ফুল ঝাড়ু তৈরির ব্যবসা | Successfully make a broom making business, No 1 success plane

বর্তমানে প্রতিটি বাড়িতেই ঝাড়ুর ব্যবহার রয়েছে। তাই আপনি যদি ফুল ঝাড়ু তৈরির ব্যবসা শুরু করেন একজন সফল ব্যবসায়ী হয়ে উঠতে পারবেন। ধনী কিংবা গরিব পরিবারে ঘর পরিষ্কার করা থেকে শুরু করে যেকোনো জিনিস পরিষ্কারের জন্য ঝাড়ুর ব্যবহার বহু প্রাচীন সময় থেকে হয়ে আসছে। যদিও বহু পূর্বে ঝাড়ু মূলত ব্যবহার করত পাহাড়ি একদল সম্প্রদায় এবং গ্রামের কিছু মানুষ। কিন্তু বর্তমানে ব্যবসার ক্ষেত্রে ঝাড়ু শুধু শহরে নয় দেশ বিদেশেও রপ্তানি হচ্ছে। সেই কারণে বর্তমানে ঝাড়ু তৈরীর ব্যবসা করে সফল হচ্ছেন গ্রামীন কিছু ব্যবসায়ী। আপনিও যদি ঝাড়ু তৈরির ব্যবসা শুরু করতে চান তাহলে অবশ্যই আজ এই পোস্ট দেখবেন মনোযোগ সহকারে।

The business of making flower brooms
ফুল ঝাড়ু তৈরির ব্যবসা

Table of Contents

ঝাড়ু তৈরীর ব্যবসা করতে কত টাকা লাগে? (How much does it cost to run a broom making business?)

আপনি যদি অল্প পুঁজিতে ব্যবসা করবেন ভাবেন তাহলে আপনার জন্য আদর্শ ঝাড়ু তৈরির ব্যবসা। কারণ ছাড়া তৈরির ব্যবসা করতে খুব অল্প পরিমাণ পুঁজি খরচ হয়। বর্তমানে আপনার কাছে যে পরিমাণ অর্থ রয়েছে সেই অর্থ দিয়ে আপনি ছোট করে ঝাড়ু তৈরির ব্যবসা শুরু করতে পারেন। তবে সাধারণত ঝাড়ু তৈরির ব্যবসা শুরু করতে বিনিয়োগ করতে হয় 15 হাজার টাকার মতো। 15000 টাকার কম হলেও আপনি ঝাড়ু তৈরির ব্যবসা করতে পারবেন। আবার আপনার ব্যবসা যদি বড় করে করতে চান তাহলে আরেকটু বেশি পুঁজি নিয়ে ঝাড়ু তৈরীর ব্যবসায় লাগতে পারেন।

ঝাড়ু তৈরির জন্য কি কি কাঁচামাল লাগে?

ঝাড়ু তৈরি ব্যবসার জন্য কাঁচামাল গুলিতে প্রথমেই যেটি লাগে সেটি হল-

  • ফুল ঝাড়ু গাছের ফুল
  • সরু লোহার তার
  • প্লাস্টিকের লম্বা হাতল
  • প্যাকেজিং এর জন্য প্লাস্টিক

ঝাড়ু তৈরীর ফুল কোথায় পাওয়া যায়?

সাধারণত ঝাড়ু তৈরি ফুল জন্মায় পাহাড়ি অঞ্চলে। পাহাড়ি অঞ্চলের মানুষেরা এই ফুলকে বিভিন্ন নামে ডাকে, তবে বেশি প্রচলিত উল ফুল নামে। বাংলাদেশ মাঝেরপাড়া, ডালুপাড়া, রেইছা, বাগমারাসহ আরো কিছু অঞ্চলে উল ফুল জন্মায়। এইসব অঞ্চলের বিভিন্ন আদিবাসী মহিলারা ফুল সংগ্রহ করে বাংলাদেশের বাজারে বাজারে বিক্রি করে।
পশ্চিমবঙ্গের পুরুলিয়া অঞ্চলে বেশি করে ঝাড়ু ফুল জন্মায়। এছাড়াও ভারতের বিভিন্ন পার্বত্য অঞ্চলে ছাড়ো ফুলের গুলো দেখা যায়। প্রতিটি পার্বত্য অঞ্চলের নারীরা প্রতিদিন ঝাড়ু ফুলগুলিকে আঁটি বেঁধে বাজারে বিক্রি করে। প্রতিদিন 50 টা থেকে 60 টা ঝাড়ু তৈরি মত ফুল বাজারে বিক্রি করেন প্রতিটা নারী। আর এইসব তথ্য যদি আপনি না জানেন তাহলে ঝাড়ু তৈরির ব্যবসা করতে আপনার অনেক সমস্যা হতে পারে।

ঝাড়ু তৈরীর কাঁচামাল কোথায় কিনতে পাওয়া যায়?

ঝাড়ু তৈরির ব্যবসা করতে হলে সকল প্রকার কাঁচামাল আপনাকে অল্প দামে কিনতে হবে। ঝাড়ু তৈরি সমস্ত কাঁচামাল আপনি চাইলে আপনার নিকটবর্তী যেকোনো বড় বাজার থেকে আপনি কিনতে পারেন। তবে সাধারণত বড় কোনো হোলসেল মার্কেট যেমন কলকাতা বড়বাজার হোলসেল মার্কেট থেকে সমস্ত প্রকার কাঁচামাল খুবই কম দামে আপনি কিনতে পারবেন, তেমনি বাংলাদেশের ঢাকার কাছে অবস্থিত চকবাজার পাইকারি মার্কেট থেকেও সমস্ত প্রকার কাঁচামাল স্বল্পমূল্যে কিনতে পারবেন।

ঝাড়ু তৈরীর জন্য কি কি মেশিন লাগে?

ঝাড়ু তৈরির ব্যবসা শুরু করতে হলে খুব বেশি মেশিনের কোন প্রয়োজন পড়ে না। তবুও ছোট ছোট যে সকল যন্ত্রপাতি লাগে সেগুলো হলো।

  • ছোট কাটার
  • ছোট করাত
  • তার কাটার

ঝাড়ু তৈরীর মেশিন কোথায় কিনতে পাওয়া যায়?

ঝাড়ু তৈরির ব্যবসা বড় কোন মেশিনের যেহেতু দরকার পড়ে না ছোট ছোট যন্ত্রাংশ দরকার পড়ে, আর এই সকল জিনিষগুলি আপনি আপনার এলাকার যেকোনো হার্ডওয়ার্স এর দোকান থেকে কিনতে পারবেন।
আপনি ছোট করে ঝাড়ু তৈরীর ব্যবসা করেন কিংবা বড় করে ঝাড়ু তৈরির ব্যবসা করেন যেভাবেই করুন না কেন আপনার বড় কোন মেশিন এর কোন প্রয়োজন পড়বে না। এই কারণে ঝাড়ু তৈরির ব্যবসা এত অল্প পুঁজি বিনিয়োগ করেই করা যায়।

অবশ্যই পড়ুন- বোতল ক্লিনিং ব্রাশ তৈরির ব্যবসা

ফুল ঝাড়ু তৈরির ব্যবসা করতে কত বড় জায়গার প্রয়োজন?

ফুলঝাড়ু তৈরির ব্যবসা করতে হলে খুব বেশী বড় জায়গার আপনার প্রয়োজন পড়বে না। আপনি চাইলে আপনার ঘরের বারান্দাতে বসেই আপনি এই ব্যবসা করতে পারেন। আবার ঝাড়ু তৈরির ব্যবসা করতে হলে আপনি চাইলে একটি 10/10 এর ঘর নিয়ে এই ব্যবসাটি আরামসে করতে পারবেন।

ফুল ঝাড়ু তৈরির ব্যবসা
ঝাড়ু ফুল

ফুল ঝাড়ু তৈরির ব্যবসা কেমন জায়গায় করা উচিত?

ফুল ঝাড়ু তৈরির ব্যবসা আপনি যেকোন জায়গা থেকে করতে পারেন। আপনার বাড়ি গ্রামে হোক কিংবা শহরে যেখানেই থাকুক না কেন আপনি আপনার বাড়িতেই ফুল ঝাড়ু তৈরি করে শহরের দোকানে দোকানে বিক্রি করতে পারেন। ফলে যে স্থানে আপনি ব্যবসা করুন না কেন সেই স্থান থেকে ঝাড়ু নিয়ে যাওয়া নিয়ে আসার জন্য যাতায়াত ব্যবস্থা যেন উন্নত থাক এইটা অবশ্যই আপনি মাথায় রাখবেন। যাতে করে কোনো বড় ডিস্ট্রিবিউটার বা কোনো বড় ব্যবসায়ী যদি আপনার কাছ থেকে ঝাড়ু কিনে নিতে আসে, তাহলে তারা যেন খুব স্বাচ্ছন্দে আপনার বাড়িতে অথবা আপনার কারখানাতে আসতে পারে এই দিকটা অবশ্যই নজর রাখবেন।

কিভাবে ঝাড়ু তৈরি করা হয়? (How is the broom made?)

ঝাড়ু তৈরির ব্যবসা করতে হলে আলাদা করে আপনাকে কোন ট্রেনিং নেয়ার প্রয়োজন পড়বে না। কারণ ঝাড়ু তৈরি করা খুবই সহজ সরল প্রক্রিয়া। চলুন দেখে নেওয়া যাক কিভাবে ঝাড়ু তৈরি করা হয়-

  • ঝাড়ু তৈরি করার জন্য প্রথমে ঝাড়ু ফুলের সমস্ত কাঠি গুলিকে একসাথে বান্ডিল করতে হবে।
  • প্রতিটা বান্ডিল কে সরু লোহার তার দিয়ে ভালো করে বাধতে হবে উপরের দিকটা।
  • এরপর যাতে হাতলের দিকটার লোহার তারগুলি ফুটে না যায় এবং ঝাড়ু গুলি বেরিয়ে না যায় তার জন্য প্লাস্টিকের হাতল ঝাড়ুর উপরের প্রান্তে টাইট করে লাগিয়ে দিতে।
  • সবশেষে ঝাড়ু বাধা হয়ে গেলে কোন ঝাড়ুফুল আলগা হয়ে বেরিয়ে আসছে কিনা সেটা দেখে নিলেই, ঝাড়ু প্রস্তুত হয়ে যাবে।

আরো পড়ুন- দুধের ব্যবসা করে 50 হাজার টাকা আয়

ঝাড়ু প্যাকেজিং কিভাবে করবেন

ঝাড়ু তৈরি হয়ে যাবার পর বাজারে বিক্রির জন্য অবশ্যই আপনাকে ঝড়টি প্যাকেজিং করতে হবে। এছাড়াও ঝাড়ু যাতে রোদ জল বৃষ্টি থেকে রক্ষা পায় তার জন্য ঝাড়ু কে প্লাস্টিকের একটি প্যাকেটের ভেতরে ভালো করেছি করে সিল দিতে হয়। এই প্লাস্টিকের প্যাকেট টি আপনি চাইলে ব্যবসা শুরুতে রেডিমেড প্লাস্টিক কিনে ব্যবসা করতে পারেন। তবে ঝাড়ু তৈরি ব্যবসা করে আপনার সুনাম বৃদ্ধি করতে হলে এবং আপনার ব্যবসাকে একটা ব্র্যান্ডে পরিণত করতে হলে অবশ্যই প্রতিটি ঝাড়ুর প্লাস্টিক যেন আপনার কোম্পানির নামে ছাপা হয়ে থাকে এই জিনিসটা লক্ষ্য রাখবেন। এর জন্য আপনাকে আলাদা করে প্রতিটি প্লাস্টিকে আপনার কোম্পানির নাম লোগো ছাপাতে হবে।

ঝাড়ু তৈরি ব্যবসা করতে কি কি লাইসেন্স প্রয়োজন? (What kind of license is required to run a broom making business?)

প্রতিটা ব্যবসার মতো ঝাড়ু তৈরির ব্যবসা করতে হলে আপনাকে ট্রেড লাইসেন্স সর্বপ্রথম নিতে হবে। ট্রেড লাইসেন্স মূলত নেওয়া হয় সরকারের কাছে প্রতিটা ব্যবসার ইনফরমেশন দেওয়ার জন্য। যদিও প্রথমে ব্যবসার শুরুতে আপনি চাইলে বিনা লাইসেন্সে ব্যবসা শুরু করতে পারেন। তবে পরবর্তীকালে আইনি জটিলতা থেকে মুক্ত হবার জন্য ট্রেড লাইসেন্স অবশ্যই প্রতিটা ব্যবসাতে অত্যন্ত জরুরী।
এরপর যখন আপনি আপনার ব্যবসাতে প্রতি মাসে 2 থেকে 3 লক্ষ টাকা ইনকাম করতে পারবেন তখন একটি GST নাম্বার নিয়ে নেবেন।
প্রতিটা লাইসেন্সই আপনি চাইলে বর্তমানে অনলাইনে এপ্লাই করে নিয়ে নিতে পারেন এবং প্রতিটা লাইসেন্সের জন্য খরচ হবে আপনার দুই থেকে তিন হাজার টাকা।

ঝাড়ুর মার্কেটিং কিভাবে করা হয়?

ঝাড়ু তৈরির ব্যবসা করতে হলে অবশ্যই আপনার তৈরি হওয়ার ঝাড়ু গুলিকে বাজারে বিক্রি করতে হবে। তাই ছাড়ো তৈরির ব্যবসা শুরুর পূর্বে আপনি প্রথমে মার্কেট রিসার্চ করে নিতে পারেন। মার্কেট ফ্রি সার্চ এই কারণেই করার অত্যান্ত জরুরী প্রতিটা ব্যবসায়ীকে কারণ মার্কেট রিসার্চ করলে কোথা থেকে কাঁচামাল সংগ্রহ করা হয় এবং তৈরি হয়ে যাবার পর প্রতিটি পণ্য কোথায় বিক্রি করা হয় এই সম্পর্কিত আরও অনেক তথ্য পাওয়া যায়। তবুও ঝাড়ু বিক্রি করার জন্য আপনি যে সকল পদ্ধতি অবলম্বন করতে পারেন সেগুলি হল-

  • গ্রাম কিংবা শহর প্রতিটি দোকানে দোকানে ঝাড়ু বিক্রি করতে পারবেন।
  • হার্ডওয়ার্স এর দোকান এবং বড় স্টেশনারি দোকানে বিক্রি করতে পারবেন।
  • বড় কোনো হোলসেলার কে পাইকারি দামে বিক্রি করতে পারবেন।
  • বিভিন্ন এলাকায় প্রয়োজনে ডিস্ট্রিবিউটার তৈরি করে তাদের বিক্রি করতে পারবেন।
  • বড় বড় পাইকারি মার্কেট এ ঝাড়ু তৈরি করে বিক্রি করতে পারবেন।
  • এছাড়াও বর্তমানে সবচেয়ে উপযোগী হলো অনলাইন ই কমার্স ওয়েবসাইট গুলিতে বিক্রি করা।

অনলাইনে ই-কমার্স ওয়েবসাইট গুলি যেমন অ্যামাজন, ফ্লিপকার্ট, ইন্ডিয়ামার্ট ইত্যাদি। এই ধরনের প্রতিটা ই-কমার্স ওয়েবসাইট এ একটি করে বিজনেস অ্যাকাউন্ট খুলে আপনার তৈরি করা প্রতিটি প্রোডাক্ট আপনি দাম সহ ছবি আপলোড করতে পারেন। বর্তমানে অফলাইনে বিক্রির থেকে অনলাইনে বিক্রি করে বেশি পরিমাণে লাভ করেন প্রতিটি ব্যবসায়ী। তাই আপনিও ঝাড়ু তৈরির ব্যবসা শুরু করলে সব ধরনের মার্কেটিং স্ট্র্যাটেজি আপনাকে ব্যবহার করতে হবে।

The business of making brooms
ঝাড়ু তৈরির ব্যবসা

ঝাড়ু তৈরির ব্যবসায় লাভ কত? (What is the profit of broom making business?)

ঝাড়ু তৈরীর ব্যবসায় আপনি লাভ করতে পারেন প্রতিটি প্রোডাক্ট পিছু 25% থেকে 30%। একটি ঝাড়ুর বান্ডিল কিনতে আপনার খরচ হবে 10 টাকা, সমস্ত কাঁচামাল দিয়ে ঝাড়ু তৈরি করতে আপনার খরচ হবে 15 টাকা। সেই ঝাড়ু টা আপনি বাজারে বিক্রি করতে পারেন 40-50 টাকা পাইকারি দামে। অর্থাৎ প্রতি টা ঝাড়ু বিক্রি করে আপনি কমপক্ষে লাভ করতে পারেন 20 টাকা। সারাদিনে একটি মানুষ ঝাড়ু তৈরি করতে পারে 200 টার মত। প্রতিমাসে ঝাড়ু তৈরির ব্যবসা করে আপনার কমপক্ষে 1 লক্ষ টাকা লাভ থাকবে। বুঝতেই পারছেন অল্প পুঁজিতে ব্যবসা হলেও কতটা লাভজনক ঝাড়ু তৈরির ব্যবসা।

অবশ্যই পড়ুন- বায়িং হাউজ কি?

ঝাড়ু তৈরির ব্যবসায় সমস্যা

ঝাড়ু তৈরির ব্যবসা করতে হলে হয়তো আপনাকে অনেক সমস্যার সম্মুখীন হতে হবে। যেমন বলা যায় ব্যবসার শুরুতে কোথায় থেকে কাঁচামাল সংগ্রহ করবেন এবং কোথায় বিক্রি করবেন এই সম্পর্কিত সমস্যা। এ ছাড়াও বাজারে বিক্রি হওয়া বর্তমানে ঝাড়ু গুলির থেকে আপনার তৈরি ঝাড়ুর কোয়ালিটি যেন কম না থাকে। ব্যবসায় শুরুতে অল্প লাভ রেখে অল্প দামে ঝাড়ু গুলি মার্কেটে বিক্রি করুন। এছাড়াও আরও অনেক সমস্যা হয়তো আসতে পারবে আপনি ব্যবসা করতে করতে সেইসব সমস্যাগুলিকে সমাধান করতে থাকুন। আর সাহসিকতার সাথে আধুনিক উন্নত প্রযুক্তিকে ব্যবহার করে যদি ব্যবসা করতে পারেন তবেই আপনি একজন সফল ব্যবসায়ী হতে পারবেন।

জিজ্ঞাসিত প্রশ্ন

ঝাড়ু তৈরির ব্যবসা করতে কত টাকা বিনিয়োগ করতে হয়?

উত্তর: ঝাড়ু তৈরির ব্যবসা করতে কমপক্ষে 15 হাজার টাকা লাগে।

ফুল ঝাড়ু তৈরির ব্যবসায় কত টাকা লাভ?

উত্তর: ফুলঝাড়ু তৈরির ব্যবসা এ মাসে কমপক্ষে 20 হাজার টাকা থেকে 1 লক্ষ টাকা পর্যন্ত আপনি ইনকাম করতে পারেন।

ফুল ঝাড়ু চাষ কিভাবে হয়?

উত্তর: ফুল ঝাড়ু চাষ সাধারণত জানুয়ারি মাসের শেষের দিকটায় শুরু করা হয়। ফাঁকা জাগাতে ফুল ঝাড়ু গাছের বীজ রোপন করে নিয়মিত জল জল দিয়ে তৈরি করা হয় ফুল ঝাড়ু চাষ। মূলত পাহাড়ি অঞ্চলে বর্তমানে শুরু করা হয়েছে ফুল ঝাড়ু চাষের জন্য জমি।

ফুল ঝাড়ু দাম কত?

উত্তর: বর্তমানে ফুল ঝাড়ু দাম 100 টাকা থেকে 150 টাকা পর্যন্ত।

ফুল ঝাড়ু তৈরির ব্যবসা করতে কত বড় জায়গার প্রয়োজন?

উত্তর: 10/10 ফুটের একটা ঘর হলেই আপনি ফুল ঝাড়ু তৈরির ব্যবসা করতে পারবেন

নতুন নতুন ব্যবসার আইডিয়া দেখুন-

বেকারি ব্যবসা

গ্রামে কি ব্যবসা করা যায়?

Leave a Comment