টিস্যু পেপার তৈরির ব্যবসা | Tissue paper making business,No 1 success plane

বর্তমান সময়ের কিছু লাভজনক ব্যবসার মধ্যে টিস্যু পেপার তৈরির ব্যবসা ব্যবসা অন্যতম। কারণ যেভাবে টিস্যু পেপারের ব্যবহার মানুষের মধ্য ব্যাপকভাবে দেখা যাচ্ছে তাতে শুধু বর্তমান নয় ভবিষ্যতের জন্য টিস্যু পেপার তৈরির ব্যবসা অনেক লাভজনক একটি ব্যবসায় পরিণত হবে। যে কোন অনুষ্ঠান বাড়ি থেকে শুরু করে সাধারণ পরিবার হাত মুখ মোছার জন্য অনেকেই টিস্যু পেপার ব্যবহার করছে। এছাড়াও টিস্যু পেপার অনেক কাজে ব্যবহৃত হয়।

প্রতিটা হোটেল-রেস্টুরেন্ট, অফিস, হাসপাতাল আর অনুষ্ঠান বাড়ি টিস্যু পেপার ব্যবহার বেশি পরিমাণে হয়। সেইসব কারণ মাথায় রেখে আপনি যদি টিস্যু পেপার তৈরির ব্যবসা এখনই শুরু করেন তাহলে অবশ্যই আপনার ব্যবসা সফল হবে এবং আপনি একজন সাকসেসফুল বিজনেসম্যান হতে পারবেন। চলুন দেখে নেওয়া যাক কিভাবে টিস্যু পেপার তৈরির ব্যবসা করা যাবে এবং ব্যবসা করতে হলে প্রয়োজনীয় কিছু সতর্কতা

Tissue paper making business
টিস্যু পেপার তৈরির ব্যবসা

Table of Contents

টিস্যু পেপার তৈরির ব্যবসা করতে কত টাকা লাগে?(How Much Money Does a Tissue Paper Business Make?)

টিস্যু পেপার তৈরির ব্যবসা করার জন্য অবশ্যই আপনাকে একটু বেশি পরিমাণে টাকা বিনিয়োগ করতে হবে। কারণ টিস্যু পেপার তৈরি করার জন্য প্রয়োজনীয় কাঁচামাল এবং মেশিনের দাম বর্তমান ক্ষেত্রে যা রয়েছে সেই অনুযায়ী একটু বেশি টাকা খরচ না করলে আপনি এই ব্যবসা সফল ভাবে করতে পারবেন না। তাই টিসু পেপার তৈরির ব্যবসা করতে হলে আপনাকে 5 থেকে 6 লক্ষ টাকা বিনিয়োগ করতে হবে। তবে ব্যবসার শুরুতেই আপনার এই টাকা বিনিয়োগ করতে হবে। টিস্যু পেপার ব্যবসার পরবর্তীকালে প্রতিমাসে আপনার কাঁচামাল বাবদ অল্প টাকা বিনিয়োগ করেই করা যায়। তবে এই ব্যবসাটি যদি আপনি অনেক বড় আকারের করতে চান তাহলে অবশ্যই আপনার 10 থেকে 15 লক্ষ টাকা খরচ হবে।

টিস্যু পেপার তৈরির জন্য প্রয়োজনীয় কাঁচামাল কি কি?

টিস্যু পেপার তৈরির ব্যবসা করতে হলে অবশ্যই আপনাকে প্রয়োজনীয় কাঁচামাল হিসেবে টিস্যু পেপার কিনতে হবে। টিস্যু পেপারের বড় বড় রোল কিনতে পাওয়া যায় আপনাকে এই ধরনের বড় রোল কিনে তবেই ব্যবসা করতে হবে। এছাড়া টিস্যু পেপারের রোল বাদ দিলে প্লাস্টিক প্যাকেট ও আপনার কোম্পানির ব্র্যান্ডের স্টিকার দরকার পড়বে। এক কথায় বলা যায়-

  • টিস্যু পেপার রোল
  • প্লাস্টিক প্যাকেট
  • কোম্পানির নামের স্টিকার

টিস্যু পেপার তৈরির কাঁচামাল কোথায় কিনতে পাওয়া যায়?

টিস্যু পেপার তৈরি করার জন্য প্রয়োজনীয় সকল কাঁচামাল আপনি চাইলে আপনার নিকটবর্তী যেকোনো বড় হোলসেল মার্কেট থেকে কিনতে পারেন। যেমন কলকাতার বড় বাজার পাইকারি মার্কেট থেকে আপনি টিস্যু পেপার তৈরি সকল কাঁচামাল কিনতে পারেন। আবার বাংলাদেশের ঢাকার চকবাজার পাইকারি মার্কেট থেকে আপনি সকল কাঁচামাল কিনতে পারেন। এছাড়াও বর্তমানে যে সকল ব্যবসায়ী টিস্যু পেপার রোল তৈরি করেন এবং বিক্রি করেন তাদের যোগাযোগ নাম্বার দেওয়া হল-

●Business Bangla Corporation, Shop no.- 182, 197, Sundarban Square Super Market, 4th Floor, Gulistan, 163, Nawabpur Road, Dhaka- 1000 Bangladesh Contact: +8801879976968, +8801865125940

● Petal Soft Premium Tissues, Tirupati Complex Court More, Asansol, Radhanagar, Asansol-713304

Tissue paper making machine
টিস্যু পেপার তৈরির মেশিন

টিস্যু পেপার তৈরির মেশিন গুলি কি কি?(What are tissue paper making machines?)

টিস্যু পেপার তৈরির ব্যবসা করতে হলে অবশ্যই আপনাকে টিস্যু পেপার বানানোর জন্য মেশিন কিনতে হবে। টিস্যু পেপার তৈরির মেশিন অটোমেটিক হয়ে থাকে। এই অটোমেটিক মেশিন শুধুমাত্র টিস্যু পেপার রোল দিলেই টিস্যু পেপার বের হতে থাকে। এই ব্যবসায় প্রয়োজনীয় মেশিন গুলি হল-

  • টিস্যু পেপার মেকিং মেশিন
  • প্যাকেট সিলিং মেশিন।

টিস্যু পেপার তৈরির মেশিন কোথায় কিনতে পাওয়া যায়? (Where can I buy a tissue paper making machine?)

টিসু পেপার তৈরির মেশিন আপনি আপনার শহরের যেকোনো ম্যানুফ্যাকচারার কোম্পানি থেকে পেয়ে যাবেন। এছাড়াও আপনি চাইলে অনলাইনে ইন্ডিয়ামার্ট ওয়েবসাইট থেকে সকল প্রকার মেশিন অত্যন্ত কম দামে কিনতে পারবেন। আর যে সকল ম্যানুফ্যাকচারার কোম্পানি টিস্যু পেপার তৈরি করার মেশিন তৈরি করেন সেই সব কোম্পানির যোগাযোগ নাম্বার দেওয়া হল-

● Startup Industries Abantika Apartment, Jhowtala Road, Baguiati, Near Jyangara Shanti Kali Mandir, Kolkata– 700059

● Rinisa Corporation, 24/63, Nabalia Para Road, Barisha, Kolkata– 700008 Contact: +91

● Think India Industries, 1/1, Duke Road, Ashoka Engineering, Howrah– 711102 Contact: +917044704427

অবশ্যই পড়ুন- বেকারি ব্যবসা শুরু করুন

টিস্যু পেপার তৈরির মেশিনের দাম কত? (How much does a tissue paper machine cost?)

টিসু পেপার তৈরির ব্যবসা করতে হলে যেমন আপনাকে প্রয়োজনীয় মেশিন গুলি কিনতে হবে তেমন মেশিন গুলির দাম নির্ধারিত হয় কোম্পানি এবং এলাকা অনুযায়ী। আপনি যে এলাকায় থাকেন সেই এলাকা অনুযায়ী আপনার মেশিনের দাম ভিন্ন ভিন্ন হতে পারে। তবুও আইডিয়া স্বরূপ বলা যেতে পারে বর্তমানে টিস্যু পেপার তৈরির ব্যবসা করতে গেলে যে সকল মেশিনগুলো লাগছে তাদের দাম হল-

  • টিস্যু পেপার মেকিং মেশিন-2 লক্ষ থেকে 3 লক্ষ টাকা।
  • প্যাকেট সিলিং মেশিন-2 থেকে 5 হাজার টাকা।

টিস্যু পেপার তৈরির ব্যবসা করতে কত বড় জায়গার প্রয়োজন?

টিস্যু পেপার তৈরির ব্যবসা করতে হলে অবশ্যই আপনাকে একটু বড় জায়গার প্রয়োজন পড়বে। কারণ টিসু পেপার তৈরির মেশিনের দৈর্ঘ্য প্রস্থ একটু বেশি হয়ে থাকে। এক কথায় বলা যেতে পারে টিস্যু পেপার তৈরির ব্যবসাটা জায়গার পরিমাণ হবে 20/25 ফুট এর একটি ঘর। আপনি যদি আরো বড় করে টিস্যু পেপার ব্যবসা করেন তাহলে আপনার জায়গার পরিমান আরেকটু বাড়াতে হবে। মেশিন ছাড়া ও কাঁচামাল এবং তৈরি হয়ে যাওয়া প্রতিটা প্রোডাক্ট রাখার জন্য ঘরের আয়তন একটু বড় হওয়া দরকার।

কিভাবে টিস্যু পেপার তৈরি হয়? (How is tissue paper made?)

টিস্যু পেপার তৈরির ব্যবসা করতে হলে অবশ্যই আপনাকে টিস্যু পেপার তৈরি করতে শিখতে হবে। টিসু পেপার তৈরির প্রক্রিয়া খুবই সহজ হয়ে থাকে। আপনি যেখান থেকে মেশিন কিনবেন প্রতিটা মেশিন বিক্রেতা আপনাকে টিস্যু পেপার তৈরি করা শিখিয়ে দেবে। এছাড়াও প্রতিটা মেশিন বিক্রেতা মেশিন আপনার বাড়িতে বা আপনার কোম্পানিতে বসিয়ে চালিয়ে শিখিয়ে দিয়ে যাবে। তবুও দেখা যাক কিভাবে টিস্যু পেপার তৈরি হয়-

  • সবচেয়ে প্রথমে মেশিনের উপরের টিস্যু পেপারের রোলটি সুন্দর করে বসিয়ে, টিস্যু পেপারের প্রথম অংশটি মেশিনের সাথে ভাল করে হাটতে দিতে হবে।
  • রোল এর একটি অংশ মেশিনের সাথে যুক্ত করার পর মেশিন অন করলে, প্রথমে মেশিন ঘুরতে থাকবে এবং টিস্যু পেপার রোল টিস্যু গুলির উপর আপনার কোম্পানির নামের ব্র্যান্ডিং ছাপা হবে বা প্রেস করা হবে।
  • এরপর টিস্যু সুন্দর করে ভাজ হয়ে মেশিনের দ্বারা কাটা শুরু হবে।
  • টিস্যু পেপার কাটা টুকরোগুলি সমাপ্ত হয়ে গেলে প্রতিটা টিস্যু পেপার প্যাকেজিং এর জন্য রেডি হয়ে যাবে।
Tissue paper roll
টিস্যু পেপার রোল

টিস্যু পেপার প্যাকেজিং কিভাবে করা হয়?

টিস্যু পেপার তৈরীর ব্যবসায় টিস্যু পেপার গুলিকে একশটা করে আলাদা আলাদা মেশিনের সাহায্যে গুনে প্লাস্টিকের ভরতে হবে। প্রতিটা প্লাস্টিক কে আপনার কোম্পানির ব্র্যান্ডিং স্টিকার লাগাতে হবে। যাতে দোকানে বিক্রি করা বা কাস্টোমারের কাছে পৌঁছানোর পরে আপনার টিস্যু পেপারের ব্র্যান্ড নামের প্রচার ঘটে, এবং প্রত্যেকে টিস্যু পেপার পরবর্তীকালে আপনার কোম্পানির কাছ থেকেই যাতে গ্রহণ করে।

মনে রাখবেন টিস্যু পেপার এমন একটি জিনিস যা চল বৃষ্টিতে খুব সহজেই খারাপ হয়ে যায়। তাই প্লাস্টিকের ভেতরে টিস্যু পেপার পড়ার পরেই সেই প্লাস্টিক সিলিং মেশিন এর সাহায্যে খুব ভালো করে সিল করে দিতে হবে। প্যাকেজিং যত ভালো হবে এবং যত আকর্ষণীয় হবে তখনই তার দৃষ্টি আকর্ষণ করতে। তাই প্রতিটা টিস্যু পেপার ব্যবসায়ী অবশ্যই তাদের টিস্যু পেপার পড়ি সুন্দর করে প্যাকেজিং এর উপরে নজর রাখবেন।

আরো পড়ুন- হিন্দুস্থান পেট্রোলিয়াম ফ্র্যাঞ্চাইজি কিভাবে পাওয়া যায়

টিসু পেপার তৈরির ব্যবসা করতে কি কি লাইসেন্স লাগে।

টিস্যু পেপার তৈরির ব্যবসা করতে হলে অবশ্যই আপনার বেশ কিছু লাইসেন্সের প্রয়োজন পড়বে। যেমন-

  • ট্রেড লাইসেন্স
  • NOC সার্টিফিকেট
  • কারখানা তৈরির লাইসেন্স
  • টিস্যু পেপার রপ্তানির জন্য IEC লাইসেন্স
  • GST নাম্বার

প্রতিটা ব্যবসা করতে গেলে প্রতিটা ব্যবসায়ীকেই ট্রেড লাইসেন্স নিতে হয়। আর যেহেতু আপনি টিস্যু পেপারের কারখানা তৈরি করছেন তাই অবশ্যই কারখানা স্থাপন করার লাইসেন্স এর প্রয়োজন পড়বে। এছাড়া টিস্যু পেপার আপনি বিদেশে রপ্তানির জন্য IEC দপ্তর থেকে লাইসেন্স করিয়ে নেবেন। বর্তমানে প্রতিটা লাইসেন্স অনলাইনে এপ্লাই করে করা যায় এছাড়াও আপনি চাইলে প্রতিটা দপ্তরে গিয়ে আলাদা আলাদা করে লাইসেন্স বানাতে পারেন। আবার আপনার নিকটবর্তী পঞ্চায়েত অফিস, বিডিও কিংবা কর্পোরেশন অফিসে যোগাযোগ করে সকল প্রকার লাইসেন্সের জন্য আবেদন করতে পারেন।

কিভাবে টিস্যু পেপারের মার্কেটিং করা হয়?

টিস্যু পেপার তৈরির ব্যবসা করতে হলে অবশ্যই উৎপাদিত টিস্যু পেপার গুলিকে আপনাকে বাজারে বিক্রির জন্য প্রস্তুত করতে হবে এবং বাজারে বিক্রি করতে হবে। টিস্যু পেপার বিক্রি করার জন্য আপনি বেশ কয়েকটা পদ্ধতি অবলম্বন করতে পারেন-

  • গ্রামে গঞ্জের মুদিখানা দোকানে বিক্রি করতে পারেন।
  • শহরের বড় বড় পাইকারি দোকান এবং খুচরা দোকানে বিক্রি করতে পারেন।
  • হোটেল-রেস্টুরেন্টে বিক্রি করতে পারেন।
  • হসপিটাল ও স্টেশনারি দোকানে বিক্রি করতে পারেন।
  • বিউটি পার্লারের বিক্রি করতে পারেন।
  • এছাড়া টিস্যু পেপার অনলাইনে ও বিক্রি করতে পারেন।
  • বর্তমানে যেহেতু বিদেশে রপ্তানি হচ্ছে টিস্যু পেপার তাই বিদেশে অর্ডার ধরে আপনি বিদেশেও রপ্তানী করতে পারেন।

টিস্যু পেপার বিক্রির জন্য আপনি একাধিক কর্মচারী বা সেলসম্যান নিযুক্ত করতে পারেন আপনার ব্যবসাতে। এছাড়া অনলাইনে বিক্রির জন্য প্রতিটি কমার্স সাইটের একটি করে বিজনেস অ্যাকাউন্ট খোলেন টিস্যু পেপার সেখানে বিক্রি করতে পারেন। আপনি যত বেশি করে টিস্যু পেপার বিক্রি করতে পারবেন তত বেশি পরিমাণে আপনার লাভ হবে এবং টিস্যু পেপার তৈরির ব্যবসা করে আপনি সবচেয়ে বড় সফল ব্যবসায়ী হতে পারবেন।

অবশ্যই পড়ুন- গাড়ির পার্টস ব্যবসা কিভাবে করবেন?

টিস্যু পেপার তৈরির ব্যবসায় লাভ কত?(What is the profit of tissue paper making business?)

টিস্যু পেপার তৈরির ব্যবসায় লাভের পরিমাণ অনেকটা বেশি পরিমাণে হয়ে থাকে। যেমন বলা যেতে পারে একদিনে একটা মেশিন 8 ঘন্টা চললে 1500 প্যাকেট টিস্যু পেপার তৈরি করতে পারে। প্রতিটা টিস্যু পেপার প্যাকেটের দাম পাইকারি বাজারে 13 টাকা থেকে 15 টাকা দামে বিক্রি করতে পারে। আর আপনার তৈরি করতে একটা প্যাকেটে খরচ হবে 10 থেকে 11 টাকা। অর্থাৎ প্রতি প্যাকেট বিক্রি করলে আপনি কমপক্ষে লাভ করবেন 2 টাকা। অর্থাৎ আপনি প্রতিদিন 3000 টাকার মতো লাভ করতে পারছেন। আর প্রতিমাসে আপনার লাভ হবে কমপক্ষে 90 হাজার টাকার বেশি। মানে বুঝতেই পারছেন টিস্যু পেপার তৈরির ব্যবসা কতটা লাভজনক একটি ব্যবসা।


এছাড়াও আপনি যদি অনলাইনে বিক্রি করতে পারেন তাহলে লাভের পরিমাণ টা অনেক গুন বেড়ে যাবে। কারণ অনলাইনে এক প্যাকেট টিস্যু পেপারের কম করে দাম 30 থেকে 40 টাকা। অর্থাৎ আপনি যদি অনলাইনে একটাকে টিস্যু পেপার বিক্রি করেন তাহলে আপনার লাভ থাকবে 20 টাকা। আর শুধুমাত্র অনলাইনেই যদি আপনি সকল টিস্যু পেপার বিক্রি করেন তাহলে প্রতি মাসে আপনি 4-5 লক্ষ টাকা ইনকাম করবেন।

টিসু পেপার তৈরির ব্যবসায় কি কি সমস্যা আসতে পারে?

টিস্যু পেপার তৈরির ব্যবসা করতে গেলে আপনাকে বেশ কিছু সমস্যার সম্মুখীন হতে হবে। প্রতিটা ব্যবসায়ীকেই ব্যবসা করতে গেলে কম বেশি সমস্যার সম্মুখীন হতে হয়। আপনি যেহেতু প্রথম নতুন নতুন ব্যবসা শুরু করছেন তাই বাকি অন্য সফল ব্যবসায়ীরা আপনাকে প্রতিহত করার চেষ্টা করবে।
বাজারে বিক্রি হওয়া বাকি টিস্যু পেপার গুলির তুলনায় আপনার তৈরী টিস্যু পেপার গুলির কোয়ালিটি এবং কোয়ান্টিটি খারাপ যেন না হয়।
এ ছাড়াও বাজারে যেহেতু বর্তমানে অনেক কোম্পানি রয়েছে তাই নতুন ব্যবসা করতে গেলে আপনাকে বিভিন্ন নিত্যনতুন স্ট্যাটেজি অবলম্বন করতে হবে। ব্যবসায় শুরুতে লাভ কম রেখে বেশি বেশি করে সেল করার চেষ্টা করুন। এছাড়া প্রতিদিনের তৈরি টিস্যু পেপার প্রতিদিনই বাজারে বিক্রি করার মতো ব্যবস্থা গ্রহণ করুন।

জিজ্ঞাসিত প্রশ্ন

টিস্যু পেপার রোল কোথায় পাওয়া যায়?

উত্তর: যেখান থেকে আপনি টিসু পেপার তৈরির মেশিন কিনবেন সেখানেই আপনি পেতে পারেন। এছাড়াও আরও বড় বড় কিছু ম্যানুফ্যাকচারার কোম্পানি রয়েছে যারা শুধুমাত্র পেপার মেনুফেকচার করে থাকে, তাদের কাছ থেকে আপনি টিস্যু পেপার অল্প দামে কিনতে পারেন।

টিস্যু পেপার কি?

উত্তর: টিস্যু পেপার হল এমন এক ধরনের পেপার যা ওজন অনেক হালকা এবং হালকা ক্রেপ পেপারও অনেকে বলে। কাগজ রিসাইকেলিং করার পর যে ক্ষুদ্রাতিক্ষুদ্র পাল্প পাওয়া যায় তা থেকে টিস্যু পেপার তৈরি করা হয়।

টিস্যু পেপার তৈরির মেশিনের দাম কত?

উত্তর: টিসু পেপার তৈরির মেশিনের দাম 3 লক্ষ টাকা থেকে 5 লক্ষ টাকা পর্যন্ত হয়ে থাকে এই মেশিনগুলো মূলত অটোমেটিক হয়। এছাড়াও দামের তারতম্য দেখা যেতে পারে এলাকাও কোম্পানির ওপর।

টিস্যু পেপার এর আবিষ্কর্তা কে?

উত্তর: টিস্যু পেপার এর আবিষ্কর্তা জোসেফ গাইয়েটি (Joseph Guyetti) 1857 সালে তৈরি করেন।

টয়লেট টিস্যু তৈরির ম্যানুয়াল মেশিন এর দাম কত?

উত্তর: টয়লেট টিস্যু তৈরির ম্যানুয়াল মেশিন এর দাম 1 লক্ষ থেকে 1.5 লক্ষ টাকার মধ্যে।

টয়লেট টিস্যুর দাম কত?

উত্তর: টয়লেট টিস্যু দাম 20 টাকা থেকে 30 টাকা হয়ে থেকে। বর্তমান ভালো ফ্রেশ টিস্যু প্যাকেটের দাম 60 টাকা থেকে 70 টাকা।

টিস্যুর পাইকারি বাজার কোথায়?

উত্তর: কলকাতার বড়বাজার এবং বাংলাদেশের ঢাকার চকবাজার পাইকারি মার্কেট

নতুন নতুন ব্যবসার আইডিয়া দেখুন-

কিভাবে গার্মেন্টস বায়িং হাউসের ব্যবসা করা যায়?

ব্যবসা শুরু করার সহজ 12 টি উপায়

Leave a Comment