কুরকুরে তৈরীর ব্যবসা করে প্রতিমাসে 4 লাখ টাকা আয় করুন | Kurkure making business & new business ideas,Right ideas

কুরকুরে এমন একটি খাদ্য যা বাচ্ছা থেকে বড় সবারই ভীষণ পছন্দ। যদিও কুরকুরে বেশি পরিমাণে বিক্রয় হয় বাচ্চাদের মধ্য। আপনি যদি আপনার এলাকায় একটি সম্পূর্ণরূপে কুড়করে তৈরির কোম্পানি তৈরি করে কুরকুরে তৈরীর ব্যবসা শুরু করেন, তাহলে অবশ্যই আপনি এই ব্যবসা থেকে প্রতি মাসে 4 লাখ টাকারও বেশি ইনকাম করতে সক্ষম হবেন। যেহেতু ছোট বাচ্চাদের প্রতিদিনেই একটি বায়না থেকেই যাই কুরকুরে খাওয়ার জন্য তাই প্রতিদিন হাজার হাজার প্যাকেট বিক্রি হয়ে যায় এই বাচ্চাদের মধ্যেই।

আবার বড় মানুষের ক্ষেত্রে মেয়েদের মধ্যে পুরোপুরি খাবার প্রবণতা অনেক বেশি পরিমাণে থাকে, ছেলেদের ক্ষেত্রে কোথাও ঘুরতে গেলে কুরকুরে খাওয়ার প্রবণতা থাকে। তাই কুরকুরের মার্কেট অনেক বড়। আপনি আপনার এলাকাতেই শুরু করুন কুরকুরে তৈরীর ব্যবসা এবং তা ছড়িয়ে দিন দেশের সমস্ত প্রান্তে। আজ এই ব্যবসার আইডিয়া নিয়ে সমস্ত তথ্য এখানে দেওয়া হল, যা আপনার ব্যবসা তৈরীর ক্ষেত্রে অনেক সুবিধা যোগাবে।

Table of Contents

কিভাবে কুরকুরে তৈরীর ব্যবসা শুরু করা যায়? (How to start a kurkure making business)

কুরকুরে তৈরির ব্যবসা শুরু করার জন্য আপনার প্রয়োজন পড়বে একটি বড়সড়ো জায়গা, কাঁচামাল, তৈরীর পদ্ধতি জানতে হবে এবং বিক্রি করার পদ্ধতি জানলেই আপনি আপনার এলাকায় শুরু করতে পারবেন কুরকুরে ব্যবসা। যেকোনো ব্যবসা করার আগে প্রয়োজন পরে মার্কেটিং নলেজের, আর এই মার্কেটিং নলেজ আপনি পাবেন মার্কেট রিসার্চ করে। তাই আপনি যখন Kurkure making business শুরু করবেন তখন অবশ্যই আপনাকে আপনার এলাকার বাজার ঘুরে দেখতে হবে বর্তমানে কি ধরনের কুরকুরের বেশি চাহিদা রয়েছে।

কারণ কুরকুরের প্রায় আট থেকে দশ রকমের ফ্লেভার ও ভ্যারাইটিজ পাওয়া যায়। এরপর মার্কেট রিসার্চ এ আপনাকে দেখতে হবে কোথা থেকে আপনি অল্প মূল্যে কাঁচামাল কিনবেন এবং কি পদ্ধতিতে মার্কেটিং করলে আপনার তৈরি প্রোডাক্টগুলি খুব সহজেই বাজারে বিক্রি করা যাবে। এইভাবে আপনি মার্কেট রিসার্চ শেষ করে কুরকুরে তৈরীর কারখানা খুলে নিজ উদ্যোগেই শুরু করতে পারেন কুরকুরে তৈরীর ব্যবসা।

অবশ্যই পড়ুন- কোচিং সেন্টার খুলে প্রতি মাসে 50 হাজার টাকা আয়

কুরকুরে তৈরী করতে কি কি কাঁচামাল লাগে? (What raw materials are needed to make Kurkure?)

কুরকুরে তৈরির ব্যবসা করতে গেলে অবশ্যই আপনাকে জানতে হবে কুরকুরে বা পাফ বানাতে গেলে কি কি কাঁচামাল লাগে। বর্তমানে প্রায়ই প্রতিটা কোম্পানি 2-4 রকম কাঁচামাল ব্যবহার করেই কুরকুরে জাতীয় খাবার বা কুড়কুরে তৈরি করছেন। যেহেতু কুড়কড়ে বাচ্চারা বেশি পরিমাণে খায় তাই এটা বাড়ানোর জন্য পুষ্টিকর কিছু খাদ্যবস্তুর প্রয়োজন পড়ে। কুরকুরে তৈরি করার প্রধান কাঁচামাল গুলি হল-

  • ভুট্টা দানা
  • চাল
  • সাদা তেল (vegetable oil)
  • মসলা
  • ফ্লেভার
  • নুন
Kurkure making business
কুরকুরে তৈরির ব্যবসা

কুরকুরে তৈরীর কাঁচামাল কোথায় কিনতে পাওয়া যায়? (Where to buy raw materials for Kurkure?)

কুরকুরে তৈরি করার জন্য যে কাঁচামাল গুলি রয়েছে তা আপনি চাইলে আপনার এলাকার যেকোন মুদিখানা দোকান থেকেই কিনতে পারেন। তবে আপনি যেহেতু ব্যবসা করবেন সেই জন্য অবশ্যই আপনাকে এমন কোন পাইকারি দোকান থেকে এইসব কাঁচামাল কিনতে হবে যেখানে আপনি অনেক কম দামে পেয়ে যাবেন। আপনি যদি কুরকুরে তৈরীর সম্পূর্ণ মেশিন কিনে কুরকুরে তৈরীর ব্যবসা করেন সেক্ষেত্রে কাঁচামাল কেনার জন্য অবশ্যই আপনাকে বড় পাইকারি বাজার যেমন কলকাতার বড়বাজার বা বাংলাদেশের চকবাজার পাইকারি মার্কেট এর মত বড় পাইকারি বাজার থেকে একসাথে এক মাসের মতো কাঁচামাল কিনে নিয়ে আসতে হবে।

আপনি যদি একসাথে অনেক বেশি পরিমাণে কাঁচামাল কেনেন সে ক্ষেত্রে আপনার খরচ অনেক কমে যাবে আপনার এলাকার দোকান থেকে কেনার পরিবর্তে। তাই ব্যবসা করতে হলে একসাথে অনেক কাঁচামাল কিনে নিয়ে আসুন এবং আপনার ব্যবসা সুন্দর করে করুন। কলকাতার বড়বাজার পাইকারি মার্কেট থেকে আপনি খুবই কম দামে সমস্ত কাঁচামাল কিনতে পাবেন আবার তৈরি হয়ে যাবার পর কুরকুরের প্যাকেট বিক্রিও করতে পারবেন।

কুরকুরে তৈরি করতে কি কি মেশিন লাগে? (What machine is needed to make Kurkure?)

কুরকুরে তৈরির ব্যবসা করতে হলে আপনাকে অবশ্যই এই কুরকুরে বানানোর জন্য মেশিন কিনতে হবে। ইউটিউবে আপনি পেয়ে যাবেন অনেক ছোট ছোট মেশিন কিন্তু এই ছোট মেশিন দিয়ে আপনি সত্যিকারের বাজারে বিক্রি করার মত কুরকুরে বানাতে পারবেন না এবং তা বেশিদিন তৈরি করে ব্যবসা করতে পারবেন না। আপনি যদি সম্পূর্ণরূপে কুরকুরে তৈরি করে ব্যবসা করতে চান সেক্ষেত্রে আপনাকে বড় কুরকুরে বানানোর মেশিন কিনতে হবে। আর কুরকুরে তৈরীর মেশিন 5 টি ভাগে ভাগ করা হয় যা হল-

  • কুরকুরে এক্সটুড়ার
  • কুরকুরে মিক্সার মেশিন
  • কুরকুরে রোস্টার মেশিন
  • কুরকুরে মসলা মিক্সার
  • কুরকুরে প্যাকেজিং মেশিন
  • নাইট্রোজেন কম্পোজিটর

এই মেশিনগুলি ছাড়াও আপনি চাইলে পশ্চিমবঙ্গে যে ছোট কুরকুরে তৈরি করার মেশিন পাওয়া যায় তাও কিনে নিয়ে ব্যবসা করতে পারেন কিন্তু এই ছোট মেশিন দিয়ে আপনি সম্পূর্ণরূপে বাজারে বিক্রি হওয়ার মতো কুরকুরে বানাতে পারবেন না। তবে ব্যবসার শুরুটা আপনি এই ছোট মেশিন কিনেই করতে পারেন কারণ ছোট মেশিন এর দাম যেমন কম তেমন এই মেশিন দিয়ে আপনি কুরকুরের মত কিছু প্রোডাক্ট বানাতেই পারবেন। এই মেশিনটির নাম হল-

কুরকুরে ও পাফ মেকিং মেশিন (Kurkure and Puff Making Machine) 25-50 হাজার টাকা দাম

কুরকুরে তৈরির মেশিনের দাম কত? (How much is the price of Kurkure making machine?)

কুরকুরে তৈরির ব্যবসা করতে হলে অবশ্যই আপনাকে জানতে হবে এই কুরকুরে তৈরির মেশিনের বর্তমান দাম সম্বন্ধে। ভারতের বিভিন্ন রাজ্যে বিভিন্ন দামে কুরকুরে তৈরীর মেশিন বিক্রি হলেও অল্প দামে যেখান থেকে মেশিন বিক্রি হবে সেখান থেকেই কেনার জন্য পরামর্শ দিব। বর্তমানে কুরকুরে তৈরীর সম্পূর্ণ মেশিনের দাম হলো

মেশিনদাম
কুরকুরে এক্সটুড়ার2 লাখ থেকে 2.5 লাখ টাকা
কুরকুরে মিক্সার মেশিন35 হাজার টাকা
কুরকুরে রোস্টার মেশিন1 লাখ টাকা
কুরকুরে মসলা মিক্সার40 হাজার টাকা
কুরকুরে প্যাকেজিং মেশিন70 হাজার টাকা থেকে 1 লাখ টাকা
নাইট্রোজেন কম্পোজিটর18 হাজার টাকা
মোট খরচগাড়ি ভাড়া মিলিয়ে 6 লাখ টাকার মত
  1. কুরকুরে ও পাফ মেকিং মেশিন (Kurkure and Puff Making Machine) 25-50 হাজার টাকা
  2. প্যাকেজ সিলিং মেশিন– 3 হাজার টাকা থেকে 5 হাজার টাকা।

কুরকুরে তৈরির মেশিন কোথায় কিনতে পাওয়া যায়? (Where to buy kurkure making machine?)

কুরকুরে তৈরীর ব্যবসা করতে হলে অবশ্যই আপনাকে কুরকুরে বানানোর মেশিন কিনতে হবে আর এই মেশিন অল্প দামে যে জায়গায় পাবেন তার ঠিকানা আমি নিচে দিয়ে দেওয়া হয়েছে। আপনি চাইলে এই যোগাযোগ নাম্বারে ফোন করে মেশিন ম্যানুফ্যাকচার কোম্পানির কাছ থেকে মেশিন কিনতে পারেন। বর্তমানে বাংলাদেশে কোন মেশিন ম্যানুফ্যাকচার কোম্পানি কুরকুরে তৈরীর মেশিন তৈরি করে না। তাই আপনাদের কুরকুরে তৈরীর মেশিন কেনার জন্য ভারত থেকে ইমপোর্ট করতে হবে।

যারা কুরকুরে তৈরির ব্যবসা করবেন তারা ভারতের কয়েকটি মেশিন ম্যানুফ্যাকচারার কোম্পানির সাথে যোগাযোগ করে মেশিন কিনতে পারেন। আপনি যদি সম্পূর্ণ কুরকুরে তৈরির কোম্পানি তৈরি করেন সে ক্ষেত্রে একসাথে 8-10 লাখ টাকা বিনিয়োগ করে কুরকুরে তৈরির সম্পূর্ণ মেশিন কিনে ব্যবসা করুন। আপনি যদি সম্পূর্ণ মেশিন কিনে ব্যবসা করেন তাহলে লাভ প্রতি মাসে 4 লাখ টাকা ছাড়িয়ে যেতে পারে। কিন্তু আপনি যদি ছোট মেশিন কিনে ব্যবসা করেন তাহলে প্রতিমাসে 15-20 হাজার টাকার বেশি লাভ করা সম্ভব হবে না।

তাই আপনাকে ঠিক করতে হবে আপনি কুরকুরে তৈরির ব্যবসা কত টাকা বিনিয়োগ করে করবেন এবং কিভাবে করবেন। পশ্চিমবঙ্গের দুটি কোম্পানি বর্তমানে কুড়কড়ে তৈরির ছোট মেশিন বিক্রি করছে সেই কোম্পানিগুলির যোগাযোগ নাম্বারও নিচে দেওয়া হল। আর কুরকুরে তৈরীর সম্পূর্ণ বড় মেশিন কিনে ব্যবসা করতে হলে অবশ্যই পশ্চিমবঙ্গের বড় কিছু কোম্পানি এবং ভারতের অন্যান্য রাজ্যের বড় কয়েকটি কোম্পানির সঙ্গে যোগাযোগ করতে হবে এবং তাদের যোগাযোগ নাম্বারও নিচে দেওয়া হল।

আরো পড়ুন- কার্পেট ব্যবসা করুন ৫০ হাজার টাকায়

কুরকুরে তৈরীর ব্যবসা করতে কত বড় জায়গার প্রয়োজন হয়? (How much space is needed to make Kurkure?)

কুরকুরে তৈরির ব্যবসা করার জন্য অবশ্যই আপনাকে 200 স্কয়ার ফিট জায়গা নিয়ে কাজ শুরু করতে হবে। কুরকুরে তৈরির বড় মেশিন গুলির আয়তন কিছুটা বড় হওয়ার জন্য এই পরিমাণ জায়গা কমপক্ষে আপনার ব্যবসার জন্য লাগবে। তবে আপনি যদি কুরকুরে তৈরীর ছোট মেশিন কিনে ব্যবসা করতে চান সে ক্ষেত্রে 10/10 এর এক কামরা ঘর হলেই কাজ শুরু করা যেতে পারে। আর বড় মেশিনের একেকটির আয়তন 10 ফুট, 12 ফুট কিংবা 13 ফুট হওয়ার জন্য বড় জায়গা হলে তবেই কাজ শুরু করা যেতে পারে। এছাড়াও কুরকুরে বানানোর কাঁচামাল রাখা এবং তৈরি হয়ে যাবার পর কুরকুরের প্যাকেট রাখার মতো জায়গার প্রয়োজন পড়ে। তাই কুরকুরে তৈরীর ব্যবসা করার আগে একটি জায়গা নির্বাচন করে সেখানে মেশিন বসিয়ে আপনি কাজ শুরু করতে পারেন।

কিভাবে কুরকুরে তৈরি করা হয়? (How is kurkur made?)

কুরকুরে তৈরি করার জন্য আপনাকে কুরকুরে তৈরির ট্রেনিং নিতে হবে। বিনা ট্রেনিংয়ে আপনি যদি এই ব্যবসা শুরু করেন সেক্ষেত্রে অনেক সমস্যার মধ্যে পড়তে হবে। কুরকুরে বানানোর জন্য তিনজন শ্রমিকের প্রয়োজন পড়বে, তার মতো একজন দক্ষ কর্মচারী হলেই যথেষ্ট। বর্তমানে যে পদ্ধতিতে কুরকুরে বানানো হয় তা হল-

  • 25 কেজি ভুট্টা দানার সাথে 25 কেজি আতপ চাল, 100 গ্রাম বেসন, 100 গ্রাম সাদা তেল, আড়াই লিটার জল দিয়ে কুরকুরে মিক্সার মেশিনে ভালো করে মিশ্রণটি বানাতে হবে।
  • সম্পূর্ণ মিক্সার বানানো হয়ে গেলে কুরকুরে এক্সটুডার মেশিনে মিশ্রণটি ঢেলে দিতে হবে। ইলেকট্রিকের সাহায্যে মেশিন চালালেই কিছুক্ষণের মধ্যেই কুরকুরে বেরিয়ে আসতে থাকবে বাইরে।
  • এই কুরকুরে গুলিকে নিয়ে রোস্টার মেশিনের মধ্যে ঢেলে দিতে হবে। রোস্টার মেশিনে কুরকুরে গুলি আরো মচমচে হয়ে উঠবে এবং অন্য প্রান্ত দিয়ে বেরিয়ে আসবে।
  • এরপর কুরকুরে গুলিকে নিয়ে মসলা মিক্সার মেশিনের মধ্য দিয়ে বিভিন্ন সালের পূর্বের মসলা মিক্স করে ফ্লেভার যুক্ত করে প্যাকেজিং এর জন্য প্রস্তুত করতে হবে।
  • কুরকুর এগুলি পরিমাণ অনুযায়ী ১৮ গ্রাম করে প্রতি প্যাকেটে ভরে বাজারে বিক্রির জন্য প্রস্তুত করতে হবে।
  • প্যাকেজিংয়ের সময় নাইট্রোজেন কম্পোজিটর দিয়ে প্রতিটি প্যাকেটের ভেতর নাইট্রোজেন ভরে দিতে হবে যাতে দীর্ঘদিন কুরকুরে নষ্ট না হয়।
  • প্রতিটি কুরকুরের প্যাকেট বস্তায় পরিমাণ অনুযায়ী ভরে বাজারে বিক্রি করার জন্য প্রস্তুত করতে হবে।

আপনি যদি কুরকুরে তৈরিতে ছোট মেশিন কেনেন সে ক্ষেত্রে এতকিছু করার প্রয়োজন পড়ে না। ছোট মেশিনে সরাসরি চাল বা ভুট্টা দিয়ে কুরকুরে বানানো যায়। যদিও সেই কুড়কুড়ে বাজারে বিক্রি হওয়া কুরকুরের থেকে স্বাদে অনেকটাই পিছিয়ে থাকে।

কুরকুরে প্যাকেজিং কিভাবে করা হয়? (How is Kurkure packaging done?)

কুরকুরে প্যাকেজিংয়ের জন্য আপনাকে বাজার থেকে রেডিমেড প্লাস্টিক কিনে এনে কাজ শুরু করতে হবে। আপনি চাইলে নিজস্ব ব্র্যান্ডের প্লাস্টিক ছাপিয়ে কুরকুরের প্যাকেট বানাতে পারেন। নিজস্ব ব্রান্ডের প্যাকেট ছাপাতে আপনার খরচ হবে 20 হাজার টাকা থেকে 30 হাজার টাকার মত। নিজস্ব ব্যান্ডেড কাগজ ছাপানোর পর সেই প্লাস্টিকের ভেতরে কুরকুরে পরিমাণ মতো ভর্তি করতে হবে এবং বাজারে বিক্রি করার জন্য কার্টুনের মধ্যে ভরে দোকানে দোকানে সেল করতে হবে।

আপনি চাইলে প্লাস্টিক বস্তার মধ্যে কুরকুরের প্যাকেটগুলি পরিমাণ অনুযায়ী ভর্তি করে ও বাজারে বিক্রি করতে পারেন। প্রতিটি কুরকুরের প্যাকেটে সেই কুরকুরে সম্পর্কে যেন সম্পূর্ণ তথ্য লেখা থাকে তার দিকে খেয়াল দিতে হবে। এর জন্য বর্তমান বাজারে যে ধরনের কুড়কুরে বিক্রি হয় তা কিনে নিয়ে সেই রকমেরই প্রতিটি প্যাকেট বানানোর চেষ্টা করতে হবে। প্রতিটি প্যাকেটের ওপর আপনার কোম্পানির সাথে যোগাযোগ করার ঠিকানাও নাম্বার দিতে হবে। এতে আপনার কোম্পানির নামও বৃদ্ধি পাবে এবং আপনার ব্র্যান্ড ও সব মানুষের কাছে জনপ্রিয় হয়ে উঠবে।

Kurkure making machine
কুরকুরে তৈরির মেশিন

কুরকুরে তৈরীর ব্যবসা করতে কি কি লাইসেন্স লাগে? (What license is required to Kurkure making business?)

প্রতিটা ব্যবসার মতো কুরকুরে তৈরীর ব্যবসা করতেও আপনাকে একাধিক লাইসেন্স নিতে হবে। আবার যেহেতু এটি খাদ্যদ্রব্য তাই আপনাকে খাদ্য দপ্তর থেকে একটি লাইসেন্স নিতে হবে। বর্তমানে আপনি যেখানেই ব্যবসা করুন না কেন আপনার নাগরিকত্বের প্রমাণপত্র সর্বদা আপনার কাছে রাখতে হবে এবং লাইসেন্সের জন্য তা অত্যান্ত প্রয়োজনীয়। তাই লাইসেন্স নেবার পরেও সমস্ত নাগরিকত্বের প্রমাণপত্র গুলি সঙ্গে রাখার চেষ্টা করবেন। বর্তমানে এই ব্যবসা করার জন্য যে সকল লাইসেন্স আপনাকে নিতে হবে তা হল-

  • আধার, ভোটার ও প্যান কার্ড সহ নাগরিকত্বের প্রমাণপত্র।
  • ট্রেড লাইসেন্স
  • জি এস টি নাম্বার
  • FSSAI লাইসেন্স
  • MSME লাইসেন্স
  • কমার্শিয়াল ইলেকট্রিক
  • কারেন্ট ব্যাংক একাউন্ট নাম্বার

এই সমস্ত লাইসেন্স গুলি নেবার জন্য আপনাকে আপনার এলাকার পঞ্চায়েত অফিস বা বিডিও অফিস কিংবা কর্পোরেশন অফিসের সঙ্গে যোগাযোগ করতে হবে। আপনি এই সরকারি দপ্তর গুলির সাথে যোগাযোগ করলে জানতে পারবেন এই ব্যবসা করার জন্য আরও অন্য কোন লাইসেন্স আপনার রাজ্যে প্রয়োজন কিনা। আপনি চাইলে এই সমস্ত লাইসেন্স অনলাইনে আবেদন করেও নিতে পারেন। এই সমস্ত লাইসেন্সের জন্য আপনার খরচ হবে 2 থেকে 5 হাজার টাকার মত।

কত রকমের ফ্লেভার এর কুরকুরে হয়? (How many flavors are in Kurkure?)

বর্তমানে কুরকুরের 8 থেকে 10 রকমের ফ্লেভার মার্কেটে বিক্রি হয় আপনি চাইলে আপনার ব্যবসাতে সমস্ত ধরনের ফ্লেভার যুক্ত করে আলাদা আলাদা প্যাকেটে বিক্রি করতে পারেন। আর সেই ফ্লেভার গুলি হল-

  1. মসলা মাঞ্চ
  2. গ্রীন চাটনি
  3. চিলি চটকা
  4. দেশি বিটস
  5. নটি টমেটো
  6. বাটার মস্তি
  7. ইয়ামি চিজ
  8. মাল্টিগ্রেন
  9. কুরকুরে ট্রাইংগেল

অবশ্যই পড়ুন- জেরক্স ব্যবসা করুন অল্প পুঁজি দিয়ে

কিভাবে কুরকুরের মার্কেটিং করা হয়? (How is Kurkure marketing done? )

কুরকুরে তৈরির ব্যবসা করতে গেলে অবশ্যই আপনাকে সেই কুড়কুরে বিক্রির জন্য সঠিকভাবে মার্কেটিং করতে হবে। প্রতিদিন আপনি যে পরিমাণ কুরকুরে তৈরি করবেন চেষ্টা করতে হবে সেই পরিমাণ কুড়কুড়ে প্রতিদিনই বিক্রি করা। যেহেতু বর্তমান বাজারে অনেক নামিদামি কোম্পানির কুরকুরের ব্র্যান্ড চলছে তাই আপনাকে একটু বেশি ভালো করে মার্কেটিংয়ের ওপর জোর দিতে হবে। তাই যে পদ্ধতিতে আপনি মার্কেটিং করলে একজন সফল ব্যবসায়ী হতে পারবেন তা হল-

  • আপনার এলাকার সকল পাইকারি বিক্রেতার কাছে আপনার কোম্পানির তে তৈরি কুরকুরে বিক্রির ব্যবস্থা করতে হবে।
  • যে এলাকায় ব্যবসা শুরু করছেন সেই এলাকার আশেপাশের মুদিখানা দোকান স্টেশনারি দোকান থেকে শুরু করে যেই যেই দোকানে কুরকুরে বিক্রি হয় সেই সমস্ত দোকানে কুরকুরে বিক্রি করতে হবে।
  • শহরের বড় পাইকারি মার্কেট গুলিতে হোলসেল দামে কুরকুরে প্যাকেট বিক্রি করতে হবে।
  • বিভিন্ন এলাকায় একাধিক ডিস্ট্রিবিউটর তৈরি করে তাদের মারফত কুরকুরের বিক্রি বাড়ানো যেতে পারে।
  • বিক্রি বাড়ানোর জন্য আপনি ব্যবসার শুরুর পর থেকেই প্রতিমাসে 10 হাজার টাকা থেকে 15 হাজার টাকা বিজ্ঞাপনের জন্য ব্যয় করুন। যতদিন আপনি এই ব্যবসা করবেন ততদিন আপনাকে বিজ্ঞাপন দিয়ে যেতে হবে।
  • গুগল, ফেসবুক, ইউটিউব এর মধ্য দিয়ে অনলাইনে অল্প টাকা বিনিয়োগ করে বিজ্ঞাপন দিন। যেহেতু বর্তমান সময়ে বেশিরভাগ মানুষ অনলাইনের ওপর আসক্ত, তাই অনলাইনে বিজ্ঞাপন দিলে খুব দ্রুততার সাথে মানুষের কাছে পৌঁছে যাবে আপনার প্রোডাক্টের বিজ্ঞাপন।
  • নিজস্ব ওয়েবসাইট তৈরি করুন এবং সেই ওয়েবসাইটকে ই-কমার্স ওয়েবসাইটে পরিণত করে অনলাইনে আপনার ওয়েবসাইটের মাধ্যমেই ব্যবসা করুন।
  • ফেসবুক ইউটিউবে একটি করে পেজ ও চ্যানেল তৈরি করে কুরকুরের সম্পর্কে নিত্যনতুন পোস্ট করতে পারেন এখান থেকে অনেক ডিস্ট্রিবিউটর তৈরি হয়ে যাবে আবার রিটেলার তৈরি হয়ে যাবে।
  • অ্যামাজন, ফ্লিপকার্ট, ইন্ডিয়ামার্ট এর মত ই-কমার্স ওয়েবসাইটগুলিতে একটি করে বিজনেস অ্যাকাউন্ট খুলে অনলাইনে এই সকল জনপ্রিয় ই-কমার্স ওয়েবসাইটগুলিতেই আপনি আপনার তৈরি কুরকুরে বিক্রি করতে পারেন।
  • স্কুল কলেজ সিনেমা হলের গেটের বাইরে বড় বড় ব্যানার টাঙিয়ে আপনার কোম্পানির বিজ্ঞাপন দিতে পারেন।
  • রাস্তার ধারে, ব্রিজের পিলারে আপনার কোম্পানির ব্যানার লাগিয়ে বিজ্ঞাপন দেওয়া যায়।
  • ব্যবসার শুরুতে আপনি একদম ছোট প্যাকেট করে স্কুলের গেটের ধারে বাচ্চাদের ফ্রিতে একদিন কুরকুরে খাইয়ে আপনার কোম্পানির বিজ্ঞাপন দ্রুততার সাথে বাড়াতে পারেন।

কুরকুরে তৈরির ব্যবসা করতে কত টাকা লাগে? (How much does it cost to start a kurkure making business?)

কুরকুরে তৈরির ব্যবসা যদি শুরু করেন আপনি ইউটিউব ভিডিও দেখে এবং ইউটিউবে যদি বলে মাত্র 40-50 হাজার টাকায় এই ব্যবসা করা যাবে তাহলে আপনি ভুল পথে হাঁটবেন। কারণ বর্তমান সময়ে ইউটিউবে এমন অনেক ভিডিও আছে যাতে বলা হয় কুড়কুড়ে তৈরির ব্যবসা মাত্র 50 হাজার টাকায় শুরু করা যায়। আপনি যদি একটি বড় কোম্পানির মত নিজস্ব কুড়কড়ে তৈরির কোম্পানি তৈরি করতে চান এবং নিজস্ব ব্র্যান্ড তৈরি করে মার্কেটে বিক্রি করতে চান তাহলে অবশ্যই আপনাকে কমপক্ষে 10 থেকে 15 লাখ টাকা ইনভেস্ট করতে হবে এই ব্যবসায়।

কারণ ব্যবসা করতে গেলে যেমন আপনাকে মেশিন কিনতে হবে, তেমন ইলেকট্রিক খরচ, কর্মচারীদের বেতন, কাঁচামাল কেনা এবং মার্কেটিং এর জন্য বিজ্ঞাপনের আপনাকে এই টাকা অবশ্যই খরচ করতে হবে। তাই বন্ধুরা যারা কুরকুরে তৈরির ব্যবসা করবেন বলে ঠিক করেই নিয়েছেন তারা ভুল পথে না গিয়ে সঠিক নিয়মে কুড়কুড়ে তৈরীর সমস্ত মেশিন কিনে ব্যবসা শুরু করুন। এই ব্যবসা কোনদিনই বন্ধ হবার নয়। তাই এই ব্যবসা করে আপনি প্রতি মাসে চার লাখ টাকার বেশি ইনকাম করতে পারবেন। কুরকুরে বা পাফ জাতীয় খাবার তৈরীর জন্য যে অল্প দামের মেশিন রয়েছে তা আপনি শুরু করতে পারেন 50 হাজার টাকা দিয়ে। কিন্তু সম্পূর্ণরূপে একটি কুরকুরে তৈরীর কোম্পানি করে ব্যবসা করতে হলে অবশ্যই আপনাকে 10 লাখ টাকা তো বিনিয়োগ করতেই হবে।

কুরকুরে তৈরীর ব্যবসায় লাভ কত? (How much is the profit in Kurkure making business?)

কুরকুরে তৈরির ব্যবসায় লাভ হয় অনেক বেশি পরিমাণে, কিন্তু এই লাভটি বুঝতে গেলে আপনাকে আগে বুঝতে হবে কুরকুরে তৈরি করার খরচ এবং তারপর তা বিক্রি করে লাভটি। 1 কেজি কুরকুরে তৈরি করতে খরচ হয় 55 টাকা। 5 টাকা দামের কুরকুরের প্যাকেট গুলিতে 18 গ্রাম করে কুরকুরে থাকে। 1 কেজি কুরকুরে 18 গ্রামের 62 টা প্যাকেটে ভর্তি করা যায়।


1 টি করকুরে প্যাকেট তৈরি করতে আপনার সব মিলিয়ে খরচ হবে 1 টাকা 90 পয়সা। এক ঘন্টায় 25 কেজি কুরকুরে তৈরি করা গেলে 8 ঘন্টা কাজ করলে 200 কেজি কুরকুরে বানানো যায়। প্রতি প্যাকেট কুরকুরে 3 টাকা দামে পাইকারি মার্কেটে আপনি বিক্রি করতে পারেন তাহলে আপনার প্রতি প্যাকেটে লাভ থাকবে 1 টাকা করে। 12,200 প্যাকেট প্রতিদিন বানানো গেলে প্রতিদিন আপনি কমপক্ষে 12 হাজার টাকা লাভ করতে পারবেন। আর প্রতিমাসে কমপক্ষে 4 লাখ টাকা করে এই ব্যবসায় লাভ করতে পারবেন।

আর আপনি যদি ছোট মেশিন কিনে ছোট করে ব্যবসা শুরু করেন সেক্ষেত্রে প্রতি মাসে 10 থেকে 15 হাজার টাকা লাভ করতে পারবেন। মনে রাখবেন যেমন ভাবে আপনি মার্কেটিং করতে পারবেন এবং যতটা বড় এরিয়া জুড়ে আপনি আপনার মার্কেট তৈরি করতে পারবেন তত বেশি পরিমাণে আপনি লাভ করতে পারবেন। চেষ্টা করবেন প্রতিদিনের তৈরি হওয়া 12 হাজার প্যাকেট কুরকুরে প্রতিদিনই বিক্রি করে ফেলার।

জিজ্ঞাসিত প্রশ্ন ও FAQ

কুরকুরে তৈরীর ব্যবসা করতে কত টাকা লাগে?

উত্তর: সমস্ত মেশিন কিনে শুরু করতে হলে 10 লাখ টাকা থেকে 15 লাখ টাকা খরচ হয় এই ব্যবসায়।

কুরকুরে তৈরির কারখানা করতে কত বড় জায়গার প্রয়োজন?

উত্তর: 200 স্কয়ার ফিট জায়গা কমপক্ষে প্রয়োজন কুরকুরে তৈরীর কারখানা করতে।

অল্প টাকায় কুরকুরে ব্যবসা কি করা যায়?

উত্তর: পাফ মেকিং মেশিন কিনে অল্প টাকায় কুরকুরে ব্যবসা করা যায়।

কুরকুরে ও পাফ তৈরীর ব্যবসা করতে কত টাকা লাগে?(Kurkure and puff making business)

উত্তর: 50 হাজার টাকা থেকে 60 হাজার টাকা লাগবে এই ব্যবসা করতে।

কুরকুরে তৈরীর মেশিন এর দাম কত?

উত্তর: 6 লাখ টাকা মেশিনের খরচ গাড়ি ভাড়া ধরে 7 লাখ টাকা।

কুরকুরে ব্যবসায় লাভ কত?

উত্তর: 4 লাখ টাকা থেকে 5 লাখ টাকা প্রতি মাসের আয়, আর প্রতিদিনের আয় 12 হাজার টাকা কমপক্ষে

নতুন নতুন ব্যবসার আইডিয়া দেখুন-

হার্ডওয়ারের দোকান করে প্রচুর টাকা উপার্জন

সেলোটেপ তৈরীর ব্যবসা

Leave a Comment