জমিতে গোলমরিচ চাষ করে ৬ লাখ টাকা আয় করুন | 6 lakhs of income by cultivating pepper, Right Now

ভারতসহ পৃথিবীর সব দেশেই খাবার প্রস্তুত করার জন্য গোলমরিচের ব্যবহার অনেক বেশি পরিমাণে হয়ে থাকে। তাই আপনি যদি গোলমরিচ চাষ শুরু করেন আপনার গ্রামে তাহলে খুব সহজেই আপনি এই গোলমরিচ চাষ করে 6 লাখ টাকা বছরে আয় করতে পারবেন। আমরা অনেকেই জানি গোলমরিচ বর্তমানে প্রতিটি খাবার তৈরীর জন্য যেভাবে ব্যবহার করা হয় তাতে গোলমরিচের চাহিদা দিনে দিনে বেড়ে চলেছে। সাধারণ বাজারে গোলমরিচ কিনতে গেলে আপনি দেখতে পাবেন দেড় হাজার টাকার কমে গোলমরিচ পাওয়া যায় না। তবে আপনি যদি গোলমরিচ চাষ সম্পর্কে কিছু না জানেন তাহলে আজকের এই প্রতিবেদন থেকে আপনি এই চাষ সম্পর্কে জানতে পারবেন এবং সফল ব্যবসায়ী হওয়ার জন্য প্রস্তুত হতে শুরু করবেন।

Table of Contents

কিভাবে গোলমরিচ চাষ শুরু করা যায়? (How to start pepper farming?)

বাজার থেকে চারা কিনে এনে আপনি গোলমরিচ চাষ করতে পারেন আপনার বাড়িতে। আপনার যদি জায়গা না থাকে তাহলে ও আপনি এর চাষ করতে পারেন বাড়ির ছাদের টবে আবার আপনার যদি ফাঁকা জমি বা খামার পড়ে থাকে তাহলে এই চাষ খুব ভালোভাবে করা যায় সাধারণ মাটিতে। যেহেতু গোলমরিচের বাজার দর সব সময় অনেক বেশি থাকে তাই গোলমরিচ চাষের প্রবণতা দিনে দিনে বেড়ে উঠেছে ভারত এবং বাংলাদেশের কিছু কৃষক বন্ধুদের মধ্য। সাধারণ প্রতিটা চাষের মতো গোলমরিচ চাষে খুব বেশি সময় দিতে হয় না।

একবার গাছ রোপন করা হয়ে গেলে চার থেকে পাঁচ বছরের মধ্যেই আপনি পেয়ে যাবেন কেজি কেজি গোলমরিচ। সাধারণত গাছে অল্প আধটু কিছু রোগ দেখা যায় এবং তা নিরাময়ের জন্য যথাসাধ্য কীটনাশক এবং সার প্রয়োগ করলে গাছ অনেক সুন্দর হয়ে যায়। বর্তমানে একটি প্রতিবেদনে দেখা গেছে পশ্চিমবঙ্গের একজন চাষী গোলমরিচ চাষ করে প্রতিবছর 11 লক্ষ থেকে 12 লক্ষ টাকা উপার্জন করছেন। বর্তমানে বাংলাদেশেও এই ধরনের গোলমরিচের চাষের প্রমানোতা বহুগুণ বেড়ে গেছে।

যাদের জায়গা নেই তারা বাড়ির টবে তেই গোলমরিচ গাছ চাষ করছেন এবং সেই গোলমরিচ ঘরের রান্নার পাশাপাশি বাজারে বিক্রি করেও অল্প টাকা উপার্জন করছেন। তবে আপনার বাড়ি যদি গ্রামে হয়ে থাকে এবং আপনার যদি ফাঁকা খামারবাড়ি বা জায়গা পড়ে থাকে তাহলে আপনি খুব সহজেই গোলমরিচ গাছ কিনে এনে চাষ করতে পারেন।

Pepper plant care
গোলমরিচ গাছের পরিচর্যা

কিভাবে গোলমরিচ চারা তৈরি করা হয়? (How are pepper seedlings made?)

গোলমরিচ চারা তৈরি করার জন্য আপনি চাইলে বাজার থেকে গোলমরিচ চারা তৈরীর বীজ কিনতে পারেন। তবে সাধারণত গোলমরিচের চারা তৈরি করা হয় গোলমরিচের রানার থেকে। পান গাছ যে পদ্ধতিতে তৈরি করা হয় ঠিক সেই ধরনের পদ্ধতিতেই গোলমরিচের রানার থেকে কাটিং করে চারা তৈরি করা হয়। তবে কেউ যদি গোলমরিচ ডানা থেকে চারা তৈরি করতে চাই তাহলে তাকে অবশ্যই গোলমরি চারা তৈরি করার বীজই কিনতে হবে। সাধারণ দোকানে যে সব গোলমরিচ বিক্রি হয় তা থেকে গাছ জন্মায় না কারণ এই গোলমরিচ গুলি অনেক প্রসেসিং করে বাজারে আসে।

আপনি যদি সাধারণ বাজার থেকে গোলমরিচ কিনে তা মাটিতে ফেলে চারা তৈরি করতে চান তাহলে কোনোভাবেই তা সম্ভব হবে না। এইজন্য বাজার থেকে বা যেকোনো নার্সারি থেকে গোলমরিচ চারা কিনে এনে সেই চারা মাটিতে রোপন করুন। এক বছর পর সেই গাছ থেকে একাধিক রানার কেটে নিয়ে বালিতে পুঁতে দিন। কিছুদিন পর যখন ভালো করে সে করে বেরিয়ে যাবে প্রতিটা গোলমরিচের ডালে তখন তা বালি থেকে তুলে নিয়ে মাটিতে পুঁতে দিন। মনে রাখবেন গোলমরিচের রানার কাটার আগে একটা করে গাঁট রেখে অবশ্যই কাটতে হবে।

অবশ্যই পড়ুন- ১০টি কম খরচে গ্রামের ব্যবসা

গোলমরিচ চারা কোথায় কিনতে পাওয়া যায়? (Where to buy pepper seedlings?)

গোলমরিচ চারা কেনার জন্য অবশ্যই আপনাকে যেতে হবে আপনার নিকটবর্তী যে কোন নার্সারি বাগানে। যদি আপনার নিকটস্থ নার্সারি বাগান গুলিতে গোলমরিচ ছাড়া না থাকে তাহলে তাদেরকে আপনি অর্ডার দিতে পারেন যারা আনানোর জন্য। আবার আপনি চাইলে নিজেও উদ্যোগে অনলাইনে ইন্ডিয়ামার্ট ওয়েবসাইট থেকে যারা অর্ডার করিয়ে হোম ডেলিভারির মাধ্যমে পেতে পারেন। তবে এক্ষেত্রে অনলাইনে অর্ডার করার আগে আপনাকে কমপক্ষে 50 টি চারা কিনতে হবে।

আর আপনি যদি গোল মরিচ চাষ করে ব্যবসা করতে চান সেক্ষেত্রে 50 টি চারা তো আপনার অবশ্যই লাগবে। আবার আপনি চাইলে গুগলে গোলমরিচ ছাড়া কেনার জন্য সার্চ করতে পারেন। গুগলে বহু নার্সারি পেয়ে যাবেন যারা গোলমরিচের চারা বিক্রি করে এবং অনলাইনে অর্ডার করলেও বাড়িতে পৌঁছে দেওয়ার ব্যবস্থা রাখে। তবে সব সময় মনে রাখবেন অনলাইন থেকে গাছ কেনা পরিবর্তে আপনার এলাকার কোন নার্সারি বা গোলমরিচের বাগান থেকে সরাসরি গিয়ে গোলমরিচের রানার কেটে নিয়ে চারা তৈরি করে নিজের বাগানে বসান।

কিভাবে গোলমরিচ চাষ করা হয়? (How are black peppers cultivated?)

গোলমরিচ চাষ করার জন্য আপনার প্রয়োজন পড়বে সুপারি বাগান বা নারকেল বাগানের। এর জন্য আপনি আগেই সুপারি গাছের একটি বাগান তৈরি করতে পারেন। সুপারি গাছের বাগান করলে তা থেকে আপনার লাভ হবে আবার গোলমরিচ চাষ করার জন্য অনেক সাহায্য পাবেন। গোলমরিচ যেহেতু গুল্ম জাতীয় লতানো গাছ তাই এই গাছ ওঠার জন্য সুপারি গাছ অথবা নারকেল গাছের প্রয়োজন পড়ে। বর্তমানে যে সকল চাষি গোলমরিচের চাষ করছেন তারা সকলেই সুপারি বাগান তৈরি করে তার মধ্যে গোলমরিচের চাষ করছেন।

আপনিও গোলমরিচ চাষের আগে একটি সুপারি বাগান তৈরি করুন যা করতে আপনার খুবই অল্প টাকা খরচ হবে। বাগানে যে সুপারি গাছ রয়েছে তার পাশে দু ফুট দূরত্ব রেখে একটি গোলমরিচ গাছ বসাতে পারেন। গোলমরিচ গাছ বসানোর আগে অবশ্যই আপনাকে একটু মাটি গর্ত করে নিতে হবে এবং সেই গর্তে জৈব সার ও অল্প রাসায়নিক সার প্রয়োগ করে কিছুদিন ফেলে রাখতে হবে। কিছুদিন পর সেই গর্তে গোলমরিচের চারা বসাতে হবে। গোলমরিচ ছাড়া যাতে লতিয়ে সুপারি গাছের ওপরে উঠতে পারে তার জন্য বাসের বাখারি করে সাপোর্ট দিতে হবে।

গাছ বসানোর পর অল্প একটু জল দিতে হবে এবং সপ্তাহে একবার করে গাছের গোড়ায় অল্প অল্প জল দিতে হবে। গোলমরিচ গাছ সাধারণত অতিরিক্ত জলে গোরা নষ্ট হওয়ার কারণে মরে যায় এবং অনেক রকম রোগ চলে আসে তাই আপনাকে খেয়াল করতে হবে গোলমরিচ গাছের গোড়ায় যেন অতিরিক্ত জল না জমে।
গোলমরিচ চাষের ব্যবসা করতে গেলে আপনাকে যেমন সুপারি গাছের বাগান বানাতে হয় আর এই বাগান বানানোর জন্য যাবতীয় তথ্য নিয়ে এই পোস্টটি আপনি করতে পারেন- সুপারি চাষ করে লাখ টাকা আয় করুন

গোলমরিচ গাছের পরিচর্যা কিভাবে করবেন? (How to care for pepper plants?)

মনে রাখবেন গোলমরিচ গাছ সাধারণত খুবই আদুরে গাছ হয়ে থাকে। অর্থাৎ অতিরিক্ত জলে যেমন গাছের মৃত্যু হয় তেমন অতিরিক্ত রোদেও গাছের মৃত্যু হতে পারে। তাই আপনাকে এমন একটি জায়গা নির্বাচন করতে হবে গোলমরিচ চাষের জন্য যা বৃষ্টির জল জমতে দেয় না এবং অতিরিক্ত রোদ্দুরও মাটিতে বেশি প্রবেশ করে না। গোলমরিচ গাছ চাষ করতে গেলে যে জিনিসগুলি আপনাকে মনে রাখতে হবে তার পরিচর্যা করার জন্য তা হল-

  • গাছের গোড়ায় যেন কোনোভাবে জল না জমতে পারে।
  • অতিরিক্ত রোদ্দুরে গাছের পাতা ঝলসে যায় এবং গাছের ক্ষতি হয় তাই রোদ্দুর কম এলাকায় গোলমরিচ গাছ বসাতে হবে।
  • গোলমরিচ গাছ যেহেতু লতানে গাছ তাই এই গাছ যাতে লতিয়ে মাটিতে বিছিয়ে না যায় তার জন্য একে সুপারি গাছে তোলার ব্যবস্থা করতে হবে।
  • গোলমরিচ গাছের আশেপাশে ঘাস জমলে এই গাছের খাদ্য সংকট দেখা দিতে পারে তাই সব সময় ঘাস পরিষ্কার করতে হবে।
  • গাছের যদি কোন রোগ দেখা যায় তা তৎক্ষণাৎ চিহ্নিত করে ট্রিটমেন্ট করতে হবে।
  • গোলমরিচ হয়ে যাবার পর তা পারার সময় গাছের যেন ক্ষতি না হয় তা দেখতে হবে।
  • গোলমরিচ চারা তৈরির জন্য যে রানার কাটতে হবে তা দেখে বুঝে গাছের ক্ষতি না করে কাটতে হবে।
  • মাঝে মাঝে গাছের খাবার হিসাবে জৈব সার ব্যবহার করা যেতে পারে।

আরো পড়ুন- মৌমাছি চাষের ব্যবসা

গোলমরিচ গাছের রোগ নির্ণয় করুন (Diagnose pepper plant diseases)

গোলমরিচ চাষ করতে গেলে অবশ্যই আপনাকে জানতে হবে গোলমরিচ গাছের কি কি রোগব্যাধি হয়ে থাকে এবং তা কিভাবে নিরাময় করা যায়। গোলমরিচ গাছের সাধারণত দুই তিন ধরনের রোগ হয়ে থাকে যা তার পাতা দেখলেই বোঝা যায়।

  • গোলমরিচ পাতায় দাগ দেখলে তৎক্ষণাৎ আপনাকে বুঝতে হবে গোলমরিচ গাছে কোন রোগ এসেছে। তৎক্ষণাৎ আপনাকে কপার জাতীয় ফাঙ্গিসাইড পাউডার জলে গুলে গাছের পাতা সহ সম্পূর্ণ গাছের স্প্রে করতে হবে।
  • গোলমরিচ পাতায় হলুদ ছোপ দেখা দিলে বুঝতে হবে গাছে মাছির কারণে রোগ এসেছে। ছোট ছোট মাছি গোলমরিচ গাছে বসে গোলমরিচ ফুলের জন্য এবং এই মাছি থেকেই পাতাই হলুদ ছোপের সৃষ্টি হয় এবং গাছে জটিল রোগের জন্ম নেয়। এই সময় শুরুর দিকে বুঝতে পারলে বিষ প্রয়োগ করে এই রোগ নিরাময় করা যায়। কারণ শুরুর দিকে বুঝতে পারলে আপনি যদি গাছে বিষ প্রয়োগ করেন সে ক্ষেত্রে মাছির উপদ্রব কমে যাবে এবং গাছ অনেকাংশই রক্ষা পায়। তবে আপনার যদি এই হলুদ রোগ ধরতে অসুবিধা হয় সেক্ষেত্রে দেরী হয়ে গেলে গাছ মরে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকে, এবং একটা গাছ থেকে অন্য গাছে রোগ ছড়িয়ে পড়ে। এক্ষেত্রে বাঁচার জন্য সেই গাছটিকে তৎক্ষণাৎ মাটি থেকে উপরে আপনাকে দূরে কোথাও ফেলে দিয়ে আসতে হবে। গোলমরিচ পাতার এই হলুদ ছোপ রোগটি একটি গাছ থেকে অন্য গাছে ছড়িয়ে পড়ার সম্ভাবনা অনেক বেশি থাকে।
  • গোল মরিচ পাতা যদি ফ্যাকাসে হয়ে যায় বা পাতা যদি ঝলসে যায় তাহলে আপনাকে তৎক্ষণাৎ বুঝতে হবে গাছের গোড়ায় বেশি জল জমছে অথবা সূর্যরশ্মি বেশি গাছটিকে ক্ষতিগ্রস্ত করছে। তৎক্ষণাৎ আপনাকে ব্যবস্থা নিতে হবে অর্থাৎ জল জমলে তা নালা করে বের করে দিতে হবে গাছের গোড়া থেকে। আবার সূর্যরশ্মি অতিরিক্ত করে গাছের পাতা ঝলসে গেলে তা নিরাময় করার জন্য অন্য কোন গাছের বড় পাতা দিয়ে গোলমরিচ গাছটিকে ঢেকে দিতে হবে। এক্ষেত্রে অনেকে নারকেল পাতা অথবা সুপারি গাছের পাতা ব্যবহার করে গোলমরিচের গাছকে রোদ মুক্ত করে জন্য ঢাকার জন্য।
  • প্রতিমাসে একবার কিংবা দুইবার আপনি চাইলে NPK-19.19.19 জলে গুনে স্প্রে করতে পারেন গাছের খাবারের জন্য। কারণ অনেক সময় গাছ মাটি থেকে খাবার সংগ্রহ করলেও তা তাদের পাতায় পৌঁছায় না এক্ষেত্রে গাছের পাতা ফ্যাকাসে হয়ে যায়। এই সমস্যা সমাধান করার জন্য NPK 19.19.19 প্রয়োগ অবশ্যই আপনাকে করতে হবে।
pepper plant
গোলমরিচ গাছ

কিভাবে গোলমরিচ উৎপাদন হয় (How are pepper produced?)

গোলমরিচ চাষের ব্যবসা করতে গেলে আপনাকে অবশ্যই জানতে হবে গোলমরিচ গাছ থেকে কিভাবে গোলমরিচ উৎপাদন হয়। সাধারণত একটি গোলমরিচের ছোট গাছ কেনার পর তা আপনি মাটিতে বসাচ্ছেন এবং সুপারি গাছে তোলার চেষ্টা করছেন। একটি গোলমরিচ গাছ সুপারি গাছে ওঠার জন্য 3 বছর সময় লাগে, অর্থাৎ তিন বছর পর গাছটি লতিয়ে সুপারি গাছে উঠতে সক্ষম হয়। তারপর 4 থেকে 5 বছর পর গোলমরিচ গাছটি সুপারি গাছের ওপরে ঝাঁকরা হয়ে জড়িয়ে যায়। এই ঝাঁকড়া গোলমরিচ গাছ হবার পর অর্থাৎ 4-5 বছর পর থেকেই গোলমরিচ উৎপাদন শুরু হয়। গাছে গোলমরিচ ফলার পরে একটি মই সুপারি গাছে লাগিয়ে গোলমরিচ দানাগুলিকে পারতে হয়।

আপনি যদি সুপারি গাছ দিয়ে উঠে গোলমরিচ পাড়ার চেষ্টা করেন সে ক্ষেত্রে গোলমরিচ গাছের ক্ষতি হবে। গোলমরিচ পড়া হয়ে গেলে তা শুকনো করে বাজারে বিক্রি করার জন্য প্রস্তুত করা হয়। একটা গোলমরিচ গাছ থেকে 8 থেকে 10 কেজি কাঁচা গোলমরিচ পাওয়া যায়। এই 8 কেজি কাঁচা গোলমরিচ শুকনো করার পর 2 কেজিতে পরিণত হয়। বড় গোলমরিচ দানা হলে 3 কেজি শুকনো গোলমরিচ পাওয়া যায় একটি গাছ থেকে।

অবশ্যই পড়ুন- চালের খোসা ও গমের খোসা দিয়ে ব্যবসা

গোলমরিচ এর উপকারিতা কি কি?

গোলমরিচের অনেক উপকারিতা থাকার কারণে গোলমরিচ পৃথিবীর সেরা মসলাগুলোর মধ্যে একটি। গোলম রিচ প্রতিদিন খাবার তালিকায় থাকলে একটি মানুষের একাধিক রোগব্যাধি নিরাময় হতে পারে। তাই বিজ্ঞানসম্মত পদ্ধতিতে প্রতিটি রান্নাতে গোলমরিচের ব্যবহার করা আবশ্যিক। আপনি যদি প্রতিদিন গোলমরিচ খান তাহলে আপনার জ্বর, সর্দি, পেট ফাঁপা ও গ্যানোরিয়া নিরাময় হতে পারে। এছাড়াও গোলমরিচ খেলে কোষ্ঠকাঠিন্য, রক্তাল্পতা, দাঁতের রোগ, ডায়রিয়া ও ক্ষুধামন্দির মত বিভিন্ন রোগব্যাধি নিরাময় হয়। এছাড়াও গোলমরিচ খেলে হৃদ রোগের জন্য খুব কার্যকর ভূমিকা পালন করে।

গোলমরিচ চাষের ব্যবসা করতে কত টাকা লাগে?

আপনি যদি 1 বিঘা জায়গাতে গোলমরিচ চাষ করতে চান এবং এক বিঘা জাগাতে যদি সুপারির বাগানে থাকে 400 টি সুপারি গাছ থাকে তাহলে 400 টি গোলমরিচ গাছও আপনি লাগাতে পারবেন। এক একটি গোলমরিচ গাছ নার্সারি বাগান থেকে কিনতে আপনার 40 টাকা করে খরচ হলে 400 টি গোলমরিচ চারা কিনতে 16 হাজার টাকা খরচ হবে। আর এই 400 টি গাছ মাটিতে বসানোর জন্য যে শ্রমিক নিয়োগ করতে হবে তাদের মজুরি ধরে আপনার সব মিলিয়ে খরচ হবে 20 হাজার টাকার মত। অর্থাৎ 20 হাজার টাকা বিনিয়োগ করে আপনি শুরু করতে পারেন গোলমরিচ চাষের ব্যবসা।

গোলমরিচ ব্যবসায় লাভ কত? (How much profit in pepper business?)

গোলমরিচ চাষের ব্যবসায় লাভ হয় অনেক বেশি পরিমাণে। কারণ গোলমরিচ চাষ করতে খরচ হয় খুবই অল্প টাকা আর গোলমরিচ উৎপাদন করে ভিত্তি করে লাভ করতে পারেন লক্ষ লক্ষ টাকা। একটি গাছ থেকে কাঁচা গোলমরিচ 8-10 কেজি পাওয়া যায়। এই 8 কেজি কাঁচা গোলমরিচ শুকনো করলে 2 কেজি থেকে 3 কেজি তে দাঁড়াই। এক বিঘা জাগাতে 400 টি গোলমরিচ গাছ থাকলে আপনি কমপক্ষে 800 কেজি শুকনো গোলমরিচ পাবেন। পাইকারি বাজারে বর্তমানে এক কেজি গোলমরিচ বিক্রি করা যায় 400 থেকে 600 টাকা দামে।

তাহলে আপনার 800 কেজি গোলমরিচ পাইকারি বাজারে বিক্রি করে আপনার লাভ হতে পারে 4 লাখ 40 হাজার টাকার মতো। 40 হাজার টাকা যদি এই গোলমরিচ গাছগুলি দেখাশোনার জন্য খরচ হয়। তাহলেও আপনার 4 লাখ টাকা প্রতি বছর আয় করতে পারবেন এক বিঘা জমিতে গোলমরিচ চাষ করে।

জিজ্ঞাসিত প্রশ্ন ও FAQ

1 বিঘা জমিতে গোলমরিচ চাষ করতে কত টাকা লাগে?

উত্তর: 20 হাজার টাকা থেকে 30 হাজার টাকা খরচ হবে এক বিঘা জমিতে গোলমরিচ গাছ চাষ করতে হয়।

একটা গোলমরিচ গাছ থেকে কতটা গোলমরিচ পাওয়া যায়?

উত্তর: একটা গোলমরিচ গাছ থেকে কাঁচা গোলমরিচ 8 কেজি থেকে 10 কেজি শুকনো করলে 2 কেজি থেকে 3 কেজি গোলমরিচ পাওয়া যায়।

গোলমরিচ গাছের কি কি রোগ হয়?

উত্তর: পাতা হলুদ হয়ে যাওয়া, পাতায় বিভিন্ন ছোপ ছোপ দাগ, পাতা ঝলসে যাওয়া এই ধরনের রোগ গোলমরিচ গাছে হয়ে থাকে।

গোলমরিচের উপকারিতা কি কি?

উত্তর: জ্বর, সর্দি, পেট ফাঁপা, হৃদরোগ জাতীয় অনেক ধরনের রোগ থেকে গোলমরিচ খেলে মুক্তি পাওয়া যায়।

গোলমরিচ কি ধরনের উদ্ভিদ?

উত্তর: লতানো গুল্ম জাতীয় উদ্ভিদ গোলমরিচ গাছ।

গোলমরিচ চাষের ব্যবসায় লাভ কত?

উত্তর: এক বিঘা জায়গায় গোলমরিচ চাষ করলে প্রতি বছর কমপক্ষে 6 লাখ টাকা আয় করা সম্ভব

নতুন নতুন ব্যবসার আইডিয়া দেখুন-

মুরগির খামার ব্যবসা

কুরিয়ার সার্ভিস ব্যবসা

Leave a Comment