চামড়ার ব্যবসা করে সহজে লাখ টাকা ইনকাম করুন | 1 lakh per month income in Leather business, Right now

ব্যাগ, জুতো, বেল্ট আরো বহু জিনিসপত্র চামড়া দিয়ে তৈরি হয়। আর চামড়া দিয়ে প্রস্তুত জিনিসের চাহিদা মার্কেটে এত বেশি পরিমাণে থাকার জন্য চামড়ার ব্যবসা দিনে দিনে এত উন্নতি করছে। আপনি যদি ছোট করে চামড়ার ব্যবসা শুরু করেন তাহলেও প্রতি মাসে আপনি এই ব্যবসা থেকে লক্ষাধিক টাকা আয় করতে পারেন। বর্তমানে মানুষের ব্যবহৃত বহু জিনিস চামড়া দিয়ে প্রস্তুত করা হয়ে থাকে। আবার বাজারে চামড়ার চাহিদা কম থাকার জন্য আর্টিফিশিয়াল বা নকল চামড়া দিয়ে এই সব জিনিস তৈরি হচ্ছে। আপনি যদি সঠিক উপায়ে চামড়ার যোগান দিয়ে চামড়ার ব্যবসা শুরু করেন তাহলে অবশ্যই আপনি এই ব্যবসা থেকে অনেক টাকা উপার্জন করতে পারবেন এবং একজন সফল ব্যবসায়ী হতে পারবেন। চলুন দেখে নেওয়া যাক কি পদ্ধতিতে চামড়ার ব্যবসা করে আপনি সফল ব্যবসায়ী হবেন।

Table of Contents

চামড়ার ব্যবসা শুরু করতে কত টাকা লাগে? (How much does it cost to start a leather business?)

চামড়ার ব্যবসা এমন একটি ব্যবসা যা কম বিনিয়োগে বেশি লাভ দিতে পারে। বর্তমান পৃথিবীর আর্থিক পরিস্থিতিতে এত অল্প পুঁজি বিনিয়োগ করে বেশি লাভ যুক্ত ব্যবসার সংখ্যা অনেক কম। সাধারণত আপনি যদি ছোট করে চামড়ার ব্যবসা শুরু করেন তাহলে আপনাকে 50 হাজার টাকা থেকে 1 লক্ষ টাকা বিনিয়োগ করতে হবে। আর আপনি যদি বড় আকারের চামড়ার ব্যবসা শুরু করেন তাহলে আপনাকে 5 লক্ষ টাকা থেকে 15 লক্ষ টাকা বিনিয়োগ করতে হবে। এর থেকেও বেশি বিনিয়োগ করে আপনি চামড়ার ব্যবসা করতে পারেন। আবার আরো অল্প টাকা বিনিয়োগ করেও ছোট একদম নিচু লেভেলের চামড়ার ব্যবসা করা সম্ভব।

ব্যবসা 1
চামড়ার ব্যবসা

চামড়ার ব্যবসা কিভাবে শুরু করবেন? (How to start a leather business?)

মানুষের নিত্য প্রয়োজনীয় বহু জিনিসপত্র চামড়া দিয়ে তৈরি হয়, এবং সকল বয়সের মানুষই চামড়ার তৈরি জিনিস পড়তে ও ব্যবহার করতে ভীষণ পছন্দ করেন। চামড়ার ব্যবহার শুধু এখন নয় বহু প্রাচীন সময় থেকে এর ব্যবহার হয়ে আসছে। মানুষের সর্ব প্রধান তৈরি করা জুতো ব্যাগ এবং জল খাওয়ার পাত্র ও পোশাক চামড়া দিয়েই প্রস্তুত করা হয়েছিল। তবে বর্তমান সময়ে বিভিন্ন রকম চামড়া দিয়ে বিভিন্ন ধরনের উপকরণ যেমন জুতো, ব্যাগ, বেল্ট, ঘড়ির ব্যান্ড, ডায়েরির কভার, চশমার বাক্স এবং সোনার বাক্স প্রস্তুত করা হচ্ছে। বর্তমানে বিজ্ঞানের উন্নতির সাথে সাথে লেদার টেকনোলজিও অনেক আগে বেরিয়ে গেছে।

তাই চামড়া দিয়ে প্রস্তুত জিনিসপত্র দেশে ও বিদেশে উচ্চ দামে বিক্রি হচ্ছে। চামড়ার ব্যবসা শুধু এখন নয় বহু প্রাচীন সময় থেকে চলে আসছে। পৃথিবীর প্রাচীনতম শিল্পগুলির মধ্যে চামড়ার শিল্প অন্যতম। বর্তমানে টেকনোলজির যুগে সাবেকি পুরনো ডিজাইনের সাথে সাথে নতুন যুবসমাজের চাহিদা অনুযায়ী চামড়া দিয়ে বিভিন্ন ডিজাইনের আসবাবপত্র এবং ব্যবহৃত সামগ্রীর উপরে শৈলিক ডিজাইন ফুটে উঠছে। তাই আপনি যদি চামড়ার ব্যবসা শুরু করেন এই ব্যবসা থেকে আপনি যে পরিমাণের অর্থ উপার্জন করতে পারবেন তা হয়তো আপনি বর্তমানে বুঝতে পারছেন না।

অবশ্যই পড়ুন- ব্যবসা করুন মাত্র 600 টাকা দিয়ে

চামড়া কোথায় থেকে সংগ্রহ করা যায়?

আপনি যদি শুধুমাত্র চামড়া বিক্রি করতে চান তাহলে অবশ্যই চামড়া সংগ্রহ আপনাকে করতে হবে অল্প দামে। বর্তমানে চামড়া সংগ্রহের জন্য সবচেয়ে ভালো কসাইখানা এবং মাংসের দোকান। আপনি যে এলাকাতে থাকেন সে এলাকার প্রতিটা মাংসের দোকানে আপনি আগে থেকে বলে রাখতে পারেন এবং প্রতিদিন এর কাটা চামড়া তা কিনতে পারেন। যদিও প্রতিদিনের চামড়া তারা বিক্রি করেন কোন ব্যবসায়ীকে, সেক্ষেত্রে আপনাকে বেশি দামে চামড়া কিনতে হবে বাকি অন্য ব্যবসায়ীদের থেকে।

এছাড়া আপনার এলাকার মধ্যে যদি বড় কোন কসাইখানা থেকে থাকে তাহলে আপনি সেই কসাইখানা থেকে প্রতিদিন প্রচুর পরিমাণে চামড়া কিনতে পারবেন। এছাড়া বিভিন্ন অনুষ্ঠান বা ঈদের সময় প্রচুর পরিমাণে চামড়া কেনা যায় অল্পদামে। তাই ঈদের সময় আপনি বিভিন্ন এলাকার থেকে চামড়া অল্প দামে কিনে তা ভালো করে পরিষ্কার করে রোদে শুকনো করে সংগ্রহ করে রাখতে পারেন। চামড়ার বাজার যখন বেশি থাকবে তখন আপনি তা বিক্রি করবেন।

চামড়া কোথায় বিক্রি করা যায়?

চামড়া কেনার পর বিক্রি করার বাজারও অনেক বড়। যেহেতু বাজারে চামড়ার চাহিদা অনেক বেশি থাকে তাই আপনি যখন চামড়া কিনে সংগ্রহ করবেন তা বিক্রি করার জন্য আপনাকে বেশি ভাবতে হবে না। চামড়ার যে সকল কোম্পানি রয়েছে তাদের কাছে আপনি অনেক বেশি মূল্যে চামড়া বিক্রি করতে পারেন। আবার বছরের কিছু কিছু সময় যখন চামড়ার বেশি চাহিদা থাকে সেই সময় আপনার সংগ্রহীত চামড়া গুলি আপনি এই সকল চামড়ার কোম্পানিতে বিক্রি করতে পারেন। চামড়ার কোম্পানির সাথে সাথে চামড়া দিয়ে প্রস্তুত বিভিন্ন কেমিক্যাল ল্যাবরেটরি তেও চামড়া বিক্রি করা যায়। ভারত এবং বাংলাদেশে একাধিক চামড়ার কোম্পানি রয়েছে আপনি একটু গুগলে সার্চ করলেই পেয়ে যাবেন এইসব কোম্পানিগুলিকে।

চামড়ার জিনিসের দোকান তৈরি করুন?

চামড়ার জিনিসের যেহেতু প্রচুর চাহিদা রয়েছে তাই জন্য চামড়ার ব্যবসা ও এত উন্নতি করতে পারছে। চামড়া জাতীয় প্রতিটা দব্য বর্তমানে আপনি বিক্রি করার জন্য দোকান যেমন তৈরি করতে পারেন তেমন বাড়ি থেকেই বিক্রি করতে পারেন। যেহেতু চামড়াজাত প্রতিটি দ্রব্য মানুষ প্রচুর পছন্দ করেন তাই চামড়ার ব্যবসা করার জন্য আপনাকে বাইরে কোন দোকান দেওয়ার প্রয়োজন নেই আপনি বাড়ি থেকেই করতে পারবেন। চামড়া যত প্রতিটি প্রোডাক্টটি আপনি বিক্রি করতে পারবেন অনলাইন পদ্ধতিতে ঘরে থেকেই। তবে আপনি যদি ব্যবসা বড় করে করতে চান তাহলে আপনাকে অবশ্যই একটি দোকান ভাড়া নিতে হবে বা তৈরি করতে হবে রাস্তার ধারে।

দোকান তৈরি করার জন্য এমন একটি জায়গা আপনাকে নির্বাচিত করতে হবে যা জনবহুল বাজার এলাকার মধ্যে হবে ও রাস্তার ধারে হবে। আর দোকান ঘর ডেকোরেশনের জন্য আপনি কাঠের সেলফ তৈরি করতে পারেন । যেখানে চামড়ার তৈরি প্রতিটা প্রোডাক্ট সুন্দর করে সাজিয়ে রাখবেন, যাতে প্রতিটি কাস্টমার এসে প্রথম দেখাতেই ভালো লাগা তৈরি হয়ে যায়। চামড়া যত প্রতিটি প্রোডাক্ট আপনি পাইকারি বাজার থেকে অল্প দামে কিনে এনে ব্যবসা করতে পারেন। মনে রাখবেন মানুষের নিত্য প্রয়োজনীয় প্রতিটি চামড়ার জিনিসই আপনার দোকানে থাকলে বেশি পরিমাণে বিক্রি করতে পারবেন। কাস্টমারের সঙ্গে ব্যবহার এবং প্রতিটা চামড়ার জিনিসের উপর আকর্ষণীয় অফার রেখে আপনি আপনার ব্যবসা দ্রুততার সাথে বৃদ্ধি করতে পারেন।

আসলে বর্তমান সময়ে অনেক বড় দোকান হলেও ভিড় হয় না আবার ছোট দোকানে এত বেশি পরিমাণের ভিড় থাকে এবং বিক্রি হয় যা বড় দোকানের থেকে বেশি লাভ করা যায়। তাই সব সময় নিত্যনতুন বিজনেস স্ট্র্যাটেজি আপনাকে বার করতে হবে এবং কাস্টমারের সঙ্গে ভালো ব্যবহারের সাথে সাথে তাদের সঠিক প্রোডাক্ট দিতে হবে। আপনি যদি চামড়ার ব্যবসা চামড়ার তৈরি জিনিসের দোকান করে করতে চান তাহলে অবশ্যই আপনাকে ভালো করে মার্কেটিং করতে হবে এবং বিজ্ঞাপন বেশি করে দিতে হবে।

এক্ষেত্রে ব্যবসার শুরুতে আপনার বেশি লাভ না থাকলেও যত দিন যাবে মানুষের কাছে আপনার দোকান পরিচিত হবে, এবং তত বেশি পরিমাণে আপনার লাভ হতে থাকবে। চামড়ার দোকান ব্যবসা করতে গেলে একটু বেশি পরিমাণের মূলধনের প্রয়োজন পড়ে এই জন্য আপনার ব্যবসার শুরুটা আপনার বাড়ি থেকেই করতে পারেন। ব্যবসা যত বড় হতে থাকবে তত আপনি টাকা উপার্জন করতে থাকবেন এবং পরবর্তীকালে আপনি চাইলে বাইরে বড় দোকান করে চামড়ার ব্যবসা করতে পারবেন।

আরো পড়ুন- পেপার কাপ তৈরির ব্যবসা

চামড়ার জুতোর দোকান তৈরি করুন

আপনি যদি চামড়ার জুতোর দোকান দিতে চান তাহলে অবশ্যই আপনি এই ব্যবসা থেকে ভালো উপার্জন করতে পারবেন। কারণ বর্তমানে আর্টিফিশিয়াল চামড়া দিয়ে জুতো মানুষ যত বেশি না পছন্দ করে তার থেকে বেশি পছন্দ করে চামড়ার জুতো। তাই জন্য চামড়ার জুতোর বাজার অনেক বড় এবং অনেক বেশি পরিমাণে টাকা উপার্জন করা যায়। চামড়ার জুতোর দোকান দিতে গেলে আপনাকে সকল বয়সের মানুষদের জন্য বিভিন্ন ডিজাইনের বিভিন্ন কালারের জুতোর কালেকশন সর্বদা আপনার দোকানে রাখতে হবে। চামড়ার জুতোর পাশাপাশি চামড়ার চটি এবং বেল্ট ও ব্যাগের কালেকশনও আপনি রাখতে পারেন। বড় বাজারের চামড়ার মার্কেট থেকে আপনি খুব অল্প দামে বেল্ট, ব্যাগ, জুতো সব ধরনের চামড়ার উপকরণ কিনে ব্যবসা করতে পারেন।

বড়বাজার থেকে একটা চামড়ার বেল্ট আপনি কিনতে পাবেন মাত্র 60 থেকে 70 টাকা দামের যা বাজারে বিক্রি হয় 200 থেকে 300 টাকা দামে। আপনি যখন চামড়ার স্যান্ডেল অল্প দামে কিনে ব্যবসা শুরু করবেন তখন অবশ্যই আপনাকে চামড়ার তৈরি জুতোর কোম্পানি থেকে সরাসরি কিনে নিয়ে এসে ব্যবসা করতে হবে। আপনি যদি সরাসরি কোম্পানি থেকে জুতো কিনে আপনার দোকানে সাজিয়ে ব্যবসা করেন তাহলে আপনি বেশি পরিমাণে লাভবান হবেন পাইকারি বাজার থেকে জুতো কেনার পরিবর্তে। তবে চামড়ার জুতোর দোকান করলে অবশ্যই আগে আপনাকে মার্কেট রিসার্চ করে দেখতে হবে কি ধরনের জুতো বেশি বিক্রি হয় এবং কাস্টমাররা কি ধরনের জুতো বেশি পছন্দ করেন। মার্কেট রিসার্চ শেষ করে আপনি আপনার ব্যবসা শুরু করতে পারেন।

leather shop
Leather item

চামড়ার জিনিসের পাইকারি বাজার কোথায়?

চামড়ার জিনিসের পাইকারি বাজার অবশ্যই আপনাকে জানতে হবে কারণ আপনি যদি চামড়ার জিনিসের ব্যবসা করেন তাহলে। সাধারণত চামড়ার ব্যবসাতে যেমন লাভ থাকে তেমন এই ব্যবসার ঝুঁকির সম্ভাবনা অনেক কম। তবে চামড়ার জিনিস অল্প দামে কেনার জন্য চামড়ার পাইকারি বাজারে অবশ্যই আপনাকে যেতে হবে। পশ্চিমবঙ্গের বড়বাজার চামড়ার পাইকারি বাজার হিসাবে খুবই জনপ্রিয়। কলকাতার এই বড় বাজারে আপনি একশোরও বেশি দোকান পাবেন যারা চামড়ার জিনিস পাইকারি দরে বিক্রি করে। বাংলাদেশের চকবাজার পাইকারি মার্কেটে আপনি চামড়ার সকল প্রকার জিনিস পাইকারি দরে পেয়ে যাবেন।

চকবাজারের চামড়ার বিক্রেতারা সরাসরি কোম্পানি থেকে চামড়ার জিনিস তৈরি করে আনেন আবার অনেক বিক্রেতা আছেন যাদের নিজস্ব চামড়ার কোম্পানি রয়েছে। তাই চামড়ার জিনিসের ব্যবসা করতে হলে এই দুটি বড় চামড়ার পাইকারি বাজার থেকে জিনিস কিনে এনে ব্যবসা করতে পারেন।

চামড়ার জিনিসের প্যাকেজিং কিভাবে করতে হয়?

চামড়ার জিনিস যেহেতু প্যাশনেট হয় তাই এর প্যাকেজিং অবশ্যই ভালো করে থাকতে হবে তা আপনাকে দেখতে হবে। প্রতিটা চামড়ার জিনিসের প্যাকিং যাতে উন্নত মানের হয় তার দিকে অবশ্যই আপনাকে সর্বদা লক্ষ্য রাখতে হবে। কারণ প্রতিটি কাস্টমার চাই তাদের কেনা প্রতিটা চামড়ার প্রোডাক্ট যেমন ভাল হবে তেমন তার প্যাকেজিং ও ভালো হবে। এছাড়া চামড়ার প্রতিটা জিনিসের প্যাকেজিং নির্ভর করে সেই প্রোডাক্টের বিক্রির গুরুত্ব।

কারণ বর্তমান সময়ে মানুষ যত না বেশি জিনিসের কোয়ালিটি দেখে তার থেকে বেশি দেখে তার প্যাকেজিং এবং ব্র্যান্ডকে। তাই আপনার দোকানে বিক্রি হওয়া প্রতিটা চামড়ার জিনিস যেন উন্নত মানের প্যাকেজিং এবং ভালো কোয়ালিটির প্রোডাক্ট হয় তার দিকে অবশ্যই আপনাকে সর্বদা গুরুত্ব দিতে হবে। দরকার হলে কিছু দামী চামড়ার প্রোডাক্ট আপনি আলাদা করে বাড়িতে বাক্সতে ভর্তি করে দোকানে বিক্রি করতে পারেন।

অবশ্যই পড়ুন- নন ওভেন টিস্যু ব্যাগ তৈরির ব্যবসা

লেদার ব্যবসায় মার্কেটিং কিভাবে করা হয়?

চামড়ার ব্যবসা বা লেদার ব্যবসাতে মার্কেটিং আপনাকে অবশ্যই ভালো করে করতে হবে। আপনি যদি ভালো করে মার্কেটিং করতে পারেন তাহলে দ্রুততার সাথে আপনার ব্যবসা বৃদ্ধি পাবে এবং আপনার প্রতি মাসে ইনকামও বহুগুণ বেড়ে যাবে। চামড়ার ব্যবসায় মার্কেটিং করার জন্য আপনি যেসব পদ্ধতি ব্যবহার করতে পারেন তা হল-

  • ফেসবুক ইনস্টাগ্রাম এবং ইউটিউবে একটি করে পেজ ও চ্যানেল তৈরি করে প্রতিদিন নিত্যনতুন চামড়ার প্রোডাক্টের ছবি ও ভিডিও পোস্ট করতে পারেন। সময়ের সাথে সাথে আপনার পেজের ফলোয়ার বৃদ্ধি পাবে এবং অনলাইনে আপনি চামড়ার ব্যবসা করতে পারবেন।
  • নিজস্ব ওয়েবসাইট তৈরি করুন এবং এই ওয়েবসাইটে চামড়ার প্রতিটি প্রোডাক্টের ছবি এবং সম্পর্কিত কিছু লেখা পোস্ট করতে পারেন। কিছুদিনের মধ্যেই যখন আপনার ওয়েবসাইট জনপ্রিয়তা লাভ করবে তখনই ওয়েবসাইটের মধ্য দিয়ে আপনি অনলাইনে অনেক কাস্টমার পেয়ে যাবেন এবং আপনি খুব ভালো ব্যবসা করতে পারবেন।
  • Amazon, ফ্লিপকার্ট, ইন্ডিয়া মার্ট এর মতো ই-কমার্স ওয়েবসাইটগুলিতে আপনি বিজনেস অ্যাকাউন্ট খুলে বিভিন্ন চামড়ার প্রোডাক্টের ছবি এবং নির্দিষ্ট দাম রেখে বিক্রি করতে পারেন।
  • আপনি যে এলাকায় ব্যবসা করবেন সেই এলাকার আশেপাশে পোস্টারিং ও ফ্লেক্স লাগিয়ে বিজ্ঞাপন দিতে পারেন।

চামড়ার ব্যবসায় লাভ কত?

চামড়ার ব্যবসা করার জন্য যেমন কয়েক লক্ষ টাকার দরকার হয় তেমন এই ব্যবসা থেকে প্রতিমাসে আপনি কয়েক লক্ষ টাকা ইনকাম করতে পারেন। একজন ছোট চামড়ার ব্যবসায়ী প্রতিমাসে 50 হাজার টাকা থেকে শুরু করে 1 লক্ষ টাকারও বেশি ইনকাম করতে পারেন। আবার একজন বড় মাপের চামড়ার ব্যবসায়ী প্রতিমাসে 10-15 লক্ষ টাকারও বেশি ইনকাম করে থাকেন। আপনি কোন জায়গায় ব্যবসা করছেন এবং কি পদ্ধতিতে ব্যবসা করছেন তার ওপর নির্ভর করবে আপনার লাভের পরিমাণটা। সাধারণত যেমন বেশি পুঁজি দিয়ে ব্যবসা শুরু করবেন তেমনভাবেই আপনি লাভ করতে পারবেন। আবার পুরনো পদ্ধতির আশেপাশে আপনি যদি আধুনিক পদ্ধতি অবলম্বন করে ব্যবসা করেন সে ক্ষেত্রেও আপনার লাভের পরিমাণ বহুগুণ বেড়ে যাবে।

চামড়ার জিনিসের ব্যবসা করতে কি কি লাইসেন্সের প্রয়োজন?

আপনি যদি চামড়ার জিনিসের দোকান তৈরি করে ব্যবসা করেন সেক্ষেত্রে আপনার কয়েকটা লাইসেন্সের প্রয়োজন পড়বে। আর আপনি যদি সরাসরি বাজার থেকে কাঁচা চামড়া কিনে নিয়ে কোম্পানিতে বিক্রি করার ব্যবসা করেন এক্ষেত্রে আপনার ব্যবসার শুরুতে কোন লাইসেন্সের প্রয়োজন না পড়লেও পরবর্তীকালে এক দুটো লাইসেন্সের প্রয়োজন পড়বে। আর আপনি যদি চামড়ার কারখানা তৈরি করে ব্যবসা করেন সেক্ষেত্রেও আপনার আলাদা আলাদা কয়েকটা লাইসেন্স এর প্রয়োজন পড়বে। সাধারণত বাংলাদেশের প্রতিটি ট্যানারি ব্যবসার সঙ্গে জড়িত ব্যবসায়ী ব্যবসা করার জন্য বেশ কিছু লাইসেন্স নিয়ে থাকে। তবে আপনার ব্যবসার জন্য যে লাইসেন্সগুলো নিতে হবে তা হল-

  • ট্রেড লাইসেন্স
  • জি এস টি নাম্বার
  • কারেন্ট ব্যাংক অ্যাকাউন্ট
  • নাগরিকত্বের প্রমাণপত্র
  • দোকান তৈরীর আইনি কাগজপত্র
  • কারখানা তৈরীর লাইসেন্স

জিজ্ঞাসিত প্রশ্ন ও FAQ

ট্যানারি ব্যবসা শুরু করতে কত টাকা লাগে?

উত্তর: ৫ লক্ষ থেকে ১০ লক্ষ টাকা প্রয়োজন পরে ট্যানারি ব্যবসা শুরু করতে।

চামড়ার কারখানা তৈরি করতে কত টাকা লাগে?

উত্তর: চামড়ার কারখানা তৈরি করতে 20 লক্ষ টাকা থেকে 40 লক্ষ টাকা খরচ হয়।

চামড়ার ব্যবসা কোথায় করা যায়?

উত্তর: শহর এবং শহরাঞ্চলে চামড়ার ব্যবসা করা যায়।

চামড়ার জিনিস কোথায় রপ্তানি করা যায়?

উত্তর: আমেরিকা, জাপান, হংকং এবং ফ্রান্সে প্রচুর পরিমাণে চামড়ার জিনিস রপ্তানি করা হয়।

চামড়া দিয়ে কি কি জিনিস তৈরি হয়?

উত্তর: চামড়া দিয়ে বহু জিনিস তৈরি হয় যেমন-

জুতো
স্যান্ডেল
ওয়ালেট
ব্যাগ
ঘড়ির হাতল
ডাইরির কভার
জ্যাকেট
বেল্ট
ব্রেসলেট
চশমার হাতল
চশমার বাক্স
সোনার বাক্স
গিফট বাক্স
পেন কভার
টেবিল ক্লথ
কার স্টিয়ারিং কভার ইত্যাদি

নতুন নতুন ব্যবসার আইডিয়া দেখুন-

পানীয় জলের ব্যবসা করে 1 লক্ষ টাকা লাভ করুন

10 হাজার টাকা লাগিয়ে মাসে 50 হাজার টাকা ইনকাম করুন

Leave a Comment