গাড়ির পার্টস ব্যবসা কিভাবে করবেন? | How to do car parts business? | New Business Ideas 2022 wow

বর্তমানে অনেক ব্যবসার মধ্যে গাড়ির পার্টস ব্যবসা অনেক লাভজনক ব্যবসার মধ্যে পড়ে। আমরা সবাই জানি বর্তমান ক্ষেত্রে প্রতিটা ফ্যামিলিতেই একটা না একটা মোটরগাড়ি রয়েছে। কারোর দুই চাকার, কারোর তিন চাকার, অথবা কারোর চার চাকার গাড়ি। যাদের গাড়ি আছে তারা সবাই গাড়ি যেমন চালাতে ভালোবাসো নি তেমন গাড়ির যত্ন নিতে পছন্দ করেন। আর দাড়ি থাকলেই সেই গাড়ির কিছু না কিছু সমস্যা দেখা দেয়। বিভিন্ন পার্টস অনেক সময় অকেজো হয়ে যায় তখন তারা নতুন পার্টস লাগানো চেষ্টা করে। এইজন্য আপনি যদি আপনার এলাকাতে গাড়ির পার্টস ব্যবসা চালু করেন তাহলে সত্যিই আপনি অনেক লাভবান হবেন।

সড়ক পরিবহন এ যত রকম যানবাহন ব্যবহৃত হয় তার মধ্য মোটরসাইকেল একটি অন্যতম যান। খুব সহজে এক জায়গা থেকে অন্য জায়গায় যাওয়ার জন্য মোটরসাইকেল সবাই ব্যবহার করে আর মোটরসাইকেলের সমস্যা একটু বেশি পরিমাণে হয়ে থাকে। মোটরসাইকেলের যে কোন যন্ত্রাংশ যে কোন সময় খারাপ হতে পারে ফলে তার দোকানের দরকার হয়। এইজন্য আপনি যদি শুধুমাত্র মোটরসাইকেলের যন্ত্রাংশ নিয়ে ব্যবসা করেন তাহলেও আপনি লাভবান হবেন। বর্তমানে যারা অটোমোবাইল এর ব্যবসা করছেন বা গাড়ির পার্টস ব্যবসা করছেন তারা সবাই জানেন এই ব্যবসাতে কেমন লাভ হয়। বলা যেতে পারে দুই টাকার জিনিস কে 10 টাকায় বিক্রি করতে পারেন এইসব ব্যবসায়ীরা।

এইজন্য আপনি যদি গাড়ির পার্টস ব্যবসা শুরু করেন তাহলে আপনি সফল হবেন এবং আপনাকে ফিরে তাকানোর প্রয়োজন পড়বে না। আপনি কিভাবে গাড়ির পার্টস ব্যবসা করবেন তার সম্পর্কিত যাবতীয় তথ্য দেওয়া হল। কোথা থেকে গাড়ির পার্টস সংগ্রহ করবেন তার ও যাবতীয় তথ্য দেওয়া হল

car parts business
গাড়ির পার্টস ব্যবসা

Table of Contents

গাড়ির পার্টস ব্যবসা করতে কত টাকা খরচ হয়?

গাড়ির পার্টস ব্যবসা ছোট করে করার জন্য আপনার খরচ হবে 2 লক্ষ থেকে 3 লক্ষ টাকা। আরেকটু বড় করে গাড়ির পার্টস ব্যবসা করার জন্য আপনার খরচ হবে 8 লক্ষ থেকে 10 লক্ষ টাকা। আপনি কেমন ভাবে গাড়ির পার্টস ব্যবসা করতে চাইছেন বা কোন অঞ্চলে এই ব্যবসা করতে চাইছেন তার ওপর নির্ভর করবে আপনার ব্যবসাকে কত পুঁজি লাগাতে হবে সেটা। আপনি যদি বড় মফস্বল এলাকা তে গাড়ির পার্টস ব্যবসা শুরু করেন তাহলে আপনার প্রতি আরো বেশি পরিমাণে লাগাতে হতে পারে। তবে আপনি যেমন খুশী লাগাবেন ঠিক তেমন পরিমাণেই লাভ করতে পারেনি ব্যবসা থেকে।

গাড়ির পার্টস ব্যবসা শুরু করার নিয়ম (Rules for starting a car parts business)

আপনি চাইলেই যেমন গাড়ির পার্টস ব্যবসা শুরু করতে পারেন, ঠিক তেমন গাড়ির পার্টস ব্যবসা করার জন্য বেশ কিছু নিয়ম আপনাকে মেনে চলতে হবে, এবং এইসব নিয়মগুলি আপনি সঠিকভাবে মেনে চললে আপনি আপনার ব্যবসাকে সঠিকভাবে দাঁড় করাতে পারবেন।

আপনাকে গাড়ির পার্টস এর সাথে সাথে যেখানে ব্যবসা করবেন সেই জায়গাটা কেউ বা সেই দোকানটাকে ও আকর্ষণীয় করে তুলতে হবে। যাতে কাস্টমাররা আপনার দোকানের প্রতি আকৃষ্ট হয় আপনাকে আপনার দোকানের গুণগত মান এবং দাম সঠিক নির্ধারণ করতে হবে যাতে কাস্টমাররা অন্য কোন দোকানে না চলে যায়। গাড়ির পার্টস ব্যবসা শুরু করার জন্য যে সকল নিয়ম আপনাকে মেনে চলতে হবে সেগুলি হল-

গাড়ির পার্টস ব্যবসা সঠিক স্থান নির্ণয়

যে কোন ব্যবসা শুরু করার আগে আমাদের অবশ্যই নজরে রাখতে হয় যে ব্যবসাটি করবো সেই ব্যবসাটি কোন স্থানে হবে। যে স্থানে আমরা ব্যবসাটি করতে চাইছি সেখানে আমাদের মার্কেট টা কেমন পাবো, কেমন বিক্রি করতে পারব, কাস্টমার কেমন হবে এই সব তথ্য গুলি। হলে আপনাকেও গাড়ির ব্যবসা শুরু করতে হলে সঠিক স্থান নির্ণয় করতে হবে। এর জন্য আপনাকে যে সকল জিনিসগুলি মনে রাখতে হবে সেগুলি হল-

  • বড় কোন বাজার বা জনবহুল এলাকার কাছাকাছি ব্যবসা করা।
  • যেখানে বড় কোন শপিংমল বা বড় রেস্টুরেন্ট রয়েছে কিংবা বড় কোন খেলার মাঠে রয়েছে তার আশপাশে ব্যবসা করা।
  • যেখানে বড় কোন সোসাইটি রয়েছে তার কাছাকাছি ব্যবসার স্থান নির্ণয় করা।

সঠিক স্থান নির্ণয় করা হয়ে গেলে আপনার ব্যবসা টিকেও আকর্ষণীয়ভাবে উপস্থাপন করতে হবে।

আরো পড়ুন- মপ তৈরির ব্যবসা

গাড়ীর পার্টসের দোকান দিয়ে ব্যবসা

আপনি যখন সঠিক স্থান নির্ণয় করে ফেলেছেন আপনার ব্যবসার জন্য তখন আপনার গুরুত্বপূর্ণ কাজ হবে একটি দোকান তৈরি করা অথবা ভাড়া নেওয়া। যে স্থানে আপনি ব্যবসাটি করতে চাইছেন সেই স্থানে ভালো একটি পজিশনে একটা দোকান ভাড়া নিন অথবা আপনার জায়গা থাকলে বা সামর্থ্য থাকলে দোকান একটি তৈরি করুন।

তারপর সেই দোকান টা খুব সুন্দর করে গাড়ির বিভিন্ন পার্টস দিয়ে সাজানো যাতে সবাই এর চোখে আপনার দোকান খুব আকর্ষণীয় লাগে। আপনাকে খেয়াল করতে হবে আপনি যে মার্কেটে বাজে স্থানে দোকান তৈরি করছেন সেখানে আপনি যেন হন একমাত্র গাড়ির পার্টস ব্যবসায়ী। আপনি যদি সঠিকভাবে সমস্ত কাজ এবং দোকান চালাতে পারেন তাহলে আপনিই হবেন গাড়ির পার্টস ব্যবসা সফল ব্যবসায়ী ।

গাড়ির পার্টস ঠিক করার জন্য দক্ষ কারিগর রাখতে হবে

গাড়ির পার্টস বিক্রির পাশাপাশি আপনাকে দক্ষ কারিগর রাখতে হবে যারা গাড়ির পার্টস সারাতে পারে। অর্থাৎ আপনার দোকানের সাথে লাগোয়া আপনাকে একটি গাড়ির গ্যারেজ তৈরি করতে হবে। এই ভাবেই আপনি আপনার ব্যবসাকে বেশি বড় করতে পারবেন। দক্ষ কারিগর রা যেমন গাড়ি মেরামত করবে তেমন তাদের প্রয়োজনীয় সামগ্রী ও আপনার দোকান থেকেই তারা কিনবে হলে আপনার ব্যবসার দ্রুত ত্বরান্বিত করতে থাকবে।

আপনার কাছে দক্ষ কারিগর থাকলে তবেই মানুষজনও আপনার কাছে আসবে গাড়ির পার্টস নিতে সহ গাড়ি সারাতে। এই জন্য আপনাকে অবশ্যই একজন বা একাধিক দক্ষ কারিগর আপনার দোকানে নিয়োগ করতে হবে।

গাড়ি সারানোর গ্যারেজ তৈরি

গাড়ির পার্টস এর ব্যবসা করতে করতে আপনাকে গাড়ি সারানোর জন্য একটি গ্যারেজ তৈরি করতে হবে যেখানে আপনার দক্ষ কারিগরদের আপনি রাখবেন।
বর্তমানে প্রতিটি গাড়ির পার্টস ব্যবসা তাদের দোকানের সাথে লাগোয়া একটি গাড়ির গ্যারেজে তৈরি করেছেন। যাতে গাড়ির গ্যারেজের যাবতীয় গাড়ির পার্টস তার দোকান থেকে কেনা হয় এবং এতে দোকানের লাভ এবং দোকানের নাম ও বৃদ্ধি পেতে থাকে।

গাড়ির পার্টস আমদানি করে ব্যবসা

আপনি চাইলে সরাসরি গাড়ির পার্টস এর দোকান করতে পারেন কিন্তু আপনাকে অবশ্যই গাড়ির পার্টস আমদানি করতে হবে তা না হলে আপনি আপনার ব্যবসা বড় করতে পারবেন না।

এইজন্য বড় বড় হোলসেল যেসব দোকান রয়েছে গাড়ির পার্টস এর জন্য সেইসব দোকান থেকে আপনাকে গাড়ির পার্টস পাইকারি দামে কিনে নিয়ে আসতে হবে আপনার দোকানে। গাড়ির পার্টস আমদানি করার পর আপনি আপনার দোকানে নতুন থেকে নতুনতর পার্টস নিয়ে ব্যবসা করতে পারবেন।

আবার আপনি চাইলে সরাসরি কোম্পানি থেকে গাড়ির পার্টস আমদানি করতে পারেন এবং বিভিন্ন ছোট ছোট রিটেল দোকানদারদের আর্থিং গাড়ির পার্টস বিক্রি করে ব্যবসা করতে পারেন।
এইজন্য আপনার দরকার হবে সেই সব ছোট ছোট রিটেল দোকানদারদের সঙ্গে ভালো রিলেশন রাখার। যাতে তারা আপনার কাছেই তাদের প্রয়োজনীয় মালের অর্ডার করে।

আপনি এইসব ব্যবসায়ীদের গাড়ির পার্টস আমদানি করে দিয়ে অনেক ভালো টাকা ইনকাম করতে পারেন এবং খুব ভালোভাবে গাড়ির পার্টস ব্যবসা করতে পারেন।

অবশ্যই পড়ুন- ফ্লোর ক্লিনিং ভাইপার তৈরির ব্যবসা

car parts
গাড়ির পার্টস

কোন ধরনের পার্টস বেশি বিক্রয় হয়?

গাড়ির পার্টস ব্যবসা শুরু করতে হলে আপনাকে একটু রিসার্চ করতে হবে তা জানতে হবে যে কোন ধরনের পার্টস বেশি বিক্রি হয়। সেই অনুযায়ী আপনাকে সেই সব পার্টস বেশি বেশি করে আপনার দোকানে নিয়ে আসতে হবে। যেমন গাড়ির বডি পার্ট চাকা গিয়ার কুলিং সিস্টেম এই ধরনের জিনিস গুলি সাধারণত গাড়িতে একটু বেশি পরিমাণে ব্যবহৃত হয় তাই এইসব জিনিস গুলো একটু বেশি করে আপনার দোকানে নিয়ে আসতে হবে।

যেকোনো গাড়ির ক্ষেত্রে বেশি পরিমাণে নষ্ট হয় যে সকল পার্টস সেগুলি বেশি পরিমাণে আপনার দোকানে রাখতে হবে।

  • গাড়ির চাকা
  • কুলিং সিস্টেম
  • সাইট মিরর
  • গাড়ির ইঞ্জিন
  • গাড়ির ফ্রন্ট মিরর
  • গাড়ির ইন্ডিকেটর
  • ক্লাচ ব্রেক ইত্যাদি

প্রয়োজন বুঝে ব্যবসা করতে হবে

আপনি যখন কোন গাড়ির পার্টস নিয়ে আসছেন বা গাড়ির পার্টস ব্যবসা করতে করতে আপনাকে বুঝতে হবে কোন জিনিসটার প্রয়োজন বেশি পড়ছে সেই প্রয়োজন বুঝে আপনাকে ব্যবসা করতে হবে। গাড়ির পার্টস ব্যবসার ক্ষেত্রে পার্টস এর গুণগত মান, দাম, এবং পরিষেবা গ্রাহকদের প্রভাবিত করে সেই জন্য এইসব জিনিস গুলির উপরে আপনাকে অবশ্যই নজর রাখতে হবে।

গাড়ির পার্টস ব্যবসা করতে হলে অবশ্যই আপনাকে আপনার এলাকার বিভিন্ন গ্যারেজ মেকানিক এর সাথে যোগাযোগ রাখতে হবে যাতে তারা তাদের প্রয়োজনীয় সরঞ্জামগুলি আপনার দোকান থেকে কিনে। এবং গাড়ির পার্টস এর সাথে সাথে একটা গাড়ির জন্য প্রয়োজনীয় যাবতীয় সরঞ্জাম আপনাকে আপনার দোকানে নিয়ে আসতে হবে সেটাও আপনার এলাকার যে সকল গাড়ি চালক হয়েছে তাদের প্রয়োজন অনুযায়ী।

মটরসাইকেলের পার্টস ব্যবসা জন্য খরচের আনুমানিক ধারণা-

আপনি যদি মটরসাইকেলের পার্টস ব্যবসা বা মোটরসাইকেলের যন্ত্রাংশ নিয়ে ব্যবসা করতে চান তাহলে কয়েক লক্ষ টাকার দরকার হয়। কারণ প্রতিটা যন্ত্রাংশের দাম বর্তমান সময়ে ব্যবস্থা অনুযায়ী অনেক বেশি পরিমাণে হয়ে থাকে। মোটরসাইকেলের বড় পার্টসের দাম এক রকম হয় যেমন ইঞ্জিন পার্টস, রিপিয়ারিং যন্ত্রাংশ অথবা মোটরসাইকেলের সামগ্রী বডি পার্টস এর দাম একটু বেশি হয়ে থাকে। আবার মোটরসাইকেলের ব্যবহৃত ছোট ছোট জিনিস যেগুলি লুকিং গ্লাস, ইন্ডিকেটর, মবিল ইত্যাদির দাম কম হয়ে থাকে। তবে আপনি যদি বড় ডিলারশিপ তৈরী করতে চান তাহলে আপনার ব্যবসায় 10-15 লক্ষ টাকা খরচ হতে পারে।


আর আপনি যদি ছোট কোন দোকান দিয়ে মোটর পার্টস এর যন্ত্রাংশ নিয়ে ব্যবসা করেন তাহলে আপনার খরচ হবে 5 থেকে 8 লাখ টাকার মধ্যে। আপনার ব্যবসার পরিকল্পনা নির্দিষ্ট করার পরেই আপনি ঠিক করবেন আপনি পাইকারি ব্যবসা করবেন নাকি খুচরা ব্যবসা করবেন সেটি।

গাড়ির পার্টস এর ব্যবসায় কাদের টার্গেট করবেন?

সাধারণত অল্প বয়সী ছেলেরা গাড়ি চালাতে বেশি পছন্দ করে বা মোটরসাইকেল জাতীয় গাড়ি চালানোর বেশি পছন্দ করে। হলে আপনাকে টার্গেট করতে হবে আপনার ক্রেতারা কোন বয়সে 18 থেকে 25 থেকে 40 থেকে 60 বছরের বেশি। আপনি সেইসব ক্রেতার মনের মত নতুন নতুন ডিজাইনের জিনিসগুলি আপনার দোকানে রাখতে হবে। 18 থেকে 25 বছরের যুবক যুবতীরা তাদের গাড়িতে যে সকল পার্টস লাগাতে পছন্দ করে সেই সব নতুন ধরনের গাড়ির পার্টস আপনাকে আপনার দোকানে রাখতে হবে।

বর্তমানে কোম্পানিগুলি তাদের গাড়ি গুলিকে আপডেট করছে ফলে যন্ত্রপাতি ও গাড়ির পার্টস গুলো নতুন থেকে নতুনতর হয়ে যাচ্ছে সেই অনুযায়ী আপনার যে সকল পুরনো কাস্টমার অথবা মধ্য বয়স্ক লোকেরা যে সকল পুরনো গাড়ি চালাচ্ছে তাদের সেই পুরনো গাড়ির যন্ত্রাংশ আপনার দোকানে রাখতে হবে অবশ্যই। আপনাকে অবশ্যই একজন বিক্রেতা হিসেবে বুঝতে হবে, কাস্টমারের প্রয়োজনটা সেই অনুযায়ী উপযুক্ত দামও কাস্টমারের কাছ থেকে নিতে হবে। যাতে কাস্টমার বৃদ্ধি পায়, আপনার দোকানের দিকে এদিকে খেয়াল রাখতে হবে।

অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ দিক গুলি

গাড়ির পার্টস ব্যবসা করতে হলে আর তিনি যেমন উপরের সমস্ত তথ্য গুলি ভালো করে পড়েছেন এবং বুঝতে পেরেছেন, তার পরেও আপনাকে বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ দিক নজরে রাখতে হবে সেগুলি হল-

সঠিক দাম নির্ধারণ- আপনি যে গাড়ির পার্টস বিক্রি করছেন সেই সকল পার্স যন্ত্রাংশের সঠিক দাম নির্ধারণ আপনাকে করতে হবে।
সঠিক দাম নির্ধারণের মধ্য দিয়েই সে তার সাথে আপনার সম্পর্ক সুন্দর হবে এবং আপনার ব্যবসা ও দ্রুত ত্বরান্বিত করতে থাকবে।

সুন্দর ব্যবহার-আপনি যদি ক্রেতাদের সাথে সুন্দর ব্যবহার না করেন তাহলে ক্রেতারা আপনার দোকান থেকে মাল কিনলে না। সেই জন্য অবশ্যই আপনাকে ক্রেতাদের সঙ্গে সুন্দর ব্যবহার করতে হবে। আপনার ব্যবহার আচরণই হবে আপনার ব্যবসার উন্নতির একটি চাবিকাঠি। আশপাশের যত গাড়ির মেকানিক রয়েছে তাদের সাথে ও সুন্দর ব্যবহারের আপনাকে বজায় রাখতে হবে যাতে তারা আপনার দোকান থেকে গাড়ির পার্টস কিনে।

বাকি দোকানদারদের থেকে আলাদা- গাড়ির পার্টস এর ব্যবসা আপনার আশপাশে যদি অন্য কোন দোকানদার পড়ে থাকে আপনাকে চেষ্টা করতে হবে তার ব্যবসার থেকে আলাদা আপনার ব্যবসা টি যেনো হয়। এর জন্য আপনাকে নতুন থেকে নতুনতর গাড়ির পার্টস আপনার দোকানে রাখতে হবে। সেই সব দোকানদার থেকে আপনার দোকানে গাড়ির পার্টস এর দাম যেন কম হয় সেই দিকে নজর রাখতে হবে। এবং বাকি সবার সাথে সুন্দর ব্যবহার আচার আচরন আপনাকে করতে হবে।

Motorcycle parts business
মটরসাইকেলের পার্টস ব্যবসা

কিভাবে মোটরসাইকেল পার্টস দোকানের প্রচার করা হয়

আপনার বিক্রি বাড়ানোর জন্য অবশ্যই আপনার দোকানের প্রচার করা অত্যন্ত জরুরি। আপনি যখন গাড়ির পার্টস ব্যবসা বা মোটরসাইকেল পার্টস ব্যবসা শুরু করবেন তখন আপনাকে আপনার ব্যবসার বা আপনার দোকানের প্রচার করতে হবে। প্রচার করার জন্য আপনি প্রথমে বেশ কিছু লিফলেট ছাপিয়ে নিন এবং কিছু ফ্লেক্স ছাপিয়ে নিন। ফ্লেক্স গুলি জনবহুল এরিয়াতে আপনার লাগিয়ে রাখুন যাতে সবার নজর পড়ে আপনার ফ্লেক্স বিজ্ঞাপনের ওপর।

এরপর আপনার প্রধান কাজ হবে আশপাশের যত গাড়ির গ্যারেজ এবং গাড়ির দোকান গুলো রয়েছে সেইসব দোকানে লিফলেট দিয়ে এবং তাদের সঙ্গে কথা বলে আপনার দোকানের বিজ্ঞাপন করা। একটা কি দুটো টোটো ভাড়া করে এলাকায় এলাকায় মাইক লাগিয়ে প্রচার করতে পারেন আপনার দোকান সম্পর্কে। এছাড়া বর্তমান সময়ে সোশ্যাল মিডিয়ার যুগে আপনি চাইলে সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে আপনার দোকানের বিজ্ঞাপন দিতে পারেন অথবা প্রচার করতে পারেন।

অবশ্যই পড়ুন- পারফিউম তৈরির ব্যবসা

গাড়ির পার্টস ব্যবসায় লাভ কত?(What is the profit of car parts business?)

প্রত্যেকটা ব্যবসাতে যেমন পুঁজি লাগাতে হয় তেমন লাভ হয়। সেইরকম গাড়ির পার্টস ব্যবসা লাভ অনেকটা বেশি পরিমাণে হয়ে থাকে।
গাড়ির পার্টস এর ব্যবসায় লাভ কেমন হবে সেটা নির্ভর করবে সম্পূর্ণ আপনার ব্যবসার ধরনের ওপর। আপনি যেহেতু বিভিন্নভাবে বিভিন্ন গাড়ির পার্টস নিয়ে বিভিন্ন পদ্ধতিতে ব্যবসা করতে পারেন সেই অনুযায়ী লাভের পরিমাণ কমবেশি হতে পারে। তবে গাড়ির পার্টস এর ব্যবসা সাথে সাথে যদি আপনি গ্যারেজ দিয়ে ব্যবসা করেন বা বিভিন্ন গ্যারেজের সাথে কথা বলে ব্যবসা করেন তাহলে আপনার লাভের পরিমাণ অনেক বেশি পরিমাণে হয়ে থাকে। তবে সাধারণত গাড়ির পার্টস ব্যবসায় লাভ হয় 2 লক্ষ টাকা পুজিতে 2.5 লক্ষ টাকা লাভ

গাড়ির পার্টস ব্যবসা অনেক ইউনিক এবং অনেক কষ্টের হয়ে থাকে ফলে এই ব্যবসা আপনি জমিয়ে করতে পারলে লাভের পরিমাণ অনেক বেশি হয়ে থাকে তবে ঝুঁকির পরিমাণ অনেক কম হয় এই ব্যবসা। তবে গাড়ির পার্টস ব্যবসা করতে হলে আপনাকে অবশ্যই আগে থেকে গাড়ির পার্টস সম্পর্কে নিজের ধারণা তৈরি করে এই ব্যবসা নামা উচিত

আমাদের এই পোষ্টে যদি কোন সমস্যা থেকে থাকে তাহলে জানাবেন।

জিজ্ঞাসিত প্রশ্ন ও FAQ

গাড়ির পার্টস ব্যবসা করতে কত টাকা লাগে?

উত্তর: 2 লক্ষ টাকা থেকে 3 লক্ষ টাকা বিনিয়োগ করতে হয় গাড়ির পার্টস ব্যবসা করতে।

গাড়ির পার্টস এর পাইকারি বাজার কোথায়?

উত্তর: মল্লিক বাজার গাড়ির পার্টসের পাইকারি বাজার।

মোটরসাইকেলের পার্টস ব্যবসা করতে কত বড় জায়গা লাগে?

উত্তর: 10/10 এর একটি দোকান করতে হবে মোটরসাইকেলের পার্টস ব্যবসা করতে।

গাড়ির পার্টস দোকানে কতজন কর্মচারী লাগে?

উত্তর: কমপক্ষে 2 জন কর্মচারী লাগে।

গাড়ির গ্যারেজ কোথায় করা যায়?

উত্তর: যেকোনো বাজার এলাকার রাস্তার ধারে গাড়ির গ্যারেজ করা যায়।

গাড়ির পার্টস ব্যবসায় লাভ কত?

উত্তর: প্রতিটি পার্টস এর ওপর ৩০% থেকে ৫০% ওপরে লাভ থাকলেও প্রতি মাসে ২৫ থেকে ৫০ হাজার টাকা লাভ করা যায়।

নতুন নতুন ব্যবসার আইডিয়া দেখুন-

সাদা ফিনাইল তৈরীর ব্যবসা

বিস্কুট তৈরির ব্যবসা

Leave a Comment