অটোমোবাইল পার্টস এর ব্যবসা [1] | Became a successful businessman in the business of automobile parts

অটোমোবাইল পার্টস এর ব্যবসা বর্তমান সময়ে লাভজনক একটি ব্যবসা। আমরা সবাই জানি আমাদের দেশের সব এলাকাতেই কমবেশি মোটর গাড়ি চলে। দিন দিন যেভাবে গাড়ির চাহিদা বৃদ্ধি পাচ্ছে সেই অনুযায়ী তার বিভিন্ন পার্টস এর চাহিদাও বাজারে বৃদ্ধি পাচ্ছে। গাড়ি থাকলেই সেই গাড়ি সারাতে হবে এবং সারানোর জন্য বিভিন্ন গাড়ির পার্টস এর দরকার পড়বে। তাই আপনি যদি আপনার এলাকাতে অটোমোবাইল পার্টস এর ব্যবসা শুরু করেন তাহলে অবশ্যই আপনি একজন সফল ব্যবসায়ী হতে পারবেন। কিন্তু কিভাবে আপনি অটোমোবাইল পার্টস এর ব্যবসা করবেন সেটা নিয়ে যদি ভাবেন তাহলে অবশ্যই আপনার জন্য আজকের এই পোস্ট। চলুন দেখে নেয়া যাক একজন সফল ব্যবসায়ী হতে এবং অটোমোবাইল পার্টস এর ব্যবসা সফল ভাবে করতে কি কি গুরুত্বপূর্ণ জিনিস আমাদের খেয়াল রাখতে হবে।

Business of Automobile Parts
অটোমোবাইল পার্টস এর ব্যবসা

Table of Contents

অটোমোবাইল পার্টস এর ব্যবসা করতে কত টাকা খরচ হয়?(How much does it cost to run an automobile parts business?)

অটোমোবাইল পার্টস এর ব্যবসা করার জন্য পুঁজির বিষয়টি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয়। কারণ যে কোন ব্যবসা করতে গেলেই আমরা জানি সেই ব্যবসাতে আমাদের টাকা খরচ হয়। ব্যবসার শুরুতে দোকান ঘর ভাড়া, দোকান ডেকোরেশন করা, তারপরে বাকি সমস্ত এক্সেসরিজ কিনতে খরচ হয়। ঠিক এইরকমই অটোমোবাইল পার্টস এর ব্যবসা করার জন্য অবশ্যই আপনাকে অল্প হলেও 1 লক্ষ টাকার পুঁজি নিয়ে ব্যবসা শুরু করতে হবে। আর অল্প দামে গাড়ির পার্টস গুলি কেনার জন্য অবশ্যই আপনাকে পাইকারি বাজারের সঙ্গে যোগাযোগ রাখতে হবে এবং পাইকারি বাজার থেকে সমস্ত পার্টস কিনতে হবে।

অটোমোবাইল পার্টস এর ব্যবসা আপনার করতে খরচ হবে ন্যূনতম 1 লাখ থেকে 2 লাখ টাকার মতো। আপনি যদি আরো বড় করে অটোমোবাইল পার্টস এর ব্যবসা শুরু করেন তাহলে অবশ্যই আপনার খরচ হবে 5 লক্ষ টাকার মতো।

অটোমোবাইল এক্সেসরিজ-এর ব্যবসা করার নিয়ম

অটোমোবাইল পার্টস বা এক্সেসরিজ এর ব্যবসা করতে হলে অবশ্যই আপনাকে বেশ কিছু নিয়ম মেনে চলতে হবে। কারন আমরা সবাই জানি যে কোন ব্যবসা করতে হলে সেই ব্যবসা করার আগে ব্যবসার সমস্ত নিয়ম জানা প্রয়োজন। তাই এই ব্যবসা করতে হলে অবশ্যই আপনাকে এমন একটি জায়গা নির্বাচন করতে হবে যেখানে বেশি পরিমাণে গাড়ি বা মোটরসাইকেল চলাচলে করে। যেকোনো দু চাকা, তিন চাকা এবং চারচাকা গাড়ি গুলির মেরামতের জন্য প্রয়োজনীয় সরঞ্জাম আপনার দোকানে অবশ্যই রাখতে হবে। এছাড়াও যোগ্য মেকানিক নিয়ে সেই সব পার্টস গাড়িতে লাগিয়ে গাড়ির সারানো আপনার দোকানের সাথে অঙ্গাঙ্গী ভাবে যুক্ত হয়ে থাকবে। তাই এইরকম একটি জায়গা নির্বাচন করে আপনি দোকান করে ব্যবসা করলে আপনি নির্দ্বিধায় ব্যবসা শুরু করতে পারবেন।

অটোমোবাইল পার্টস এর দোকানের অবস্থান নির্ণয়

আপনি যেহেতু অটোমোবাইল পার্টস এর ব্যবসা করছেন তাই অবশ্যই আপনাকে একটি দোকান ভাড়া নিয়ে কিংবা তৈরি করে এই ব্যবসা শুরু করতে হবে। ব্যবসা শুরুর আগে আপনাকে দেখতে হবে আপনার দোকানটি যেন রাস্তার ধারে হয়ে থাকে। আর সেই রাস্তা দিয়ে যেন প্রতিদিন অনেক মোটর গাড়ি বা গাড়ি চলাচল করে। আরো একটা জিনিস আপনাকে বেশি করে নজর রাখতে হবে যে যেখানে আপনি দোকানটা করছেন তার কাছাকাছি যেন আর কোন অটোমোবাইল পার্টস এর দোকান না থাকে। কারণটা আপনি বুঝতেই পারছেন যদি আপনার কাছাকাছি কোন অটোমোবাইল পার্টস এর দোকান থেকে থাকে এবং তার পরেও আপনি একটি দোকান করে আবার অটোমোবাইল পার্টস ব্যবসা শুরু করেন, তাহলে আপনার কাস্টমার সংখ্যা অনেক কমে যাবে, এবং আপনার ব্যবসার লাভের পরিমাণ অনেক কমে যাবে।

তাই অবশ্যই একটা অটোমোবাইল পার্টস এর দোকান করতে হলে সেই দোকান টা যেন মেন রাস্তার ধারে হয়ে থাকে এবং দোকানটির আয়তন যেন 10/5 ফুটের মধ্যে থাকে এটা নজর রাখতে হবে। এছাড়াও আপনি যদি আরো বড় করে দোকান দিয়ে ব্যবসা করতে চান তাহলে অবশ্যই আপনার দোকানের পাশে যেন গাড়ি রাখার মত জায়গা থেকে থাকে এইরকম জায়গায় একটি নির্বাচন করে আপনি যদি অটোমোবাইল পার্টস এর ব্যবসা শুরু করেন তাহলে অবশ্যই আপনি একজন সফল বড় ব্যবসায়ী হতে পারবেন। এই কারণেই আপনার দোকানের পাশে জায়গা থাকার কথা বলা হচ্ছে যখন কোন গাড়ি খারাপ হবে সেই গাড়িগুলো আপনার দোকানের পাশেই একটি গ্যারেজ করে যদি আপনি সারাতে পারেন তাহলে আপনার দোকান থেকে পার্টস বিক্রি হবে আবার গ্যারেজ থেকে আপনার লাভ হবে।

অবশ্যই পড়ুন- আয়ুর্বেদ ওষুধের ব্যবসা কিভাবে খুলবেন?

অটোমোবাইল পার্টস এর পাইকারি মার্কেট (Wholesale Market of Automobile Parts)

বর্তমানে অটোমোবাইল পার্টস এর অনেক জায়গাতেই পাইকারি মার্কেট থাকলেও কলকাতার সবচেয়ে বড় পাইকারি মার্কেট হলো মল্লিক বাজার পাইকারি মার্কেট। আপনি পশ্চিমবঙ্গর যে প্রান্তেই থাকুন না কেন কলকাতা মল্লিক বাজার পাইকারি মার্কেট থেকে যদি আপনি অটোমোবাইল পার্টস নাকি না অন্য কোন জায়গা থেকে পার্টস কিনে ব্যবসা শুরু করেন তাহলে অবশ্যই আপনি ভুল করছেন। কারণ মল্লিক বাজার পাইকারি মার্কেট শুধুমাত্র সমস্ত ধরনের গাড়ির পার্টস বিক্রি করে থাকে। এখানে আপনি যেমন নতুন গাড়ির পার্টস পাবেন আবার পুরনো পার্টস বিক্রি হয়ে থাকে। মল্লিক বাজার পাইকারি মার্কেট এ গাড়ির পার্টস এর দোকান 500 টির বেশি রয়েছে। হলে আপনি বুঝতেই পারছেন অটোমোবাইল পার্টস এর ব্যবসা করতে হলে অবশ্যই আপনাকে কলকাতার মল্লিক বাজার অটোমোবাইল পার্টস মার্কেট এ যোগাযোগ করতেই হবে।

আপনি যদি বাংলাদেশ থেকে থাকেন তাহলে আপনি বাংলাদেশের যে বড় পাইকারি মার্কেট রয়েছে সেই মার্কেট থেকে অবশ্যই পার্টস কিনে ব্যবসা করতে পারেন। এছাড়াও যেসকল পার্টস বাংলাদেশে পাওয়া যায় না বলে আপনার মনে হবে সেই সব পার্টস আপনি ইন্ডিয়া থেকে অর্ডার দিয়ে ট্রান্সপোর্ট এর মাধ্যমে বাংলাদেশ নিয়ে গিয়ে ব্যবসা করতে পারেন।

অটোমোবাইল পার্টস এর জন্য দক্ষ কারিগর রাখতে হবে

গাড়ি যখন খারাপ হয়ে যাবে সেই গাড়িগুলি জন্য কি ধরনের পার্টস দরকার তা বোঝার জন্য একজন দক্ষ কারিগর বা দক্ষ কর্মচারীর প্রয়োজন। তাই অবশ্যই আপনাকে আপনার ব্যবসা শুরু করার সাথে সাথেই একজন দক্ষ কর্মচারীও আপনার দোকানে নিযুক্ত করতে হবে।

এছাড়া আপনাকে আরো লক্ষ্য রাখতে হবে যে সেই দক্ষ কর্মচারী অবশ্যই যেন এর আগে কোন অটোমোবাইল পার্টস এর দোকানে কাজ করে থাকে কিংবা কোন গ্যারেজে কাজ করে থাকে, কারণ একমাত্র অভিজ্ঞতার মধ্য দিয়েই একজন কর্মচারী দক্ষ হয়ে উঠতে পারে। এছাড়াও প্রয়োজনে সেই দক্ষ কর্মচারীকে গাড়ি সারানোর কাজ করতে হতে পারে তাই আপনি চাইলে অটোমোবাইল পার্টস এর ব্যবসার সাথে সাথে একটা গ্যারেজের ব্যবসা শুরু করতে পারেন।

Automobile Parts Store
অটোমোবাইল পার্টস দোকান

গাড়ির গ্যারেজ ব্যবসা কিভাবে শুরু করবেন?

রাস্তার ধারে আপনার দোকান হওয়ার কারণে যিকোনো মোটর চালিত গাড়ি যখন খারাপ হয়ে যাবে অথবা গাড়িতে কোন সমস্যা দেখা যাবে তখন আপনারই গ্যারেজে সেই গাড়ি সারানোর ব্যবস্থা রাখতে পারেন। এতে করে আপনার ব্যবসাতে অনেক লাভের পরিমাণ বেড়ে যাবে। বর্তমানে প্রতিটা অটোমোবাইল পার্টস ব্যবসায়ী তার ব্যবসার দোকানের পাশে পাশে একটি গ্যারেজ ব্যবসা শুরু করেছেন। এতে গাড়ি সারাই করে টাকা ইনকাম হবে, আবার গাড়ির পার্টস গুলো আপনার দোকান থেকেই কিনে আপনার গাড়ির পার্টস এর ব্যবসা লাভজনক হবে। একই সাথে দুটো ব্যবসাকে লাভজনক করার জন্য অবশ্যই আপনাকে পার্টস এর ব্যবসার সাথে সাথে একটি গ্যারেজ ব্যবসা শুরু করতে হবে।

আরো পড়ুন- গাড়ির পার্টস ব্যবসা কিভাবে করবেন?

অটোমোবাইল পার্টস দোকানের ডেকোরেশন কেমন হবে?

আপনি যখন অটোমোবাইল পার্টস এর ব্যবসা শুরু করছেন তবে অবশ্যই আপনাকে ডেকোরেশন এর ওপরে নজর দিতে হবে। ডেকোরেশন বলতে যখন রাস্তা দিয়ে কোন গাড়ি যাবে তখন তার একটাবার যেন নজর পড়ে আপনার দোকানটা এইরকম ভাবে আপনাকে আপনার দোকানটি সাজাতে হবে। প্রতিটা গাড়ির প্রয়োজনীয় পার্টস গুলি আপনার দোকানের ভেতরে যেমন আপনি সুন্দর করে সাজিয়ে রাখবেন, তেমন বাইরে ও বিভিন্ন সুন্দর সুন্দর কাগজে মোড়া গাড়ির পার্টস গুলিকে যদি সাজিয়ে রাখতে পারেন, তাহলে যেকোনো গাড়ির চালক গাড়ি দৃষ্টি আকর্ষণ করবে আপনার দোকান।
গাড়ির প্রয়োজনীয় সমস্ত পার্টস আপনাকে আপনার দোকানে রাখতে হবে। গাড়ির পার্টস গুলি রাখার জন্য আপনি আপনার দোকানের ভেতরে আলাদা আলাদা ক্ষোভ এবং বিভিন্ন তাক তৈরি করতে পারেন এতে করে আপনারও গুলো খোঁজার সুবিধা হবে এবং দেখতেও ভাল লাগবে।

এছাড়াও আপনি নতুন ধরনের কিছু পদ্ধতি অবলম্বন করতে পারেন। যেমন গাড়ির পার্টস গুলি রাখার জন্য যেসকল আলাদা আলাদা ক্ষোভ তৈরি করেছেন সেই প্রত্যেকটা খোপের গায় কাগজে টাইপ করা পার্টস এর নাম লিখে রাখতে পারেন এবং সেই সব গুলিতে শুধুমাত্র সেই ধরনের পার্টস রেখে দেবেন। আবার প্রতিটা পার্টস এর গায়ে বড় বড় করে তার নাম লেখা থাকবে যাতে পারোস গুলি চিনতে আপনার অসুবিধা হয়। এতে করে আপনার যে লাভ হবে সেটা হচ্ছে দোকানটি দেখতেও যেমন ভাল হবে আবার আপনি যদি কোনো কারণে দোকানে না আসেন আপনার কর্মচারীরাও যে কোন পার্টস খুঁজে পেতে তাদের সুবিধা হবে।

অটোমোবাইল পার্টস এর মার্কেটিং কিভাবে করবেন?

অটোমোবাইল পার্টস এর দোকান দিয়ে ব্যবসা করতে গেলে অবশ্যই আপনাকে প্রথমে অল্প হলেও মার্কেটিং করতে হবে। তাই মার্কেটিং করার জন্য আপনাকে প্রথমে আপনার নিকটবর্তী প্রতিটা গাড়ির গ্যারেজ এর সঙ্গে যোগাযোগ করতে হবে। গাড়ির গ্যারেজে কাজ করা মেকানিকদের সঙ্গে আপনার সম্পর্ক ভাল রাখতে হবে যাতে করে তারা যখন কোন গাড়ি সারাবে তারা আপনার দোকান থেকেই সেইসব গাড়ির পার্টস কিনে নিয়ে যায়। এছাড়াও গাড়ির পার্টস এর ব্যবসা করতে হলে আপনাকে বিভিন্ন পোস্টার তৈরি করে বিভিন্ন এলাকার মোড়ে মোড়ে গিয়ে লাগাতে হবে। আবার আপনি কিছু ফ্লেক্স ছাপিয়ে বিভিন্ন মোড়ে মোড়ে বেঁধে দিয়ে আসতে পারেন এতে করে আপনার দোকানের বিজ্ঞাপন অনেক ভালো হবে।

অটোমোবাইল এক্সেসরিজ পাইকারি ব্যবসা(Automobile Accessories Wholesale Business)

আপনি অটোমোবাইল পার্টস এর ব্যবসা শুধু করতে করতে আপনার ব্যবসা যখন বড় হয়ে যাবে তখন আপনি চাইলে অটোমোবাইল পার্টস এর পাইকারি ব্যবসা শুরু করতে পারেন। অটো মোবাইল এক্সেসরিজ এর পাইকারি ব্যবসা করতে হলে আপনাকে যে জিনিস গুলো সবচেয়ে বেশি করে মাথায় রাখতে হবে সেগুলি হল।

বিভিন্ন বড় বড় ম্যানুফ্যাকচারার পার্টস কোম্পানি থেকে সরাসরি আপনাকে পার্টস কিনতে হবে।
গাড়ির যেসকল পার্টস বাজারে কিনতে পাওয়া যায় না সেগুলো বাইরে থেকে আপনাকে আমদানি করতে হবে।
যদি অনলাইন মার্কেট এর পার্টস এর দাম কম হয় তাহলে সেখান থেকে আপনাকে সংগ্রহ করতে হবে।
প্রতিটা অটোমোবাইল পার্টস এর দোকানে দোকানে গিয়ে অল্প দামে গাড়ির পার্টস বিক্রি করতে হবে।
অটোমোবাইল পার্টস এর ছোট ব্যবসায়ীদের সাথে সম্পর্ক ভাল রাখতে হবে।
দরকার হলে দ্রুত পরিবহনের মাধ্যমে তাদের কাছে পার্টস পৌঁছে দিতে হবে।
বাইরে থেকে কেউ যদি আপনার দোকানে পার্টস অর্ডার করে তাকে পার্টস এক্সপোর্ট করতে হবে।

মোটামুটি এইসকল জিনিসগুলি আপনি যদি মেনে চলেন তাহলে আপনি একজন অটোমোবাইল পার্টস এর পাইকারি ব্যবসায়ী হতে পারবেন। তবে পাইকারি ব্যবসা শুরু করার আগে আপনি ছোট করে দোকান দিয়ে অটোমোবাইল পার্টস এর ব্যবসা শুরু করুন।

অবশ্যই পড়ুন- ই-কমার্স ব্যবসা শুরু করুন

অটোমোবাইল পার্টস অনলাইনে কেনার সুবিধা কি?

অটোমোবাইল এক্সেসরিজ বা পার্টস আপনি যদি অনলাইন থেকে কিনেন তাহলে আপনার সবচেয়ে যে সুবিধা হবে সেটি হচ্ছে অনলাইন ডেলিভারি আপনার দোকানে বসেই পেয়ে যাবেন। এছাড়াও যে সকল গাড়ির পার্টস আপনাকে খুজতে খুজতে দম বেরিয়ে যাবে সেইসব পার্টস আপনি অনলাইনে খুব সহজে খুজে পাবেন। তবে অনলাইন থেকে অটোমোবাইল পার্টস কেনার পরিবর্তে আপনি পাইকারি বাজার থেকে সরাসরি কিনলে আপনার সময় একটু খরচ হলেও পার্টস ভাল পাবেন। তবে আপনার কাছে সময় কম থাকলে আপনি অনলাইনেই অটোমোবাইল পার্টস কিনতে পারেন।

Automobile accessories
অটোমোবাইল এক্সেসরিজ

ক্রেতা সংরক্ষণ কি করে করবেন?

আপনার কাছ থেকে অটোমোবাইল পার্টস যেসকল ক্রেতারা কিনবে তারা যাতে রেগুলার আপনার দোকান থেকেই কিনে তার জন্য আপনাকে বিশেষ কিছু পদ্ধতি অবলম্বন করতে হবে। আপনিও জানেন যে বাজারে অনেক অটোমোবাইল পার্টস এর দোকান রয়েছে, আপনার থেকে ক্রেতা ছিনিয়ে নেওয়ার জন্য অন্য ব্যবসায়ীরাও অল্প দামে গাড়ির পার্টস বিক্রি করতে পারে। তাই সেই সকল ক্রেতাদের আপনার দোকানে ধরে রাখার জন্য বা ক্রেতাদের সংরক্ষণ করে রাখার জন্য অবশ্যই আপনাকে নতুন কিছু পদ্ধতি অবলম্বন করতে হবে।

আপনি ব্যবসার শুরুতে প্রথম 100 জন ক্রেতাকে কৃতজ্ঞতা স্মারক ও বিভিন্ন গিফ্ট উপহার দিতে পারেন। এতে করে আপনার দোকানে ক্রেতার সংখ্যাও বাড়বে আর ক্রেতারা আপনার দোকান ছেড়ে অন্য কোন ব্যবসায়ীর কাছ থেকে গাড়ির পার্টস কিনবে না। এতে করে আপনার দোকানের সুনাম বৃদ্ধির সাথে সাথে ব্যবসার লাভের পরিমাণ বহুগুণ বৃদ্ধি পাবে।

এছাড়াও আপনাকে প্রতিটি ক্রেতার সাথে সুন্দর ব্যবহার করতে হবে। ক্রেতাদের যদি কোন সময় কোন পার্টস খারাপ গিয়ে থাকে সেই খারাপ পার্টস গুলি তৎক্ষণাৎ পাল্টানোর ব্যবস্থা করতে হবে। এছাড়াও আপনাকে লক্ষ্য রাখতে হবে আপনার দোকানে পাওয়া অটোমোবাইল পার্টস গুলির দাম যেন অন্য দোকানের থেকে বেশি না হয়ে থাকে।

অটোমোবাইল পার্টস এর ব্যবসা লাভ কত? (What is the business profit of Automobile Parts?)

অটোমোবাইল পার্টস এর ব্যবসা যেমন পড়তে একটু বেশি টাকা খরচ করতে হয় তেমন এই ব্যবসাতে লাভের পরিমাণটাও অনেকটাই বেশি থাকে। অটোমোবাইল এক্সেসরিজ এর ব্যবসা একটি দীর্ঘমেয়াদী ব্যবসা। একবার আপনার যখন অটোমোবাইল পার্টস এর ব্যবসা চলতে থাকবে তখন আপনাকে আর পিছন ফিরে তাকানোর প্রয়োজন পড়বে না। অটোমোবাইল পার্টস এর ব্যবসা তে যে সকল ছোট ছোট জিনিস গুলি আপনি বিক্রি করবেন যেমন সিট কভার, বডি কভার, ইঞ্জিন অয়েল প্রভৃতি, এইসব জিনিসের ওপর আপনার লাভ থাকবে 25% থেকে 30%


আবার গাড়ির বড় বড় পার্টস যেমন চাকা, বুফার, সিট, ক্লাচ ব্রেক ইত্যাদি জিনিসগুলি বিভিন্ন ব্র্যান্ড অনুযায়ী আপনার লাভ হবে 45% এর মতো। অর্থাৎ বলা যেতে পারে 60 টাকার জিনিস কে আপনি 100 টাকায় বিক্রি করতে পারেন। আবার কোন কোন জিনিস 50 টাকার আপনি কিনে 100 টাকায় বিক্রি করতে পারেন।

তবে সাধারণত অটোমোবাইল পার্টস এর ব্যবসা করে প্রতিমাসে 70 হাজার টাকা থেকে 1.5 লক্ষ টাকা পর্যন্ত আয় করতে পারেন একজন ছোট মাপের অটোমোবাইল পার্টস ব্যবসায়ী। যেকোনো ব্যবসায় লাভের পরিমাণ টা ব্যবসা শুরুর দিকে একরকম থাকে, আবার ব্যবসার সুনাম বৃদ্ধি পেতে পেতে ব্যবসাটা যখন অনেক সময় ধরে পুরানো হতে থাকে তখন লাভের পরিমাণ টা আর একরকম হয়। আপনাকে মনে রাখতে হবে আপনার ব্যবসায় লাভ তখনই বেশি হবে যখন আপনার দোকানে ক্রেতার পরিমাণটা বেশি হবে। তাই ক্রেতাকে আপনি কি ধরনের নতুন পদ্ধতিতে আপনার দোকানের প্রতি আকৃষ্ট করবেন, সেই কৌশলটা ও আপনার এলাকা অনুযায়ী আপনাকে ভাবতে হবে

নতুন নতুন ব্যবসার আইডিয়া দেখুন-

ব্যবসা শুরু করার সহজ 12 টি উপায়

পেরেক তৈরির ব্যবসা করে আয় করুন প্রতি মাসে 80 হাজার টাকা

Leave a Comment