চিনির পাইকারি ব্যবসা বদলে দেবে আপনার জীবন | 1no Sugar wholesale business, Right Now

প্রতিটা পরিবারেই চিনির ব্যবহার অনেক রকম ভাবেই হয়ে থাকে। তাই জন্য চিনি বিক্রি হয় প্রতিটা দোকান থেকে প্রতিদিন ভালো পরিমানে। আপনি যদি চিনির পাইকারি ব্যবসা করবেন বলে ভাবেন তাহলে এই ব্যবসা থেকে আপনি ভালো টাকা ইনকাম করতে পারবেন। বাড়িতে বিভিন্ন ধরনের মিষ্টি খাবার প্রস্তুত করার জন্য চিনির ব্যবহার সাধারণত হলেও হোটেল, রেস্টুরেন্ট, মিষ্টির দোকানে চিনির ব্যবহার বেশি পরিমাণে হয়ে থাকে। তাই জন্য চিনির পাইকারি ব্যবসায়ী লাভের পরিমাণ অনেকটাই বেশি হয়ে থাকে।

আপনি হয়তো ভাবছেন চিনির পাইকারি ব্যবসা তো করছে মার্কেটে অনেক ব্যবসায়ী, তাহলে আপনি কি পদ্ধতিতে ব্যবসা করলে মার্কেট ধরতে পারবেন এবং সফলভাবে চিনির হোলসেলার হতে পারবেন। তাই আপনার সফলতা অর্জনের জন্য বিভিন্ন প্রকার তথ্য দিয়ে আজকের এই পোস্ট তৈরি করা হলো। আপনি যদি সম্পূর্ণ পোস্ট মনোযোগ সহকারে পড়েন তাহলে অবশ্যই আপনি চিনির সফল হোলসেলার হতে পারবেন এবং চিনির পাইকারি ব্যবসা ও বাকি অন্য ব্যবসায়ীদের থেকে ভালোভাবে করতে পারবেন।

Table of Contents

চিনির পাইকারি ব্যবসা কিভাবে করা যায়?

ভারতের বিভিন্ন অঞ্চলে একের চাষ হয় এবং সেই আখের রস থেকে চিনি প্রস্তুত হয়। বাংলাদেশেও বিস্তীর্ণ কিছু অঞ্চলে আখের চাষের পাশাপাশি চিনির মিল গড়ে উঠেছে। আপনি যদি চীনের পাইকারি ব্যবসা করতে চান তাহলে অবশ্যই আপনাকে এই সকল চীনের মিল থেকে চিনি কিনে লোকাল মার্কেটে রিটেল দোকানে পাইকারি দামে চিনির বিক্রি করতে হবে। সাধারণত চিনির ব্যবসাতে কোন লস হওয়ার সম্ভাবনা থাকে না কারণ এই ব্যবসা সারা বছর সমান ভাবেই চলতে থাকে।

ভারত কিংবা বাংলাদেশ প্রতিটা এলাকার মানুষই মিষ্টি খাবার এবং মিষ্টি খেতে ভীষণ পছন্দ করেন। তাই এই দেশেই চিনির বাজার ভীষণ বেশি পরিমাণে হতে পারে। আপনি খেয়াল করলে দেখতে পাবেন প্রতি মুদিখানা দোকানে প্রতিদিন চিনি বিক্রি হয় অনেক পরিমাণে। তাই জন্য চিনির পাইকারি ব্যবসা এতটা লাভজনক একটি ব্যবসা। এছাড়া আপনি এই ব্যবসা অনেক অল্প পুঁজি বিনিয়োগ করেই শুরু করতে পারেন।

Sugar wholesale business
চিনির হোলসেল ব্যবসা

চিনির হোলসেল ব্যবসা শুরু করতে কত টাকা লাগে?

সাধারণত আপনি যদি চিনির হোলসেল ব্যবসা ছোট করে শুরু করতে চান তাহলে অবশ্যই আপনাকে কমপক্ষে 1 লাখ টাকা বিনিয়োগ করতে হবে। কারণ আপনাকে হোলসেল ব্যবসা করতে হলে কমপক্ষে 25 থেকে 30 বস্তা চিনি কিনতে হবে। আর আপনি যদি আরো বড় করে হোলসেল ব্যবসা শুরু করতে চান তাহলে অবশ্যই আপনাকে 4 থেকে 5 লক্ষ টাকা বিনিয়োগ করতে হবে। আপনি নিজে চিনির ডিস্ট্রিবিউটর হয়ে সরাসরি ব্যবসা করতে পারেন। তবে আপনি যদি কোন কোম্পানির ডিস্ট্রিবিউটর হতে চান তাহলে অবশ্যই আপনাকে 4-5 লক্ষ টাকা পুঁজি নিয়ে ব্যবসা করতে নামতে হবে। এছাড়া আপনি যে এলাকাতে ব্যবসা করবেন সেই এলাকায় অবশ্যই আপনাকে একটি ঘর ভাড়া নিতে হবে যা গোডাউন হিসেবে আপনি ব্যবহার করবেন। এই গোডাউন ভাড়ার জন্য ও আপনাকে কিছু টাকা খরচ করতে হবে।

চিনির পাইকারি ব্যবসার শর্ত কি কি?

সাধারণত আপনি যখন চিনির পাইকারি ব্যবসা শুরু করবেন তখন আপনাকে বেশ কয়েকটি শর্ত অবলম্বন করে বা নিয়ম মেনে ব্যবসা করতে হবে। আপনার যদি এই ব্যবসা সম্পর্কে কোন রকমের তথ্য না থাকে জানা তাহলে আপনাকে অনেক সমস্যার সম্মুখীন হতে হবে। তাই চিনির হোলসেল ব্যবসা করতে হলে যে সকল শর্ত গুলি মানা প্রতিটা ব্যবসায়ীর প্রয়োজন সেগুলি হল-

চিনির গোডাউন তৈরি

চিনির হোলসেল ব্যবসা করতে হলে অবশ্যই আপনাকে চিনি এর গোডাউন তৈরি করতে হবে। চিনির গোডাউনের আয়তন কমপক্ষে 130 বর্গফুট থেকে 150 বর্গফুটের মধ্য হতেই হবে। এছাড়া গোডাউন যেন রাস্তার ধারে হয়ে থাকে। রাস্তার ধারে গোডাউন হলে গাড়ি থেকে চিনির বস্তা আনলোডিং করা এবং আবার কোন দোকানে চিনি পাঠানোর জন্য গাড়ি লোডিং করার সুবিধা হয়। এছাড়াও ব্যবসার পাবলিসিটির জন্যও চিনির গোডাউন রাস্তার ধারে হওয়া ভীষণ প্রয়োজন।

অবশ্যই পড়ুন- চানাচুর তৈরির ব্যবসা করে মাসে 1 লাখ টাকা আয়

মার্কেট রিসার্চ করুন

চিনির পাইকারি ব্যবসা করতে গেলে মার্কেট রিসার্চ করা ভীষণ প্রয়োজন। মার্কেটে রিসার্চ এর মধ্যে দিয়েই আপনি জানতে পারবেন আপনার এলাকাতে কতজন চিনির হোলসেলার রয়েছে, তারা কি দামে চিনি দোকানে বিক্রি করে, কোন দোকানে আপনি চিনি বিক্রি করলে সাথে সাথে টাকা পেয়ে যাবেন বা কোন দোকানে চিনির বিক্রি বেশি হয় এইসব তথ্য আপনি মার্কেট রিসার্চই পাবেন। এছাড়াও মার্কেট রিসার্চ করলে আপনি আরও অনেক তথ্য পাবেন যা আপনার ব্যবসা করার জন্য অনেক সুবিধা সৃষ্টি করবে। তাই আপনি যে কোন ব্যবসা করতে হলে অবশ্যই আগে মার্কেটে রিসার্চ করুন, জানুন বুঝুন তারপরেই ব্যবসা করুন। মার্কেটে রিসার্চের ক্ষেত্রে আপনাকে যে তথ্যগুলো অবশ্যই মনে রাখতে হবে এবং যেগুলির ওপরে আপনি রিচার্জ করবেন সেগুলি হল-

  • আপনার এলাকায় কতজন চিনির ডিস্ট্রিবিউটার রয়েছে।
  • যে মার্কেটে ব্যবসা করবেন সেখানে চিনির হোলসেলার কতজন।
  • প্রতিটা হোলসেলার মার্কেট এর দোকানে চিনি কি রেটে দেয়।
  • সেই সকল হোলসেলার কোথা থেকে চিনি কেনে।
  • চিনির কোয়ালিটি কেমন।
  • বাজারের কোন কোন দোকানে বেশি পরিমাণে চিনি বিক্রি হয়।
  • কোন কোন দোকানে চিনি দেওয়ার সাথে সাথে টাকা দিয়ে দেয় দোকানদার।
  • কোন মার্কেটে চিনির কেমন চাহিদা।
  • কাস্টমার কি ধরনের চিনি কিনতে পছন্দ করেন।

চিনি ডেলিভারির ব্যবস্থা করা

আপনি যখন চিনির পাইকারি ব্যবসা শুরু করবেন তখন অবশ্যই আপনাকে যেমন চিনি কিনে আনতে হবে কোম্পানি থেকে, তেমনি সেই চিনি বাজারের দোকানে বিক্রি করার জন্য আপনাকে গাড়ির ব্যবস্থা করতে হবে। তাই ব্যবসার শুরুতে আপনি ছোট হাতি জাতীয় কোন গাড়ি ভাড়া করতে পারেন যার দিয়ে আপনি কোম্পানি থেকে চিনি কিনে গোডাউনে তুলবেন। এবং আপনার গোডাউন থেকে চিনি লোকাল পাইকারি বাজার গুলিতে বিক্রি করবেন। তাই ব্যবসা শুরু করার পরে পরেই আপনাকে গাড়ির অবশ্যই ব্যবস্থা করতে হবে। আপনার ব্যবসায়ী যখন লাভ অনেক পরিমাণে হতে থাকবে তখন আপনি চাইলে নিজস্ব গাড়ি কিনে নিতে পারেন এতে আপনার অনেক সুবিধা হবে।

চিনির হোলসেল ব্যবসার জন্য কি কি রেজিস্ট্রেশন ও লাইসেন্সের প্রয়োজন?

চিনির পাইকারি ব্যবসা করার জন্য অবশ্যই আপনাকে বেশ কয়েক রকমের রেজিস্ট্রেশন নিতে হবে। এছাড়া আপনি যদি কোন কোম্পানীর কাছ থেকে ডিলারশিপ নেন তাহলেও আপনাকে রেজিস্ট্রেশন নেওয়ার জন্য সেই কোম্পানি বলবে এবং তারপরেই আপনাকে ডিলারশিপ দেবে। ভাই আপনি ব্যাবসা শুরু করার পরে পরেই সকল প্রকার লাইসেন্স রেজিস্ট্রেশন করিয়ে নেবেন। সাধারণত এই ব্যবসা করার জন্য আপনাকে যে সকল লাইসেন্স এর রেজিস্ট্রেশন করাতে হবে সেগুলি হল-

  • ট্রেড লাইসেন্স
  • শপ রেজিস্ট্রেশন
  • MSME রেজিস্ট্রেশন
  • GST নাম্বার
  • কারেন্ট ব্যাংক একাউন্ট
  • নাগরিকত্বের প্রমাণপত্র
  • দোকানের চুক্তিপত্র

সাধারণত আপনি যে এলাকাতে ব্যবসা করবেন সেই এলাকার ট্রেড লাইসেন্স আপনার প্রয়োজন পড়বে এবং এর পাশাপাশি শপ রেজিস্ট্রেশন করাতে হবে। আপনি চাইলে সকল প্রকার রেজিস্ট্রেশন অনলাইনের মধ্যে করাতে পারেন। এখন পশ্চিমবঙ্গে রেজিস্ট্রেশন এবং লাইসেন্সের জন্য সকল ব্যবসায়ী অনলাইনেই আবেদন করেন।

অল্প দামে চিনি কোথায় কিনতে পাওয়া যায়? (Where can I buy sugar at a lower price?)

চিনির পাইকারি ব্যবসা শুরু করলে অবশ্যই আপনাকে চিনি খুব অল্প দামে কিনতে হবে। কারণ বাজারে অনেক পাইকারি বিক্রেতা রয়েছে তাদের থেকে কম দামে আপনাকে চিনি কিনতে হবে। সাধারণত বর্তমানের পাইকারি বিক্রেতারা তারা কলকাতার বড়বাজার থেকে চিনি কিনে এনে লোকাল মার্কেটে বিক্রি করেন। এক্ষেত্রে আপনি একটু আলাদা রকমের জিনিস করবেন। আপনি যদি অল্প দামে সরাসরি কোম্পানি থেকে চিনি কিনতে পারেন তাহলে আপনি রিটেল দোকানে কম দামে চিনি বিক্রি করতে পারবেন। আর আপনি যদি রিটেল দোকানে অল্প দামে চিনি বিক্রি করতে পারেন তাহলেই আপনি ভাল মার্কেট ধরতে পারবেন।

তাই আপনার সুবিধার্থে অল্প দামে চিনি কেনার জন্য বিভিন্ন চিনির মিল ও বড় বড় ডিস্ট্রিবিউটারদের নাম ও ফোন নাম্বার নিচে দেওয়া হল। আপনার ব্যবসার সুবিধার্থে আপনি বিভিন্ন বিক্রেতাকে ফোন করে বা সেই সকল কোম্পানিতে গিয়ে দাম ঠিক করে চিনি কিনতে পারেন। একজন বিক্রেতাকে ফোন করে চিনি কিনবেন না যাচাই করুন বিভিন্ন কোম্পানির কাছে। যদি দেখেন আপনার এলাকার কাছাকাছি কোন চিনির মিলে অল্প দামে চিনি পাওয়া যাচ্ছে তাহলে সেখান থেকে চিনি কিনুন। যদি আপনার এলাকার থেকে অল্প দামে অন্য জায়গায় চিনি পাওয়া যায় আর সেখান থেকে আপনি যদি চিনি কিনে আনেন, তাহলে আপনার গাড়ি ভাড়া খরচ হিসেবে যে খরচ হবে তাতে আপনার খুব বেশি লাভ থাকবে না। তার থেকে আপনার এলাকার চিনির মিল থেকে চিনি কিনুন।

আরো পড়ুন- ডিসওয়াস বার তৈরির ব্যবসা

পশ্চিমবঙ্গের চিনির কম্পানি ডিস্ট্রিবিউটর

  • Gobind Sugar Mills Limited, 9/2, R.N. Mukherjee Road, Sector-1, Lalbazar, Kolkata-700001 Contact: 03322806290.
  • Shree Renuka Sugars Limited, Debhog, City Centre, Haldia, Purba Medinipur PIN- 721657 Contact: 03224251704/ 03224251729 +918509522696.
  • Balarampur Chini Mill, 234/3A, FMC Fortuna, AJC Bose Road, Shreepally, Kolkata- 700020 Contact: 03322874749.
  • Eastern Sugar and Industries Limited, 3, Pretoria Street, Chandra Kunj, Kolkata- 700071 Contact: 03322821169.
  • Shree Hanuman Sugar & Industries Limited, 12, Govt Palace E, Madhyamgram, Kolkata-700069 Contact: 03322131056.
  • Vishnu Sugar Mills Limited, 21, Chakraberia Lane, Lajpat Ray Sarani, Kolkata-700020 Contact: 03324866834.
  • Riga Sugar Company Limited, 14, Netaji Subhas Road, Murgighata, BBD Bagh, Kolkata-700001 Contact: 03322313414.
  • Rama Sugar, 67/43, Strand Road, Jorabagan, Kolkata- 700006, Contact: 03322593639
Red sugar
লাল চিনি

কিভাবে ও কোথায় চিনির মার্কেটিং করবেন?

চিনির পাইকারি ব্যবসা করতে গেলে অবশ্যই আপনাকে মার্কেটিং প্ল্যান তৈরি করতে হবে। সাধারণত আপনি যেহেতু চিনি সরাসরি মিল থেকে কিনে নিয়ে এসে আপনার লোকাল বাজার গুলিতে বিক্রি করছেন পাইকারি দামে সে ক্ষেত্রে আপনার লাভ বেশি হবে। পণ্য ব্যবসায়ীরা বড়বাজার থেকে চিনি কিনে আনে এবং পাইকারি মার্কেটে বিক্রি করে ফলে তাদের চিনির দাম হয়ে থাকে তার থেকে অল্প দামে অর্থাৎ আপনি কম লাভ রেখে প্রতিবস্তা চিনি বিক্রি করুন।

আপনাকে সর্বদা আপনার এলাকার 10 থেকে 15 কিলোমিটার এর মধ্য যতগুলো বাজার দোকান রয়েছে সব জায়গাতে আপনি চিনি সাপ্লাই করতে পারেন। তাই আপনাকে ভালোভাবে প্রতিটা মার্কেটে যেতে হবে দোকানের সাথে কথা বলতে হবে এবং বিক্রি বাড়াতে হবে। তাই আপনাকে নিজের উপর ভরসা করতে হবে এবং নিজেকে এক একটা টার্গেট দিয়ে সেই টার্গেট পূরণ করতে হবে। মার্কেটিং ভালো করার জন্য যে পদ্ধতিগুলো আপনাকে মানতে হবে সেগুলি হল-

  • অল্প দামে চিনি কিনতে হবে
  • অন্য হোলসেলার ডেট থেকে অল্প রেটে চিনি বিক্রি করতে হবে
  • প্রতিদিন নির্দিষ্ট পরিমাণের টার্গেট পূরণ করতে হবে
  • বিক্রি বাড়াতে হবে এবং বেশি বস্তা চিনি বিক্রি করতে হবে
  • আপনার এলাকার প্রতিটা মুদিখানা দোকান এবং মিষ্টি দোকানের সাথে সুন্দর ব্যবহার রাখতে হবে
  • ডেলিভারি অর্ডার অনুযায়ী অল্প সময়ের মধ্যে করতে হবে

আপনি যত বেশি পরিমাণে চিনির বস্তা বিক্রি করতে পারবেন ততো বেশি পরিমাণে আপনার লাভ থাকবে। অন্য ব্যবসায়ীদের থেকে একটু আলাদাভাবে ব্যবসা করতে হলে আপনাকে প্রতি চিনির বস্তা পিছু 60 থেকে 100 টাকা লাভ রেখে বিক্রি করে দিতে হবে। এতে আপনার বেশি পরিমাণে চিনি বিক্রি হবে, আর যত বেশি পরিমাণে বিক্রি হবে অন্যদের থেকে লাভের পরিমাণ বেড়ে যাবে। মনে রাখবেন রোটেশন পদ্ধতিতেই ব্যবসা বড় করা সম্ভব। তাই বেশি বেশি অর্ডার তুলুন এবং বেশি বেশি বিক্রি করুন।

অবশ্যই পড়ুন- খুব কম টাকা লাগিয়ে প্রতি মাসে 1 লাখ টাকা লাভ

চিনির পাইকারি ব্যবসায় লাভ কত?

চিনির পাইকারি ব্যবসা লাভজনক একটি ব্যবসা আবার অল্প পুঁজি বিনিয়োগ করেই করা যায় তাই এই ব্যবসা আপনি শুরু করতে পারেন। সাধারণত চিনির পাইকারি ব্যবসা করে আপনি 15% থেকে 20% লাভ করতে পারেন প্রতি বস্তাতে। আগার খুব সহজভাবে যদি বলা যায় আপনি প্রতি কেজি চিনিতে 5 থেকে 10 টাকা লাভ রাখতে পারেন। যদিও বর্তমানের পাইকারি ব্যবসায়ীরা প্রতি কেজি চিনিতে 10 টাকা থেকে 30 টাকা লাভ রাখেন তাই বাজারে চিনির দাম বেশি হয়।

আপনি যদি চিনির প্রতি কেজিতে অল্প লাভ রেখে বিক্রি করতে পারেন তাতে আপনার বিক্রি অনেক গুণ বেড়ে যাবে। আপনি কারখানা থেকে প্রতি কেজি চিনি 30 থেকে 40 টাকা দামে কিনতে পারবেন। বর্তমানে বাজারে 70 থেকে 80 টাকা দামে চিনি বিক্রি হয়ে থাকে। তাই আপনি যে দামে চিনি কিনবেন তার থেকে 10 টাকা বেশি লাভ রেখে আপনি চিনি বিক্রি করে দিন এবং আপনার বিক্রি বাড়ান। শুধু মনে রাখবেন যত বেশি পরিমাণে বিক্রি করতে পারবেন তত বেশি পরিমাণে লাভ হবে। একজন ছোট চিনির পাইকারি ব্যবসায়ী প্রতিমাসে 30 থেকে 50 হাজার টাকা আয় করতে পারেন সহজভাবেই।

জিজ্ঞাসিত প্রশ্ন ও F.A.Q

প্রশ্ন: চিনির হোলসেল ব্যবসা শুরু করতে কত টাকা লাগে?

উত্তর: 1 লক্ষ টাকা থেকে 1.5 লক্ষ টাকা খরচ হয় চিনির হোলসেল ব্যবসা করতে।

প্রশ্ন: চিনির গোডাউনের আয়তন কত হওয়া প্রয়োজন?

উত্তর: চিনির গোডাউনের আয়তন কমপক্ষে 130 থেকে 150 বর্গফুট লাগবে।

প্রশ্ন: বাংলাদেশের চিনির মিল কতগুলা?

উত্তর: 15 থেকে 20 টা বর্তমানে চিনির মিল রয়েছে বাংলাদেশে।

প্রশ্ন: বর্তমান চিনির দাম কত ?

উত্তর: 75-80 টাকা দামে বর্তমানে চিনি পাওয়া যাচ্ছে।

প্রশ্ন: চিনি কত রকমের ও কি কি?

উত্তর: চিনি 3 ধরনের। বড় দানাযুক্ত চিনি, মাঝারি দানাযুক্ত চিনি, ও ছোট দানাযুক্ত চিনি।

প্রশ্ন: লাল চিনির দাম কত?

উত্তর: বর্তমানে লাল চিনি প্রতি কেজিতে ৯০ টাকা থেকে ১০০ টাকা দামে বিক্রি হচ্ছে। পাইকারি মার্কেটে আপনি যদি লালচিনি কিনতে চান তাহলে অবশ্যই আপনাকে ৬০ থেকে ৭০ টাকা দামে কিনতে হবে। তাছাড়া লালচিনির পাইকারি মার্কেটে লাল চিনির চাহিদা অনেকটাই বেশি পরিমাণে রয়েছে বর্তমানে।

প্রশ্ন: চিনির ব্যবসায় লাভ কত?

উত্তর: প্রতিমাসে 30 হাজার টাকা থেকে 50 হাজার টাকা চিনির ব্যবসায় লাভ থাকে।

নতুন নতুন ব্যবসা আইডিয়া দেখুন-

বিনা পুঁজিতে মাসে আয় করুন 1 লক্ষ টাকা

১০টি অল্প পুজিতে নতুন ব্যবসার আইডিয়া

Leave a Comment