ইন্টেরিয়র ডিজাইন ব্যবসা করুন 0 পুঁজি বিনিয়োগ করে | Become a successful businessman by doing Interior Design Business

আমরা সবাই জানি বর্তমান সময়ে মানুষের শখ আহ্লাদ এবং সুন্দরতার উপর জ্ঞান অনেক বেশি পরিমাণে বৃদ্ধি পাচ্ছে। তাই মানুষ তাদের ঘর এবং অফিস সুন্দর করে তৈরি করার জন্য ইন্টেরিয়র ডিজাইনার কে দিয়ে ডিজাইন করায়। আর আপনি যদি এই ইন্টেরিয়র ডিজাইন ব্যবসা করেন তাহলে অবশ্যই আপনি সফল ব্যবসায়ী হতে পারবেন।


বর্তমানে প্রায় প্রতিটা মানুষই চায় নিজেকে সুন্দর দেখতে এবং নিজের প্রয়োজনীয় বাসস্থান, অফিস, বিদ্যালয় সমস্ত জিনিসটাই সুন্দর করে তৈরি করতে। তাই বর্তমানে ইন্টেরিয়র ডিজাইনারের দ্বারা ঘর অফিস আদালত হাসপাতাল বিদ্যালয়ের ভেতরের ডিজাইন করা হচ্ছে আধুনিক পদ্ধতি অবলম্বন করে। আপনি যদি ইন্টেরিয়র ডিজাইন ব্যবসা করেন তাহলে তাহলে আপনি বুঝতে পারবেন এই ব্যবসা কতটা লাভজনক একটি ব্যবসা। চলুন দেখে নেওয়া যাক কিভাবে ইন্টেরিয়র ডিজাইন ব্যবসা করা যায় এবং ব্যবসা কিভাবে করলে বেশি পরিমাণে লাভবান হওয়া যায়।

Table of Contents

ইন্টেরিয়র ডিজাইন ব্যবসা কিভাবে শুরু করবে? (How to start an interior design business?)

ইন্টেরিয়র ডিজাইন ব্যবসা করার জন্য আপনাকে ইন্টেরিয়র ডিজাইন করতে হবে এবং বুঝতে হবে। সাধারণত আপনি যে ঘরে বাস করেন তার দেওয়াল, মেঝে, দরজা-জানলা এবং আসবাবপত্র কিভাবে সুন্দর হবে বা ঘরের আয়তন অনুযায়ী কোন ধরনের আসবাবপত্র রাখলে ঘরটা সুন্দর দেখাবে এই সম্পর্কিত জিনিস নিয়ে ইন্টেরিয়র ডিজাইন চলে। এছাড়াও দেওয়ালের রং মানানসই আসবাবপত্র এবং আসবাবপত্রের ডিজাইন কেমন হবে তাও একজন ইন্টেরিয়র ডিজাইনার ঠিক করেন।

তাই বর্তমান সময়ে আপনি যদি ইন্টেরিয়র ডিজাইন নিয়ে পড়াশোনা করেন এবং ভাবেন ইন্টেরিয়র ডিজাইন ব্যবসা করবেন তাহলে অবশ্যই আপনাকে আজকের এই পোস্ট ভালো করে পড়তে হবে এবং বুঝতে হবে। আবার আপনি ঘরবাড়ির ইন্টেরিয়র ডিজাইনের পাশাপাশি চাইলে ইন্টেরিয়র ডিজাইনের প্রশিক্ষণও দিতে পারেন। এতে আপনার ব্যবসা দ্রুততার সাথে মানুষের কাছে ছড়িয়ে পড়বে এবং লাভের টাকাও প্রতি মাসে বাড়তে থাকবে।

ইন্টেরিয়র ডিজাইন ব্যবসা করতে কত টাকা লাগে?

সাধারণত ইন্টেরিয়র ডিজাইন ব্যবসা করার জন্য আপনাকে আলাদা করে খুঁজে বিনিয়োগ করতে হয় না। কারণ আপনি যে কাস্টমারের ঘরে ইন্টেরিয়র ডিজাইন করবেন তার কাছ থেকে প্রতিটা ডিজাইনের জন্য আপনি টাকা চার্জ করতে পারেন এবং তার ঘরের আসবাবপত্র জন্য তাকেই টাকা প্রদান করতে হবে। ফলে আপনি যদি শুধুমাত্র ইন্টেরিয়র ডিজাইন সম্পর্কে পড়াশোনা করে জ্ঞান লাভ করেন বা কোথাও কাজের মধ্য দিয়ে অভিজ্ঞতা অর্জন করে ইন্টেরিয়র ডিজাইন ব্যবসা শুরু করেন, এক্ষেত্রে আপনার কোন পুঁজি বিনিয়োগ না করেই ব্যবসা করতে পারবেন। তবে ব্যবসার এডভার্টাইজমেন্ট ও আনুষাঙ্গিক কিছু খরচ হিসাবে বলা যেতে পারে এই ব্যবসা শুরু করতে 5-10 হাজার টাকা বিনিয়োগ করেই করা যায়।

ইন্টেরিয়র ডিজাইন ব্যাবসার প্ল্যানিং

প্রতিটা দেশের মত আমাদের দেশেও ইন্টেরিয়র ডিজাইন ব্যবসার রমরমা চলছে। কারণ ভারত-বাংলাদেশ এইসব দেশগুলি আপগ্রেটেড দেশ হিসাবে পরিচিত। কারণ এই দেশগুলিতে নিত্যনতুন ঘরবাড়ির আন্ডার কনস্ট্রাকশন ক্রমাগত লক্ষ্য করা যায় । পুরনো বাড়ি ভেঙে নতুন বাড়ি হওয়ার সাথে সাথে মানুষের দৃষ্টিভঙ্গিরও আধুনিকতার সাথে পরিবর্তন লক্ষ্য করা যায়। এই কারণে এই উন্নত শীল দেশগুলিতে প্রতিটা মানুষ তাদের ব্যবহৃত ঘর, অফিস, হাসপাতাল প্রভৃতি জিনিসকেই সুন্দর করে সাজাতে পছন্দ করেন। এবং নিত্যনতুন প্ল্যানিং এর সাথে ঘর গুলির ডিজাইন করার দিকে মনোনিবেশ করেন। এইজন্য বর্তমান সময়ে ইন্টেরিয়র ডিজাইন ব্যবসা এতটা জনপ্রিয়তা লাভ করছে প্রতিটা শহর উত্তীর্ণ এলাকাগুলিতে এবং শহরাঞ্চলে।


আপনি ব্যবসার শুরুতে একা ব্যবসা করলেও পরবর্তীকালে একাধিক ইন্টেরিয়ার ডিজাইনার এবং ইন্টেরিয়র ডিজাইন সংক্রান্ত লোকজনদের একসাথে নিয়ে ব্যবসা করতে পারেন। একসাথে অনেক লোক মিলে যদি ব্যবসা করেন তাহলে আপনার ব্যবসা দ্রুততার সাথে বৃদ্ধি পাবে এবং লাভের পরিমাণও অনেক গুণ বেড়ে যাবে। যেমন আপনি যদি ইন্টেরিয়র ডিজাইনার হয়ে থাকেন তাহলে আপনি কার্পেন্টার, রং করার মিস্ত্রি, ঘর তৈরি করার রাজমিস্ত্রি এবং পাথরের মিস্ত্রি ও ইলেকট্রিক মিস্ত্রি এই ধরনের বিভিন্ন ধরনের মিস্ত্রিদের সাথে একত্রিতে কাজ করতে পারেন । আবার তাদেরকে আপনার ব্যবসার মধ্যে অন্তর্ভুক্ত করে কর্মচারী হিসাবে নিজে ব্যবসাটি বড় করে পরিচালনা করতে পারেন।

অবশ্যই পড়ুন- গিফ্ট শপের ব্যবসা করুন 10 হাজার টাকায়

ইন্টেরিয়র ডিজাইন প্রশিক্ষণ

ইন্টেরিয়র ডিজাইন ব্যবসা করতে গেলে অবশ্যই আপনাকে ইন্টেরিয়র ডিজাইন প্রশিক্ষণ নিতে হবে। আপনি যখন ব্যবসা করবেন তখন যে কর্মচারীদের আপনি নিয়োগ করবেন তাদের অবশ্যই ইন্টেরিয়র ডিজাইন প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত হতে হবে। বর্তমানে ইন্টেরিয়র ডিজাইন পড়ার জন্য ক্লাস 12 এর পর আলাদা করে কলেজে পড়ানো হয়। আবার অনেকেই ইন্টেরিয়র ডিজাইন কলেজের পরিবর্তে বিভিন্ন বেসরকারি সংস্থার কাছ থেকে পড়েন। আপনি ইন্টেরিয়র ডিজাইন ব্যবসার সাথে সাথে চালু করতে পারেন ইন্টেরিয়র ডিজাইন প্রশিক্ষণ। ভারত এবং বাংলাদেশের যে সকল জায়গাতে আপনি ইন্টেরিয়র ডিজাইন পড়তে পারবেন তা নিচে দেওয়া হল-

কলকাতার ইন্টেরিয়র ডিজাইন প্রশিক্ষণ কেন্দ্র:

  • George Institute of Interior Design- Asim Shova” 22A, Loudon Street Park Street,(3rd Floor, West Bengal 700016
  • PERFECT INSTITUTE OF INTERIOR DESIGN INDIA- Ground Floor, 11/4, Selimpore Road, South, Gariahat Rd, behind Carmel High School, Kolkata, West Bengal 700031
  • INIFT International Institute D Fashion Technology- INIFT, unit no.411,P.S. Qubes building, AA II, Action Area IID, Newtown, Kolkata, West Bengal 700157
  • International School of Design- P-40, Block B, Lake Town, Kolkata, West Bengal 700089
  • Profex Institute of Technical Education- Rm No: 2&3, 12thFloor, Chatterjee International Centre 33A, Jawaharlal Nehru Road, beside Park Street, Metro, Kolkata, West Bengal 700016
  • ESEDS School of Design – Award Winning Fashion and Interior Design College- 2nd floor, 113 J, Matheswartala Road, Topsia, Kolkata, West Bengal 700046

কলকাতা ছাড়াও ভারতের প্রতিটা বড় বড় শহরের বেসরকারি অনেক ইন্টেরিয়র ডিজাইন প্রশিক্ষণ কেন্দ্র রয়েছে। এছাড়াও সরকারিভাবে বিভিন্ন কলেজ ও ইউনিভার্সিটি তে ইন্টেরিয়র ডিজাইন পড়ানো হয়।

Interior design business
ইন্টেরিয়র ডিজাইন ব্যবসা

বাংলাদেশের ইন্টেরিয়র ডিজাইন প্রশিক্ষণ কেন্দ্র:

  • National Institute Of Design- House# 118 Rd No 9A, Dhaka 1209, Bangladesh
  • Design Academy Bangladesh- Nearest Metropolitan hospital, Chattogram, Bangladesh
  • DreamZone Bangladesh- Plot: 30, Sonargaon Janapath Road, Dhaka 1230, Bangladesh
  • ICD Computer Center- রাজলক্ষ্মী কমপ্লেক্স, প্লট-২৫, লিফট-০৬, লেভেল-০৭, ঢাকা। 1230, Bangladesh
  • Daffodil International Professional Training Institute (DIPTI)- Russell Square, পান্থপথ, Lake Circus Rd, 1205, Bangladesh
  • Inspiration Intitute of Design & Technology- Plot 04, Road 13, 1212 Baridhara J Block, Dhaka 1212, Bangladesh

ইন্টেরিয়র ডিজাইন ব্যবসা কিভাবে করতে হবে?

ইন্টেরিওর ডিজাইন ব্যবসা করতে গেলে সর্বপ্রথম আপনাকে একটি এলাকা নির্বাচন করতে হবে এবং সেই এলাকায় একটি অফিস তৈরি করতে হবে। এছাড়াও আপনার ব্যবসার জন্য নাম লোগো এবং একাধিক কর্মচারী নিয়োগ করতে হবে। আপনাকে বুঝতে হবে কাস্টমারের চাহিদা এবং ক্রিয়েটিভ হতে হবে সর্বদা। ইন্টিরিয়ার ডিজাইন এমন একটি জিনিস যা ক্রিয়েটিভ না হলে আপনি করতে পারবেন না এবং আপনার কর্মচারীরাও যাতে ক্রিয়েটিভ হয় তার দিকে আপনাকে লক্ষ্য রাখতে হবে।

অফিস ঘর নির্মাণ

ইন্টেরিয়র ডিজাইন ব্যবসা করতে গেলে অবশ্যই আপনাকে ব্যবসার পরবর্তীকালে বা ব্যবসা বাড়ানোর জন্য একটি ভালো জায়গায় অফিস ঘর তৈরি করতে হবে। এই অফিস সুন্দর করার জন্য এবং কাস্টমারকে আকর্ষণ করার জন্য এর ভেতরেও আপনি ইন্টেরিয়র ডিজাইনের কাজ করতে পারেন বা কিছু স্যাম্পেল রেখে দিতে পারেন। আপনাকে খেয়াল রাখতে হবে আপনার অফিস যেন সর্বদা রাস্তার ধারে হয়ে থাকে। কাস্টমারদের গাড়ি থেকে নেমে খোঁজার সুবিধা বা যাতায়াতের সুবিধার জন্য অফিস রাস্তার ধারে হওয়া অত্যন্ত প্রয়োজনীয়।

ইন্টেরিয়র ডিজাইন ব্যবসায় কর্মচারী নিয়োগ

ইন্টেরিয়র ডিজাইন এর ব্যবসা একার পক্ষে করা অনেক সময় সম্ভব হয় না কারণ ব্যবসার শুরুতে আপনি একা ডিজাইন করলেও তা বাস্তবে রূপায়ণ করার জন্য আপনার একটি টিমের প্রয়োজন রয়েছে। আর তাই জন্য আপনাকে আপনার ব্যবসায় একাধিক কর্মচারী নিয়োগ করতে হবে। বর্তমানে ইন্টেরিয়র ডিজাইন পড়াশোনা জানা বা অভিজ্ঞতা সম্পন্ন কর্মচারীদের আপনি যদি নিয়োগ করতে পারেন তাহলে আপনার ব্যবসার শ্রীবৃদ্ধি হবেই। কারণ অভিজ্ঞ কর্মচারীরা সর্বদা কাস্টমারের মনের মত কাজ করবে ফলে আপনার ব্যবসার সুনাম বৃদ্ধি পাবে। যদি কোন কর্মচারী ইন্টেরিয়র ডিজাইন সম্পর্কে অভিজ্ঞতা না রাখে তাহলে অবশ্যই আপনাকে সেই কর্মচারীকে প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত করতে হবে। এছাড়া ইন্টেরিয়র ডিজাইনকে বাস্তবে রূপায়িত করার জন্য একাধিক অভিজ্ঞ মিস্ত্রিকে নিয়োগ করতে হবে। যেমন- রাজমিস্ত্রি, ইলেকট্রিশিয়ান, প্লাম্বিং, ছুতোর, পেন্টার ইত্যাদি।

আরো পড়ুন- টিফিন পরিষেবার ব্যবসা শুরু করুন অল্প পুজিতে

ইন্টেরিয়র ডিজাইন ব্যবসায় কাজের প্রক্রিয়া কেমন হবে ?

ইন্টেরিওর ডিজাইন ব্যবসা করতে গেলে অবশ্যই আপনাকে আপনার কাজের পরিকল্পনা আগে থেকেই ঠিক করতে হবে। এর জন্য আপনাকে বুঝতে হবে যেসব জিনিসগুলো তা হল-

  • গ্রাহকের চাহিদা ও পরিসেবা-সাধারণত এই ব্যবসা করতে গেলে আপনাকে গ্রাহকের চাহিদা বুঝে কাজ করতে হবে। কারণ আপনি যে গ্রাহকের বা কাস্টমারের বাড়িতে কাজ করবেন তারা কি জিনিস পছন্দ করে বা কি অপছন্দ করে সেই অনুযায়ী আপনাকে ডিজাইন তৈরি করতে হবে। এছাড়া আপনাকে বুঝতে হবে ইন্টেরিয়র ডিজাইনের ঘরের সাজসার সাথে সাথে দেওয়ালের রং ও মেঝের পাথরের কালার কেমন হলে সুন্দর হবে তা কাস্টমার কে বোঝাতে হবে।
  • প্রথাগত ইন্টেরিয়র ডিজাইন-বর্তমানে প্রায় প্রত্যেকটা দেশেই যে সকল ইন্টেরিয়র ডিজাইনার রয়েছেন তারা সবাই গ্রাহকের পরিকল্পনা অনুযায়ী অর্থের বিনিময়ে কাজ করেন। এই ট্র্যাডিশনাল ইন্টেরিয়ার ডিজাইনাররা গ্রাহকের কাছ থেকে বেশ ভালো অর্থ চার্জ করেন তাদের প্রতিটা ডিজাইনের ওপরে। আপনিও চাইলে এই ধরনের ডিজাইনার হতে পারেন তবে শুরুর দিকে আপনি ট্র্যাডিশনাল ইন্টেরিয়ার ডিজাইনার অনুযায়ী অর্থ উপার্জন নাও করতে পারেন।
  • ই-ডিজাইন ব্যবস্থা চালু করা-বর্তমানে ইন্টারনেটের যুগে অনেকেই আছেন বড় বড় ইন্টেরিয়র ডিজাইনারদের কাছ থেকে অনলাইনে ঘরের ডিজাইন তৈরি করিয়ে নেন। আপনিও এই ব্যবস্থা চালু করতে পারেন আপনার ব্যবসায় যেখানে কাস্টমার অনলাইন এর মাধ্যমে আপনার কাছ থেকে ডিজাইন নেবে এবং আপনাকে টাকা প্রদান করবে।
Interior Design Training
ইন্টেরিয়র ডিজাইন প্রশিক্ষণ

রুম সাজসজ্জা ও পণ্য সরবরাহর ব্যবস্থা

ইন্টেরিয়র ডিজাইন ব্যবসায় আপনি আরো বেশি লাভবান হতে পারেন যদি রুম সাজসজ্জা ও অন্য সরবরাহর ব্যবস্থা আপনি চালু করেন। অর্থাৎ কাস্টমার যখন কোন আসবাবপত্র অর্ডার করবে বা তৈরি করবে তা বাইরে থেকে কিনে কাস্টমারের বাড়িতে সরবরাহ করে সুন্দর করে সাজিয়ে রাখার কাজও আপনি করতে পারেন। এছাড়া ইন্টেরিয়র ডিজাইন এর প্রতিটা সরঞ্জাম অর্ডার করার সময় আপনি কাস্টমারের কাছ থেকে আলাদা এক্সট্রা চার্জ নিতে পারেন আপনার ক্রয় করা প্রতিটা পণ্যের ওপরে।

অর্থাৎ একটা ডিজাইনিং টেবিল কিনতে যদি 1হাজার টাকা পড়ে কাস্টমারের কাছ থেকে আপনি 1200 টাকা নিতে পারেন। এইভাবে ও আপনি ইনটেরিওর ডিজাইনের ব্যবসায় এক্সটা ইনকাম করতে পারেন। আসলে বর্তমান সময়ে অনেক গ্রাহক রয়েছেন যারা নিজে থেকেই কিছু ডিজাইন করেন কিন্তু সেই ডিজাইন করা আসবাবপত্র গুলি কোথা থেকে কিনবে খুঁজে পায় না, তার জন্য তারা ইন্টেরিয়র ডিজাইনারদের শরণাপন্ন হন।

ব্যবসায়িক কৌশল তৈরি করুন

সাধারণত ইন্টেরিয়র ডিজাইন ব্যবসা করতে হলে আপনাকে একপ্রকার ব্যবসায়িক কৌশল অবলম্বন করতে হবে। কারণ বর্তমান সময়ে অনেক ইন্টেরিয়র ডিজাইনার রয়েছে আশেপাশে। তাই আপনার কাছ থেকে কোন কাস্টমার ঘরের ডিজাইন জেনে আবার অন্য ডিজাইনের এর কাছে গিয়ে যাতে না জেনে কাজ করাতে পারে তার জন্য আপনি নতুন ব্যবসায়িক কৌশল অবলম্বন করতে পারেন।

  • গ্রাহকের সাথে চুক্তিপত্র
  • অগ্রিম টাকা নেওয়া
  • গ্রাহক আবেদন পত্র
  • কাজের বর্ণনা সংক্রান্ত নথিপত্র
  • চালান পত্র

আপনার ক্রেতা কারা হবে

ইন্টেরিয়র ডিজাইনের ব্যবসা করতে গেলে আপনাকে সর্বপ্রথম জানতে হবে আপনার তৈরি ডিজাইন এর ক্রেতা কারা। তবে সাধারণত আমরা সকলেই জানি প্রতিটা মানুষ এখন ইন্টেরিয়র ডিজাইন করতে চান তাদের বাসস্থানে বা ব্যবহার্য ঘরগুলিতে। তবে আপনার ব্যবসাতে যারা রেগুলার ক্রেতা হিসেবে আপনাকে লাভবান করবেন তারা হলো-

  • সাধারণ শিক্ষিত পরিবার
  • রিয়েল এস্টেট প্রোমোটার

সাধারণ শিক্ষিত পরিবারের মানুষেরা তাদের ঘরের ভেতরের অন্তরসজ্জা সম্পর্কে একটু বেশি সচেতন হয়ে থাকেন। তাই তারা সর্বদা নিজে ডিজাইন না করে একজন প্রফেশনাল ইন্টেরিয়র ডিজাইনারের কাছ থেকেই ঘরের ইন্টেরিয়র ডিজাইন করে থাকেন। এইরকম কাস্টমারের সংখ্যা আপনি প্রতিনিয়ত পেতেই থাকবেন এর জন্য আপনাকে একাধিক রাজমিস্ত্রি ও বিল্ডার্স দোকানের সঙ্গে যোগাযোগ রাখতে হবে।

আবার বড় বড় রিয়েল এস্টেট এজেন্টরা যখন প্রমোটিং করেন এবং বড় বড় বিল্ডিং তৈরি করেন তখন তারা ইন্টেরিয়র ডিজাইনারের শরণাপন্ন হন। ধরনের অর্ডার আপনি কম পেলেও প্রতিটা অর্ডারে আপনি প্রচুর পরিমাণে অর্থ কামাতে পারবেন। আবার কিছু কিছু ধনী গ্রাহক যারা তাদের ঘর বেশি দামী আসবাবপত্র ও দামি জিনিসে সাজাতে চান এই ধরনের অর্ডার পেলেও আপনার ইনকামের পরিমাণ বহুগুণ বেড়ে যাবে।

আবার অনেক পরিবার রয়েছে যারা পুরনো বাড়িকে নতুন করে ইন্টেরিয়র ডিজাইন করে নতুন করতে চান এই রকম অর্ডার আপনি প্রতি মাসে ভালোই পেতে থাকবেন এবং আপনি ইনকাম ভালোভাবে করতে পারবেন। আবার অনেকে ঘরের পাশাপাশি শুধুমাত্র বাথরুমে ইন্টেরিয়র ডিজাইন করে থাকেন কিংবা মডিউলার কিচেন তৈরি করে তাদের ঘরকে সুন্দর করে থাকেন। এই ধরনের অর্ডারও আপনি ভালোভাবে পেতে পারবেন।

ইন্টেরিয়র ডিজাইন ব্যবসায় মার্কেটিং কিভাবে করবেন?

ইন্টেরিয়র ডিজাইন ব্যবসায় মার্কেটিং এক গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে আপনার ব্যবসা বড় করার পেছনে। তাই অবশ্যই আপনাকে মার্কেটিং এর উপরে জোর দিতে হবে। তাই যে পদ্ধতিতে মার্কেটিং করলে আপনার ব্যবসা দ্রুততার সাথে বৃদ্ধি পাবে তা হল-

  • আপনি যে এলাকায় ব্যবসা করবেন সেই এলাকায় বিভিন্ন জায়গায় পোস্টারিং করে আপনি প্রচার করতে পারেন।
  • যে এলাকায় আপনার অফিস হবে এবং যে অঞ্চলকে নিয়ে আপনি কাজ করতে চান সেই এলাকা আপনি facebook, youtube, গুগলের মাধ্যমে বিজ্ঞাপন দিতে পারেন। কারণ বর্তমান সময়ে মানুষ ইন্টারনেটের ওপরে খুবই নির্ভরশীল হয়ে পড়েছেন তাই আপনি যদি ফেসবুক ,গুগল এবং ইনস্টাগ্রাম এর দ্বারা বিজ্ঞাপন দেন তাতে মানুষের চোখে পড়ার সম্ভাবনা একটু বেশি থাকে।
  • Facebook, instagram, ইউটিউবে পেজ তৈরি করে প্রতিদিন নিত্যনতুন পোস্ট করতে থাকুন। এতে বিভিন্ন মানুষ এনগেজড হবে এবং আপনার বিজ্ঞাপন ও অর্গানিক পদ্ধতিতে বেড়ে যাবে।
  • নিজস্ব ওয়েবসাইট তৈরি করুন কোম্পানির নামে এবং ওয়েবসাইট দিয়ে আপনি ব্লগ অথবা ইন্টেরিয়র ডিজাইন সংক্রান্ত পোস্ট করে আপনার ব্যবসার বিজ্ঞাপন দিন।
  • আপনি যে এলাকাতে ব্যবসা করতে চাইছেন সেই এলাকার প্রতিটা প্রোমোটার, বিল্ডার্স দোকান, রাজমিস্ত্রি ও বিভিন্ন প্রকার মিস্ত্রিদের সঙ্গে সর্বদা যোগাযোগ রাখুন। এইসব মিস্ত্রিদের সাথে যোগাযোগ রাখলে আপনি অনেক বেশি অর্ডার পাবেন এবং আপনার ব্যবসা ও ভালোভাবে করতে পারবেন।
  • জনবহুল জনপ্রিয় মোড় গুলিতে ফ্লেক্স টানিয়ে আপনি প্রচার করতে পারেন।
  • ছাড়া পরিচিতদের সুপারিশও আপনি একাধিক অর্ডার পেতে পারেন। অর্থাৎ আপনার পরিবারের পরিচিতরা যদি বিভিন্ন ক্ষেত্রে আপনার সুপারিশ করে সেক্ষেত্রে নতুন অর্ডার আপনি পেতে পারেন।

ইন্টেরিয়র ডিজাইন ব্যবসায় লাভ কত?

ইন্টেরিয়র ডিজাইন ব্যবসায় লাভ বা ইনকাম বুঝতে গেলে আপনাকে কয়েকটা জিনিস আগে বুঝতে হবে। কারণ বর্তমান সময়ে ইন্টেরিয়র ডিজাইন ব্যবসা থেকে প্রচুর পরিমাণে টাকা ইনকাম করা যায়। তবে বর্তমান সময়ে একাধিক ইন্টেরিয়র ডিজাইনার থাকার জন্য ক্রেতারা কম টাকা যে ডিজাইনার নেন তার কাছে চলে যায়। তাই আপনাকে বুঝতে হবে বর্তমানে ইন্টেরিয়র ডিজাইন এর ব্যবসায়ী কেমন টাকা চার্জ করেন প্রতিটা ডিজাইনার।

অবশ্যই পড়ুন- জেমস ক্লিপ তৈরির ব্যবসা

প্রতি বর্গফুটের হিসাবে টাকা নেওয়া হয়

ভারতের বিভিন্ন বড় বড় শহর গুলিতে একজন ইন্টেরিয়র ডিজাইনার প্রতি বর্গফুট ডিজাইনের জন্য 40 টাকা থেকে 400 টাকা অব্দি নিয়ে থাকেন। এই টাকার পরিমাণ নির্ধারণ করা হয় এলাকা এবং সমগ্র বাড়িটার পরিমাণ অনুযায়ী। ভারতের প্রতিটা বড় শহরে 2 বেডরুমের ফ্ল্যাটের ইন্টেরিয়ার ডিজাইন করতে 4 লক্ষ টাকা থেকে 6 লক্ষ টাকা খরচ হয়। আবার নতুন থাকা ফ্ল্যাট কে সাজানোর জন্য 7 লক্ষ টাকা থেকে 10 লক্ষ টাকা পর্যন্ত নিয়ে থাকেন ইন্টেরিয়র ডিজাইনাররা।

ব্যবহৃত আসবাবপত্রের ওপর লাভ

ইন্টিরিয়র ডিজাইনার এর কাছ থেকে কেনা প্রতিটা ব্যবহারিত আসবাবপত্রের ওপরে প্রতিটা ডিজাইনার বিভিন্নভাবে লাভ রাখেন। অর্থাৎ একটা খাট কিনতে যদি 50 হাজার টাকা খরচ হয়, কাস্টমারের কাছ থেকে 60 হাজার টাকাও নিয়ে থাকেন একজন ডিজাইনার। শুধুমাত্র ইন্টেরিয়র ডিজাইনার দ্বারা ডিজাইন করা তকমা প্রাপ্ত প্রতিটা জিনিসের দামি বেড়ে যায়।

ইন্টেরিয়র ডিজাইন ব্যবসায় লাভ

একজন ইন্টেরিয়র ডিজাইনার প্রতি ডিজাইনের ওপর 6% থেকে 15% পর্যন্ত লাভ রাখেন। আবার দামি আসবাবপত্র ডিজাইনের জন্য 20% পর্যন্ত পারিশ্রমিক নিয়ে থাকেন। একজন নবাগত ইন্টেরিয়র ডিজাইনার প্রতিমাসে 30 থেকে 50 হাজার টাকা আয় করতে পারেন। আবার বড় কোন ইন্টেরিয়র ডিজাইনার যিনি ইন্টেরিয়ার ডিজাইনের ব্যবসা শুরু করেছেন ব্যবসা, তিনি প্রতি মাসে 5 লক্ষ থেকে 10 লক্ষ টাকাও আয় করতে পারেন ইন্টেরিয়র ডিজাইনের ব্যবসা থেকে।

পরিশেষে জেনে রাখুন

ইন্টেরিয়র ডিজাইন ব্যবসা আপনি যখন করতে থাকবেন তখন প্রতিনিয়ত কাজের মধ্য দিয়ে আপনি অভিজ্ঞতা অর্জন করবেন। আর আপনি যত বেশি পরিমাণে অভিজ্ঞতা অর্জন করতে পারবেন তত বেশি পরিমাণে আপনার কাজের মূল্য হয়ে দাঁড়াবে। ব্যবসার শুরুতে কাস্টমার পেতে সমস্যা হলেও পরবর্তীকালে আপনি এমন একটা দিনও বসে থাকবেন না কাজের জন্য। তাই ব্যবসার শুরুতে কাস্টমারদের খুশি করার জন্য কিছু কিছু কাজ ফ্রিতেও করতে পারেন। এছাড়া কন্ট্রাক্টার, সাপ্লায়ার, ডিস্ট্রিবিউটার, এবং প্রোমোটারদের সাথে সর্বদা ভালো যোগাযোগ ও নেটওয়ার্ক বাড়াতে থাকুন। এই সমস্ত মানুষদের সাথে আপনার যত ভালো যোগাযোগ থাকবে তত বেশি পরিমাণে আপনি অর্ডার পেতে পারবেন এবং আপনার পরিচিতি ও বাড়তে থাকবে আপনার কাজের মধ্য দিয়ে।

ইন্টেরিয়র ডিজাইন ব্যবসা সংক্রান্ত এই পোস্টে যদি কোন সমস্যা থেকে থাকে তাহলে জানাবেন। আর আপনার কেমন লাগলো সমগ্র পোস্ট পড়ার পর তাও কমেন্ট করবেন। যদি কোন সাহায্যের প্রয়োজন হয় তার জন্যও জানাতে ভুলবেন না।

জিজ্ঞাসিত প্রশ্ন ও F.A.Q

ইন্টেরিয়র ডিজাইন ব্যবসা করতে কত টাকা লাগে?

উত্তর: ইন্টেরিয়র ডিজাইন ব্যবসা করতে কোন টাকার প্রয়োজন হয় না। তবে ব্যবসা বড় করার জন্য মার্কেটিং করতে হলে আপনাকে বেশ কিছু অল্প পুঁজি বিনিয়োগ করতে হবে।

ইন্টেরিয়র ডিজাইন পড়তে কত টাকা খরচ?

উত্তর: বড় ইনস্টিটিউশন থেকে পড়তে হলে 2 থেকে 4 লক্ষ টাকা খরচ হয়। সরকারি প্রতিষ্ঠান থেকে পড়ার জন্য 15-20 হাজার টাকার খরচ।

কোথায় ইন্টেরিয়র ডিজাইন ব্যবসা করা যায়?

উত্তর: যেকোনো বড় শহর ও ছোট শহরাঞ্চলে আপনি ইন্টেরিয়র ডিজাইন ব্যবসা করতে পারেন।

ই-ডিজাইন কি?

উত্তর: ইন্টারনেটে অনলাইনের মধ্য দিয়ে ইন্টেরিয়র ডিজাইন করা কে ই-ডিজাইন বলা হয়।

ইন্টেরিয়র ডিজাইনের ব্যবসায় লাভ কত?

উত্তর: ইন্টেরিয়র ডিজাইন এর ব্যবসায়ী প্রতি মাসে 50 হাজার টাকা থেকে 5 লক্ষ টাকাও আয় করা যায়

নতুন নতুন ব্যবসার আইডিয়া দেখুন-

CCTV ক্যামেরার ব্যবসা

ঘি তৈরির ব্যবসা বাড়িতেই শুরু করুন

Leave a Comment