অল্প পুজিতে ক্যাটারিং ব্যবসা শুরু করুন | Become a Successful Entrepreneur in Catering Business 1

এখনকার দিনে যে কোনো অনুষ্ঠানেই ক্যাটারিং এর প্রয়োজন পড়ে, তাই আপনি যদি ক্যাটারিং ব্যবসা শুরু করেন তাহলে আপনার ব্যবসা খুব ভালোভাবেই উন্নতি করবে। যে কোন অনুষ্ঠান হলেই সমস্ত উপকরণ যোগাড় করা রান্না করা এবং খাওয়ানোর দায়িত্ব বর্তমানে ক্যাটারিং নিয়ে থাকে। এবং বাড়ির মালিক সমস্ত দায়িত্ব থেকে কিছুটা মুক্তি পাবার জন্য ক্যাটারিং কে সমস্ত দায়িত্ব দিয়ে দেয়। পাড়ার কোনো ছোটখাটো অনুষ্ঠান হোক কিংবা কোনো বাড়ির অনুষ্ঠান সমস্ত জায়গায় এরেজমেন্ট করার ক্ষেত্রে ক্যাটারিং ব্যবসার জুড়ি মেলা ভার। আবার ক্যাটারিং ব্যবসা শুরু করতে খুব অল্প পুঁজি খরচ করতে হয় তাই একজন নতুন ব্যবসায়ী এই ব্যবসা করলে তার উন্নতি অবশ্যই হবে। তাই আপনি যদি ভাবেন ক্যাটারিং ব্যবসা শুরু করবেন এবং এই ব্যবসা করার সমস্ত ইনফর্মেশন আজকের এই পোষ্টে দেওয়া হল।

Catering business
Catering business

Table of Contents

ক্যাটারিং ব্যবসা করতে কত পুঁজি লাগে? (How much does it cost to run a catering business?)

ক্যাটারিং ব্যবসা অন্য ব্যবসা গুলো থেকে এই কারণে আলাদা কারণ এই ব্যবসা করতে অনেক অল্প পরিমাণ পুঁজি বিনিয়োগ করতে হয়। এছাড়াও ক্যাটারিং ব্যবসা তে ঝুমকির সম্ভাবনা থাকে না বললেই চলে। সাধারণত ক্যাটারিং ব্যবসা শুরু করার জন্য আপনাকে ন্যূনতম 50000 টাকা বিনিয়োগ করতে হবে। কারণ এই 50 হাজার টাকা দিয়ে আপনি প্রয়োজনীয় বাসনপত্র গ্যাস ওভেন সহ ক্যাটারিং এর কর্মচারীদের ড্রেস কিনবেন। এছাড়াও আপনি চাইলে ব্যবসার শুরুতে মাত্র 10 হাজার টাকা বিনিয়োগ করে এই ক্যাটারিং ব্যবসা করতে পারেন।

10 হাজার টাকা বিনিয়োগ করলে আপনাকে প্রয়োজনীয় বাসনপত্র সহ সরঞ্জাম ডেকোরেটরের কাছ থেকে ভাড়া নিয়ে কাজ করতে হবে। আবার আপনি চাইলে 1 লক্ষ টাকা বিনিয়োগ করে খুব বড় করে ক্যাটারিং ব্যবসা করতে পারেন। বড় বড় সেলিব্রেটিদের অথবা বড় কোন ব্যবসায়ীদের অনুষ্ঠানে যে সকল ক্যাডাররা কাজ করেন বা যেসকল ক্যাটারিং ব্যবসায়ী কাজ করেন তাদের বিনিয়োগের অর্থ অনেক বেশি পরিমাণে থাকে।

ক্যাটারিং আইটেম নির্ধারণ করুন

ক্যাটারিং ব্যবসা করতে গেলে আপনাকে সর্বপ্রথম ক্যাটারিং এ যে সকল আইটেম আপনি রান্না করবেন বা পরিবেশন করবেন তার একটা লিস্ট বানাতে হবে। তবে মানুষ বিবেচনায় বা এলাকা বিবেচনায় খাবারের লিস্ট ভিন্ন রকমের হতে পারে। তাদের সবার প্রথমে আপনি কি ধরনের খাবার তৈরি করতে পারেন তার লিস্ট আগে তৈরি করে নিন। এরপর আপনি যে এলাকাতে বা যেখানে ব্যবসাটি শুরু করবেন সেখানে কাস্টমারের অর্ডার অনুযায়ী খাবার তৈরি করার ব্যবস্থা করুন। যেমন সাধারণত বাঙালি কোন অনুষ্ঠানে ভাত, ডাল, মাছ, মাংস, চাটনি ইত্যাদি আরও বেশ কিছু খাবারের আয়োজন করতে হতে পারে।

আবার নন বাঙালি পরিবারের কোনো অনুষ্ঠানে আপনাকে হয়তো ইটলি, ধোসা, কন্টিনেন্টাল বা সাউথ ইন্ডিয়ান কোন খাবার তৈরি করতে হতে পারে। আবার এখন অনেক অনুষ্ঠান বাড়িতে বিরিয়ানি ফ্রাইড রাইস চিলি চিকেন চিকেন এর অনেক ধরনের আইটেম পছন্দ করে তাই সেই সব জিনিস গুলো বানানোর ব্যবস্থাপনাকে করতে হবে এবং তারও লিস্ট একটা বানাতে হবে। স্কুল কলেজগুলোতে যদি আপনি যোগাযোগ করেন এবং তার ক্যান্টিন যদি আপনি ভাড়া নিয়ে ব্যবসা করেন, তাহলে স্কুল কলেজের ছাত্র-ছাত্রীদের জন্য চাওমিন, এগ রোল, পরোটা, রুটি, কচুরি ইত্যাদি ধরনের খাবারের লিস্ট তৈরি করতে হবে। আপনাকে মনে রাখতে হবে যে আপনি কোন এলাকাতে ব্যবসা করছেন এবং আপনার কাস্টমার কারা রয়েছে, তাদের প্রয়োজনমতো আপনাকে খাবার তৈরি করতে হবে এবং পরিবেশন করতে হবে।

ক্যাটারিং ব্যবসায় স্থান নির্ধারণ করুন

ক্যাটারিং ব্যবসা করতে গেলে আপনাকে অবশ্যই ব্যবসার করার জন্য যোগ্যতম স্থান নির্বাচন করতে হবে। আপনি যদি চান গ্রামে থেকে ব্যবসা করবেন তাহলে গ্রামের যে সকল অনুষ্ঠানগুলো হয়ে থাকে সেইসব অনুষ্ঠানের আপনি খাবারের অর্ডার পেতে পারেন। তবে সবচেয়ে ভালো উপযুক্ত জায়গা হিসেবে আপনি যদি কোনো জমজমাট শহরাঞ্চলের বাজার এলাকাতে একটি ঘর ভাড়া নিয়ে ক্যাটারিং ব্যবসা শুরু করেন তাহলে আপনার কাছে গ্রাম, শহর এবং আশপাশের সমস্ত এলাকার অর্ডার আসতে পারবে। তাছাড়া ব্যবসা পরিচালনা করার জন্য যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নতি অবশ্যই দরকার । তাই এমন কোনো একটি উপযুক্ত স্থান আপনাকে নির্ধারণ করতে হবে যেখান থেকে আপনি দ্রুততার সাথে ব্যবসায় পরিচালনা করতে পারবেন, এবং খুব সহজেই শহর কিংবা গ্রামাঞ্চলের যেকোন প্রান্তে অর্ডার নিয়ে কাজ করতে পারবেন।

ক্যাটারিং ব্যবসা করতে কত বড় জায়গার প্রয়োজন হয়?

ক্যাটারিং ব্যবসা সবচেয়ে প্রধান জায়গা হলো রান্না করার রান্নাঘর। কিন্তু এই রান্না করার রান্নাঘরটি আপনার বাড়ির রান্নাঘর এর থেকে বড় হওয়ার প্রয়োজন রয়েছে। কারন এখানে একসাথে কয়েকশো লোকের রান্না করার মত জায়গা এবং রান্না করার জন্য প্রয়োজনীয় সামগ্রী রাখার মত জায়গার প্রয়োজন পড়বে। তার জন্য আপনি কোন ঘর ভাড়া নিতে পারেন কোন এলাকাতে। আর আপনার কাছে যদি পুঁজি কম থাকে তাহলে আপনি যে এলাকাতে বা যেখানে অর্ডার নেবেন সেখানে গিয়েই গ্যাস ওভেন ভাড়া করে রান্না করতে পারেন।

তবে খাবার প্রস্তুত করা এবং সেটাকে সুষ্ঠুভাবে পরিবেশন করায় ক্যাটারিং এর আসল কাজ তাই এমন একটি জায়গা আপনাকে নির্ধারণ করতে হবে বা এমন একটি ঘর ভাড়া করতে হবে যেখান থেকে আপনি এই সমস্ত জিনিসটা করতে পারবেন। সাধারণত ক্যাটারিং ব্যবসা করতে গেলে আপনাকে ন্যূনতম 10/10 ফুটের একটা ঘরের প্রয়োজন পড়বে।

খাবারের মেনু তৈরী করুন

ব্যবসা করার জন্য জায়গা নির্ধারণ এবং রান্না ঘর তৈরি করার পর আপনাকে সর্বপ্রথম আপনি যেসব খাবার পরিবেশন করবেন বা রান্না করবেন তার একটি মেনু তৈরি করতে হবে। খাবারের মেনুতে সমস্ত ধরনের খাবারের লিস্ট বানাতে হবে। এই লিস্ট আপনি কাস্টমারকে দেবেন, এবং কাস্টমার এই লিস্ট অনুযায়ী বিভিন্ন খাবার ঠিক করে আপনাকে বলবে, আর আপনি সেই সকল খাবার তৈরি করে তাদের পরিবেশন করবেন বা তাদের অনুষ্ঠানে নিয়ে যাবেন। আর চেষ্টা করবেন প্রতিটি খাবারের মেনুতে সেই রিলেটেড খাবার যেন থাকে। যেমন ভাত, ডাল, এর সাথে বাঙালির খাবার এর সমস্ত আইটেম গুলো একসাথে রাখবেন। আবার চিকেন রোল এর সাথে মাটন রোল, এগরোল এই ধরনের সমস্ত আইটেমগুলো আরেকটা লিস্টে রাখবেন।

অবশ্যই পড়ুন- কুরিয়ার সার্ভিস ব্যবসা কিভাবে শুরু করা যায়?

ক্যাটারিং ব্যবসা করতে কি কি লাইসেন্স লাগে?

ব্যবসার শুরুতে আপনি বিনা লাইসেন্সে 1-2 বছর ব্যবসা করতে পারেন। তবে ব্যবসার শুরুতে না লাইসেন্স নিলেও পরবর্তীকালে আপনাকে ট্রেড লাইসেন্স করতে হবে। এছাড়াও আপনি যদি কোন জায়গা ভাড়া নিয়ে বা কোনও ঘর ভাড়া নিয়ে ব্যবসা শুরু করেন তাহলে সেই ঘরের আইনি কাগজপত্র বা দলিলের জেরক্স আপনাকে অবশ্যই রাখতে হবে। এছাড়াও আপনাকে জিএসটি নাম্বার নিতে হবে। ফুড রেজিস্ট্রেশন লাইসেন্সও আপনাকে নিতে হবে কারণ আপনি যেহেতু খাবার নিয়ে ব্যবসা করছেন তার জন্য। প্রতিটি লাইসেন্স আপনি অনলাইনে এপ্লাই করে পেয়ে যাবেন এবং লাইসেন্স নেবার জন্য আপনি এই লিংকে দেখুন – ব্যবসায় প্রয়োজনীয় লাইসেন্স

ক্যাটারিং ব্যবসার নাম নির্ধারণ করুন

ক্যাটারিং ব্যবসা শুরু করতে হলে অবশ্যই আপনাকে একটা সুন্দর নাম রাখতে হবে আপনার ব্যবসার। কথায় আছে নাম দিয়ে যায় চেনা। তাই এমন একটি নাম আপনাকে ঠিক করতে হবে যে নাম মানুষের মুখে মুখে ছড়িয়ে যেতে পারে এবং দ্রুততার সাথে আপনার কোম্পানি একটা ব্র্যান্ডে পরিণত হতে পারে। এছাড়াও আপনি মার্কেটিং করবেন এবং বিজ্ঞাপনের মাধ্যমে মানুষের কাছে পৌঁছানোর জন্য সঠিক নাম অবশ্যই আপনাকে নির্ধারণ করতে হবে।

আপনি যে এলাকাতে ব্যবসা করবেন সেই এলাকায় যদি দ্বিতীয় আরেকটি কোম্পানি থাকে তাহলে ও মানুষ দুটো কোম্পানিকে আলাদা আলাদা নামের জন্যই চিনবে। এছাড়া আপনার যদি পরিষেবা আর রান্না যদি ভাল হয় তাহলে দ্রুততার সাথে আপনার কোম্পানির নাম ছড়িয়ে পড়বে চারিদিকে। তাই ব্যবসার শুরুতেই আপনাকে আপনার কোম্পানীর জন্য বা আপনার ব্যবসার জন্য একটা সুন্দর নাম ঠিক করতে হবে।

ক্যাটারিং প্রশিক্ষণ কোথায় পাওয়া যায়?

ক্যাটারিং ব্যবসা আপনি বিনা প্রশিক্ষণে ও করতে পারেন। তবে আপনি যদি ক্যাটারিং ব্যবসা সম্পর্কে একদম কিছু না জেনে থাকেন বা কিভাবে করতে হবে তা না জানেন তাহলে আপনি প্রশিক্ষণ নিতে পারেন। ক্যাটারিং ব্যবসার প্রশিক্ষণের জন্য আপনি আপনার নিকটবর্তী বিডিও অফিস কিংবা যে সকল সরকারি সংস্থা রয়েছে তাদের সাথে যোগাযোগ করতে পারেন। বর্তমানে কিছু সরকারি সংস্থা এবং কিছু বেসরকারি সংস্থা টাকার বিনিময় কিংবা বিনা পয়সাতেই ক্যাটারিং ব্যবসা প্রশিক্ষণ দিয়ে থাকেন।

Catering service business
ক্যাটারিং সার্ভিস ব্যবসা

ক্যাটারিং সার্ভিস ব্যবসায় খাবারের দাম নির্ণয়

ক্যাটারিং সার্ভিস ব্যবসা করতে গেলে আপনাকে খাবারের উপযুক্ত দাম নির্ণয় করতে হবে। খাবারের উপযুক্ত দাম নির্ণয়ের জন্য আপনি খাবার তৈরি করার পর এবং সমস্ত খরচা বাদ দিয়ে অল্পকিছু লাভ রেখে একটা নির্দিষ্ট দাম ঠিক করতে পারেন। আবার ওই খাবার বাইরে অন্য রেস্টুরেন্টে বা হোটেলে কি দামে বিক্রি হচ্ছে সেটা জেনে তার থেকে অল্প দাম রেখে আপনি একটা লিস্ট বানাতে পারেন। আস্তে আস্তে লোকজন যখন জানতে পারবে যে অন্য জায়গা থেকে আপনার কাছে খাবারের দাম অনেক কম তখন সবাই আপনাকে অর্ডার দেবে খাবার প্রস্তুত করার জন্য। তবে মনে রাখবেন প্রতিটা খাবারের যেন বাস্তবসম্মত দাম থাকে। যাতে সব মানুষ আপনার খাবার আগ্রহ সহকারে খায় এবং যত বেশি পরিমাণে মানুষের আগ্রহ বাড়বে আপনার তৈরি খাবারের প্রতি ততো বেশি পরিমাণে আপনার ব্যবসার উন্নতি ঘটবে।

আরো পড়ুন- পনির তৈরির ব্যবসা

আপনার তৈরি খাবারের পরীক্ষা করুন

আপনি যখন ক্যাটারিং সার্ভিস ব্যবসা করবেন তখন আপনি নিজেও জানেন না আপনার তৈরি খাবার কাস্টমারের কেমন লাগবে। তাই জন্য আপনি একটা পিকনিক কিংবা পার্টির আয়োজন করতে পারেন। এই পিকনিকে আপনি আপনার পরিবারের সদস্য ও বন্ধু-বান্ধবদের আমন্ত্রণ করতে পারেন এবং তাদের জন্য খাবার তৈরি করে খাওয়াতে পারেন। তারপর তাদের কাছ থেকেই খোঁজ নেবেন যে কোন খাবার টা কেমন লাগলো বা কেমন ধরনের খাবার করলে আরও বেশি ভালো হয়।

এইভাবে আপনি যদি আপনার তৈরি খাবার আপনার পরিবারের মানুষ জন্য বন্ধু-বান্ধবদের খাইয়ে পরীক্ষা করাতে পারেন তাহলে আপনার ব্যবসা করতে আর কোন সমস্যা থাকবে না, এবং প্রতিটা কাস্টমারকে ভালো লাগবে আপনার তৈরি খাবার খেতে। আর এই প্রক্রিয়ায় আপনি যদি বলেন তাহলে আপনার তৈরি খাবারের স্বাদ এর কোন সমস্যা থাকবে না এবং যদি থেকেও থাকে তা ধীরে ধীরে সেরে যাবে।

ক্যাটারিং এর খাবার সরবরাহের ব্যবস্থা করা

ক্যাটারিং ব্যবসা করতে গেলে সর্বপ্রথম আপনার তৈরি খাবার কাস্টমারের কাছে পৌঁছে দেওয়ার জন্য উপযুক্ত ব্যবস্থা নিতে হবে। খাবার সঠিক সময়ে এবং সুষ্ঠুভাবে পৌঁছানোর জন্য আপনি কোন গাড়ি ভাড়া করতে পারেন। অথবা আপনার যদি নিজস্ব কোন গাড়ি থাকে সেই গাড়িকে সুন্দর করে খাবার নিয়ে যাওয়ার জন্য প্রস্তুত করতে পারেন। খাবার রান্না করা খাবার সরবরাহ করা এবং অন্যান্য সমস্ত কাজ পরিচালনার জন্য আপনার একার পক্ষে সব জুতা দেখা সম্ভব হবে না তার জন্য আপনাকে উপযুক্ত কর্মচারীও নিয়োগ করতে হবে।

ক্যাটারিং ব্যবসায় উপযুক্ত কর্মচারী নিয়োগ

বর্তমানে বেকার সমস্যা সমস্ত দেশেই রয়ে গেছে তাই আপনার কাছে কর্মচারীর জন্য ছেলে বা মেয়ের অভাব হবে না। আপনি ক্যাটারিং ব্যবসা দুই ধরনের করতে পারেন-

  • ছেলেদের ক্যাটারিং সার্ভিস
  • মেয়েদের ক্যাটারিং সার্ভিস

অনেক অনুষ্ঠান বাড়ি রয়েছে যারা শুধুমাত্র মেয়েদের দিয়ে পরিবেশন করাতে চায় বা মেয়েদের কোন অনুষ্ঠান রয়েছে সেখানে তারা মেয়ে ক্যাটারার চাই এক্ষেত্রে আপনার কাছে মেয়ে ক্যাটারার হিসাবে একাধিক কর্মচারী নিয়োগ করতে পারেন। আর কাজের সুবিধার জন্য এবং ভারী মালপত্র তোলা নামানো এবং সকল কাজের জন্য আপনি একাধিক ছেলে কর্মচারী নিয়োগ করতে পারেন। তারপর সেই ছেলে কর্মচারীদের দিয়ে একটা ছেলে ক্যাটারার টিম বানাতে পারেন। মনে রাখবেন ক্যাটারিং ব্যবসা একা করা সম্ভব নয় তার জন্য অবশ্যই একটা টিম দরকার এই টিমের জন্য আপনাকে উপযুক্ত কর্মচারী নিয়োগ করতে অবশ্যই হবে। প্রতিটা কর্মচারীকে নিয়োগ করার পর তাদেরকে যোগ্য ট্রেনিং আপনাকে প্রদান করতে হবে যাতে তারা কাস্টমারের কাছে খাবার পরিবেশনের সময় কোন ভুল না করে।

ক্যাটারিং ব্যবসায় মার্কেটিং কিভাবে করা হয়?

ক্যাটারিং ব্যবসা করতে গেলে অবশ্যই আপনাকে উপযুক্ত মার্কেটিং করতে হবে। কাটুন প্রতিটা ব্যবসায়ী উপযুক্ত মার্কেটিং এর দ্বারাই ব্যবসার উন্নতি সম্ভব হয়। মার্কেটিং করার জন্য আপনি সর্বপ্রথম বর্তমানের জনপ্রিয় সোশ্যাল মিডিয়া সাইট গুলি যেমন ফেসবুক, ইনস্টাগ্রাম, ইউটিউবে একাধিক পেজ তৈরি করতে পারেন। প্রতিটা পেইজে আপনি নিয়মিত পোস্ট করতে থাকুন এবং আপনি চাইলে ফেসবুকে প্রতিটা পোস্ট বুস্ট করতে পারেন। এছাড়া আপনি ইউটিউব এ চ্যানেল তৈরি করে আপনার তৈরি খাবার এবং আপনার ক্যাডারদের ভিডিও নিয়মিত যদি পোস্ট করতে থাকেন এখান থেকেও অনেক ভালোভাবে বিজ্ঞাপন হয়ে যায় মানুষের কাছে।

এছাড়া আপনি চাইলে ফেসবুক, গুগোল, ইনস্টাগ্রাম, এবং ইউটিউবে আলাদা করে টাকা খরচ করে বিজ্ঞাপন দিতে পারেন। আর আপনি চাইলে বিভিন্ন জায়গাতে পোস্টার ছাপিয়ে পোস্টারিং করাতে পারেন। আবার জনবহুল এলাকা তে ফ্লেক্স ছাপিয়ে ক্যাটারিং ব্যবসা বিজ্ঞাপন দিতে পারেন। তবে বিনা খরচে বিজ্ঞাপন দেওয়ার জন্য ফেসবুক আর ইনস্টাগ্রামের থেকে বিকল্প বর্তমানে আর কিছু হয়না। এছাড়াও আপনি বিজ্ঞাপন দেওয়ার সময় বিভিন্ন ধরনের অফার দিতে পারেন, যাতে মানুষের আকর্ষণ আপনার ব্যবসার প্রতি থাকে তার দিকে নজর দিতে হবে।

ক্যাটারিং ব্যবসা একদিনে কত টাকা খরচ হয়

আপনি যে এলাকাতে ব্যবসা করছেন সেখানে কতজনের জন্য খাবার প্রস্তুত করছেন তার ওপরে নির্ভর করবে খরচের পরিমাণ টা। ধরে নেওয়া যেতে পারে একদিনে আপনি 150 জনের খাবার তৈরি করেন তাহলে আপনার খরচের যে পরিমাণ পড়বে তা হল-

150 জনের খাবারের খরচ6000 টাকা
2 জন লেবারের মজুরি500 টাকা
গ্যাস, জল, বিদ্যুৎ বাবদ খরচ250 টাকা
যাতায়াত খরচ200 টাকা
আনুষঙ্গিক খরচ250 টাকা
7200 টাকা
একদিনের মূল খরচ


তবে আপনার এলাকাতে বাজারদর কেমন তার ওপরে নির্ভর করবে এই টাকার পরিমাণটা। এই লিস্ট শুধুমাত্র একটা অনুমান এর জন্য দেওয়া হলো।

অবশ্যই পড়ুন- খুব কম টাকা লাগিয়ে প্রতি মাসে 1 লাখ টাকা লাভ

ক্যাটারিং ব্যবসায় লাভ কত?

এই ব্যবসা যেহেতু বাড়িতে বসেই পরিচালনা করা সম্ভব তাই এই ব্যবসা নারী-পুরুষ উভয়েই করতে পারেন। এই ব্যবসা করতে যেমন অল্প পুঁজি বিনিয়োগ করতে হয় যেমন প্রতিদিনের ইনকাম আপনাকে দ্রুততার সাথে উন্নতির চরম শিখরে পৌঁছাতে পারে। সাধারণত একদিনে 150 জনের খাবার তৈরি করতে আপনার খরচ হবে 7200 টাকা। আপনি যদি প্রতিটি খাবার প্লেট 60 টাকায় বিক্রি করেন তাহলে আপনার বিক্রি হবে সমস্ত খাবার 9000 টাকায়। তাহলে আপনার লাভ থাকবে 1800 টাকা থেকে 2 হাজার টাকা। প্রতিদিন আপনি 2 হাজার টাকার মত ইনকাম করতে পারেন এই ব্যবসা করে। অর্থাৎ প্রতি মাসে আপনার ইনকাম 60000 টাকা ছাড়িয়ে যেতে পারে।

জিজ্ঞাসিত প্রশ্ন

প্রশ্ন: ক্যাটারিং ব্যবসা করতে কত টাকা লাগে?

উত্তর: ক্যাটারিং ব্যবসা শুরু করতে আপনাকে 50 টাকা বিনিয়োগ করতে হবে। এছাড়া প্রতিদিন আপনি 10 হাজার টাকা বিনিয়োগ করে এই ব্যবসা করতে পারবেন।

প্রশ্ন: ক্যাটারিং ব্যবসা করতে কত বড় জায়গার প্রয়োজন?

উত্তর: এই ব্যবসা করতে গেলে আপনাকে ন্যূনতম 10/10 ফুটের একটা ঘর প্রয়োজন যার রান্নাঘর হিসেবে আপনাকে ব্যবহার করতে হবে।

প্রশ্ন: ক্যাটারিং ব্যবসা করতে কতজন কর্মচারী লাগে?

উত্তর: একজন রাঁধুনি সহ 10 জন কর্মচারী থাকলে আপনি এই ব্যবসা ছোট করে শুরু করতে পারেন।

প্রশ্ন: ক্যাটারিং ব্যবসা করতে কি কি লাইসেন্স নিতে হয়?

উত্তর: ট্রেড লাইসেন্স, ফুড সেফটি লাইসেন্স, জিএসটি নাম্বার নিয়ে এই ব্যবসা করতে পারেন।

প্রশ্ন: ক্যাটারিং ব্যানার কিভাবে তৈরি করতে হবে?

উত্তর: ক্যাটারিং ব্যানার তৈরি করতে হলে অবশ্যই আপনার কোম্পানির নাম দিতে হবে, এবং তার সাথে সাথে ক্যাটারিং এ যে সকল খাবার আপনি বিক্রি করবেন তার ছবি সহ লিস্ট দিতে হবে।

প্রশ্ন:.ক্যাটারিং কাকে বলে?

উত্তর: কোন হোটেল, রেস্টুরেন্ট, কোন ইভেন্ট বা কোন অনুষ্ঠানে যারা খাবার পরিবেশনের কাজ করে ও ব্যবসা করে তাদেরই ক্যাটারিং বলে।

প্রশ্ন: ক্যাটারিং সার্ভিস ব্যবসায় লাভ কত?

উত্তর: ক্যাটারিং সার্ভিস ব্যবসায়ী প্রতিদিনের লাভ 2000 টাকা ছাড়াতে পারে। প্রতিমাসের লাখ 60 হাজার টাকার বেশি হতে পারে

নতুন নতুন ব্যবসার আইডিয়া দেখুন-

প্লাস্টিক আইটেমের পাইকারি ব্যবসা

বিস্কুট তৈরির ব্যবসা করে মাসে 50 হাজার টাকা ইনকাম করুন

Leave a Comment