা ১০টি ব্যবসার আইডিয়া

ড্রাইভিং স্কুল ব্যবসা শুরু করার পদ্ধতি ও নিয়ম

ড্রাইভিং স্কুল ব্যবসা করতে গেলে আপনাকে জানতে হবে ড্রাইভিং স্কুল সম্পর্কিত আপনার রাজ্যের বিভিন্ন নিয়ম-কানুন এবং সতর্কতা। তাই ব্যবসা শুরুর আগে যে সকল জিনিসগুলি অবশ্যই আপনাকে জানতে হবে তা হল-

  • আপনার রাজ্যের ড্রাইভিং স্কুল সম্পর্কিত আইন
  • ড্রাইভিং স্কুল ব্যবসা করার জন্য প্রয়োজনীয় বাজেট
  • অল্প দামে সেকেন্ড হ্যান্ড গাড়ির মার্কেট
  • আপনার ব্যবসার প্রতিযোগী কারা রয়েছে
  • অভিজ্ঞ ড্রাইভিং প্রশিক্ষক বা ভালো ড্রাইভার
  • ব্যবসার প্রচার ও মার্কেটিং
  • ব্যবসার পরিকল্পনা

ড্রাইভিং স্কুল ব্যবসা সম্পর্কিত রাজ্যের আইন

ড্রাইভিং স্কুল ব্যবসা করতে গেলে অবশ্যই আপনাকে জানতে হবে আপনি যে রাজ্যে ব্যবসাটি শুরু করতে চাইছেন সে রাজ্যে ড্রাইভিং স্কুল ব্যবসা নিয়ে কি কি আইন রয়েছে। সকল প্রকার আইন মেনেই আপনাকে আপনার ব্যবসা শুরু করতে হবে। বিভিন্ন রাজ্যের ড্রাইভিং স্কুল ব্যবসা করতে গেলে বিভিন্ন প্রকার লাইসেন্স নিতে হয়ে থাকে। তাই আপনাকেও আপনার ব্যবসা শুরু করতে হলে আগে এই সকল লাইসেন্স ও অনুমোদন পত্র জোগাড় করে তবেই ড্রাইভিং স্কুল ব্যবসা শুরু করতে হবে। ভারতে আপনি যদি ড্রাইভিং স্কুল ব্যবসা শুরু করেন তাহলে অবশ্যই আপনাকে কর্পোরেট মন্ত্রণালয়ের অনুমোদন পত্র নিয়ে ব্যবসা করতে হবে, কারণ বর্তমানে এই ব্যবসা কর্পোরেট মন্ত্রণালয়ের অধীনে রয়েছে। এছাড়াও আপনাকে স্থানীয় পরিবহন অফিস থেকে অনুমোদন পত্র নিতে হবে তারপরে ব্যবসা করতে হবে।

সেকেন্ড হ্যান্ড গাড়ির মার্কেট কোথায় আছে?

আপনি যখন ড্রাইভিং স্কুল ব্যবসা শুরু করবেন তখন আপনার ব্যবসা করার জন্য প্রথমে একাধিক গাড়ি কিনতে হবে তার জন্য আপনাকে সেকেন্ড হ্যান্ড গাড়ির মার্কেটের সাথে যোগাযোগ করতে হবে। এছাড়া আপনি যখন ড্রাইভিং স্কুল ব্যবসা করবেন তখন আপনার যে স্টুডেন্ট থাকবে তাদের অনেকেই সেকেন্ড হ্যান্ড গাড়ি কেনার প্রতি আগ্রহী থাকবে, এর জন্যেও আপনার কাছে সমগ্র সেকেন্ড হ্যান্ড গাড়ি সম্পর্কিত তথ্য থাকার প্রয়োজন রয়েছে। তাই আপনাদের বোঝার সুবিধার্থে ভারত এবং বাংলাদেশের একাধিক সেকেন্ড হ্যান্ড গাড়ির মার্কেটের ব্যবসায়ীর যোগাযোগ নাম্বার দিয়ে দেওয়া হল। আপনারা প্রয়োজন অনুযায়ী এই সকল ব্যবসায়ীর কাছ থেকে সেকেন্ড হ্যান্ড গাড়ি কিনে আপনার ব্যবসা শুরু করতে পারেন।

পশ্চিমবঙ্গের সেকেন্ড হ্যান্ড গাড়ির মার্কেট

  • Second Hand Car Dealers- 70 A, Park St, Esplanade, Park Circus, Ballygunge, Kolkata, West Bengal 700017
  • Kolkata Used Cars-  4 Royd Lane, Rafi Ahmed Kidwai Rd, Kolkata, West Bengal 700016
  • Plus Marketing – (Used Car Dealer in Park Street Kolkata) 44/B, Rafi Ahmad Kidwai Road, Park St, Kolkata, West Bengal 700016,Phone: 097423 32168
  • MD Motors- (Best Used Car Dealers In Harinavi, Kolkata)Nearest Moilapota,Ashoknath, Lal Bahadur Shastri Rd, Harinavi, Kolkata, West Bengal 700148,Phone: 094324 34953
  • Kohinur Motors- 35, 2.5, Basunagar Gate Number 1 Rd, Basunagar, Madhyamgram, Kolkata, West Bengal 700129,Phone: 097489 18795

বাংলাদেশ সেকেন্ড হ্যান্ড গাড়ির মার্কেট

  • Daily Car Haat- Dhaka, Bangladesh, +880 1752-882244
  • HB Car Selection Ltd.- Dhaka, Bangladesh,
  • HSB CAR’S- 147 Monipuripara, Tejgaon, Road-7, Kazi Nazrul Islam Ave, Behind Cooper’s, Dhaka 1215, Bangladesh,Phone: +880 1819-211529
  • Gulshan Auto Park- (Used Car Showroom in Dhaka) Block- D, House- 88 Rd No 13A, Dhaka 1213, Bangladesh,Phone: +880 1731-228000
  • কার হাট লিমিটেড- Dhaka, Bangladesh, Phone: +880 1919-777999
  • Ultra Car Flash- Plot-02, Road-10, Block-J, Baridhara, Vatara, Dhaka-1212, Dhaka 1212, Bangladesh, Phone: +880 2-9843660

ড্রাইভিং স্কুল ব্যবসার প্রতিযোগী কারা জানুন

আপনি যখন এই ব্যবসা শুরু করবেন তখন অবশ্যই আপনাকে জানতে হবে আপনার আশেপাশে আর কারা কারা ড্রাইভিং স্কুল ব্যবসা করছে। এর জন্য আপনাকে আগে থেকে সকল প্রকার তথ্য জানতে হবে। আপনাকে জানতে হবে এই ট্রেনিং সেন্টারগুলিতে কত টাকা ভর্তি ফি লাগে, কি পদ্ধতিতে এরা ট্রেনিং দেয়, ট্রেনিং এর শেষে কি ধরনের সার্টিফিকেট দেয়, আর কি ধরনের ট্রেনার দিয়ে ট্রেনিং দিয়ে থাকে। আপনি যদি আপনার ব্যবসার প্রতিযোগীদের ভালো করে চিনতে পারেন এবং বুঝতে পারেন তাদের ব্যবসার দুর্বল জায়গা কোথায় রয়েছে, সেই বুঝে আপনি ব্যবসা করলে আপনি অবশ্যই সফল হবেন। তাই ব্যবসার শুরুর আগে আপনাকে ভালো করে এই সংক্রান্ত মার্কেট রিসার্জ করে নিতে হবে।

অভিজ্ঞ ড্রাইভিং প্রশিক্ষক রাখুন

ড্রাইভিং স্কুল ব্যবসার আগে আপনাকে একাধিক অভিজ্ঞ ড্রাইভিং প্রশিক্ষক খুঁজতে হবে। প্রতিটা ড্রাইভিং প্রশিক্ষকের যেন উপযুক্ত ড্রাইভিং লাইসেন্স থাকে তা দেখতে হবে। এরপরের প্রতিটা ড্রাইভিং প্রশিক্ষকের একবার ড্রাইভিং শেখানোর পদ্ধতি এবং ড্রাইভিং দেখে নিয়ে আপনি নিযুক্ত করতে পারেন। মনে রাখবেন আপনার ব্যবসা ততটাই বেশি জনপ্রিয়তা লাভ করবে যতটা ভালোভাবে আপনি শেখাতে পারবেন প্রতিটা মানুষকে। ভালো করে মানুষকে শেখানোর জন্যেও উপযুক্ত প্রশিক্ষকের প্রয়োজন পড়ে। তাই ড্রাইভিং স্কুল ব্যবসা খোলার আগে অবশ্যই আপনাকে উপযুক্ত ড্রাইভিং প্রশিক্ষকদের প্রয়োজন পড়বে।

আরো পড়ুন- অটোমোবাইল পার্টস এর ব্যবসা

ড্রাইভিং স্কুল ব্যবসার অফিস কোথায় করবেন?

ড্রাইভিং স্কুল ব্যবসা শুরু করতে হলে অবশ্যই আপনাকে একটি উপযুক্ত জায়গা নির্বাচন করতে হবে এবং সেখানে একটি অফিস তৈরি করতে হবে। এর জন্য শহর না শহরাঞ্চলের যে কোন বড় বাজার এলাকা বা মোড়ের রাস্তার ধারে একটি অফিস বানাতে পারেন। অফিসের উপরে ভালো করে সাইনবোর্ড লাগাতে হবে যা দেখে কাস্টমার বা পথ চলতি মানুষ বুঝতে পারে এটা ড্রাইভিং স্কুল অফিস। ডাইভিং স্কুল অফিস তৈরি করার জন্য আপনার নির্বাচিত এলাকায় দোকান ঘর ভাড়া নিয়ে অফিস বানাতে পারেন। অফিসের আয়তন যেন বড় হয় তার দিকে আপনাকে খেয়াল দিতে হবে। কারণ এই অফিসেই আপনি প্রতিটা শিক্ষার্থীকে ড্রাইভিং সম্পর্কিত তথ্য প্রদান করবেন। আপনি চাইলে ড্রাইভিং স্কুল অফিস এক জায়গায় এবং ক্লাসরুম হিসেবে আরেকটি রুম অন্য জায়গায় তৈরি করতে পারেন।

driving school
ড্রাইভিং স্কুল

ড্রাইভিং ট্রেনিং সেন্টার করতে কি কি লাইসেন্সের প্রয়োজন?(What license is required to run a driving training center?)

ড্রাইভিং ট্রেনিং সেন্টার তৈরি করতে হলে অবশ্যই আপনাকে সরকারের কাছ থেকে একাধিক লাইসেন্স নিতে হবে। প্রথমত ব্যবসা শুরুর আগে যেমন ট্রেড লাইসেন্স নিতে হবে তেমন কর্পোরেট মন্ত্রণালয় থেকে অনুমোদন পত্র নিতে হবে। এক কথায় বলতে গেলে যে লাইসেন্স এবং অনুমোদনপত্রের প্রয়োজন তা হল-

  • ট্রেড লাইসেন্স
  • জি এস টি নাম্বার
  • কর্পোরেট মন্ত্রণালয় অনুমোদন পত্র
  • আঞ্চলিক পরিবহন অনুমোদন পত্র
  • ড্রাইভিং স্কুল তৈরি করার অনুমোদন পত্র
  • নাগরিকত্বের প্রমাণপত্র
  • কারেন্ট ব্যাংক একাউন্ট নাম্বার
  • প্রতিটি গাড়ির প্রশিক্ষকের লাইসেন্স

ড্রাইভিং ট্রেনিং সেন্টারে অফার দিন

আপনি যখন ড্রাইভিং স্কুল ব্যবসা শুরু করবেন তখন আপনাকে একাধিক অফার দিয়ে কাস্টমারকে আপনার ব্যবসায়ের প্রতি আকৃষ্ট করতে হবে। কারণ বর্তমান সময়ে একাধিক ড্রাইভিং ট্রেনিং সেন্টার গড়ে ওঠার কারণে আপনার ব্যবসা উন্নতি করতে হলে বিভিন্ন অফার বা ছার দিয়ে কাস্টমারকে আকৃষ্ট করতে হবে। তাই ব্যবসা শুরুর দিকে আপনি গ্রাহকের দৃষ্টি আকর্ষণ করার জন্য এক সপ্তার ডেমো ক্লাস চালু করতে পারেন। আবার কেউ যদি সম্পূর্ণ টাকা একসাথে দেয় তাহলে 1 মাসের ছাড় দিতে পারেন। আবার কেউ recommendation করে নতুন গ্রাহক আনলে তাদের কিছু টাকা ছাড় দিতে পারেন। এইভাবে আরো বিভিন্ন নিত্যনতুন অফার ও ছাড় দিয়ে কাস্টমারকে আপনার ব্যবসার প্রতি আকৃষ্ট ও ধরে রাখতে হবে।

ড্রাইভিং স্কুল ব্যবসার সঠিক বাজেট তৈরি করুন

ড্রাইভিং স্কুল ব্যবসা শুরু করতে গেলে অবশ্যই আপনাকে সঠিক বাজেট তৈরি করতে হবে। কারণ এই ব্যবসায় একাধিক ভাবে আপনার টাকা খরচ হবে ব্যবসার শুরুতেই। তাই ব্যবসা করার আগে আপনাকে ভেবেচিন্তে এই গুরুত্বপূর্ণ জিনিস গুলির জন্য টাকা গচ্ছিত করতে হবে।

  • ড্রাইভিং শেখানোর জন্য গাড়ি কেনা বা ভাড়া নেওয়ার খরচ
  • অফিসার তৈরি করা বা ভাড়া করার খরচ
  • গাড়ির প্রশিক্ষকের মাইনে
  • গাড়ি রক্ষণাবেক্ষণের খরচ
  • ব্যবসার জন্য বিজ্ঞাপনের খরচ
  • ব্যবসার লাইসেন্স ও অনুমোদনপত্রের জন্য খরচ

ড্রাইভিং ট্রেনিং স্কুল ব্যবসার পরিকল্পনা

ড্রাইভিং ট্রেনিং স্কুল ব্যবসা করতে গেলে আগে থেকে আপনাকে বিভিন্ন পরিকল্পনা তৈরি করে ব্যবসায় নামতে হবে। যেমন আপনি গ্রাহককে কিভাবে পরিষেবা দিতে চাইছেন। সপ্তায় মাসে কটা করে ক্লাস করাবেন। প্র্যাকটিক্যাল ও থিওরি ক্লাস সপ্তাহে কদিন থাকবে। শেখানোর মেয়াদের মধ্যে যদি কোন গ্রাহকনা শেখেন তাহলে তাদের জন্য কতদিন এক্সট্রা শেখানো হবে। ট্রায়াল ক্লাস কত দিন দেবেন। এইরকম বিভিন্ন পরিকল্পনা আগে তৈরি করে তবেই আপনাকে ব্যবসা শুরু করতে হবে। এছাড়াও আপনার ব্যবসার অপারেটিং প্ল্যান, মার্কেটিং স্ট্যাটাজি, এবং ম্যানেজমেন্ট কেমন হবে তা সম্পর্কেও আপনার একটি পূর্ব পরিকল্পনার প্রয়োজন রয়েছে।

অবশ্যই পড়ুন- LED লাইটের ব্যবসা করে কিভাবে হবেন সফল ব্যবসায়ী

ড্রাইভিং প্রশিক্ষণ সেন্টারের প্রচার কিভাবে করবেন?

ড্রাইভিং প্রশিক্ষণ সেন্টার এর প্রচার আপনি যত ভালোভাবে করতে পারবেন তত বেশি পরিমাণে আপনার কাস্টমার বাড়বে। আর আপনার গ্রাহকের সংখ্যা যত পারবে তত বেশি পরিমাণে টাকা আপনি উপার্জন করতে পারবেন। তাই সব সময় প্রচারের উপরে আপনাকে বেশি গুরুত্ব দিতে হবে। ড্রাইভিং স্কুল ব্যবসা করার জন্য আপনি যে পদ্ধতিতে প্রচার এবং মার্কেটিং করতে পারেন তা হল-

  • নিজস্ব ওয়েবসাইট তৈরি করুন এবং ড্রাইভিং ট্রেনিং সংক্রান্ত পোস্ট ও ছবি প্রতিদিন পোস্ট করতে থাকুন। কিছুদিনের মধ্যে যখন আপনার ওয়েবসাইট জনপ্রিয়তা লাভ করবে তখন ধীরে ধীরে অনেক কাস্টমার আপনি পেয়ে যাবেন।
  • Google, facebook, instagram এ আপনি বিজ্ঞাপন দিতে পারেন যে এলাকাতে ব্যবসা করতে চাইছেন সেই এলাকার মধ্যে। বর্তমান সময়ে মানুষ যেহেতু ইন্টারনেটের ওপরে বেশি নির্ভরশীল এবং বেশি সময় কাটাই তাই আপনি গুগল ফেসবুক এবং ইনস্টাগ্রাম কে ব্যবহার করে বিজ্ঞাপন দিতে পারেন।
  • ফেসবুক এবং ইনস্টাগ্রাম ও ইউটিউবে পেজ ও চ্যানেল তৈরি করে প্রতিদিন নিত্যনতুন ড্রাইভিং সংক্রান্ত ছবি ভিডিও আপলোড করতে পারেন। আপনার ফেসবুক পেজ এবং ইউটিউব চ্যানেল যত দিন যাবে তত মানুষের কাছে জনপ্রিয় হয়ে উঠবে এবং এই সকল সোশ্যাল মিডিয়া সাইটগুলি থেকে আপনি প্রচুর পরিমাণে গ্রাহক পেয়ে যাবেন আপনার ব্যবসার জন্য।
  • যে এলাকাতে আপনি ব্যবসা করতে চলেছেন সেই এলাকার আশেপাশে আপনি পোস্টার ছাপিয়ে পোস্টারিং করতে পারেন।
  • স্কুল-কলেজ এবং বিভিন্ন অফিসের সামনে বড় ফ্লেক্স ছাপিয়ে বিজ্ঞাপন দিতে পারেন।
  • রাস্তার বিভিন্ন জনবহুল মোড় গুলিতে ফ্লেক ছাপিয়ে বিজ্ঞাপন দিতে পারেন এবং এলাকায় এলাকায় মাইকিং করে প্রচার করতে পারেন।

ড্রাইভিং স্কুল ব্যবসার লাভ কত?

আপনি যখন ড্রাইভিং স্কুল ব্যবসা শুরু করবেন তখন আপনি নিজেই বুঝতে পারবেন এই ব্যবসা থেকে প্রচুর টাকা ইনকাম করা সম্ভব। বিভিন্ন গাড়ি চালানোর ট্রেনিং এর জন্য আপনি প্রতি কাস্টমারকে আলাদা আলাদা নির্দিষ্ট পরিমাণের ফি বাবদ টাকা নিতে পারেন। বর্তমানে গাড়ি চালানোর প্রশিক্ষণের জন্য 10 হাজার টাকা থেকে 25 হাজার টাকা পর্যন্ত ফ্রি নিয়ে থাকে কলকাতার ড্রাইভিং স্কুলগুলি। তাহলে ভেবে দেখুন একজন কাস্টমারের কাছ থেকে যদি 10 হাজার টাকা আপনি নিয়ে থাকেন তাহলে প্রতি মাসে আপনি এই ব্যবসা করে কত টাকা ইনকাম করতে পারবেন। কলকাতার বড় ড্রাইভিং স্কুলগুলি প্রতিমাসে 1 লক্ষ টাকার বেশি ইনকাম করেন ড্রাইভিং ট্রেনিং ব্যবসা করে। আপনার ব্যবসার শুরুতে এত টাকা না হলেও আপনি নিঃসন্দেহে 50 থেকে 70 হাজার টাকা প্রতি মাসে ইনকাম করতে পারবেন।

জিজ্ঞাসিত প্রশ্ন ও FAQ

ড্রাইভিং ট্রেনিং সেন্টার করতে কত টাকা লাগে?

উত্তর: 5 লাখ থেকে 15 লাখ টাকা বিনিয়োগ করতে হবে ড্রাইভিং ট্রেনিং সেন্টার করতে।

কোথায় ড্রাইভিং ট্রেনিং স্কুল করা যায়?

উত্তর: যেকোনো শহর ও শহরাঞ্চলে ড্রাইভিং ট্রেনিং স্কুল করা যায়।

ড্রাইভিং ট্রেনিং অফিস করতে কত বড় জায়গার প্রয়োজন?

উত্তর: 10/10 ফুটের রুম কিংবা আরো বড় রুমে আপনি অফিস তৈরি করতে পারেন।

বিনামূল্যে ড্রাইভিং প্রশিক্ষণ কোথায় শেখানো হয়?

উত্তর: বাংলাদেশ SELP প্রকল্পের অধীনে বিনামূল্যে ড্রাইভিং প্রশিক্ষণ শেখানো হয়।

ড্রাইভিং স্কুল ব্যবসার ভবিষ্যৎ কেমন?

উত্তর: ড্রাইভিং স্কুল ব্যবসার ভবিষ্যৎ অনেক উজ্জ্বল। কারণ বর্তমানে মানুষের গাড়ি কেনার প্রবণতা বাড়ছে এবং গাড়ি চালানোর প্রবণতা বাড়ছে।

ড্রাইভিং প্রশিক্ষণ ব্যবসায় লাভ কত?

উত্তর: 50 হাজার টাকা থেকে 1 লক্ষ টাকার বেশি প্রতি মাসে লাভ থাকে।

নতুন নতুন ব্যবসার আইডিয়া দেখুন-

গরুর খামারের ব্যবসা শুরু করে 10 লাখ টাকা আয়

ব্যবসা করে প্রতি দিন ইনকাম করুন 50000 টাকা

Leave a Comment