গরুর খামারের ব্যবসা শুরু করে 10 লাখ টাকা আয় করুন | Cattle Farm Business Right Now

গরুর খামারের ব্যবসা আপনাকে সত্যিই লাভবান করতে পারে এবং একজন সফল উদ্যোক্তা বানাতে পারে। গ্রাম বাংলার আদি থেকে গরু আমাদের গবাদি পশু হিসেবে প্রতিটি পরিবারেই পালিত হতো। বর্তমান সময়ে মানুষের ব্যস্ততার কারণে দুই একটা পরিবার বাদে বাকি সমস্ত পরিবারেই গরু পালন বন্ধ হয়ে গেছে। তবে দুধের চাহিদা মানুষের মধ্যে যেমন আগেও ছিল তেমন বর্তমানেও রয়ে গেছে এবং সেটা ভবিষ্যতেও চলবে। গরুর খামারের ব্যবসা যদি আপনি করেন তাহলে আপনি শুধু লাভবান হবেন তাই না আপনি সফল উদ্যোক্তা হয়ে উঠবেন। বর্তমান সময়ে গরুর খামার অঞ্চলভিত্তিক ভাবে অনেকাংশে কমে গেছে যার কারণে দুধের চাহিদা দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে।

আমাদের দেশের ভৌগোলিক অবস্থান এতটাই সুন্দর যে আবহাওয়া ও প্রযুক্তির উন্নত মানের কারণে গরু পালন আমাদের দেশে আদর্শ। বর্তমান সময়ের একটি পরিসংখ্যান অনুযায়ী দেশে যেসব গরুর খামার গড়ে উঠেছে তার উদ্যোক্তাদের বয়স 70% তরুণ সম্প্রদায়। হলে আপনি যদি বর্তমান সময়ে কি ব্যবসা করবেন বলে ভাবছেন, সবকিছু ভুলে গিয়ে আপনি যদি এখন গরুর খামারের ব্যবসা শুরু করেন তাহলে সত্যিই আপনি সফল উদ্যোক্তা হয়ে উঠবেন।

আমরা সবাই জানি যে গরু শুধুমাত্র দুধ দেয় তাই নয় গরুর মাংসের চাহিদা পূরণের একটি বড় উৎস। আবার অনেকাংশে যেখানে ট্রাক্টর হাল করা সম্ভব হয় না সেখানে গরু দিয়ে এখনো পর্যন্ত হাল হয়। তাই গরুর খামারের ব্যবসা করলে আপনি একটি গরু থেকে সব ধরনের ইনকাম করতে পারবেন।

আপনি কিভাবে গরুর খামার করবেন, গরু কি কি ধরনের খাবার দেবেন, কোন জাতের গরু নিলে আপনার ব্যবসা বেশি ভালো চলবে। এই সম্পর্কিত যাবতীয় আলোচনা থাকবে আমাদের এই আর্টিকেলে। তাই আপনি যদি এই আর্টিকেলটি ভাল করে পড়েন তাহলেই আপনি বুঝতে পারবেন এবং গরুর খামারের ব্যবসা করার জন্য আপনার যথেষ্ট জ্ঞান অর্জন হয়ে যাবে।

Cattle Farm Business
গরুর খামারের ব্যবসা

গরুর খামারের ব্যবসা কেন করবেন?

গরুর খামারের ব্যবসা একটি লাভজনক ব্যবসা তাই এই ব্যবসাটি করবেন আপনি। গরুর খামারের ব্যবসা করার জন্য শুধুমাত্র কয়েকটা জিনিসের জ্ঞান থাকলেই এই ব্যবসা করতে পারবেন। উপরন্ত গরুর খামারের ব্যবসা করতে হলে আপনি খুব অল্প পুঁজি দিয়েই এই ব্যবসা করতে পারেন।
গরুর খামারের ব্যবসা করে আপনি দুধের চাহিদা মেটাতে পারবেন, বায়োগ্যাস তৈরি করে বিক্রি করতে পারবেন, গোবর জৈব সার হিসেবে বিক্রি করতে পারবেন, এবং দুধ দিয়ে ঘি, মাখন, পনির ইত্যাদি তৈরি করে আপনি বিক্রি করতে পারবেন। হলে গরুর খামারের ব্যবসা আপনি কেন করবেন তা সম্পর্কিত ইনফরমেশন পেয়ে গেলেন।

কিভাবে গরুর খামার তৈরি করা হয়?

গরুর খামার তৈরি করার জন্য এমন একটা জায়গা আপনাকে নির্বাচন করতে হবে যেখানে সর্বদা আলো-বাতাস প্রবেশ করে এবং বর্ষাকালে সেখানে যেন জল না জমে। যেখানে আপনি গরুর খামার তৈরি করবেন সেখান থেকে কাছাকাছির মধ্যে যেন গরুর আবর্জনা আপনি খেলতে পারেন।
আপনার জায়গা নির্বাচনের পরে একটি ঘর আপনাকে তৈরি করতে হবে যার মধ্য গরু গুলো আপনি রাখবেন। আপনি কতগুলো গরু রাখবেন তার ওপরে নির্ভর করে আপনাকে ঘরটি বানাতে হবে। ধরুন আপনি যদি দশটা গরু নিয়ে প্রথমে ব্যবসা শুরু করেন তাহলে আপনাকে কুড়ি ফুট লম্বা এবং 10 ফুট চওড়া একটি ঘর বানাতে হবে।

আরো পড়ুন-

ব্যবসা করে প্রতি দিন ইনকাম করুন 50000 টাকা

দুধের ব্যবসা


গরুর খামারের ব্যবসা করার আগে দু-তিনজন গরুর খামারি যারা রয়েছেন আপনার আশেপাশের এলাকাতে তাদের কাছে গিয়ে অল্প হলেও অভিজ্ঞতা অর্জন করবেন। তাদের কি কি সমস্যা হয় গরুর খামারের ব্যবসা করতে গেলে আগে সেগুলো খেয়াল রাখবেন এবং নোট করবেন।

গরুর খামারের ব্যবসা শুরুর পূর্বেই আপনাকে নির্বাচন করে নিতে হবে আপনি কি ধরনের গরু নিয়ে ব্যবসা করতে চান। আপনি যদি শুধুমাত্র দুধ উৎপাদনের জন্য গরু পালন করেন তাহলে যে উন্নত মানের গরু গুলি শুধুমাত্র দুধের জন্য পালন করা হয়, সেই সব গরু গুলো আপনাকে নিয়ে আসতে হবে আপনার খামারে। আর আপনি যদি মাংস উৎপাদনের জন্য গরু পালন করেন তাহলে যেসব গরু খুব দ্রুত পরিমাণে বেড়ে ওঠে কিন্তু বেশি দুধ হয় না সেই ধরনের গরুগুলিকে আপনাকে খামারে পালন করতে হবে।

গরুর খামারের ব্যবসা করতে কত টাকা খরচ হয়?

গরুর খামারের ব্যবসা করতে সাধারণত 5 থেকে 10 লক্ষ টাকা নিয়ে ব্যবসা করা যায়। আবার মাত্র 50 হাজার টাকা দিয়ে গরুর খামারের ব্যবসা করা যায়। শুনে হয়তো আপনার অবাক লাগতে পারে যে মাত্র 50 হাজার টাকা দিয়ে কিভাবে গরুর খামারের ব্যবসা করা যায়। যেসকল বড় বড় গরুর খামার রয়েছে তাদের সেখানে যখন একটা গরুর নতুন বাছুর জন্মায় তখন তারা সেই বাছুরকে অনেক সময় মেরে ফেলে আবার অনেক সময় বিলিয়ে দেয়। এই কারণে তারা বাছুরকে মেরে ফেলে বা বিলিয়ে দেয় কারণ বাচুর যদি তাদের খামারে থাকে তাহলে বাছুরকে খাওয়াতে হবে এবং বাছুর বড় হতে হতে যে পরিমাণ সময় লাগবে সে পরিমান সময় তারা একটা বাছুরকে মানুষ করতে চায়না।

আবার বাছুর গরুর দুধ খাবে এতে ও তাদের ক্ষতি হবে ব্যবসাতে। এইসব কারণে বড় বড় খামারিরা গরুর বাছুর হলে মানুষকে অল্প দামে বিক্রি করে দেয় আবার অনেককে এমনিতেই বিলিয়ে দেয় আবার কোনো কোনো সময় বাছুরকে মেরেও ফেলে। হলে আপনাকে এই ধরনের বড় বড় গরুর খামারিদের কাছে যেতে হবে তারপর সেখান থেকে সেইসব বাছুর গুলোকে সংগ্রহ করে নিয়ে আসতে হবে যেগুলো ওই খামারিদের দরকার নেই।

আপনি খুব অল্প টাকা দিয়ে গরুর বাছুর কিনে আপনার খামারের নিয়ে আসতে পারেন এতে অনেক অল্প টাকা খরচ হবে। ব্যবসার শুরুতে আপনি যদি পাঁচ দশটা গরুর বাছুর দিয়ে ব্যবসা শুরু করেন তাহলে একটু সময় লাগবে ঠিকই কিন্তু অল্প টাকা দিয়ে আপনি গরুর খামারের ব্যবসা শুরু করতে পারবেন।

Types of cattle
গরুর প্রকারভেদ

গরুর খামারের ব্যবসায় কি জাতের গরু ভালো?

আপনি যখন গরুর খামার তৈরি শেষ করে ফেলবেন তখন আপনার প্রয়োজন পড়বে গরু সংগ্রহ করা। আপনি কি জাতের বাকি ধরনের গরু পালন করবেন তা নিয়ে চিন্তা করার কোনো কারণ নেই নিচে বিস্তারিতভাবে বিভিন্ন গরু সম্পর্কে আলোচনা করা হয়েছে। খুব ভালো জাতের গরু কিনতে আপনার খরচ পড়ে যাবে প্রায় কুড়ি থেকে ত্রিশ হাজার টাকার মতো। কিন্তু আপনি যদি সেই বড় খামারিদের কাছ থেকে গরু নিয়ে আসেন তাহলে আপনার খুব অল্প খরচেই গরুর বাছুর কিনে শুরু করতে পারবেন ব্যবসা।যেসকল ভালো প্রজাতির গরুর ঘর রয়েছে সেইসব প্রজাতির গরুর আপনি আপনার ফার্মে পালন করতে পারেন।

অবশ্যই পড়ুন- কিভাবে ব্যবসা শুরু করব?

দুধের জন্য পালন করা গরু

হলিস্টিন ফ্রিজিয়ান- হলিস্টিন ফ্রিজিয়ান একটি ভাল জাতের গাভী যেটি প্রতিদিন 30 লিটার এর বেশি দুধ দিতে পারে। সাধারণত এই গরুগুলির গায়ের রং সাদা কালোর মেশানো হয়ে থাকে। এদের লেজের ডগার দিকে চুল সাদা রংয়ের হয়। হলিস্টিন ফ্রিজিয়ানের ওজন 400 থেকে 500 কেজি হয়ে থাকে। এদের যখন বাছুর জন্মায় তখন এক একটা বাছুরের ওজন হয় 30 থেকে 45 কেজির মতো। একটা গরু থেকে 30 লিটার দুধ পাবার জন্য দিনে আপনাকে তিনবার করে দুধ দোয়াতে হবে।

ব্রাউন সুইচ- ব্রাউন সুইচ এক ধরনের ভাল জাতের গাভী যা প্রতিদিন 25 লিটার করে দুধ দিতে পারে। ব্রাউন সুইস গরুর গায়ের রং সাধারণত কালো অথবা হালকা খয়রি হয়ে থাকে। ব্রাউন সুইস গরুর ওজন 600 কেজি থেকে 700 কেজির মধ্যে হয় এবং এর বাছুর যখন হয় তাদের ওজন 25 থেকে 30 কেজির মধ্যে থাকে।

জার্সি- জার্সি গরু একটি উন্নত মানের গরু যেটি সাধারণত সচরাচর পরিবারগুলি বর্তমানে পালন করে থাকে। জার্সি গরু প্রতিদিন 20 থেকে 25 লিটার দুধ দিয়ে থাকে। জার্সি গরুর ওজন 400 কেজি থেকে 500 কেজির মধ্যে হয়। জার্সি গরুর দুধ 25 লিটার পাওয়ার জন্য আপনাকে দিনে তিনবার করে দুধ দোহন করতে হবে।

লাল সিন্ধি- লাল সিন্ধি গরুর কদর শুধুমাত্র মানুষের জন্যই একটু বেশি থাকে। লাল সিন্ধি গরু সাধারণত একদিনে 10 লিটার এর মত দুধ দেয়। লাল সিন্ধি গরুর গায়ের রং লাল খয়রি হয়ে থাকে। লাল সিন্ধি গরুর একটা সবচেয়ে বড় বৈশিষ্ট্য হলো এরা বছরের 350 দিন দুধ দিতে পারে।

আয়ার সায়ার- আয়ার সায়ার এক জাতের গরু যা দিনে 16 থেকে 20 লিটারের মত দুধ দিতে পারে।আয়ার সায়ার গরুর গায়ের রং লাল সাদা হয়ে থাকে। এই গরুর ওজন 450 থেকে 600 কেজি হয়ে থেকে।

সাহলিওয়াল- সাহলিওয়াল গরু প্রতিদিন 15 লিটার করে দুধ দেয়।সাহলিওয়াল গরুর ওজন 350 কেজি থেকে 500 কেজির মধ্য হয়ে থাকে।

এইসব গরু গুলো সাধারণত দুধ দেওয়ার জন্য পালন করা হয়। আপনি যদি শুধুমাত্র দুধের জন্য গরুর খামারের ব্যবসা করতে চান তাহলে আপনার জন্য এই সব প্রজাতির গরু গুলি বেশি লাভজনক হবে।
এছাড়াও আরও অনেক প্রজাতির গরু পাওয়া যায় যেগুলো মাংসের জন্য পালন করা হয়।

মাংসের জন্য পালন করা গরু

অ্যাঙ্গাস- অ্যাঙ্গাস এক প্রজাতির গরুর যেটি স্কটল্যান্ড, এভারডিন এর উত্তর-পূর্বাঞ্চলে পাওয়া যায়। এই জাতের গরু বাশারের ওজন 700 কেজি থেকে 850 কেজির মধ্যে হয় ফলে এটি শুধুমাত্র মানুষের জন্যই পালন করে অনেক খামারিরা।

হরিয়ানা গাই-হরিয়ানা গায়ে ভারতের হরিয়ানা রাজ্যের লোটাস অঞ্চলে মূলত পাওয়া যায়। এই জাতের গরুর শরীর অনেক দ্রুত বৃদ্ধি পায় এবং এরা অনেক শক্তিশালী ও লম্বা হয়। অনেক মানুষজন হরিয়ানা গাড়ি নিয়ে ষাড়ের লড়াই করায়। হরিয়ানা গাই বড় হলে 500 থেকে 700 কেজির মতো ওজন হয়। সাধারণত হরিয়ানা গাই প্রতিদিন 5 লিটারের বেশি দুধ দিতে পারেনা।

এবার আপনাকে সিদ্ধান্ত নিতে হবে আপনি কি ধরনের গরু আপনার খামারে রাখবেন। গরুর খামারের ব্যবসা করতে হলে আপনাকে অবশ্যই এইসব গরু গুলোর মধ্যে কিছু গরু নিয়ে ব্যবসা শুরু করতে হবে। আপনি সাধারণত দুধের যদি ব্যবসা করেন তাহলে এই গরু গুলির উৎপাদিত দুধ নিয়ে আপনি বড় ডেয়ারি ফার্ম তৈরি করতে পারেন।

Dairy farm business
ডেয়ারি ফার্ম এর ব্যবসা

ডেয়ারি ফার্ম এর ব্যবসা

বর্তমান ক্ষেত্রে যারা যারা গরুর খামার করেছে তারা সকলেই এখন ডেয়ারি ফার্ম এর ব্যবসা করছে। হলে আপনিও গরুর খামারের ব্যবসা শুরু করার পর যে উৎপাদিত দুধ হবে সেই দুধ নিয়ে ডেয়ারি ফার্ম এর ব্যবসা করতে পারেন। শহরাঞ্চল গুলিতে দুধের চাহিদা যেহেতু প্রচুর থাকে তাই আপনার ডেয়ারি ফার্ম এর ব্যবসা শহরাঞ্চলে ব্যাপকভাবে চলবে।
শুধু আপনাকে এমন জায়গায় ডেয়ারি ফার্ম বানাতে হবে যেটা শহরাঞ্চল থেকে কাছাকাছি হয় যাতে উৎপাদিত দুধ আপনি দ্রুত শহরে নিয়ে গিয়ে বিক্রি করতে পারেন।

অবশ্যই পড়ুন- পেরেক তৈরির ব্যবসা

গরুর ফার্মের ব্যবসা কিভাবে পরিচালনা করা হয়

গরুর ফার্ম বা গরুর খাটাল গুলিতে 2-1 জন লোককে নিয়ে আপনি গরুর খামারের ব্যবসা করতে পারেন। কারণ গরুর খাটাল বানানোর জন্য এবং গরুকে খাবার দেওয়া গরুর পরিচর্যা করার জন্য বেশ কয়েকজন লোকের প্রয়োজন আপনার পড়বে। আপনি যদি একা করতে চান তাহলে আপনি সমস্ত জিনিসটা একা করে উঠতে পারবেন না।
একজন লোকের দায়িত্ব দিয়ে দেবেন গরুর খাবার অর্থাৎ খড় ভুসি এগুলো ঠিকমতো গরুর কাছে পৌঁছে দেওয়া এবং ঘরগুলো নিয়মিত কাটার। আর একজনের দায়িত্ব দেবেন গরুর বিষ্ঠা পরিষ্কার করা এবং গরুগুলিকে পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন রাখা। দুধের দায়িত্ব নিতে পারেন বা দুধ সরবরাহের দায়িত্ব নিতে পারেন।

গরুর খাটাল এর ব্যবসা কোন অঞ্চলে করা যায়?

গরুর খাটাল সাধারণত গ্রামাঞ্চল বা শহর থেকে কিছুটা দূরে করলে আপনি বেশি লাভবান হবেন। কারণ প্রতিদিন আপনার গরুর যে খাবার ঘাস অথবা ঘর লাগবে সেগুলি আপনি সহজে গ্রাম থেকে পেয়ে যাবেন। আবার গরু থেকে উৎপাদিত দুধ খুব সহজেই আপনি বিক্রি করতে পারবেন। ফলে এমন একটি জায়গা আপনাকে নির্ধারণ করতে হবে যেটা আপনাকে সমস্ত দিক থেকেই সুবিধা দেবে।

গরুর খামারের ব্যবসায় লাভ কত?

ধরা যাক আপনি মাত্র পাঁচটা গরু পুষেছেন। প্রতিটা গরু কমকরে 10 লিটার করে দুধ দেয়। তাহলে প্রতিদিন আপনি দুধ পান 10×5=50 লিটার। বর্তমানে 50 লিটার দুধ বিক্রি করতে পারবেন আপনি 45 টাকা পাইকারি দামে। 50×45=2250 টাকা। প্রতিদিন আপনি 2250 হাজার টাকার দুধ বিক্রি করতে পারছেন মাত্র পাঁচটা গরু থেকে। অর্থাৎ প্রতি মাসে আপনি 2250×30=67000 টাকা লাভ করছেন। আমি যে হিসেব গুলি দিলাম এগুলো খুব কম করে দেওয়া হয়েছে আপনি আশা করছি খুব ভাল জাতের গরু পালন করবেন যা প্রতিদিন এক একটা গরু কুড়ি লিটার করে দুধ দেয় এমন গরু।

মানে আপনারা বুঝতেই পারছেন সবচেয়ে খারাপ জাতের গরু নিয়ে ব্যবসা করলেও আপনি প্রতিমাসে 1 লক্ষ টাকার বেশি লাভ করতে পারছেন। তাহলে আপনি যদি ভাল জাতের গরু নিয়ে ব্যবসা করেন এবং একটু বেশি পরিমাণে গরু নিয়ে ব্যবসা করেন তাহলে প্রতি মাসে আপনি 10 লাখের বেশি টাকা লাভ করবেন।

আমাদের এই পোষ্টে যদি কোন সমস্যা থেকে থাকে তাহলে জানাবেন। আর আপনার ব্যবসা করার ক্ষেত্রে যদি কোনো অসুবিধা হয় তাহলেও আমাদের কমেন্ট করতে ভুলবেন না ।

জিজ্ঞাসিত প্রশ্ন ও FAQ

গরুর খামার ব্যবসা করতে কত টাকা লাগে?

উত্তর: 50 টাকা থেকে 5 লক্ষ টাকা খরচ গরুর খামার ব্যবসায়।

মাসে একটি গরুর খাবারের কত টাকা খরচ হয় ?

উত্তর: 2 থেকে 4 হাজার একটি পূর্ণাঙ্গ গরুর মাসে খাবারের খরচ।

গরুর খামারের আয়তন কত হওয়া উচিত?

উত্তর: গরুর উপর নির্ভর করবে খামারের আয়তন। একটি গরুর জন্য কমপক্ষে পাঁচ ফুট জায়গা থাকা প্রয়োজন।

শহরে কি গরুর খামার তৈরি করা যায়?

উত্তর: একটি গরুর খামার করার মত প্রয়োজনীয় জায়গা যদি থাকে তাহলে শহরেও গরুর খামার করা যায়।

ক্যাটল ফুড কি প্রতিটি গরুকে খাওয়ানো উচিত?

উত্তর: ভালো দুধ পাওয়ার জন্য ক্যাটল ফুড প্রতিটি গরুকে খাওয়ানো উচিত।

গরুর খামার ব্যবসায় লাভ কত?

উত্তর: প্রতি মাসে কমপক্ষে 25 হাজার টাকা থেকে 1 লক্ষ টাকারও বেশি লাভ করা যায় গরুর খামার ব্যবসা করে।

নতুন নতুন ব্যবসার আইডিয়া দেখুন-

 চালের পাইকারি ব্যবসা

বিস্কুট তৈরির ব্যবসা

Leave a Comment